Kartic Das Gupta Vs. Election Commission and others, 1 LNJ (2012) 45

Case No: Writ Petition No. 9748 of 2010

Judge: Farah Mahmub,

Court: High Court Division,,

Advocate: Mr. Rafique-ul-Huq,Fida M. Kamal,Mr. A. J. Mohammad Ali,Mr. Tawhidul Islam,Mr. Md. Bodruddoza,,

Citation: 1 LNJ (2012) 45

Case Year: 2012

Appellant: Kartic Das Gupta

Respondent: Election Commission and others

Delivery Date: 2011-02-15

HIGH COURT DIVISION
(SPECIAL ORIGINAL JURISDICTION)
 
Farah Mahbub, J.
Farid Ahmed, J.
 
Judgment
15.02.2011
Kartic Das Gupta
……Petitioner
VS
Election Commission and others
……Respondents
Mr. Mazbah Uddin
……Petitioner
VS
Govt. of Bangladesh and others
……Respondents
 
Constitution of Bangladesh, 1972
Article 102(2)
Electoral Rolls Act (Act No. 6 of 2009)
Section 7 (2) (4) and 11 (1)
From clause 9 of the circular dated 01.09.2009 it is evident that said special scrutinizing method adopted for the year 2009-2010 voter list did not cover Moheshkhali pourashava, district Cox’s Bazar. In view of the stated position of fact pourashava election of Cox’s Bazar particularly Cox’s Bazar Sadar, Teknaf, Moheshkhali and Chakaria  was not held on 27.1.2011 with update (nvjbvMv`) revised electoral roll. However, proviso to section 11(1) of the Act No. 6 of 2009 says if the electoral roll is not revised as per clause (a),(b) and (c) the validity or continued operation of the electoral roll shall not thereby be affected. Said provision of law is not under challenge in the present Rules. As such even though electoral roll of 2007-2008 has not been updated the validity and the continued operation of the earlier electoral roll shall remain in force.
 Upon scrutinizing the information and excluding the false voters the Deputy Secretary (Election) fixed 21.03.2010 for hearing objection thereto in view of section 7(2) of the Act No. 6 of 2009. Ultimately upon hearing the objection on 21.03.2010 final voter list have been published on 09.09.2010. As such, allegation of the petitioners of holding pourashava election of Cox’s Bazar district without publishing final electoral roll under section 7(4) of the Act No. 6 of 2009 falls through. Hemce the pourashava election of Cox’s Bazar Sadar, Teknaf, Moheshkhali and Chakaria, district Cox’s Bazar held on 27.02.2011 is declared as valid and lawful in the eye law. ....... (34 to 36)
 
Constitution of Bangladesh, 1972
Articles 102
In order to protect our economic, social and above all national security Election Commission is hereby directed to initiate process immediately under section 11(2) of the Act No. 6 of 2009 towards deletion of the name of Rohingas from the finally published electoral roll of 2007-2008 of Cox’s Bazar Sadar, Teknaf, Moheshkhali and Chakaria pourashavas of district Cox’s Bazar and also the electoral roll of 2009-2010 of Moheshkhali pourashava in accordance with law and to complete the said process within a period of 6 (six) months from the date of receipt of this judgment and order. On completion of the said process the Election Commission is also directed to intimate this Court the result thereof through the office of the Registrar. …… (42)
 
Constitution of Bangladesh, 1972
Articles 102
Electoral Rolls Act (Act No. 6 of 2009)
Sections 10 and 11 (2)
The qualified persons who are, however, entitled to be enlisted in the electoral roll may have their name included in the electoral roll in compliance of section 10 of the Act no. 6 of 2009. With the above observations and directions both the Rules are disposed of. ....... (43 to 44)
 
Abul Kalam Shamsuddin Vs. Anti-Corruption Commission, represented by its Chairman, Head Office; Segunbagicha, Dhaka and others reported in 14 MLR (AD) 153, Basic Engineering Limited Vs. Bangladesh and 3 others reported in 2006 (XIV) BLT(HCD)328, Kazi Mukhlesur Rahman Vs. Bangladesh and another reported in 26 DLR(AD)44 Ref..
 
Mr. Rafiqul Hoque, Senior Advocate, with Mr. Ahsanul Karim, Advocate with Mr. Jahangir Kabir, Advocate
--- For the Petitioner (in W.P. no.9348/10).
Mr. Md. Hafizur Rahman Khan, Advocate
---For the Petitioner (in W.P. no.601/11)
Mr. Tawhidul Islam, Advocate
---For the Respondent no.2. (in both the writ petitions)
Mr. Fida. M. Kamal, Senior Advocate with Mr. Kaisar Kamal, Advocate
---For the added respondent nos. 11-16. (in W.P. no.9348/10)
Mr. A.J. Mohammad Ali, Senior Advocate with Mr. Rubaiat Hossain, Advocate
---For the added respondent no.10.(in W.P. no.9348/10)
Mr. Md. Bodruddoza with Mr. Md. Earul Islam, Advocate
---For the added respondent no.9.(in W.P. no.9348/10)

Writ Petition No. 9748 of 2010, 611 of 2008 with Writ Petition No. 601 of 2011
 
Judgment
Farah Mahbub, J:
 
                Since common question of law and facts are involved in both the writ petitions as such those have been heard together and are being disposed of by this single judgment.
 
2.             In these Rules Nisi issued under Article 102 of the Constitution of the Peoples’ Republic of Bangladesh the respondents have been called upon to show cause as to why the impugned notification vide memo no. নিকস/(পৌর-১/১(২৪)পৌরঃসাধাঃ নির্বাঃপরিঃ/২০১০/৭৮ dated 02.12.2010 including the names of pourashavas namely Cox’s Bazar Sadar, Chakaria, Teknaf and Moheshkhali fixing 19.1.2011 for holding pourashava election without preparing a fresh voter list excluding the Rohingas, the citizen of Myanmer, should not be declared to have made without lawful authority and hence, of no legal effect and why the respondents should not be directed to prepare a fresh voter list excluding the names of the non-Bangladeshis (the Rohingas) and including the qualified voters.
 
3.             In writ petition no. 601 of 2011 the petitioner has also challenged the non-inclusion of the name of about 1000 other Bangladeshis including the petitioner in the electoral roll to be declared as without lawful authority and of legal effect.
 
4.             At the time of issuance of the Rule Nisi in writ petition no. 9748 of 2010 operation of the impugned notification dated 2.12.2010 was stayed.
 
5.             Facts, in brief, in connection with writ petition no.9748 of 2010 are as follows:
The petitioner is a voter of Cox’s Bazar Municipality with voter no.221373362050 and being a permanent citizen of Bangladesh has preferred this application in public interest contending, inter alia, that in exercise of power as conferred in section 7 of the ‘‘ভোটার তালিকা আইন, ২০০৯’’, (Act no.6 of 2009) (in short, the Act) the Election Commission (in short, the Commission) is duty bound to prepare a voter list of those voters who are the citizen of the country for every franchise area for holding elections; that in exercise of power as provided in section 17 of the ‘‘স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন, ২০০৯’’ (Act 58 of 2009) and rule 4 of the ‘‘স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) নির্বাচন বিধিমালা, ২০১০’’ a final voter list has to be prepared and published by the said Commission for every pourashava for holding pourashava election. In the year 2007 the Commission had prepared a draft electoral roll for the Cox’s Bazar District. The District administration of the said district observed that in the aforesaid draft voter list a huge number of citizen of Myanmar (Rohingas) had been included. To that effect the Deputy Commissioner, Cox’s Bazar vide memo no. Jeni-au/Cox/10(1)/Chha: Sa:Bho:Ta:Ho;/2009/226 dated 22.06.2010 (Annexure-B) and memo no. Jeni-au/Cox/10(1)/Chha:Sa:Bho: Ta:Ho;2009/344 dated 23.10.2010 (Annexure-C) addressing the respondent no.3 as well as the Secretary, Ministry of Foreign Affairs requested to take necessary steps towards exclusion of disqualified electors, but the Commission did not pay any heed to the same. The Commission, however, adopted a new special Form only for Cox’s Bazar district to examine the genuineness of the listed voters in the year, 2009 by issuing a circular bearing memo no. নিকস/নি-১/ভোতা-১/হালনাগাদ/২০০৯(অংশ-১)৫৮৯ dated 01.09.2009. In the process of re-examination of the voters held in 6 (six) upazillas of Cox’s Bazar district 62,509 voters were examined under random sampling and amongst the said numbers 45,859 voters were found as citizen of Myanmar. Accordingly, the said number of voters were excluded from the said list. That in the meeting of District Law and Order Committee of Cox’s Bazar district held on 28.11.2010 the issue of inclusion of huge number of citizen of Mayanmar (Rohingas) in the present voter list had been discussed and a resolution had been duly adopted by the said Committee for taking necessary steps towards rectifying the present voter list of Cox’s Bazar district. Several other organizations as well as the inhabitants of Cox’s Bazar Pourashava gave their representations to the Chief Election Commissioner, respondent no. 2 to take effective steps in the matter, but there was no response. Ultimately, the Commission without correcting the existing electoral roll declared the schedule of pourashava election of Cox’s Bazar district on 02.12.2010. Being aggrieved by and dissatisfied with the petitioner has preferred the instant application and obtained the present Rule.
 
6.             The petitioner in writ petition no. 601 of 2011 reiterating the statements so made in writ petition no. 9748 of 2010 further contended that about 1000 (one thousand) Bangladeshis along with the said petitioner though are qualified to be enlisted as voters but till date they have not been included in the electoral roll inspite of the fact that on the application of the petitioner and others the Registration Officer issued receipts of registration for enlisting their name as electors (Annexure-B). Hence, the application. 
 
7.             Mr. Rafiqul Hoque, the learned Senior Advocate appearing with Mr. Ahsanul Karim and Mr. Jahangir Kabir, the learned Advocates for the petitioner in writ petition no.9748 of 2010 submits that from the correspondences (Annexure-2 and 3 respectively to the affidavit-in opposition filed by the respondent 2) it is evident that more than 4 (four) lacs Rohingas, the citizen of Myanmar, have encroached Bangladesh territory and are now residing in the country on obtaining voter list, even passports. Accordingly, he submits that since they are not the citizen of Bangladesh hence, they cannot be enlisted as voters in order to apply the right of franchise being violative of section 7(1)(ka) of the Act no. 6 of 2009 as well as section 17(2)(ka) of the Act no. 58 of 2009. He further goes to submit that although the Deputy Commissioner, Cox’s Bazar vide memo dated 22.06.2010 brought it to the notice of the Commission contending, inter-alia, that about 10% voters of Cox’s Bazar district in the voter list of 2007 are Rohingas, but the Commission did not take any steps for up dating the same. He next contends that the Commission has held the pourashava election on 27.1.2011 on the basis of electoral roll prepared in the year 2007 whereas under section 7(4) of the Act no. 6 of 2009 it was incumbent on the part of  the Election Commission to publish final voter list after amendment or revision to that effect. Referring to the annexures so have been annexed to the affidavit-in-opposition filed by the respondent no.2 he submits that the voter list prepared in the year 2009 though has been amended, but no final list has yet been published. The said defect was within the knowledge of the Commission, in spite of that the Commission has held the paurashava election of Cox’s Bazar District in clear violation of section 7(4) of the Act no.6 of 2009. He further goes to submit that section 17(1) of the Act no.58 of 2009 clearly provides that for every ward the Commission shall frame a voter list; section 17(2) further provides that no person shall be entitled to be a voter unless he is a citizen of Bangladesh; rule 4(1) of the act in this regard provides that subject to sub-section (2) the District Election Officer shall frame voter list for every pourashava; rule 4(2) also states that the voter list has to be framed in such a manner that there must be separate voter list for male and female for every ward. In this context he contends that the electoral roll prepared in the year 2007 is meant for ‘‘নির্বাচন এলাকা’’; whereas rule 4 of the said Rules means ‘‘ভোটার এলাকা’’. Accordingly, he argues that no such voter list has been prepared by the Commission in compliance of the said provision of law. Hence, holding of pourashava election of the respective pourashavas of Cox’s Bazar District with the voter list prepared not in accordance with law suffers from malice in law, consequent thereto the election held on 27.01.2011 is without jurisdiction. The learned Advocate further contends  that by the impugned notification dated 02.12.2010 the Commission having decided to hold the election of 4 (four) Pourashavas of Cox’s Bazar district declared the schedule with time frame for stages such as submitting nomination papers, withdrawal of nomination paper and the date of election. The petitioner has challenged the said notification for holding of election without preparing a fresh voter list in accordance with law. During the pendencey of the Rule Nisi the subsequent notification dated 20.12.2010 was issued, which is, in fact, the continuation of the original notification giving revised time frame for holding the self-same election. From the said sequence of facts it is clearly apparent that the subsequent notification being continuation of the original schedule as such the Rule has not become infructuous. In this regard drawing attention to Annexure-G to the supplementary affidavit he contends that the petitioner has annexed the new notification by way of supplementary affidavit. Accordingly, he submits that this Hon’ble Court for the cause of justice may consider the subsequent events. In support of the said contention the learned advocate has referred the decisions in the cases of  Abul Kalam Shamsuddin Vs. Anti-Corruption Commission, represented by its Chairman, Head Office; Segunbagicha, Dhaka and others reported in 14 MLR (AD)153; and the case of Basic Engineering Limited Vs. Bangladesh and 3 others reported in 2006 (XIV) BLT(HCD)328. Mr. Hoque further goes to submit that the petitioner is a citizen of Bangladesh and as a citizen of the country he has every right as well as interest in every part of the land to secure the electoral roll. In this regard referring to Article 7(1) of the Constitution he submits that all powers in the Republic belongs to the people, the citizen of Bangladesh and as such if any foreigner is included in the electoral roll of any part of Bangladesh the supreme right of the citizen as guaranteed in Article 7 of the Constitution will be infringed. Therefore, as citizen of Bangladesh the petitioner has locus-standi to maintain this writ petition. In support of the said contention the learned Advocate has referred the decision in the case of Kazi Mukhlesur Rahman Vs. Bangladesh and another reported in 26 DLR(AD) 44.
 
8.             Mr.Md Hafizur Rahman Khan the learned Advocate appearing on behalf of the petitioner in writ petition no.601 of 2011 adopts the submission so have been advanced in writ petition no. 9748 of 2010.
 
9.             Conversely, Mr. Fida M.Kamal, the learned Senior Advocate appearing with Mr. Kaiser Kamal for the added respondent nos.11-16, Mr. A.J. Mohammad Ali the learned Senior Advocate appearing with Mr. Rubaiyat Hossain for the added respondent no.10 and Mr. Md. Bodruddoza the learned Advocate appearing with Mr. Earul Islam, for the added respondent no.9 made  similar line of arguments contending, inter-alia, that it is the settled principle of law that once the notification is published declaring election schedule, the process of election commences and according to the dictum of the Appellate Division once process of election is initiated it cannot be challenged under writ jurisdiction except in the case of quorum-non-judice and malice in law. In the present case, it has been contended that the pourashava election of Cox’s Bazar Sadar, Teknaf, Moheshkhali and Chakaria having been held in accordance with law with publication of election result in gazette this Rule is liable to be discharged as being not maintainable since the petitioner has failed to show that there has occasioned malice in law or that the election was held without jurisdiction. It has further been contended that the petitioner has challenged the notification dated 02.12.2010 for holding the election of the respective pourashavas of Cox’s Bazar district, but the order of stay of the notification passed by one of the Benches of this Division having been stayed by the Appellate Division a fresh notification was published on 20.12.2010 pursuant to which election of the respective pourashavas was held on 27.01.2011. Hence, in effect the first part of the Rule has become infructuous. So far the second part of the Rule so as to exclude the Rohingas from the voter list it has been argued referring to sections 10 and 11 of the Act no.6 of 2009 that correction and revision of the electoral roll is an on going process to be undertaken by the Election Commission in every year at a certain period excluding the period during which the process of election is going on and if there be any allegation of inclusion of a disqualified person in the electoral roll the Commission either following the prescribed form as mentioned in the  ‘‘ভোটার তালিকা বিধিমালা, ২০০৮’’  or adopting its own special method on recording its reason under section 11(2) of the Act no. 6 of 2009 shall delete the name therefrom. But for wrong inclusion of disqualified person shall not go to invalidate the voter list. As such, the pourashava election held with the said electoral roll cannot be called in question.
 
10.          The moot question to be resolved in the present Rules is whether pourashava election of Cox’s Bazar Sadar, Teknaf, Moheshkhali and Chakaria, district Cox’s Bazar held by the Election Commission allegedly with defective electoral roll without publishing final voter list as is required under section 7(4) of the Act no. 6 of 2009 ; for having included Rohingas as voters in the respective areas in violation of section 7(1)(ka) of the Act no. 6 of 2009; and also for having not prepared separate electoral roll for pourashava in compliance of “ সহানীয় সরকার (পৌরসভা) নির্বাচন আইন,২০০৯ ” (Act 58 of 2009), can be termed as lawful.   
 
11.          ‘‘স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) নির্বাচন আইন, ২০০৯’’ (Act, 58 of 2009) promulgated on 06.10.2009 regulates pourashava election of Mayor as well Counsellors. Section 17(1) of the said Ain provides as under-

১৭। ভোটার তালিকা।-(১) প্রতিটি ওয়ার্ডের জন্য নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রণীত একটি ভোটার তালিকা থাকিবে।
 
12.          For every ward there shall be an electoral roll prepared (প্রণীত) by the Election Commission. Section 120 of the said Act authorises the Commission to frame rules for the election of Mayors and Counsellors. In exercise of that power the Commission has framed ‘‘সহানীয় সরকার (পৌরসভা) নির্বাচন বিধিমালা, ২০১০’’ vide notification dated 05.10.2010 where rule 2(24) defines the word ‘‘ভোটার’’  which means:

২(২৪) ‘‘ভোটার" অর্থ এমন একজন ব্যক্তি যাহার নাম সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত আছে;
 
13.                          The word “  ভোটার তালিকা ” has been defined in rule 2(25) as- ‘‘২(২৫) ‘‘ভোটার তালিকা’’ অর্থ ভোটার তালিকা আইন, ২০০৯   (২০০৯ সনের ৬নং আইন) এর ধারা ৩(ছ) এ সংজ্ঞায়িত ভোটার তালিকা;’’
 
14.                          In other words, the final electoral roll prepared under Act no. 6 of  2009 is the ‘‘ভোটার তালিকা’’  of the ‘‘সহানীয় সরকার (পৌরসভা) নির্বাচন বিধিমালা, ২০১০” framed on 5.10.2010. Rule 4 further provides as under-

‘‘৪।       ভোটার তালিকা প্রণয়ন।-(১) উপ-বিধি (২) এর বিধান সাপেক্ষে, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা, পৌরসভার অমত্মর্ভুক্ত এলাকাসমূহের ভোটার তালিকা প্রণয়ন করিবেন।
উপ-বিধি (১) এ উল্লিখিত ভোটার তালিকা এইরুপে প্রণয়ন করিতে হইবে যেন প্রতিটি ওয়ার্ডের পুরুষ ও মহিলা ভোটারগণের জন্য পৃথক পৃথক ভোটার তালিকা থাকে।’’
 
15.          The District Election Officer shall on behalf of the Commission prepare (cÖYqb) electoral roll for the areas included in the Pourashava and for every ward there shall be separate voter list for male and female.
 
16.          Rule 9 further states-

৯।         ভোটার তালিকা সরবরাহ।- (১) কমিশন প্রত্যেক নির্বাচনী এলাকার রিটার্নিং অফিসারকে নির্বাচনী তফসিল ঘোষনার অব্যবহিত পরেই উক্ত এলাকার ভোটার তালিকা সরবরাহ করিবে।
(২)  রিটার্নিং অফিসার উপ-বিধি (১) এর অধীন প্রাপ্ত ভোটার তালিকা সংশ্লিষ্ট ভোটকেন্দ্রের প্রত্যেক প্রিজাইডিং অফিসারকে সরবরাহ করিবে।
 
17.          With the declaration of election schedule the Commission shall sent electoral roll to the concerned Returning Officer appointed under the rules for one or two pourashavas of the respective “নির্বাচনী এলাকা”, the constituency. The emphatic  contention of the petitioners in this regard is that pursuant to section 17(1) of the Act no.58 of 2009 and rule 4(2) of the ‘‘স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) নির্বাচন বিধিমালা’ ২০১০’’  for pourashava election the Commission has to prepare separate electoral roll under the said Rules. It has already been noted above that the word “ভোটার তালিকা ”referred in those provision relate back  to rule 2(25) which precisely prescribes that the voter list prepared under Act no. 6 of 2009 is “এই আইনের অধীনে চূড়ামত্ম ভোটার তালিকা”. Moreover, on proper examination of the entire provisions of the Act no.  58 of 2009 and the Rules, 2010 we failed to find any provision whatsoever dealing with the procedure of preparation of voter list of the respective pourashava. The procedure for preparation, amendment and revision of electoral roll have been categorically dealt with under the Act no. 6 of 2009 and “ভোটার তালিকা বিধিমালা, ২০১০.” However, the learned Advocate for the petitioners in this regard has drawn our attention to section 2(kha) of the Act no.6 of 2009 and submits that since the legislature has used the words “সংসদের নির্বাচনের জন্য ” as such Act no. 6 of 2009 is only applicable for parliament election. We do not any find substance thereto inasmuch as section 2(Ga) has included the word “ সংসদ বা কোন সহানীয় সরকার সংসহা ”  while defining the word “ নির্বাচিত সংসহা ” (elected body). That be the case, for holding pourashava election the final voter list prepared under the ভোটার তালিকা আইন, ২০০৯ shall be made applicable.
 
18.          Section 7 of the Act no. 6 of 2009 provides the procedure for preparation and publication of the electoral roll which runs as follows-

৭।         ভোটার তালিকা প্রণয়ন ও প্রকাশ।-
কোন ভোটার এলাকা বা নির্বাচনী এলাকার রেজিষ্ট্রেশন অফিসার, কমিশনের তত্ত্বাবধান, নির্দেশন এবং নিয়ন্ত্রণাধীনে, উক্ত ভোটার এলাকা বা নির্বাচনী এলাকার জন্য নির্ধারিত পদ্ধতিতে একটি খসড়া ভোটার তালিকা প্রণয়ন করিবেন, যাহাতে এমন প্রত্যেক ব্যক্তির নাম অমত্মর্ভুক্ত থাকিবে যিনি, যোগ্যতা অর্জনের তারিখে-
  1. বাংলাদেশের একজন নাগরিক হন;
  2. আঠারো বৎসরের কম বয়স্ক নহেন;
  3. কোন উপযুক্ত আদালত কর্তৃক অপ্রকৃতিস্থ বলিয়া ঘোষিত নহেন; এবং
  4. উক্ত ভোটার এলাকা বা, ক্ষেত্রমত, নির্বাচনী এলাকার অধিবাসী বা অধিবাসী বলিয়া গণ্য হন।
উপ-ধারা (১) এর অধীন প্রণীত খসড়া ভোটার তালিকা, তৎসম্পর্কে দাবী এবং আপত্তি আহবানকারী একটি নোটিশসহ, নির্ধারিত পদ্ধতিতে প্রকাশ করা হইবে।
রেজিষ্ট্রেশন অফিসার, নির্ধারিত পদ্ধতিতে, খসড়া ভোটার তালিকায় এইরূপ সংযোজন, পরিবর্তন বা সংশোধন করিবেন যাহা কোন দাবী বা আপত্তির উপর সিদ্ধামেত্মর ফলে প্রয়োজনীয় হইতে পারে বা কোন লিখন, মুদ্রণ বা অন্য কোন প্রকার ত্রুটি সংশোধনের জন্য আবশ্যক হইতে পারে।
উপ-ধারা (৩) এর অধীন সংযোজন, পরিবর্তন বা সংশোধন, যদি থাকে, করিবার পর রেজিষ্ট্রেশন অফিসার, নির্ধারিত পদ্ধতিতে, কোন ভোটার এলাকা বা নির্বাচনী এলাকার জন্য চূড়ামত্ম ভোটার তালিকা প্রকাশ করিবেন এবং প্রকাশিত চূড়ামত্ম ভোটার তালিকাসমূহ উক্ত ভোটার এলাকা বা নির্বাচনী এলাকার জন্য ভোটার তালিকা বলিয়া গণ্য হইবে।
উপ-ধারা (৪) এর অধীন প্রকাশিত চূড়ামত্ম ভোটার তালিকা অবিলম্বে কার্যকর হইবে।
চূড়ামত্ম ভোটার তালিকা নির্ধারিত পদ্ধতিতে রক্ষিত হইবে এবং জনসাধারণের পরিদর্শনের জন্য উন্মুক্ত থাকিবে, এবং কোন ব্যক্তি নির্ধারিত ফি প্রদান সাপেক্ষে উহার কপির জন্য আবেদন করিলে নির্ধারিত পদ্ধতিতে তাহাকে উহা সরবরাহ করা হইবে।
ভোটার তালিকা নির্ধারিত পদ্ধতিতে কমিশনের ওয়েব সাইটে সর্বসাধারণের জন্য সংরক্ষিত থাকিবে এবং হালনাগাদকৃত তালিকা দ্বারা উহা প্রতিস্থাপিত হইবে।
কোন ভোটার এলাকা বা নির্বাচনী এলাকার ভোটার তালিকায় বা উহার খসড়ায় কোন স্পষ্ট ত্রুটি বা অনিয়ম দৃষ্টিগোচর হইলে কমিশন অনুরূপ তালিকা বা খসড়া বাতিলপূর্বক উক্ত ভোটার এলাকা বা নির্বাচনী এলাকার জন্য নূতন ভোটার তালিকা প্রণয়ন করিবার নির্দেশ দিতে পারিবে।
কমিশন বিভিন্ন নির্বাচিত সংস্থার নির্বাচনের জন্য, প্রয়োজন মনে করিলে, ভোটার তালিকা পুনর্বিন্যাস করিতে পারিবে।’’
 
19.          The first and foremost important criterion to be the qualified electors is that the electoral roll shall contain the name of the person who on the qualifying date is a citizen of Bangladesh. However, the word has further been defined in section 3(Ja) of the Act no. 6 of 2009, which states as follows-“

৩(জ)         ‘‘যোগ্যতা অর্জনের তারিখ’’ অর্থ এই আইনের অধীন প্রতিটি ভোটার তালিকা প্রণয়ন, সংাশোধন, পুনঃপরীক্ষিত বা হালনাগাদের ক্ষেত্রে যেই বৎসর উহা এইরূপে প্রণীত, সংশোধিত, পুনঃপরীক্ষিত বা হালনাগাদকৃত হয় সেই বৎসরের জানুয়ারী মাসের পহেলা তারিখ;চ
 
20.          Sub-sections (2)-(8) of section 7 narrates the preparation of electoral roll from the stage of draft publication upto publication of final electoral roll. However, under section 7(8) on the count of “¯úó µywU ev Awbqg” in or in the preparation of electoral roll of any electoral area or constituency the Commission may by order direct such electoral roll or draft to be cancelled and a fresh electoral roll for that electoral area or the constituency be prepared afresh.
 
21.          Section 10 further provides for amendment and correction of electoral roll, which is quoted herein below-

১০।    ভোটার তালিকা সংশোধন।- বিভিন্ন নির্বাচিত সংস্থার নির্বাচনের সময়সূচী ঘোষণার তারিখ হইতে নির্বাচন অনুষ্ঠানের সময়কাল ব্যতিরেকে, অন্য যে কোন সময়, নির্ধারিত পদ্ধাতিতে, প্রয়োজন অনুসারে নিম্নোক্তভাবে সংযোজন ও বিয়োজনপূর্বক ভোটার তালিকা সংশোধন করা যাইবে, যথাঃ-
উক্ত তালিকায় এমন কোন যোগ্য ব্যক্তির নাম অমত্মভুক্ত করা, যাহার নাম অমত্মর্ভুক্ত করা হয় নাই, বা যিনি ইহা প্রণয়নের পর বা ইহার সর্বশেষ পুনঃপরীক্ষার পর অনুরূপ উক্ত তালিকায় অমত্মর্ভুক্ত হইবার যোগ্য হইয়াছেন; বা
উক্ত তালিকাভুক্ত যে ব্যক্তি মৃত্যুবরণ করিয়াছেন বা যিনি অনুরূপ তালিকায় অমত্মর্ভুক্ত হইবার সময় অযোগ্য ছিলেন বা অযোগ্য হইয়াছেন তাহার নাম কর্তন করা; বা
যিনি বাসস্থান পরিবর্তনের কারণে নূতন ভোটর এলাকা বা, ক্ষেত্রমত, নির্বাচনীর এলকার অধিবাসী হইয়াছেন, পূর্বের ভোটার এলাকার বা ক্ষেত্রমত, নির্বাচনীর এলাকা তালিকা হইতে তাহার নাম কর্তনপূর্বক নূতন নির্বাচনী এলাকায় বা, ক্ষেত্রমত, ভোটার এলাকার তালিকায় অমত্মর্ভুক্ত করা; বা
ইহাতে কোন অমর্ত্মভুক্তি, সংশোধন বা কোন ত্রুটি-বিচ্যুতি দূর করা।’’
 
22.          Vide section 10 the electoral roll may be amended and corrected in the prescribed manner at any other time, except from the date of declaration of election schedule till completion of election process, if and when necessary so as to include the name of any qualified person who does not appear on such roll or who has since its preparation or its last revision become qualified to be enlisted on such roll or to delete therefrom the name of person who is disqualified for enrollment on such roll. Section 11 further contends the provision of revision of electoral roll, which runs as follows-

১১।        ভোটার তালিকা হালনাগাদকরণ।
(১) কম্পিউটার ডাটাবেজ সংরক্ষিত বিদ্যমান সকল ভোটার তালিকা, প্রতি বৎসর ২ জানুয়ারী হইতে ৩১ জানুয়ারী পর্যমত্ম সময়কালের মধ্যে, নির্ধারিত পদ্ধতিতে, নিম্নরূপে হালনাগাদ করা হইবে, যথা-
পূর্বের বৎসরের ২ জানুয়ারী হইতে যিনি ১৮ বৎসর বয়স পূর্ণ হইবার কারণে ভোটার হইবার যোগ্য হইয়াছেন অথবা যোগ্য ছিলেন, কিন্তু ধারা ১০ এর অধীন তালিকাভুক্ত হন নাই, তাহাকে ভোটার তালিকাভুক্ত করা;
উক্ত সময়কালে যিনি মৃত্যুবরণ করিয়াছেন কিংবা তালিকাভুক্ত হইবার অযোগ্য ছিলেন কিংবা হইয়াছেন, তাহার নাম কর্তন করা ; এবং
যিনি বিদ্যমান নির্বাচনী এলাকা বা ক্ষেত্রমত, ভোটার এলাকা হইতে অন্য নির্বাচনী এলাকায় বা ক্ষেত্রমত, ভোটার এলাকায় আবাসস্থল পরিবর্তন করিয়াছেন, তাহার নাম পূর্বের এলাকার ভোটার তালিকা হইতে কর্তন করিয়া স্থানামত্মরিত এলাকার ভোটার তালিকার অমর্ত্মভুক্ত করাঃ
তবে শর্ত থাকে যে, যদি ভোটার তালিকা পূর্বোল্লিখিতভাবে হালনাগাদ না করা হয়, তাহা হইলে উহার বৈধতা বা ধারাবাহিকতা ক্ষুণ্ণ হইবে না।
            (২) উপ-ধারা (১) এ যাহা কিছুই থাকুক না কেন, কমিশন যে কোন সময়, কারণ লিপিবদ্ধ করিয়া, যে কোন ভোটার এলাকা বা নির্বাচনী এলাকার জন্য, তৎবিবেচনায় উপযুক্ত পদ্ধতিতে, ভোটার তালিকার বিশেষ পুনঃপরীক্ষার নির্দেশ দিতে পারিবেঃ
            তবে শর্ত থাকে যে, এই আইনের অন্যান্য বিধান সাপেক্ষে, অনুরূপ কোন নির্দেশ জারীর সময় ঐ ভোটার এলাকা বা নির্বাচনী এলাকার জন্য বলবৎ ভোটার তালিকা উক্তরূপে নির্দেশিত বিশেষ পুনঃপরীক্ষা সম্পন্ন না হওয়া পর্যমত্ম বলবৎ থাকিবে।’’
 
23.          The said revision (nvjbvMv`Kib) shall take place from 2nd of January to 31st January every year in the prescribed manner so as to include the name of a person who has attained the age of 18 years on 2nd of January or even to delete the disqualified person. However, the proviso to section 11(1) says if the electoral roll is not revised as aforesaid the validity or continued operation of the electoral roll shall not thereby be affected. Sub-section 2 gives overriding effect to sub-section (1) by saying notwithstanding anything contained in sub-section (1) the Commission may at any time for reasons to be recorded in writing direct a special revision/re-examination/re-scrutinisation (cybtcix¶v) of the electoral roll for any electoral area or constituency in such effective manner as it may deem fit and proper provided that subject to the other provisions of the Ain, the electoral roll for the electoral area or constituency, as in force at the time of the issue of such direction, shall continue to be in force until the completion of the special revision so directed.
 
24.          Further, section 13 of Act provides as under-
 

১৩।  ভোটার তালিকা হইতে নাম কর্তন।- ভোটার তালিকায় নাম অমত্মর্ভুক্ত আছে এমন কোন ব্যক্তি বাংলাদেশের নাগরিক না থাকিলে বা কোন উপযুক্ত আদালত কর্তৃক অপ্রকৃতিস্থ বলিয়া ঘোষিত হইলে তাহার নাম ভোটার তালিকা হইতে কর্তিত হইয়া যাইবে।
 
25.          While agitating the issues so have been raised in the present Rules the petitioners have heavily relied upon the memo dated 22.06.2010 issued by the Deputy Commissioner, Cox’s Bazar addressing the Secretary of Election Commission. The contents of the said memo (Annexure-B) is quoted herein below-

গণপ্রজতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
জেলা প্রশাসকের কার্যালয়
কক্সবাজার।
নং-জেনিঅ/কক্স/১০(১)ছঃসঃভোঃতাঃহাঃ-২০০৯/২২৬     তারিখঃ- ২২/০৬/২০১০
প্রেরকঃ জেলা প্রশাসক, কক্সবাজার।
প্রাপকঃ সচিব, নির্বাচন কমিশন সচিবালয়, ঢাকা।
 
বিষয়ঃ ২০০৭ সালের ভোটার তালিকার সংশোধনকরণ প্রসংগে।
 
উপর্যুক্ত বিষয়ে সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ পূর্বক জানানো যাচ্ছে যে, ২০০৭ সালে তত্ত্ববাধায়ক সরকারের অধীনে প্রণয়নকৃত ও প্রকাশিত ভোটার তালিকায় ৮% হতে ১০% মায়ানমার নাগরিক ভোটার অমত্মর্ভুক্ত হয়েছেন মর্মে স্থানীয় জনসাধারণের কাছ থেকে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। বিষয়টি স্পর্শকাতর বিধায় অত্র জেলাধীন সকল উপজেলার ২০০৭ সালে প্রণীত ও প্রকাশিত সম্পূর্ণ ভোটার তালিকা পুনঃ যাচাইয়ের মাধ্যমে সংশোধন করণের প্রয়োজন রয়েছে মর্মে প্রতীয়মান হয়। উল্লেখ্য যে, ২০০৯ সালে ভোটার তালিকা হালনাগাদ প্রণয়নকালে কক্সবাজার জেলার ০৬টি উপজেলার ক্ষেত্রে জেলা প্রশাসনের অনুরোধের প্রেক্ষিতে নতুন ফরম প্রণয়ন করে ভোটার তালিকায় সঠিক ভোটার তালিকা প্রণয়ন করা হয় । এতে ইতোপূর্বে পূরণকৃত ৬২.৫০৯ টি ফরমের মধ্যে ৪৫,৮৫৯ টি ফরম বিদেশী নাগরিক বিধায় বাতিল হয়ে যায়।
এমতাবস্থায়. অত্র জেলাধীন ০৮ টি উপজেলার ২০০৭ সালে প্রণীত ও প্রকাশিত সম্পূর্ন ভোটার তালিকা সমূহ কক্সবাজার জেলার জন্য প্রণীত ২০০৯ সালের নতুন ফরমে পুনঃ যাচাইয়ের মাধ্যমে সংশোধন পূর্বক ভোটার তালিকা পুনঃ যাচাই ও সংশোধনের বিষয়ে সদয় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হল।
 
(মোঃ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ)
জেলা প্রশাসক
কক্সবাজার
 
26.          On the same allegation and with a prayer for revision thereof the Deputy Commissioner, Cox’s Bazar forwarded letter to the Secretary, Ministry of Foreign Affairs in order to request the Election Commission to take effective measures in that regard (Annexure-C).
 
27.          In this regard Mr. Tawhidul Islam, the learned Advocate appearing for the respondent no.2 by filing affidavits-in-opposition in both the writ petitions submits that the Election Commission being the product of the Constitution has an independent entity, not subservient to any government machineries so as to be bound by the respondent no.6, the Deputy Commissioner, Cox’s Bazar. Drawing attention to Annexure-2 he further goes to submit that admittedly a huge number of Rohingas from Myanmar are now residing in Bangladesh particularly in Cox’s Bazar district and the area adjacent thereto (officially 23,542, un-officially more than 4 lacs) upon procuring national I.D. and even have been registered as voters. Accordingly, the Armed Forces Division, Directorate of Operation and Planning, Prime Ministers Secretariat addressing the respondent no.2 on 2.8.09 contended, inter-alia,

‘‘২৯৪৩/অপস/আই
রোহিঙ্গা শরণার্থী কর্তৃক বাংলাদেশের জাতীয়তা সনদপত্র ও জাতীয় পরিচয়পত্র সংগ্রহ বরাতঃ
ক।        সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ পত্র নং ২৯৪৩/অপস/আই তারিখ ১৫ জুলাই ২০০৯।
১।         বাংলাদেশ- মায়ানমার সীমামত্মবর্তী এলাকায় বসবাসরত কতিপয় অসাধু বাংলাদেশী (স্থানীয় দালাল ও অর্থলোভী ব্যক্তিবর্গ) ইউপি মেম্বার ও চেয়ারম্যানদের সহায়তায় অনুপ্রবেশকারী মায়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিকদের নিকট বাংলাদেশী হিসেবে জাতীয়তা সনদপত্র চড়া মূল্যে বিক্রয় করছে এবং উক্ত জাতীয়তা সনদপত্রের মাধ্যমে রোহিঙ্গারা অনায়াসে বাংলাদেশী হিসেবে জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরী করে কক্সবাজার ও বান্দরবান জেলাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ছে। এ বিষেয়ে বরাত ক এর মাধ্যমে আপনাদেরকে অবগত করা হয়। বর্তমানে বাংলাদেশে তালিকাভূক্ত ২৩,৫৪২ জন রোহিঙ্গা শরণার্থী থাকলেও তালিকার বাইরে এর সংখ্যা প্রায় ৪ লক্ষের অধিক। এই বিপুল বহিরাগত জনগোষ্ঠি প্রধানত কক্সবাজার, বান্দরবান ও আশে পাশের দূর্গম এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে। এ জনগোষ্ঠির অনেকে ইতোমধ্যে দালাল চক্রের মাধ্যমে বাংলাদেশী পাসপোর্ট সংগ্রহ করে মধ্যপ্রাচ্যসহ অন্যান্য দেশে পাড়ি জমিয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক পরিচালিত ভোটার নিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান প্রকল্পের সুযোগ নিয়ে অনেক মায়ানমার নাগরিক বাংলাদেশের স্থায়ী বসবাসকারী নাগরিক হিসেবে পরিচয়পত্র গ্রহণ করেছে বলে জানা যায়। এদের মধ্যে অনেকেই বিভিন্ন ধরনের অবৈধ পেশা ও অনৈতিক কর্মকান্ডে লিপ্ত হচ্ছে। বিষয়টি অত্যমত্ম সংবেদনশীল ও গুরুত্বপূর্ণ এবং বিপুল জনগোষ্ঠির অবৈধ অভিবাসন দেশের অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সার্বিকভাবে জাতীয় নিরাপত্তার প্রতি হুমকি স্বরূপ।
২।         উপরোক্ত বক্তব্যের আলোকে অত্র বিভাগ নিন্মোক্ত মতামত পোষণ করেঃ
ক।  কক্সবাজার, বান্দরবান জেলা ও তৎসংলগ্ন এলাকা এবং রাঙ্গামাটি জেলার কাপ্তাই, বিলাইছড়ি ও এর আশেপাশের এলাকায় ভোটার নিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয় পত্র প্রদান অত্যমত্ম সতর্কতার সাথে সম্পন্ন করা।
খ।  নিবন্ধন প্রক্রিয়ায় জড়িত ব্যক্তিবর্গের সাথে জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা গুলোর প্রতিনিধি সংযোজন করা এবং যাচাই বাছাই প্রক্রিয়াকে আরও সুসংহত করা।
গ।  নিবন্ধন দলের সাথে সেনা ও আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের অমত্মর্ভূক্ত করা এবং প্রতিটি নিবন্ধনের সময় বাড়ি গিয়ে সংশ্লিষ্ট জনগোষ্ঠির পরিচয় এবং নাগরিকত্ব সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়। সময় সাপেক্ষে হলেও এই পদ্ধতিতে কোন ছাড় না দেয়া।
ঘ।  নিবন্ধন সংক্রামত্ম বিষয় বিভিন্ন সংস্থা/এজেন্সির প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করা যেতে পারে যার সাথে নির্বাচন কমিশনের প্রতিনিধি, সশস্ত্র বাহিনীর প্রতিনিধি, বিডিআর ও আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতিনিধি, স্থানীয় প্রশাসনের প্রতিনিধি ও স্থানীয় জন প্রতিনিধি অমত্মর্ভূক্ত হতে পারে।
ঙ।  যে সকল নিবন্ধন এ পর্যমত্ম সমাপ্ত হয়েছে তা পূনরায় তদমত্ম সাপেক্ষে পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া এবং অবৈধ পরিচয়দানকারীদের নিবন্ধন বাতিল পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা।
৩।         বিষয়টি অত্যমত্ম গুরুত্বপূর্ণ ও সংবেদনশীল বিধায় আপনাদের আশু কার্যক্রমের নিমিত্তে প্রেরণ করা হলো।
 
স্বাক্ষর অস্পষ্ট
কাজী আবিদুস সামাদ
ব্রিগেডিয়ার জেনারেল
পক্ষে প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার"
 
28.          Pursuant thereto the Election Commission decided in its meeting (Annexure-3) as under-

‘‘সিদ্ধান্তঃ বিস্তারিত আলোচনার পর কমিশন নিম্নরূপ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেনঃ
(ক)  ছবিসহ ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম উপলক্ষে উপজেলা পর্যায়ে ইতোমধ্যে যে সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়েছে সে কমিটির সদস্যবর্গসহ সশস্ত্র বাহিনীর প্রতিনিধি, বিডিআর ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতিনিধির সমন্বয়ে কক্সবাজার, বান্দরবানসহ সংশ্লিষ্ট জেলার উপজেলাগুলোতে একটি কমিটি গঠন করতে হবে। কমিটি সংশ্লিষ্ট এলাকায় ভোটার হওয়ার বিষয়টি যাচাই করে চূড়ামত্ম সিদ্ধামত্ম দিবে। কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী উল্লিখিত এলাকার ভোটারদের ভোটার তালিকাভুক্ত করা হবে।
(খ)  কক্সবাজার, বান্দরবান জেলাসহ সংশ্লিষ্ট এলাকায় ভোটারদের সঠিক তালিকা সংগ্রহ করার জন্য একটি নতুন ফরম তৈরির জন্য পিইআরপি প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক জনাব আনিস মাহমুদ, নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের উপ-সচিব জনাব মিহির সারওয়ার মোর্শেদ এবং সিনিয়র সহকারী সচিব জনাব আবদুল বাতেন-এর সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করতে হবে। উক্ত কমিটি ভোটার তালিকায় অমত্মর্ভূক্তির জন্য তথ্য পূরণের একটি নতুন ফরম তৈরি করে কমিশন সভায় উপস্থাপন করবে। কমিশনের অনুমোদনের পর উক্ত অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট এলাকায় ভোটারদের তথ্য সংগ্রহ করতে হবে।
(গ) যে সমসত্ম এলাকায় প্রক্ষেপনের চেয়ে বেশী ভোটার পরিলক্ষিত হচ্ছে, সে সমসত্ম এলাকায় নতুন ফরম অনুযায়ী নিবন্ধনের জন্য প্রদত্ত তথ্য পুনঃপরীক্ষা করতে হবে।
(ঘ)  সশস্ত্র বাহিনীর পত্রের আলোকে কমিশন কর্তৃক যে সমসত্ম কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে তার বর্ণনা দিয়ে পত্রের জবাব দিতে হবে।চ
 
29.          Accordingly, the Deputy Director (Election) vide memo dated 01.09.2009 issued a circular constituting a high powered “ঊপজেলা বিশেষ কমিটিচ for ‘‘নির্বাচন কমিশন তথ্য পর্যালোচনা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য” stating, inter alia,-

উপজেলা বিশেষ কমিটি নিম্নোক্ত পদ্ধতিতে তথ্য পুনঃ যাচাই কার্যক্রম সম্পন্ন করবেনঃ
ভোটার তালিকা আইন, ২০০৯ অনুযায়ী ভোটার হতে ইচ্ছুক উপযুক্ত ব্যক্তিকে বাংলাদেশের কোথাও ‘‘সচরাচর নিবাসী’’ হবে হবে। এই পরিপত্রে উল্লেখিত উপজেলাসমূহে যদি কেউ সচরাচর নিবাসের দাবী করে, তবে সেই দাবীর যথার্থতা পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে অনুসন্ধান করতে হবে। শুধু একটি নিবাসের ঠিকানাই এজন্য যথেষ্ট হবে না। নিবাসের প্রমাণস্বরূপ তাকে এজন্য প্রণীত অতিরিক্ত তথ্য সংগ্রহ ফরম অনুযায়ী চাহিত সব তথ্য প্রদান করতে হবে।
যদি বর্ণিত উপজেলাসমূহে এই সমসত্ম ব্যক্তি নিজস্ব সম্পত্তির সূত্রে তালিকাভুক্তির দাবী করে, তবে তাদের সম্পত্তির মালিকানা ও এতদসংক্রামত্ম অন্যান্য তথ্য সংশ্লিষ্ট দলিলাদিসহ তথ্য সংগ্রহকারীকে প্রদান করতে হবে।
যারা বাংলাদেশী কোন নাগরিকের সাথে বৈবাহিকসূত্রে ভোটার তালিকাভুক্তি দাবী করবেন- তাদের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারীকৃত নাগরিক সনদপত্রসহ দলিলাদি তথ্য সংগ্রহকারীকে প্রদান করতে হবে।
অন্য কোন সূত্রে কেউ ভোটার হওয়ার উপযুক্ত দাবী করলে তাকে এতদসম্পর্কিত প্রমাণাদি তথ্য সংগ্রহকারীকে প্রদান করতে হবে।
তথ্য সংগ্রহকারীগণ প্রতিটি বাড়ী বাড়ী গিয়ে ফরম-২ এর সাথে ছবিসহ ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমের আওতায় অতিরিক্ত তথ্য ফরম (কপি সংযুক্ত) এর মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ করে প্রয়োজনীয় দালিলিক কাগজপত্রসহ প্রতিটি কেস উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার নিকট জমা দিবেন। পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাচন অফিসার উল্লিখিত কাগজপত্রাদি উপজেলা বিশেষ কমিটির নিকট উপস্থাপন করবেন। ’’
ক্রমিক নং উপজেলার নাম পুরণকৃত ২নং ফরমের সংখ্যা গৃহীত ফরমের সংখ্যা বাতিলকৃত ফরমের সংখ্যাঃ- মমত্মব্য
ভোটার অনুপস্থিত যাচাই পূর্বক বাতিল মোট বাতিল
৫(ক) ৫(খ) ৫(গ)
০১ চকরিয়া ১৪,০৬০ ১,২৯৮ ২,১০৯ ১০,৬৫৩ ১২৭৬২  
০২ পেকুয়া ৪,৭৭৭ ৬২৩ ৬৩৬ ৩,৫১৮ ৪,১৫৪  
০৩ কক্সবাজার সদর ১৫,৫১৩ ৩,৪২১ ৫৫৫ ১১,৫৩৭ ১২০৯২  
০৪ রামু ১০,৭৭১ ৪,৩২৯ ৮৪২ ৫,৬০০ ৬,৪৪২  
০৫ উখিয়া ৯,৫০৯ ৩,৫৫৪ ১,০৯৬ ৪,৮৫৯ ৫,৯৫৫  
০৬ টেকনাফ ৭,৮৭৯ ৩,৪১৮ ৬০৩ ৩,৮৫৮ ৪,৪৬১  
  সর্বমোটঃ- ৬২,৫০৯ ১৬,৬৪৩ ৫,৮৪১ ৪০,০২৫ ৪৫,৮৬৬  
 
 

30.          During the course of scrutinization adopting special method out of 62509, who filled in the said special form, 45866 forms were cancelled. The relevant ‘‘জখ-(১)’’ covering district Cox’s Bazar is quoted hereinbelow-
 
31.          Accordingly, the learned Advocate submits that taking the issue of inclusion of Rohingas as voters effective measures had been duly undertaken by the Election Commission for revision of electoral roll’ 2009 with additional special information form and that with the said revised electoral roll Pourashava election of Cox’s Bazar district has been held on 27.01.2011 in accordance with law.
 
32.          At this juncture the emphatic contention of the petitioners is that as per direction of the Election Commission the Upazilla Special Committee re-scrutinized the special information form filled up by the voters as per “ভোটার তালিকা আইন, ২০০৯” for the year 2009-2010, adopting the procedure as stated in clause 4 of the circular dated 31.09.2009. But the said special process, “পুনঃপরীক্ষা” was not made applicable for those enlisted in the electoral roll of 2007-2008 and with the said defective electoral roll pourashava election of Cox’s Bazar district was held on 27.01.2011.
 
33.          The said assertion of the petitioner has found substance in view of clause 6 of the circular dated 01.09.2009 which states as under-

“ ৬।       যারা ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দেওয়ার জন্য ২০০৭-২০০৮ সময়কালে ভোটার তালিকাভুক্ত হয়েছেন কিংবা যাদের অনুকূলে বাংলাদেশের পাসপোর্ট জারী করা হয়েছে তাদের জন্য ৪নং অনচ্ছেদ বর্নিত বিধান প্রযোজ্য হবে না। ”
 
34.          Moreover, from clause 9 of the said circular it is evident that said special scrutinizing method adopted for the year 2009-2010 voter list did not cover Moheshkhali pourashava, district Cox’s Bazar. In view of the stated position of fact pourashava election of Cox’s Bazar particularly Cox’s Bazar Sadar, Teknaf, Moheshkhali and Chakaria  was not held on 27.1.2011 with update (nvjbvMv`) revised electoral roll. However, proviso to section 11(1) of the Act no. 6 of 2009 says if the electoral roll is not revised as per clause (a),(b) and (c) the validity or continued operation of the electoral roll shall not thereby be affected. Said provision of law is not under challenge in the present Rules. As such even though electoral roll of 2007-2008 has not been updated the validity and the continued operation of the earlier electoral roll shall remain in force.
 
35.          As to the allegation of not publishing final voter list, from Annexure-4 particularly memo dated 16.02.2010 as well as 18.02.2010 respectively issued by the District Election Officer, Cox’s Bazar it appears that the process adopted was for “ Ec‡Rjv we‡kl KwgwU KZ©„K Z_¨ dig cybt hvPvB msµvš— Z_¨ I Qwemn †fvUvi ZvwjKv nvjbvMv` Kvh©µg, 2009.” Upon scrutinizing the information and excluding the false voters the Deputy Secretary (Election) fixed 21.03.2010 for hearing objection thereto in view of section 7(2) of the Act no. 6 of 2009. Ultimately upon hearing the objection on 21.03.2010 final voter list have been published on 09.09.2010 (Annexure-8). As such, allegation of the petitioners of holding pourashava election of Cox’s Bazar district without publishing final electoral roll under section 7(4) of the Act no. 6 of 2009 falls through.
 
36.          Be that as it may the pourashava election of Cox’s Bazar Sadar, Teknaf, Moheshkhali and Chakaria, district Cox’s Bazar held on 27.02.2011 is declared as valid and lawful in the eye law.
 
37.          It is fact that by notification dated 02.12.2010 the Election Commission decided to hold the election for pourashava and as such declared schedule with time frame for the steps. The operation of the said notification, stayed by the High Court Division in writ petition no. 9748 of 2010 at the time of issuance of the Rule Nisi, was ultimately stayed by the Appellate Division and considering the position as prevailing in the present writ petitions the Election Commission published another notification on 2012.2010 (Annexure-G) which is quoted as under-“

"নির্বাচন কমিশন সচিবালয়
শেরে বাংলা নগর, ঢাকা

নং-নিকস/পৌর-১/কক্স-কক্স/২০০৪/২৪৯                 তারিখ০৬ পৌষ ১৪১৭
 
            নং-নিকস/পৌর-১/কক্স-কক্স/২০০৪/২৪৯।- নির্বাচন কমিশন সচিবালয় হইতে ০২ ডিসেম্বর ২০১০ তারিখে নিকস/পৌর-১/১(২৪)/পৌরঃ সাধাঃ নির্বাঃ পরিঃ/২০১০/ ১৭৮ নম্বর প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে কক্সবাজার জেলার কক্সবাজার, টেকনাফ, চকরিয়া এবং মহেশখালী পৌরসভা নির্বাচনের জন্য ঘোষিত সময়সূচী মাননীয় সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের রীট পিটিশন নং ৯৭৪৮/২০১০ এর ১৫ ডিসেম্বর ২০১০ তারিখের আদেশে স্থগিত করা হয়। উক্ত আদেশের প্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক ১৫ ডিসেম্বর ২০১০ তারিখে উল্লেখিত ৪টি পৌরসভার নির্বাচন স্থগিত করা হয়। পরবর্তীতে মাননীয় সুপ্রীম কোর্টের আপীলেট ডিভিশনের সিভিল মিসসিলিনিয়াস পিটিশন ফর লিভ টু আপীল নং-১০৮০/২০১০ এর ১৯ডিসেম্বর ২০১০ তারিখের আদেশে মাননীয় হাইকোর্ট বিভাগের আদেশ স্থগিত করার প্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশন এতদ্বারা কক্সবাজার জেলার কক্সবাজার, টেকনাফ, চকরিয়া এবং মহেশখালী পৌরসভার মেয়র, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর এবং সাধারণ আসনের কাউন্সিলর নির্বাচনের উদ্দেশ্যে নিম্নেবর্ণিত সময়সূচী ঘোষণা করিতেছেঃ
                                                                                                 
(ক)   রিটার্নিং অফিসারের নিকট মনোয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ: ২৯ ডিসেম্বর, ২০১০ (বুধবার) ১৫ পৌষ, ১৪১৭
(খ) মনোয়নপত্র বাছাইয়ের তারিখ ঃ০১-০২ জানুয়ারী,২০১১ (শনিবার–রবিরার) ১৮-১৯ পৌষ,১৪১৭
(গ) প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ: ১০ জানুয়ারী,২০১১ (সোমবার) ২৭ পৌষ, ১৪১৭                                
(ঘ) ভোট গ্রহণের তারিখ: ২৭ জানুয়ারী,২০১১ (বৃহস্পতিবার) ১৪ মাঘ, ১৪১৭
 
নির্বাচন কমিশনের আদেশক্রমে
(সৈয়দ মোঃ খুরশিদ আনোয়ার)
উপ-সচিব (পৌর)
ফোনঃ ৮১১ ৬০ ২৬ (অফিস)
        ৮৩৬ ৩৫ ৮৮(বাসা)
 
অদ্যকার তারিখে বাংলাদেশ গেজেটেরে অতিরিক্ত সংখ্যায় প্রকাশ করিতে এবং২০০ (দুইশত) কপি গেজেট বিজ্ঞপ্তি সরকারী কাজে ব্যবহারার্থে সরবরাহ করিতে অনুরোধ করা যাইতেছে।
 
প্রাপক
উপ-পরিচালক
বাংলাদেশ সরকারী মুদ্রণালয়
তেজগাঁও, ঢাকা।’’
               
38.          From the chronology of facts as noted above there is no doubt that the subsequent notification dated 20.12.2010 is the continuation of the original schedule hence, first part of the Rule has not become infructuous.
 
39.          In the case of Kazi Mukhlesur Rahman vs. Bangladesh, reported in 26 DLR (SC) 44, the Appellate Division while giving findings as to locus standi of the respective petitioner observed as under:
“Locus standi was granted to the appellant even though he was not a resident of the southern half of South Berubari Union no. 12 or adjacent enclaves involved in the Delhi Treaty because he had raised a constitutional issue of grave importance involving an international treaty affecting the territory of Bangladesh and posing an impending threat to his fundamental rights under Article 36 of the Constitution and his right of franchise. These rights, attached to a citizen, are not local. They pervade and extend to every inch of the territory of Bangladesh stretching upto the continental shelf.”
 
40.          In the instant case, the petitioner in writ petition no. 9748 of 2010 is the elector of Cox’s Bazar Sadar, District- Cox’s Bazar who agitates the issue of inclusion of Rohingas in the electoral roll violating his right to franchise, which, in our concerned view, involves national interest.  As such, in the given facts and circumstances the petitioner has locus-standi to press the issue before us for judicial review.
 
41.          Vote is a sacred trust of the nation and the correct use of ballot is a national obligation. In the Act no.6 of 2009 the Commission has been provided with authority to include qualified voters or to exclude/delete the name from the electoral roll who is disqualified for enrolment either  in the prescribed manner at any time, except from the date of declaration of election schedule till completion of election process, under sections 10 and 11(1) or even at any time direct a special revision of the electoral roll for the said electoral area or constituency in such manner as it may deem fit, under section 11(2) of the Act no.6 of 2009.
 
42.          In the light of Annexure-2 and 3 respectively of the affidavit-in opposition filed by the respondent no.2 it is an admitted position of fact that across Bangladesh-Myanmar border many citizens of Myanmar (Rohingas) have encroached Bangladesh territory (un-officially more than 4 lacs) with a view to be enlisted in the electoral roll; even to obtain national I.D. card and to certain extent they have become successful. Since the pourashava election of Cox’s Bazar district has already been held, at this stage it is rather difficult to find by this court who are the dis-qualified electors, which involves serious question of fact and hence, cannot be entertained exercising writ jurisdiction. As noted above, the electoral roll of 2007-2008 was not scrutinized under special method adopted by the Commission; also the electoral roll of 2009-2010 with regard to Moheshkhali pourashava. As such, in order to protect our economic, social and above all national security Election Commission is hereby directed to initiate process immediately under section 11(2) of the Act no. 6 of 2009 towards deletion of the name of Rohingas from the finally published electoral roll of 2007-2008 of Cox’s Bazar Sadar, Teknaf, Moheshkhali and Chakaria pourashavas of district Cox’s Bazar and also the electoral roll of 2009-2010 of Moheshkhali pourashava in accordance with law and to complete the said process within a period of 6 (six) months from the date of receipt of this judgment and order. On completion of the said process the Election Commission is also directed to intimate this Court the result thereof through the office of the Registrar.   
 
43.          The qualified persons who are, however, entitled to be enlisted in the electoral roll may have their name included in the electoral roll in compliance of section 10 of the Act no. 6 of 2009.
 
44.          With the above observations and directions both the Rules are disposed of.
 
The order of status-quo granted earlier on 06.02.2011 is hereby vacated.
 
Ed.