Abdul Kader and another Vs. The State [4 LNJ (2015) 470]

Case No: Criminal Appeal No. 3767 of 2001

Judge: Md. Ashraful Kamal,

Court: High Court Division,,

Advocate: Mr. Farid Uddin Khan,Mr. Md. Farhad Ahmed,Mr. Bashir Ahmed,,

Citation: 4 LNJ (2015) 470

Case Year: 2015

Appellant: Abdul Kader and another

Respondent: The State

Subject: Solitary Witnesses,

Delivery Date: 2011-12-05


HIGH COURT DIVISION
(CRIMINAL APPELLATE JURISDICTION)
 
A. K. M. Asaduzzaman, J.
And
Md. Ashraful Kamal, J.

Judgment on
05.12.2011
}
}
}
Abdul Kader and another
. . .Appellants
-Versus-
The State
. . . .Respondent
 
 
Code of Criminal Procedure (V of 1898)
Section 60
Any person arrested without warrant by a police officer shall be sent either before Magistrate having jurisdiction in the case, or before the officer in charge of the police station as soon as posible, except the reasonable time necessary for the journey from the place of arrest to a Magistrate having jurisdiction in the case or to the officer in charge of a police station. . . . (39)

Evidence Act (I of 1872)
Section 134
Law does not require particular number of witnesses to prove a case and conviction may be well founded even on the testimony of solitary witness provided his integrity and trustworthiness is not shaken by any adverse circumstances appearing on the record against him and the court at the same time is convinced that his testimony has ring of truth. The well known maxim which is a Golden Rule that “evidence has to be weighed and not counted” has been given statutory endorsement in section 134 of the Evidence Act which provides that no particular number of witnesses shall in any case be required for the proof of any fact. ... (41)

Evidence Act (I of 1872)
Section-134
Though section 134 of the Evidence Act provides that no particular number of witnesses is required for the proof of any fact, but in order to convict an accused solely on the basis of solitary witnesses like the police officer or the person who made the search and seizure, the Judge must ensure that these witnesses are disinterested and the evidence is unimpeachable and unshaken and the other witnesses to the search who are alleged to have resiled from their previous stand, are unworthy of credit. . . . (42)

Evidence Act (I of 1872)
Sections 3 and 8
It appears to us that the order of conviction and sentence is based on the uncorroborated testimony of the police witness only without taking into consideration that the evidence of such partisan witnesses is not unimpeachable being not independent. . . .(52)
 
Mr. Farid Uddin Khan, Advocate
. . . For the appellants

Mr. Md. Farhad Ahmed, D.A.G. with
Mr. Bashir Ahmed, A.A.G
. . . For the respondent

Criminal Appeal No. 3767 of 2001
 
JUDGMENT
Md. Ashraful Kamal, J:

This criminal appeal was registered at the instance of the convict-appellants Abdul Kader and Salimullah against the judgment and order of conviction and sentence dated 09.08.2001 passed by the Assistant Metropolitan Sessions Judge and Special Tribunal No.10, Chittagong in Special Tribunal Case No. 149 of 2000 convicting the appellants under section 19(A) of the Arms Act, 1878 and sentencing them to suffer rigorous imprisonment for 15 (fifteen) years each.

Brief facts, necessary for the disposal of the appeal are as follows;
On 06.11.1999 Md. Alamgir, Sub-Inspector of police lodged a First Information Report with the Doublemooring Police Station, stating, inter alia that he alongwith his force were returning from their duties, when they reached to the place of occurrence at about 2:30 p.m.  then they  saw 4/5  young people were standing over there i.e. at the southern part of the House No. E/33, tiger pass railway colony under Police station-Doublemooring. When they challenged them all were fled away except the present appellants. After searched, they found one country made pipe gun with one cartridge from the waist of the appellant A. Kader and one country made pipe gun with one cartridge from the waist of the appellant Salim Ullah. Then, they seized the said incriminating articles and prepared the seizure list infront of the witnesses.  Thereafter, they hand over the said two appellants with seized arms to the Doublemooring Police Station.

After recording of the First Information Report the charge of the investigation was entrusted to Mr. Arman Hossen Sub-Inspector of Doublemooring Police, who on getting the responsibility visited the place of occurrence, prepared the sketch map with index, seized the alamots, examined the witnesses under section 161 of the Code of Criminal Procedure. After concluding the investigation, the investigating officer having found prima facie case against the convict appellants submitted charge sheet under section 19 (A) of the Arms act 1878 on 13.04.2000.

Thereafter, the case record was transmitted to the Special Trubunal No. 10, Chittagong for trial. The Special Tribunal No-10 on 04.09.2000 framed charge under section 19A of the Arms Act 1878 against the convict appellants, which was duly read over to them and to which they pleaded not guilty and claimed to be tried.

In this case prosecution examined as many as 5 (five) witnesses and defence examined none. On closing of the evidence the convict appellants were examined under section 342 of the Code of Criminal Procedure where they again pleaded innocence.

From the trend of the cross-examination of the prosecution witnesses it appears that the defence case is of innocence and that no incriminating articles were recovered from their control and possession, but they have been falsely implicated in this case out of enmity and grudge. 

Considering the evidence on record, adduced by the prosecution, the Assistant Metropolitan Sessions Judge and Special Tribunal No.10, Chittagong found the convict appellants guilty of the offence punishable under section 19(A) of the Arms Act, 1878 and sentencing them to suffer rigorous imprisonment for 15 (fifteen) years.

Being aggrieved by the impugned judgment and order dated 9th August, 2001 passed by the Assistant Metropolitan Sessions Judge and Special Tribunal No.10, Chittagong, the appellants preferred the instant appeal before this court, which was admitted on 25.06.2002. 

Mr. Farid Uddin Khan, the learned Advocate appearing for the appellants submits that, this is absolutely a case of no evidence against the convict appellants. Next, he submits that there is no corroborative evidence on records in respect of the recovery of the alleged arms and ammunution. Rather, they are contradicted to each other. He further submits that from the statement of the PW-5 it is evident that at the time of occurrence no public witnesses was present. Finally, he submits that seizure list witnesses did not support the proseuction case in respect of seizure of the incriminating articles from the possession of the convict appellants. On the basis of the above submission, Mr. Khan prays for acquital of the appellants. 

Mr. Farhad Ahmed, the learned Deputy Attorney General appearing for the respondent submits that, all the prosecution witnesses proved the prosecution case to the hilt and prays that the present appeal should be dismissed in all fairness.

Before entering into the merit of the appeals, let us now examine the prosecution witnesses one after another.

Sheikh Md. Alamgir, Assistant Sub-Inspector as PW-1 in his examination in chief stated that গোলাম মস¹ফা হাঃ এবং গোলাম হোসেন আনছার পি,সি কামান্ডার প্রদীপ  বিশ্বাস ও সঙ্গীয় অন্যান্য কনেষ্টবল সহ আম বাগান টাইগার পাশ এলাকায় উক্ত মামলার আসামীদের ধৃত করার জন্য তল্লাসীতে গেলে রাত্র অনুমান ২-৩০ ঘটিকার সময় টাইগার পাস রেলওয়ে কলোনীর মধ্যে দিয়ে পায়ে হাটিয়া ফেরার পথে  টাইগার পাশ কলোনীর ই/৩৩ বি এর দক্ষিন পার্শে ৫/৬ জন যুবক কে দেখিতে পাইয়া চ্যালেঞ্জ করিলে তাহারা দৌড়াইয়া পালাইবার চেষ্টা করেz আমি এবং আমার সঙ্গীয় অফিসার ও ফোর্সসহ ঘেরাও করিয়া ঝাপটাইয়া পরিয়া তাহাদের  ২ (দুই) জনকে ধৃত করি তাহাদের দেহ তল্লাসী করিয়া আসামী কাদেরের কোমরে একটি পাইপগান গুলিভর্তি অবসায় এবং আসামী সেলিমুল্লাহর  দেহ তল্লাশি করিয়া একটি পাইপগান গুলিভর্তি অবসায় পাইয়া আশে পাশের উপসিত সাক্ষীদের উপসিতিতে জব্দ নামা মূলে জব্দ করিz এই সেই জব্দ নামা তাহা প্রদর্শনী-১ এবং তাহাতে আমার দস¹খত প্রদর্শনী  ১/১ চিহ্রিত করিলাম  তৎক্ষনাৎ ডাবলমুরিং থানায় সংবাদ দিলে ডাবলমুরিং থানার এ,এস,আই আঃ মজিদ তাহার মোবাইল টিম নিয়া ঘটনাসলে আসে এবং আমাদের সাহায্য করেনz আসামীদের অস সহ জিআরপি থানায় নিয়া যাই আমি নিজে বাদী হইয়া ডাবলমুরিং থানায় নিয়ামিত মামলা রুজু করার এজাহার সহ আসামী পাঠাইয়া দেইz আমার দায়েরকৃত এজাহার তাহা প্রর্দশনী -২ এবং তাহাতে আমার দস¹খত প্রর্দশনী ২/১ চিহ্রিত করিলাম z গ্রেপ্তারকৃত আসামী কাদের এবং সেলিমউল্লাহ আদালতে আছেz এবং আমার দ্বারা উদ্ধারকৃত অস» যাহা জব্দ তালিকায় আলামত হিসাবে উল্লেহ আছেz
উক্ত অস»গুলি আজ আদালতে উপসিত আছেz দুইটি পাইপগান এবং দুইটি গুলি তাহা বসº প্রর্দশনী ১ এবং ১(এ) সিরিজ করা হইল

XXXX আসামী সেলিমের পক্ষে জেরা

ঘটনার দিন জিআরপি থানার মামলা নং ৩(১০)৯৯ এর আসামী ধরার জন্য আমরা থানা হইতে ৬-১১-৯৯ ইং তাং কয়টার সময় রওনা দেই স্মরন নাইz আসামী ধরার জন্য বাহির হইলে থানায় একটি জি,ডি করিয়া বাহির হইতে হয়z আমরা জি,ডি করিয়া বাহির হইz জি, ডি নং ২১২z ঐ জিডির কথা এজাহারে উল্লেখ করি নাইz মামলা নং উল্লেখ করিয়াছিz আমার দলে অফিসার এবং ফোর্সসহ কয়জন লোক ছিল এই মুহূর্তে তাহা খেয়াল নাইz আমরা সন্ধ্যার দিকে বাহির হইz এবং তিন চার ঘন্টা তল্লাশী চালাই পরেবলে রাত্র ২-৩০ টা পর্য ছিলামz ঐ মামলায় কোন আসামী ঐ দিন ধরিতে পারি নাইz আমরা রেল লাইন দিয়া হাটিয়া গিয়াছিলামz ই/৩৩ বি বাসায় লোকজনের মধ্যে একজন মহিলা ছিলz ঐ মহিলার কথা এজহারে উল্লেখ করি নাইz চট্রগ্রাম শহরে রাত্র ১ টার পরে সাধারন লোক চলাচল অনেকটা কমিয়া যায়z ঢাকা চট্রগ্রাম রোডের গাড়ী সারারাত চলে কিনা আমি জানিনাz ঢাকা থেকে চট্রগ্রামের নাইট কোচ সারারাত চলে নাz সত্য নহে আমাদের উপসিতি টের পাইয়া যারা দুস্কৃতিকারী ছিল তাহারা অস ফেলিয়া দৌড়াইয়া চলিয়া গিয়াছেz আর আসামী সেলিম  ঢাকা থেকে চট্রগ্রাম আসিয়া টাইগার পাস এলাকায় তাহার বোনের বাড়ী যাওয়ার পথে আমরা তাহাকে গ্রেপ্তার করিয়াছিz সত্য নহে উপসিত কোন স্বাক্ষীদের মোকাবেলা আমরা কোন অস উদ্ধার করি নাইz সত্য নহে  আমি অন্যায় লাভের বশবর্তী হইয়া আসল আসামী ছাড়িয়া দিয়া নিরিহ মোঃ  সেলিম ককা্রবাজারের লোক যাত্রীকে এই মামলায় ফাসাইয়া দিয়াছিz সত্য নহে আমি সেলিমের কোমরের লুঙ্গীর প্যাচ থেকে এই পাইপগান উদ্ধার করি নাই এবং  উদ্ধারকৃত অসগুলি এজহারে ১৫ ইঞ্চি উল্লেখ করিলেও  প্রকৃতপক্ষে এই অসগুলি ১৫ ইঞ্চির  বেশী লম্বা হইবে এবং এ এইরুপ লম্বা একটি অস লুঙ্গির প্যাচে গুজিয়া রাখা সম্ভব নয়z সত্য নহে আসামীদের কাছ থেকে অস উদ্ধার এবং সাক্ষীদের মোকাবেলা অস উদ্ধার করার কথা সম্পূর্ণ মিথ্যা
আসামীদের ধৃত করিয়া আমরা ডাবলমুরিং থানায় খবর দেই যেহেতু এলাকাটি ছিল ডাবলমুরিং এলাকা ছিল. আমরা তখননি  আসামীদের এবং  অসগুলি এ,এস,আই মজিদকে হ্যান্ড ওভার করি নাইz কারন একজন এ,এস,আই এর কাছে আসামী এবং অসগুলি হ্যান্ডওভার করা আইনগত হইত না
আমরা আসামী এবং অসসহ জি,আর,পি থানায় অনুমান ঘন্টাখানেক পরে হাজির হইz সঠিক সময় খেয়াল নাই
আমি জি,আর পি থানায় হাজির হইয়া এজাহার লিখিয়া অসসহ পুলিশ দ্বারা আসামী এবং অস সহ সকালের দিকে ডাবলমুরিং থানায় পাঠাইয়া দেইz ডাবলমুরিং থানায় এজাহার কয়টার সময় রেকর্ড হয় আমি বলিতে পারিনা
সত্য নহে আমি আসল আসামী ছাডিয়া দিয়া নীরিহ সেলিমকে অন্যায় লাভের বশবর্তী হইয়া এই মামলায় জড়াহ~য়া দিয়াছিz কথিত তারিখ ও সময়ে অস উদ্ধারের কথা সম্পূর্ণ মিথ্যা

XXXX (আসামী আঃ কাদেরের পক্ষে জেরা)

অামাদের উপসিত টের পাইয়া যে আসামীরা পালাইয়া ছিল তাহাদের মধ্যে ২ জনকে ধৃত করিয়াছি অন্যদেরকে ধৃত করা সম্ভব হয় নাইz আসামী আঃ কাদেরকে ধৃত করার পরে সে কি করে জিজ্ঞাসা করিলে সে বলে যে তাহার বাবার কাছে থাকেz সত্য নহে আসামী একজন টেক্সি ড্রাইভার,  এই কথা সে বলিয়াছিলz সত্য নহে আসামী আঃ কাদের আমবাগান গ্যারেজে টেক্সী জমা দিয়া সে যখন তাহার বাসায় ফিরছিল তখন আমরা তাহাকে ধৃত করিয়াছিz সত্য নহে আমি পুলিশ কর্মকর্তাদের কাছে থেকে পুরস্কার পাওয়ার জন্য আসল আসামিদেরকে ছেড়ে দিয়ে এই নিরিহ আসামীদেরকে গ্রেপ্তার করিয়াছি এবং আসল আসামীদের ফেলে দেওয়া অস» এই নিরিহ পথচারীদের গ্রেপ্তার করিয়া তাহাদের উপর দায়ভার চাপাইয়া দিয়াছেনz সত্য নহে আমি আসল আসামীদের ফেলে যাওয়া অস» দিয়া এই নীরিহ টেক্সী ড্রাইভার কাদেরকে এই মামলায় জড়িত করিয়াছি

Ajit Kumar Mallik as PW-2 in his examination in chief stated that এই মামলার ঘটনার তারিখ মনে নাইz সময় অনুমান ১/ ১-৩০ টা ঘটিকার সময় কতগুলি লোক যাইয়া আমার দরজা নক করিলে আমি জাগিয়া উঠি তখন তাহারা বলে অামরা থানার লোকz আমি দেখি যে তাহারা পুলিশz আমাকে বলে যে আপনাদের এলাকা থেকে ২ জন লোককে ধরিয়াছি আপনি ইহাদের চিনেন কিনা  দেখেনz লোক ২ জন কে দেখায় কি আমরা ঐ দুইজন লোককে তখন সনাক্ত করিতে পারি নাইz পুলিশ আমাকে আরো ২ টা পাইপগান দেখায়ে বলে যে, এই গুলি আহাদের কাছে পাওয়া গেছেz এবং একটি জব্দ তালিকায় আমার দসখত নেয় এই সেই অস আজ আদালতে উপসিত আছে এবং জব্দ তালিকায় আমার দসখত আছেz সনাক্তকৃত তাহা ১/২  চিহ্রিত করিলাম উপসিত আিসামী দুইজন যেইদিন দেখিয়াছি তাহারা আজ আদালতে উপসিত আছে তাহাদের নাম স্মরন নাইz আমি পরে পুলিশ আর কিছু জিজ্ঞাসা করে নাই

In cross examination he stated that

Mosharaf Hossain as PW-3 in his examination in chief stated that মামলার ঘটনার তারিখ স্মরন নাইz সময় রাত অনুমান ১-৩০ টার সময় আমি আমার বাসায় ঘুমাইয়া ছিলামz ১ট থেকে দেড়টার দিকে পুলিশ দরজায় নক করলে আমি জাগিয়া উঠিz এবং বাহির হইলে জানায় যে, আমরা দুইজন লোক গ্রেপ্তার করিয়াছি এবং তাহাদের দেখায়z ম্যাকিা্রতে দুইজন বাধা অবসায় ছিলz তাহাদের কাছে থেকে দুইটি অস দেখায় কি অস» খেয়াল নাইz আমার কাছ থেকে একটি লিখিত কাগজে দস¹খত নেয়z আমি দস¹খত দেইz এই সেই দস¹খত তাহা প্রদর্শনী ১/৩ চিহ্রিত করিলাম সেই দিন যে লোক দুইটিকে দেখায় আজ তাহাদের ডকে দেখিয়া বলিতে ছিল
এই পর্যায়ে এই স্বাক্ষীকে রাষ্ট্র ~~বরী ঘোষনা করেz

In cross examination he stated that seizure list was prepared in his presence and also stated that “”

Serjeant Kanchon Biswas as PW-4 in his examination in chief stated that  গত ৬/১১/৯৯ ইং তাং আমি জি,আর,পি থানা চট্রগ্রামে কর্মরত ছিলামz ঐ দিন রাত্রে সাব-ইন্সপেক্টর আলমগীর হোসেনের সংগে আসামী ধরার জন্য রেলওয়ে কলোনীতে যাইz ফেরার পথে রাত্রে ২-৩০ টার সময় টাইগার পাশ কলোনীর পথে আসার সময় দেখিতে পাই যে, ডিপটিউবয়েল বসানোর  জায়গার ৪/৫ জন লোক দাড়াইয়া আছেz আমরা তাদের চ্যালেনজ করার মুহূর্তে তাহারা দৌড়াইয়া পালাইতে চেষ্টা করে তখন আমরা তাদের ২ জনকে দৌড়াইয়া ধরিয়া ফেলি বাকীরা পালইয়া যায়z যে দুইজনকে ধরি তাহাদের মধ্যে একজন কাদের, তার কোমরে গুজানো অবসÛায় একটি পাইপগান ও একটি গুলি উদ্ধার করি অপর জন সেলিম তাহার কাছ থেকেও কোমরে গুজানো অবসÛায় একটি পাইপগান ও গুলি  উদ্ধার করিz ঘটনাসলে তাহাদের কে ধৃত করতঃ জব্দ তালিকা প্রসºত করেন সাব ইন্সপেক্টর আলমগীর উপসিÛত সাক্ষীদের  মোকাবেলা প্রসºত করা হয় জব্দ তালিকায় জব্দকৃত অস দুটি পাইপগান আজ আদালতে উপসিÛত আছে, দুইটি গুলিও উপসিত আছে এই সেই অস যাহা আসামী আলমগীর এবং সেলিমের দখলেও নিয় হইতে পাওয়া যায়z আসামী আলমগীর ও সেলিম আজ কোর্টে উপসিত আছে আমি তাহাদের চিনি, সনাক্ত করে পরে তদ¹কারী কর্মকর্তার কাছে জবানবন্দি দিয়াছি

XXX   In cross examination he stated that (আসামী সেলিমের পক্ষে জেরা)

আমি ঘটনার কতদিন পরে আই/ও এর কাছে জবানবন্দি দেই সঠিক খেয়াল নাইz মৌখিক জবানবন্দি দিয়াছিz লেখার পরে তিনি আমাকে পডিয়া শুনাইয়াছেনz সত্য নহে আমরা ২/২-৩০ টার দিকে ফিরিয়াছি, ইহা আমার জবানবন্দিতে নাইz সত্য নহে আমার জবানবন্দিতে বলিয়াছি অস»গুলি ১৫ ইঞ্চি লম্বা প্রকৃত অস»গুলি ২০ ইঞ্চি লম্বা হইবেz ৪/৫ জন লোকের মধ্যে থেকে ২ জনকে ধৃত করা হইয়াছেz বাকী ৩জন পালাইয়া গেছেz সত্য নহে যে দুইজনকে ধৃত করিয়াছি তাহারা পথিক ছিল, তাহারা রাস¹া দিয়া হাটিতেছিলz সত্য নহে কথিত অস»গুলি আসামীদের কাছ থেকে উদ্ধার করিয়াছি এই কথা মিথ্যা বলিয়াছিz আসামী সেলিমের প্যান্ট পড়া ছিল শার্ট গায়ে ছিল এবং একটি পলিথিনের ব্যাগ হাতে ছিলz সত্য নহেz
আমি জি,আর,পি চট্রগ্রামে ২ বৎসর যাবৎ আছিz চট্রগ্রামে ঢাকা চট্রগ্রাম রোডে বাস-ট্রাক সারা রাত চলেz জব্দ তালিকা করার সময় আমরা লোকজন ও সাক্ষী ডাকিয়া আনিz এজাহার লেখার সময় আমি থানায় উপসিÛত ছিলামz সত্য নহে জব্দ তালিকা থানায় লেখা হয় এবং ডাবলমুরিং থানায় ঘটনাসÛলে করা হয় নাইz আসামী সেলিম ঢাকা চট্রগ্রাম  কোচে আসার পরে তাহার বন্ধুর বাসায় যাওয়ার পথে তাহাকে ধৃত করি একথা সত্য নহেz সত্য নহে যে ৪/৫ জন লোক আমাদের দেখিয়া পালাইয়া যায়, তাহদের ফেলিয়া অস» দ্বারা এই আসামীদের মামলায় জড়িত করিয়াছি এবং আসামীদের কাছে কোন অস» পাই নাইz আমরা জীপ এবং পিকাপে করিয়া ঘটনাসÛলে গিয়াছিলাম সত্য  নহে আমরা কথিত মতে কথিত সÛানে আসামী সেলিমকে ধৃত করি নাই এবং জব্দ তালিকা করি নাইz সত্য নহে আমি উর্ধতন কর্মকর্তার নির্দেশে মিথ্যা সাক্ষ্য দিলামz সত্য নহে আমরা প্রসংশা কুড়ানোর জন্য এই অস»গুলি দিয়া মিথ্যা মামলা সাজাইয়াছিz

XXXX (আসামী কাদেরের পক্ষে জেরাঃ)

আসামী কাদের একজন টেক্সী চালক কিনা আমি জানিনাz আমি তাহাকে অস»সহ আসামী হিসাবে পাইয়াছিz সত্য নহে ৪/৫জন দুঃস্কৃতকারীর ফেলে যাওয়া অস» দিয়া টেকসী চালক কাদেরকে এই মামলায় জড়িত করিয়াছিz সত্য নহে উদ্ধারকৃত অস» এবং আজ আদালতে উপসিÛত অস» দুইটি এজাহারে বর্ণিত অস» নহেz সত্য নহে কাদের একজন টেকসী চালক তাহাকে মিথ্যাভাবে কাজ দেখানোর জন্য তাহাকে এই মামলায় জড়িত করিয়াছি এবং  আজ মিথ্যা সাক্ষ্য দিলাম

Md. Arman Hossain, Sub-Inspector of Police as PW-5 in his examination in chief stated that “আমি ৬-১১-৯৯ ইং তারিখ এস,আই পদে চট্রগ্রাম মহানগর পুলিশের ডবলমুরিং থানায় কর্মরত থাকা অবসÛায় অত্র মোকাদ্দমার আসামীদ্বয়ের বিরুদ্ধে অস» আইনের ১৯(ক) ও (চ) ধারায় রুজুকৃত অত্র মোকাদ্দমার তদ¿¹ভার আমার উপর অর্পন করা হলে আমি মোকাদ্দমার তদ¿¹ভার গ্রহন করে সজেজমিনে ঘটনাসÛল পরিদর্শন করে উহার খসড়া মানচিত্র ও সূচীপত্র প্রসºত করি স্বাক্ষীদের কে জিজ্ঞাসাবাদ করে তাদের জবানবন্দি ফৌজদারী কার্যবিধির ১৬১ ধারায় লিপিবদ্ধ করিz তদ অত্র মোকাদ্দমার আসামীদ্বয়ের বিরুদ্ধে অস» আইনের ১৯(ক) ও ১৯(চ) ধারায় অপরাধ সংঘটনের অভিযোগ প্রাথমিক ভাবে প্রমানিত হলে আমি উভয় আসামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ পত্র দাখিল করিz এই সেই ঘটনাসÛলের খসড়া মানচিত্র ও সূচীপত্র এবং তাতে থাকা আমার সাদর প্রদর্শনী -৩,৩/১, ৪ ও ৪/১ করা গেলz বাদীর এজহারের ভিত্তিতে আমি এফ,আই,আর কলাম পূরন করে আসামীদ্বয়ের বিরুদ্ধে অত্র মোকাদ্দমা রুজু করেছিz এই সেই এফ,অাই,আর কলাম ও তাতে থাকা আমার স্বাক্ষর আমার প্রদর্শনী ৫ ও ৫/১ করা গেলz
“আসামী সেলিম উল্লাহর সয়ী ঠিকানা ককা্রবাজার জেলায়z আমার তদ¿¿¹ প্রতীয়মান হয়নি যে, আসামী সেলিম ককা্রবাজার কলেজে এইচ, এস, সি, পরীক্ষার্থী ছিল কিনা সূচীপত্রের জ্ঞএঞ্চ চিহ্রিত সÛলই ঘটনাসÛল যেখানে ঘটনার সময়ে একটি গভীর নলকূপ সÛাপন করা হচ্ছিলz ঘটনার সময় রাত বিধায় ঘটনার সময়ে ঘটনাসÛলে কোন লোক ছিল নাz আমি দিবাভাগে তদ¿¹ করেছি এবং আমি তখন সেখানে ৬/৭ জন লোককে গভীুর নলকুপটি খনন করতে দেখেছিz ঘটনার সময়ে ঘটনাসÛলে কোন পাহারাদার ছিল নাz গভীর নলকুপ খননকারী ঠিকাদারকে তদ¿¹ কালীন পাওয়া যায়নি বিধায় তাকে পরীক্ষা করতে পারিনিz উক্ত ঠিকাদার তাদের লোক জনের  কেউ আসামীদের পক্ষে সাক্ষ্য প্রদান করতে সম্মত হয়নি z  ঘটনাসÛলের সবচেয়ে নিকটতম বাসা হলো বি, চিহ্রিত মতিন সাহেবের বাসা তদ¿¹কালীন সময়ে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি কি¿º আসামীদের ভয়ে তারা সাক্ষ্য প্রদান করেনিz ঢাকা চট্টগ্রামের মধ্যে চলাচলরত কিছু বাস টাইগার বাস দিয়ে চট্টগ্রাম প্রবেশ করে z আমি তদ¿¹কালীন সময়ে জব্দকৃত অস» দুইটি পর্যালোচনা করেছিz এবং আমার পরীক্ষয় প্রতীয়মান হয়েছে যে, জব্দকৃত অস» দুইটি আগ্নেয়াঅস» বস¹ প্রদর্শনী-১ লুyঁঙ্গর মধ্যে লুকিয়ে রাখা সম্ভব নয়z আমি তদ¿¹কালীন সময়ে চট্টগ্রাম জি আর পি থানার  ০৬/১১/৯৯ ইং তারিখের ২১২ নং জি, ডিই জব্দ করিনিz  ইহা সত্য নয় যে আমি সুষ্ঠু ভাবে তদ¿¹ না করেই ভিত্তিহীন ভাবে অত্র মোকাদ্দামার আসামী সেলিমের  বিরুদ্ধে অভিযোগ পত্র দাখিল করিয়াছিz

In cross examination he stated that “Z`š—Kvjxb mg‡q wPwn“Z nqwb †h, Avmvgx †gvt Avt Kv‡`i †eex †UKmxi WªvBfvi| Bnv mZ¨ bq †h Avwg wfwËnxb fv‡e Avmvgx Avt Kv‡`‡ii wei“‡× Awf‡hvM cÎ `vwLj K‡iwQ|”

These are all of the evidence on record adduced by the prosecution in support of the charge.

We have gone through the impugned judgment and order of conviction and sentence, the memo of appeal, deposition of the pws, FIR, charge sheet, charge, seizure list and the statement under section 342of the Code of Criminal Procedure.

It appears from the record that out of five prosecution witnesses, PW-2 and PW-3 are the seizure list witnesses, but they did not support the prosecution case in respect of recovery of the incriminating articles from the possession of the convict appellnats. Rather, they have stated that they were not present at the time of occurrence and the police took their signature forcefully in blank paper. Both of them were unable to identify the appellants in the dock.  Moreover, Arman Hossain (PW-5) investigation officer of this case in his cross examination supported the statement of said PW-2 and PW-3 and stated that “ঘটনার সময় রাত বিধায় ঘটনার সময় ঘটনাসÛলে কোন লোক ছিল নাz” So, the recovery of the alleged incriminating articles from the appellants is not at all been proved by the independent seizure list witnesses. 

Apart from that the prosecution witnesses No. 1 and 4 who are the police personnel stated in their examination in chief that they arrested the appellants at about 2-30 AM, but the prosecution witnesses No. 2 and 3 (who are the public witnesses) in their examination in chief stated that police awoke them from their house at about 1.00 or 1.30 AM and took their signatures on the seizure list.

Notwithstanding, statement of the PW-1 and PW-4 are profoundly contradictory and suspicious. PW-1 in his examination in chief stated that “Avwg m½xq GmAvB RvwKi †nv‡mb mv‡R©›U KvbyP›`ª wek¡vm mnKvix `v‡ivMv গোলাম মস¹ফা হাঃ এবং গোলাম হোসেন আনছার পি,সি কামান্ডার প্রদীপ  বিশ্বাস ও সঙ্গীয় অন্যান্য কনেষ্টবল সহ আম বাগান টাইগার পাশ এলাকায় উক্ত মামলার আসামীদের ধৃত করার জন্য তল্লাসীতে গেলে”, but in his cross examination he stated that “আমার দলে অফিসার এবং ফোর্সসহ কয়জন লোক ছিল এই মুহূর্তে তাহা খেয়াল নাইz”

Moreover, PW-1 in his examination in chief stated that “মামলার আসামীদের ধৃত করার জন্য তল্লাশীতে গে,,ল রাত অনুমান ২-৩০ ঘটিকার সময় টাইগার পাস রেলওয়ে কলোনীর মধ্যে দিয়ে পায়ে হাটিয়া ফেরার পথে টাইগার পাস কলোনীর ই/৩৩ বি এর দক্ষিন পার্শে ৫/৬ জন যুবককে দেখিয়া পাইয়া চ্যালে  করিলে তাহারা দৌড়াইয়া পালাবার চেষ্টা করেz, but in his cross examination he stated that আমরা সন্ধ্যার দিকে বাহির হইz এবং ৩/৪  ঘন্টা তল্লাশি চালাই (পরে বলে) রাত্র ২-৩০ টা পর্য¿¹ ছিলামz which creates serious doubt in respect of the alleged time of occurrence.

Furthermore, PW-1 in his cross examination stated that ই/৩৩ বি বাসায় লোকজনের মধ্যে একজন মহিলা ছিলz এই মহিলার কথা এজাহারে উল্লেখ করি নাইz” From this statement, it is cristal clear that PW-1 definitely went Flat No.E/33 B at the time of occurrence, but he did not mention the aforesaid fact in the FIR reason best known to him.

More interestingly, in his cross examination PW-1 stated that “ ঢাকা-চট্রগ্রাম রোডের গাড়ী সারারাত চলে কিনা আমি জানিনাz ঢাকা থেকে চট্রগ্রামের নাইট কোচ সারারাত চলে নাz” which is unbelievable. PW-1 as police officer must knew the aforesaid elementary information, but it appears that he intentionally did not acknowledge such true fact, therefore, his truthfullness became questionable.

It also appears from the FIR that one Md. Arman Hossen, Sub-Inspector Doublemooring Police Station, C.M.P. Chittagong registered the First Information Report of the present case upon receiving the written ejaher from the informant Sheikh Md. Alamgir, Sub-Inspector, Chittagong GRP Police Station, Chittagong. But the informant Sheikh Md. Alamgir as PW-1 in his cross examination stated that “ আমি জি আর পি থানায় হাজির হইয়া এজাহার লিখিয়া অস»সহ পুলিশ দ্বারা আসামী এবং অস»সহ সকালের দিকে ডবলমুরিং থানায় পাঠাইয়া দেই”.

In the ejaher infromant stated that “আসামী আঃ কাদের এর প্যান্টের কোমরে গুজানো অবসয় ১টি দেশীয় ~~তরি পাইপগান ও একটি কার্তুজভর্তি অবসÛায় এবং আসামী সেলিমউল্লার লুঙ্গি কোমরে প্যাচে মোড়ানো এক দেশীয় ~~তরি পাইপগান ও একটি কার্তুজভর্তি অবসয় আটক করিয়া সনীয় ডবলমুরিং থানায় সংবাদ দেইz ডবলমুরিং থানার ডেলটা- ৫ সহ দাঃ আঃ মজিদ ও তার সংগীয় ফোর্সসহ আসিয়া পৌছিলে ঘটনাসÛলের পাশে রেলওয়ে কোয়াটারে বসবাসরত সাক্ষী (১) মোশারফ হোসেন দফাদার (২) আমিনুল হক ও (৩) অজিত কুমার মল্লিক এর উপসিতিতে আসামীদ্বয়ের হেফাজতে থাকা পাইপগান ২টি জব্দ করিয়া হেফাজতে নেই z এবং চট্রগ্রাম জি,আর,পি, থানার সাধারন ডায়রী নং ২১২, তাং ৬-১১-৯৯ মূলে হাজির হইয়া জি,আর,পি, চট্রগ্রাম জেলার উর্দ্ধতন অফিসারদের সহিত আলোচনা করি
অতএব, ঘটনাসÛলটি ডবলমুরিং থানার এলাকাধীন হওয়ায় আসামী আঃ কাদের ও আসামী সেলিম উল্লা দ্বয়ের বিরুদ্ধে অস» আইনের ১৯ (ক) ও (চ) ধারা মোতাবেক বিচারের প্রার্থনা করিয়া উদ্ধারকৃত ২টি পাইপগান ও ২টি কার্তুজ ও জব্দ তালিকাসহ নিয়মিত মামলা রুজু করার প্রার্থনা জানাইয়া অত্র এজাহার দায়ের করিলাম”

Section 60 of the Code of Criminal Procedure deals with person arrested to be taken before Magistrate or officer in charge of police station, which runs as follows:

“A police - officer making an arrest without warrant shall, without unnecessary delay and subject to the provisions herein contained as to bail, take or send the person arrested before a Magistrate having jurisdiction in the case, or before the offficer in charge of a police station.”

Section 60 seem to be designed to secure that person arrested without warrant by a police officer shall take or sent the person arrested before a Magistrate having jurisdiction in the case, or before the officer in charge of a  police station without unnecessary delay.

Therefore, assence of the section 60 of the Code of Criminal Procedure is that any person arrested without warrant by a police officer shall be sent either before Magistrate having jurisdiction in the case, or before the officer in charge of the police station as soon as posible, except the reasonable time necessary for the journey from the place of arrest to a Magistrate having jurisdiction in the case or to the officer in charge of a police station.

In the present case, the distance between the place of arrest and Doublemooring Police Station is only ½ (half) kilometre, but the informant after arresting the appellants without warrant at about 2.30 am (06.11.1999) took them to the GRP police station instead of handed over them to A. Majid Sub-inspector of Doublemooring police station along with his forces present over there (according to FIR) or officer in charge Doublemooring police station. Rather, he detained the appllants in GRP police station untill handed over them to the Doublemooring Police station at about 12:45 pm, long after 10 hours from the time of arrest, without showing any single explanation. As police officer he is not justified in detaining a person for one single hour except some reasonable grounds. And such inordinate 10 hours delay is not acceptable and also violation of section 60 of the Code of Criminal Procedure.
Law does not require particular number of witnesses to prove a case and conviction may be well founded even on the testimony of solitary witness provided his integrity and trustworthiness is not shaken by any adverse circumstances appearing on the record against him and the court at the same time is convinced that his testimony has ring of truth. The well known maxim which is a Golden Rule that “evidence has to be weighed and not counted” has been given statutory endorsement in section 134 of The Evidence Act which provides that no particular number of witnesses shall in any case be required for the proof of any fact.

Though section 134 of the Evidence Act provides that no particular number of witnesses is required for the proof of any fact, but in order to convict an accused solely on the basis of solitary witnesses like the police officer or the person who made the search and seizure, the Judge must ensure that these witnesses are disinterested and the evidence is unimpeachable and unshaken and the other witnesses to the search who are alleged to have resiled from their previous stand, are unworthy of credit.

In the present case the evidences of the police witnesses, PW-1 and PW-4 are not unimpeachable character, rather it suffers from inherent weakness being partisan in spirit. The police witnesses have not also been able to state as to whether the arms and ammunition were recovered from the exclusive possession and control of the appellants. Rather, they are given so many self contradictory statements.  More particularly stated  that statement of  the PW-1 is not free from doubt. On the other hand PW-2 and PW-3 being independent witnesses and their evidence is quite natural and probable having remained unrebutted. Furthermore, the prosecution has failed to examine the ‘lady’ as mentioned by the PW-1 in his cross examination, who was present at the time of place of occurrence at Flat No. F/33 and or examine any witness of non-partisan character to bring home the charge against the appellants.

From the judgment of the trial Court also it appears to us that the order of conviction and sentence is based on the uncorroborated testimony of the police witness only without taking into consideration that the evidence of such partisan witnesses is not unimpeachable being not independent.

In the view of the above, we find that the assessment of evidence made by the trial Court is not at all satisfactory and that the guilt of the accused appellants have not been proved by reliable and satisfactory evidence and, therefore, we hold that the conclusion arrived at as to the guilt of the accused appellants by the learned trial Court is erroneous and hence cannot be sustained in law.

In the above facts and circumstances and considering the above mandatory provision of law and by taking all the evidences cumulatively it cannot be said that the guilt of the convict appellants have been proved beyond a shadow of doubt and accordingly, we are of the opinion that this appeal has substance and that the prosecution has failed to prove its case beyond reasonable doubt.

From the conspectus of the observations made above the inevitable result that follows is that this appeal succeeds.

In the result, the appeal is allowed. The impugned judgment and order of conviction and sentence dated 09.08.2001 passed by the Assistant Metropolitan Sessions Judge and Special Tribunal No.10, Chittagong in Special Tribunal Case No. 149 of 2000 under section 19 (A) of the Arms Act is hereby set aside as against the convict appellants Nos. (1) Abdul Kader son of Md. Abdur Rab (2) Salimullah son of Bashir Ahmed as they are found not guilty of the charge brought against them and they are acquitted from the charge levelled against them.

The convict-appellants Abdul Kader and Salimullah shall be set at liberty forthwith if they are not wanted in connection any other case.

The appellant No.2 Salimullah is on bail and discharged from his bail bond. 

Send down the lower Court’s records at once with a copy of the judgment for information and taking necessary action.

Ed.