Maulana Syed Rezaul Haque Vs. Jamat-E-Islam & Others, 3 LNJ (2014) 25

Case No: Writ Petition No. 630 of 2009

Judge: M. Moazzam Husain,Quazi Reza-Ul Hoque,M. Enayetur Rahim,

Court: High Court Division,,

Citation: 3 LNJ (2014) 25

Appellant: Maulana Syed Rezaul Haque

Respondent: Jamat-E-Islam & Others

Subject: Interpretation of Statute, Locus Standi, Jamaat-e-Islami,

Delivery Date: 2013-08-01

Maulana Syed Rezaul Haque Vs. Jamat-E-Islam & Others
3 LNJ (2014) 25
HIGH COURT DIVISION
(SPECIAL ORIGINAL JURISDICTION)
 
M. Moazzam Husain, J
M. Enayetur Rahim, J
and
Quazi Reza-Ul Hoque, J

Judgment:
1st August, 2013.
  Maulana Syed Rezaul Haque Chadpuri and others
----Petitioners
-Versus-
Bangladesh Jamaat-e-Islami and others.
----Respondents
 

Constitution of Bangladesh, 1972
Article 102
(Per M. Husain, J, delivered the main Judgment): Public Interest Litigation: Parameters­­- The PIL jurisprudence has developed over the decades essentially as a mechanism for prote-ction of basic human rights and fundamental freedom of backward and underprivileged section of the people violated by the state or its instrumentalities   . . .(19)
 
Words and Phrases
‘Public injury’ or ‘public wrong’ and ‘bona fide in approach’-
(Per M. Husain, J, delivered the main judgment): PIL owes its existence in the privilege granted by the courts by an extended meaning of the traditional rule of standing. Since PIL is an exception to the general rule of standing the petitioners have to go through certain test based on some principles developed over the decades, for example, the petitioner should a public spirited person and must approach the court bona fide for public purpose.  There must exist ‘public injury’ or ‘public wrong’ resulting from actions of the state or   its instrumentalities sought to be remedied.  The privilege must not be allowed to persons or organizations approaching court with ulterior motive for satisfying personal grudge, generating publicity or public sensation. If any act  of the state or any public authority done in violation of constitutional or legal obligation which causes injury or wrong to the public in general  and there is no specific injury as against any of the affected persons the injury or wrong is a ‘public injury’ or ‘public wrong’. In such circumstances any member of public acting bona fide and having sufficient interest in seeking remedy can maintain an action.. . . (19 and 40)
 
Representation of People Order
(PO No. 155 of 1972)
Article 90E
(Per M. Husain, J, delivered the main judgment): Registration by EC resulted no ‘public injury’- Election Commission as a constitutional body, propelled by mixed thrust of law and policy,  having been confronted with difficulty to reconcile strict compliance of newly made registration law and the  mounting pressure for  holding the election with participation of all the political parties and alliances allowed registration to a good number of political parties including BJI on the basis of their provisional constitutions not fully compliant with law.  The election was thus held with participation of all the political parties and alliances and democracy was restored. After the crisis was over the Commission took steps for review of registration and has been insisting on compliance of the party constitutions with the registration law. The registration so given by the Commission at a crisis moment without strict adherence to law cannot, by any stretch of imagination,  be said to have resulted in  ‘public injury’ or ‘pubic wrong’ let alone suffered by any determinate or indeterminate number or group of people so as to justify pro bono action. . . . (51)
 
Constitution of Bangladesh, 1972
Article 102
(Per M. Husain, J, delivered the main judgment): ‘Person aggrieved’-      
A person annoyed or hurt or even shocked by any act of an authority may not be a ‘person aggrieved’ in the technical sense. Although conceptually the expression ‘person aggrieved’ cannot be fit in a straight jacket there has been a loose but consistently followed parameter of the phrase. A ‘person aggrieved’ must be a  person whose legal right has been infringed or who has suffered legal wrong or injury in the sense that his interest recognized by law has been prejudicially and directly affected by an act or omission of the authority.     Mere protest raised against a possible decision of a public authority does not ipso facto qualify the protesters as persons aggrieved . . . (53 and 55)
 
Words and Phrases
Rule of exhaustion
(Per M. Husain, J, delivered the main judgment): Unless under exceptional circumstances, the rule of exhaustion of alternative remedy is strictly insisted by the superior courts.  There is an unbroken chain  of cases decided in different jurisdictions in which the petitioner directly approaching the court without availing alternative remedy were refused relief. Power of judicial review invoked while there were proceedings pending before any administrative forum or tribunals met the same fate with still stronger disapproval. . . .(65)
 
Words and Phrases
Void, voidable & void ab initio-
(Per M. Husain, J, delivered the main judgment): If any public authority passes any order, for example, grants any license, lease or registration in exercise of statutory power there is no scope for avoiding the same except by intervention of court regardless of the fact that it is given in violation of qualification or disqualification clause or that it is contrary to the Constitution.  It is never stillborn in the sense it is canvassed. If the public authority in exercise of its statutory discretion falls foul of due process of law affecting merit of the decision, or acts on irrelevant and extraneous considerations, takes into consideration inadmissible or void document or acts on misconstruction of law and thereupon takes a decision the same  is ultra vires and amenable to judicial review.   Unless it is turned down by a competent court the decision is not void or void ab initio and operates with all the consequences of a valid act.   Even in case of total lack of jurisdiction (coram non judice), mala fide or malice in law   where the action taken by the public authority is generally considered to be a nullity and no decision in the eye of law the same is still not void or void ab initio and need be challenged by an appropriate person in an appropriate proceedings and in appropriate time for declaring the same null and void.   Before such a declaration is made by a competent court or authority action taken by any public authority cannot be presumed to be dead or non-est and it operates in full force. . . .(68)
 
Rules of interpretation of Statute
(Per M. Husain, J, delivered the main judgment):Purposive interpretation of law replacing literalism in interpretation Infinite variety of human conditions and exigencies hardly admit of any uniform rule to regulate all possible human conduct and exigencies so is the case with interpretation of law. Strict literalism in interpretation of law, therefore, is gradually being replaced by purposive interpretation intended to carry out the obje-ctive of law tampered with rule of expediency and public policy. Instances are not rare where strict adherence to law were sacrificed to the greater public causes according as the situation demanded.... (71)
 
Representation of the People Order
(PO no 155 of 1972 )
Article 90A, 90B, 90C and 90D.
(Per M. Husain, J, delivered the main judgment): A plain reading of the registration law provided in Articles 90A, 90B, 90C and 90D of the RPO does not suggest that there was any scope for the Commission to give separate treatment to any political party on the basis of degree of disqualifications. So far as registration is concerned violation of Article 90B is as good as violation of Articles 90C (1).  Registration may equally be refused for violation of any of the conditions required to be fulfilled for registration under any of the articles. In practice many of the political parties seeking registration at that moment were at fault. Question of legal competence apart, any attempt to pick and choose by the Commission in terms of degree of disqualification at the material time was well-nigh impossible, without jeopardizing the main objective it was striving to achieve. . . . (73).
 
Interpretation of Statute
(Per M. Husain, J, delivered the main judgment):  Strict interpretation may be sacrificed to greater public cause. EC resorted to ‘rule of expediency’ not ‘political expediency’- The law with stringent conditions for registration was meanwhile introduced which could hardly be fulfilled without a certain amount of time. The election was meanwhile long delayed and popular demand was to hold election and restore democracy as soon as possible. The country was run by a crisis government and the emergency procla-imed earlier was still continuing. Confronted with difficult choices to be made during a crisis time the Commission chose to discharge its overriding obligation to restore democracy and constitutionalism in the country by holding a general election with participation of all political parties and alliances downplaying for the time being the technicalities of law.   The decision of the Commission was clearly taken as of public policy which may be explainable upon rule of expediency not on political expediency as indicated by Mrs. Tania Amir. . . . (74)
 
Constitution of Bangladesh, 1972
Article 102
Representation of the People Order (PO no 155 of 1972)
Article 90A, 90B, 90C and 90D
(Per M. Husain, J, delivered the main judgment): As the registration process is still pending the writ petition is premature- The instant case is no exception to the general rule and seems to be worse than others as the petitioners approached the court with questionable standing as well as while the registration process/proceedings is pending for disposal before no less an authority than a constitutional body like Election Commission.  It follows, therefore, that on the admitted facts the registration process is still pending before the Commission for final decision and, thus, I have no hesitation to say that the writ petition is not maintainable as being premature. Accordingly the Election Commission is directed to dispose of the BJI registration issue in accordance with law with reasonable haste. ....(65  and 81)
 
Representation of People Order (PO No. 155 of 1972)
Article 90C
(Per Enayetur Rahim, J, majority): যেহেতু সাময়িক গঠনতন্ত্রটি (provisional constitution) নিবন্ধনকালীন সময়ে গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ ১৯৭২ এর অনুচ্ছেদ ৯০ সি-এর শর্তসমূহ পূরন করে দাখিল করা হয়নি, সুতরাং নির্বাচন কমিশন বে-আইনী ও আইন বহির্ভূতভাবে তর্কিত নিবন্ধনটি প্রদান করেছে; যা আইনসংগত কর্তৃত্ব ব্যতিরেকে করা হয়েছে এবং এর কোন আইনগত কার্যকারিতা নেই। ...(92)
 
Representation of People Order (PO No. 155 of 1972)
Article 90B & 90C
(Per Enayetur Rahim, J, majority): একটি গুরুত্বপূর্ণ আবশ্যকীয় শর্ত প্রতিপালিত না হওয়া সত্তেও নির্বাচন কমিশন আইন ভঙ্গ করে জামায়াতে ইসলামী-কে নিবন্ধন প্রদান করে অবৈধ ও ক্ষমতা বহির্ভূত কাজ করেছে। একটি সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের যুক্তি দেখিয়ে কোন দলকে অবৈধ ও অনৈতিক সুবিধা প্রদান একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানের নিকট কাম্য হতে পারে না। একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান স্বচ্ছতার সঙ্গে সংবিধান ও আইন অনুযায়ী কার্য পরিচালনা করবে এটাই স্বাভাবিক ও তাই কাম্য|                                            ...(95)
 
Fraud on the Election Commission
(Per Enayetur Rahim, J, majority): জামায়াতে ইসলামী তর্কিত নিবন্ধনটি হাসিলের জন্য নির্বাচন কমিশনে প্রবঞ্চনা বা প্রতারণার (fraud on the Election Commission) আশ্রয় নিয়েছিল।  অতএব, ঐ নিবন্ধনটি অশুদ্ধ ও অকার্যকর। ...(106)
 
Representation of People Order (PO No. 155 of 1972)
Article 90H (f)
(Per Enayetur Rahim, J, majority): জামায়াতে ইসলামী'র নিবন্ধন ২৫-০১-২০১০ইং তারিখের পর নির্বাচন কমিশনে বিবেচনাধীন থাকার দাবীর আইনগত কোন ভিত্তি নেই এবং ঐ তারিখের পর এ  সকল কার্যত্র্রমই বে-আইনী এবং ক্ষমতা বহির্ভূত ও অশুদ্ধ। বরং, নির্বাচন কমিশন নবম জাতীয় সংসদের প্রথম বৈঠকের বারো মাস অতিক্রান্ত হওয়ার পর গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ-এর অনুচ্ছেদ ৯০এইচ (এফ)-এর বিধান অনুযায়ী সাময়িক গঠনতন্ত্রর ভিত্তিতে জামায়াতে ইসলামীকে প্রদত্ত নিবন্ধনটি বাতিলের কার্যত্র্রম গ্রহন না করে সাংবিধানিক ও আইনগত দায়িত্ব পালনে বিরত থেকে প্রতিনিয়তই সংবিধান ও আইন ভঙ্গ করে চলেছে; যা একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানের কাছে কাম্য নয় এবং উক্ত নি××ত্র্রয়তার বিষয়টি জ্ঞাত হয়ে সাংবিধানিক আদালত তার উপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে বিরত থাকতে পারে নাz ...(115)
 
Constitution of Bangladesh, 1972
Articles 2A, 8 and 12
(Per Enayetur Rahim, J, majority): আপীল বিভাগের  প্রদত্ত  রায়সমূহের আলোকে সংবিধানের প্রস্তাবনার অন্যতম মূলনীতি "ধর্মনিরপেক্ষতার নীতি' এবং সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৮ এবং ১২-এর সাথে আমরা যদি সংবিধানের অনুচ্ছেদ "২ক' বিবেচনা ও বিশ্লেষন করি তাহলে নিঃসংকোচে বলা যেতে পারে সংবিধানের ঐ অনুচ্ছেদ, বর্তমান (পঞ্চদশ সংশোধনী মূলে) এবং পূর্ববর্তী (অষ্টম সংশোধনী মূলে) যাই হোক না কেন, যেখানে "রাষ্ট্র ধর্মের' বিধান সন্নিবেশিত করা হয়েছে তা সংবিধানের প্রস্তাবনার সাথে অ-সামঞ্জস্যপূর্ণ এবং অ-আপোষযোগ্য ... (149)
 
Constitution of Bangladesh, 1972
Article 102(2)
(Per Enayetur Rahim, J, majority): দরখাসতকারীগণের রীট মোকদ্দমাটি দায়েরের আইনগত অধিকার আছে। অধিকমও, তাঁদের অনেকেই সংক্ষুদ্ধ ব্যত্তিু হচ্ছেন; কেননা নির্বাচন কমিশন তর্কিত নিবন্ধনটি প্রদানের সময় দরখাসতকারীগণের অনেকেই গণ-শুনানীতে অংশ গ্রহন এবং দলিলাদি দাখিলত্রুমে নিবন্ধনের বিরতদ্ধে জোরালো আপত্তি উথুাপন করেছিলেন। অতএব, জনাব রাজ্জাকের রীট আবেদনকারীগণের রীট দরখাসত দাখিলের আইনগত অধিকার সম্পর্কে উথুাপিত যুত্তিু আদৌ গ্রহণযোগ্য নয়।...(168)
 
No political party is entitled to collect Jakat & Usar
(Per Enayetur Rahim, J, majority): কোন রাজনৈতিক দল-কে তাদের দলীয় তহবিল সংগ্রহ এবং দলীয় নেতা-কর্মীদের কল্যাণের লক্ষ্যে "যাকাত' ও "উশর' সংগ্রহ এবং এর ব্যয় অনুমোদন দেয়া যায় না। কারণ, প্রতিটি রাজনৈতিক দল-কে যদি এ ধরণের যাকাত সংগ্রহের অনুমোদন দেয়া হয় তাহলে এক্ষেত্রে বিশৃংখলা সৃষ্টি হতে পারে। কেননা পবিত্র কুরআন অনুযায়ী যাকাত সংগ্রহ এর সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যত্তিুবর্গও এর হকদার (সুরা তাওবাঃ আয়াত ৬০)। কোন রাজনৈতিক দল যেন "যাকাত' বা "উশর' এর অর্থ সংগ্রহের মাধ্যমে দলীয় তহবিল গঠন করতে না পারে এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে আইনানুগ ব্যবসহা গ্রহনের নির্দেশ প্রদান করা হলো|. . . (172)
 
Constitution of Bangladesh, 1972
Articles 7, 7A                                                    
(Per Enayetur Rahim, J, majority): যে কোন আইন প্রণয়নের সময়ে আমাদের আইন প্রণেতাদের সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৭ অবশ্যই স্মরণ এবং বিবেচনা করা প্রয়োজন। সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৭-এ উল্লেখ আছে যে, ""প্রজাতমেএর সকল ক্ষমতার মালিক জনগণ; এবং জনগণের পক্ষে সেই ক্ষমতার প্রয়োগ কেবল এই সংবিধানের অধীন ও কর্তৃত্বে কার্যকর হইবে।' . . . (213)
 
Representation of People Order (PO No. 155 of 1972)
Article 90B and 90C
Constitution of Bangladesh, 1972
Article 12(c)
(Per Enayetur Rahim, J, majority): গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ-এর ৯০বি ও ৯০সি-এ একটি রাজনৈতিক দলের নিবন্ধনের জন্য যে সকল শর্তসমূহ উল্লেখ করা হয়েছে সেখানে এমন কোন শর্ত সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ নেই যে, কোন রাজনৈতিক দল ধর্মের অপ-ব্যবহার কিংবা অপ-ব্যাখ্যা করলে ঐ দলটিকে নিবন্ধন দেয়া যাবে না। বর্তমান গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের অনুচ্ছেদ ৯০ সি-তে যে সকল শর্তসমূহ উল্লেখ আছে, তার আলোকে ধর্মের অপ-ব্যাখ্যা কিংবা অপব্যবহার-এর কারণে কোন রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন উপেক্ষা করার সুযোগ নেই। যদিওবা সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১২(গ)-এ রাষ্ট্র পরিচালনার একটি উল্লেখযোগ্য মূলনীতি হলো- "রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ধর্মীয় অপব্যবহার' বিলোপ করা-ধর্ম নিরপেক্ষতার নীতি বাসতবায়নের জন্য। আদালত রাষ্ট্রপরিচালনার মূলনীতি সমূহ বলবৎ করতে পারে না। রাষ্ট্রকেই ঐ মূলনীতি সমূহের আলোকে কার্য সম্পন্ন করতে হয় এবং হবে। সে কারনে বিদ্যমান আইনের দূর্বলতা দূর করার দায়িত্ব রাষ্ট্রের তথা আইন সভা - জ্ঞজাতীয় সংসদঞ্চ-এর।. . . (282)
 
Constitution of Bangladesh, 1972
Article 102
(Per Quazi Rezaul Hoque, J, majority): A public and /or constitutional authority must act reasonably required to do within the ambit of the concerned law. The reasonableness and rationality can be read together in the instant case, wherein the EC was given the responsibility to act fairly, diligently and reasonably in applying the law. It never had the authority to override the metes and bounds of law, which it did. So, a legitimate expectation cannot be defeated by a public/ constitutional body, which is set by law to be followed by a public functionary.. . .(422)
 
Constitution of Bangladesh, 1972
Article 102
(Per Quazi Rezaul Hoque, J, majority): Locus standi to invoke writ jurisdiction - Every Bangladeshi was affected by such atrocity of the Pakistani armed forces and their allies i.e. Razakers, Al-Badars, Al-Shams, Peace Committee etc, except those who were against the independence of Bangladesh. The basic concept of PIL is “bleeding heart”, which means whose “heart bleeds” for the cause of the others. The heart if every Bangladeshi, who by heart feels for the independence “bleeds”, and thereof all the petitioners have the locus standi to move the instant writ petition the EC, invited objections, against its registration, if there was any, and some of the instant petitioners were the objectors, however they felt that their grievance were not heard in accordance with law, as such, they also have locus standi to vindicate their grievance through this petition.  . . (394, 397 & 399)
 
Constitution of Bangladesh, 1972
Article 102
Representation of People Order
(PO No. 155 of 1972)
Article 90B, 90C, 90D and 90E
(Per Quazi Rezaul Hoque, J, majority): At the very outset the intending political party was required to be compliant to Article 90C, which the JBI was not, and even not yet. The proviso further made it clear that an intending political party may apply with a “provisional constitution containing provisions as specified under sub-clause (b)(i), (b)(ii) and (b)(iv) of clause (1) of Article 90B as well as complying with the provisions under Article 90C”. So, in every aspect JBI defaulted in complying with the provisions of Article 90C and 90D of the RPO. The EC never had the authority to accord registration to JBI with a non-compliant constitution. The relevant provision very clearly stipulated that EC neither had the authority to register JBI with such a non-compliant constitution, nor it ever had the authority to request JBI to amend its constitution to make it compliant since its registration from its inception was done without any lawful authority. . . . (436 & 438)
 
Reference: Dr. Mohiuddin Farquqe Vs. Bangla-desh, 49 DLR (AD)1; SP Gupta and others Vs. President of India and others, AIR 1982 (SC) 149; Md. Shajahan Santa Vs. Bangladesh, 17 BLC 844; KP Srinivas Vs. RM Premchand, (1964) 6 SCC 620; IRC Vs. Federation of Self Employed, (1981) 2 ALL ER 93; Kazi Muklesur Rahman Vs. Bangladesh, 26 DLR (AD) 44; Bangladesh Sangbad Patra Parishad Vs. Bangladesh, 43 DLR (AD) 126; ETV LTD. Vs. Dr. Chowdhury Mahmud Hasan and others, 54 DLR (AD) 130; The State of Punjab Vs. Punjab Fibres Ltd., (2005) 1 SCC 604; Anwar Hossain Vs. Mainul Hossain, 10 MLR (AD) 219, 41 DLR (AD) 274, 64 DLR (AD) 304; State Vs. Ziaur Rahman, PLD 1973 (SC) 49; Managing Director, Rupali Bank Ltd. Vs. Chairman, First Labour Court, Dhaka, 45 DLR (HC) 307; BRAC and others Vs. Professor Mozaffor Ahmed and others, 54 DLR (AD) 36 Navjyoti Coop Group Housing Society Vs. Union of Inida 4 SCC 477; Sethi Auto Service Station Vs.  Delhi Development Authority (2009) 1 SCC 180; A. K. M. Kowsar Ahmed and others Vs. Bangladesh 65 DLR (2013) 277; Dhaka WASA Vs. Superior Buildings and Engineers Ltd. 51 DLR (AD) 56, Anwar Hossain Chowdhury Vs. Bangladesh 41 DLR (AD) 44.
 
Mrs. Tania Amir with
Mr. Sheikh Rafiqul Islam, Advocates
---For the petitioners
 
Mr. Abdur Razzaque with
Mr. Belayet Hossain and
Mr. Fariduddin Khan, Advocates
---For the respondent Nos.1-2.
 
Mr. Mohammad Mohsen Rashid with
Mr. Tawhidul Islam, Advocates
---For the respondent No. 4
 
Writ Petition No. 630 of 2009
 
JUDGMENT
M. Moazzam Husain, J:
 
In this case a rule nisi was issued calling upon the respondents to show cause as to why the registration (Registration No. 014 dated 04.11.2008) given to Respondent No.1 as a political party by the Respondent No. 4 shall not be declared to have been given without lawful authority and is of no legal effect.
 
Facts leading to this Rule (as transpired from the writ petition), in brief, are as hereunder:
         The Election Commission (hereinafter referred to as “the Commission”), in order to hold a free, fair and credible general election exchanged views with the political parties and stakeholders and recommended to the then Non-Party Caretaker Government a set of reforms and amendments in the electoral laws, i.e. the Representation of the People Order, 1972, (hereinafter referred to as “the RPO”) including changes in the registration requirements of political parties seeking to participate in elections under the RPO. Accordingly the Caretaker Government in discharge of its duty under Article 58D (2) of the Constitution caused the said recommendations to be converted into legislation by promulgation of an Ordinance, being Ordinance No. 42 of 2008 dated 19.8.2008. The amended RPO, amongst other things, made registration for the political parties seeking election, mandatory subject to certain qualifications and disqualifications prescribed therefore. The Bangladesh Jamaat-e-Islami (hereinafter referred to as “BJI” or alternately “Jamaat”) along with many other political parties sought registration under the new law. The Commission allowed registration to the BJI notwithstanding the fact that its constitution stood in breach both of the qualification and disqualification clauses contained respectively in Articles 90B and 90C of the RPO. The petitioners’ further case is that the Commission gave the registration to the BJI as of political expediency, because, the registration was neces-sary for inducing the then four-party alliance, in which BJI was included, to participate in the ensuing election. The registration given as of political expediency, according to them, is a gross violation of law and the Constitution and cannot be allowed to go unchallenged under any excuse or pretext whatsoever.
 
The petitioners placed on records huge materials regarding deviation of Jamaat from traditional Islam and stated that the faith of the petitioners, as far as statehood is concerned, is rooted back into the Medina Charter signed by Prophet Muhammad (pbuh) himself and countersigned by the representatives of other religions. According to them, Medina Charter recognized Muslims and non-muslims as legitimate and equal counterpart in executing a peace treaty between and amongst co-equals and co-inhabitants of the city of Medina. By virtue of the Medina Charter the Muslim and non-muslim inhabitants of Medina exercised their free will, right of self-determination and formed thems-elves collectively a community with collective responsibilities towards each other through a process which displayed early traces of democracy. The Charter of Medina, therefore, encapsulates the pure essence, spirit and nature of Islam and its philosophical basis which is inherently secular and essentially democratic. There is no scope in Islam for creating a state based on Islamic law or creating an Islamic state, monarchy or republic. BJI in fact is an anti-Islamic organization far removed from the traditional Islam. It pursues radical Islam based on the ideology of Maulana Maudoodi and Wahhabism. In the guise of divine law BJI is intending to establish an unconstitutional regime which is antithesis of the freewill within Islam and most importantly purports to annihilate ‘sovereign will’ of the people of Bangladesh and thus its political programme is subversive to the root of our Constitution. The BJI constitution tends to encourage militancy in its members culminating in modern day ‘jihad’ and various shades of fanaticism and extremism in gaining political power which is opposed to law, Constitution and the fundamental tenets of Islam itself.
 
The second limb of their case is that the BJI is opposed to the birth of Bangladesh which was founded on the basis of secular and democratic principles. Members of BJI collab-orated with the occupation army in 1971, sat in the cabinet of the enemy, engaged in genocide, war crimes, crimes against humanity, rape, murder, looting, arson, ethnic cleansing and denuding the nation of its intellectuals by systematic killing thus soiled their hands with the blood of the innocent and unarmed civilians. BJI perpetrated the gruesome atrocities and unleas-hed a reign of terror through training of Al-Badr, Rajakars and auxiliary forces and guided the occupation army to commit holocaust in the name of Islam. The petitioners are interested to see that a political party guilty of such heinous crimes is not given registration and allowed to do politics in Bangladesh under the banner of Islam.
 
Technically, the case of the petitioners rests on the ground that the constitution of BJI is not in conformity with qualification clause and hit by disqualification clause laid down under Articles 90B (1) (b) (ii) and 90C (1) respectively of the RPO. Article 90(C)(1) of the RPO disqualifies a political party from being regist-ered if, amongst others, the objectives laid down in its constitution are contrary to the Constitution of Bangladesh and there are manifestations of discrimination regarding religion, race, caste, language or sex. The objectives of BJI- consti-tution being thus violative of 5 the Constitution BJI stands disqualified to be registered as a political party as per express provision of the RPO. The registration given to BJI as a political party which was basically disqualified to be registered under law is, therefore, void ab initio and liable to be struck down. More so, the registration was given as of political expediency in order to ensure participation in election of a major political alliance of the time which is illegal and beyond power of the Election Commission.
 
Respondent No.1 (BJI) appeared and in the midst of hearing filed an application praying for discharging the Rule on the ground that the Rule is premature in that the issue of BJI registration is still in seisin of the Election Commission and awaiting a decision to be given by the Commission. Subsequently, however, BJI chose to contest the Rule on merit and filed an affidavit-in-opposition. The BJI in its affidavit denies in material particulars all the allegations made against it by the petitioners. The case of the BJI, as transpires from the affidavit-in-opposition and the application as aforesaid, briefly, is that BJI, though a political party based on Islamic values, operates within the purview of the Constitution and the law of the land. BJI recognizes the legitimacy of the Republic and the Constitution. BJI is ready to make its constitution compliant with the registration requirements and in its bid to do so BJI has been in constant touch with the Commission and already brought about several amendments in its constitution and the last one of the kind was submitted with the Commission on 02.12.2012. The registration that was given to BJI along with other political parties was a provisional/interim registration which may be changed or cancelled by the Election Commission. The provisional registr-ations were given on provisional constitutions as permissible under Article 90D of the RPO. If BJI fails to comply with law the Commission is well within its power to cancel its registration. The Election Commission is still in seisin of the registration issue of BJI and yet to give its decision. The Rule, therefore, is premature and not maintainable. Further case of BJI is that the writ petition was filed in 2009 on the basis of an outdated constitution of BJI published in November, 6 2009. The BJI constitution has undergone four amendments thereafter. It is an evolving document and the current constitution of BJI was published in January, 2011. The petitioners are busy bodies. They have filed the writ petition mala fide to undermine BJI as a political party. Petitioner No.1 having failed to win any seat in the Parliament has filed the writ petition against BJI only, notwithstanding the fact that many other political parties with constitutions not compliant with law were given registration by the Commission.
 
The Respondent No.4 (Election Comm-ission) contested the rule by filing an affidavit-in-opposition subsequently supplemented by two other affidavits. The case of the Commission, in brief, is that the Representation of the People (Amendment) Ordinance, 2008, was promu-lgated on 19.8.2008, making it obligatory for the political parties intending to participate in the election to be registered with the Commission subject to conditions laid down in Article 90B of the RPO. The BJI accordingly made an application to the Commission on 20.10.2008 through its Secretary General for registration. A Scrutiny Committee was formed for examination of the documents submitted by the political parties seeking registration. The Committee after scrutiny of the documents submitted by the parties found, amongst others, some provisions of BJI constitution conflicting with the Constitution of Bangladesh. The matter was communicated to BJI. Legal Affairs Secretary of BJI came and deleted some of them under his hands and promised the Committee that they would drop the controversial provisions from the party constitution in their next party council. BJI failed to submit amended copy of its constit-ution as required. In view of the political situation prevailing at the relevant time the Commission, however, granted provisional registration in favour of BJI. Thereafter BJI in response to letters addressed by the Commission made amendments in their constitution time to time and submitted the same in July, 2009 and in July, 2010. The Scrutiny Committee was reconstituted on 14.12.2011. By a letter dated 04.11.2012 the Commission requested BJI to bring about necessary changes in its constitution. BJI by a letter dated 20.11.2012 asked for time till 05.02.2013 to submit amended constitution. BJI, however, submitted a revised constitution on 02.12.2012. Constitution of BJI submitted on 02.12.2012 was scrutinized by the Scrutiny Committee of the Commission and findings of the Committee were noted in a note-sheet for consideration and decision of the Commission. The Commission has taken no further steps on scrutiny report since the High Court Division has meanwhile taken over the issue at the instance of the petitioners.
 
Mrs. Tania Amir, learned Advocate, appearing for the petitioners made elaborate submissions on alleged departure of BJI from traditional Islam and as follower of radical ideologies propagated by ‘Wahhabis’ and Maulana Maudoodi. She basically pointed out in so many words that the traces of secular statehood in Islam as reflected in ‘Medina Charter’ in which a secular, pluralist society on equal right basis was established under the leadership of Prophet Muhammad (pbuh) himself vis-à-vis the political agenda and history of Jamaat, its role during liberation war, involvement in different atrocities including heinous and inhuman offences like genocide and crime against humanity. On that score only, as she argued, BJI has no moral right to do politics in Bangladesh. Back to the technical questions of law Mrs. Tania Amir pointedly submitted that the BJI constitution is inherently opposed to our Constitution, its preamble, fundamental princ-iples of state policy and our articles of faith enshrined therein. As for the legal requirements for registration, she submitted that BJI constitution is clearly in conflict with Articles 90B (1) (b) (ii) and 90C (1) of the RPO which renders BJI ineligible for registration as a political party. The Commission, she insisted, does not deny that the BJI constitution is non-compliant with RPO requirements but still then registration was given understandably as of political expediency. She contended that nothing, far less political expediency, could justify an otherwise illegal act to be done or continued as such by a constitutional authority like the Election Commission. The impugned registra-tion thus being ex-facie and void ab intio is liable to be struck down.
 
Mr. Mohsen Rashid, learned Advocate, appearing for the Commission did not dwell much on the question of eligibility of BJI to be registered in terms of the RPO requirements. His contention is that the registration given to BJI was not a registration pure and simple. It was given on provisional basis on a provisional constitution as permitted under Article 90D of the RPO in order to meet the exigencies of time. Similar registrations were given to all the political parties, religion based or secular seeking registration at the time. But the Commission has never treated the same as final. It has been persistently pressing BJI by letters to bring its constitution back into compliance of law and the Constitution or otherwise to take legal consequence. BJI has responded and taken positive steps from time to time, amended its constitution and lastly submitted its third version on 02.12.2012. The same has been examined by a Scrutiny Committee and findings arrived at by the Committee are recorded to be placed before the Commission for a decision. Since the matter has meanwhile come into consideration by the High Court Division the Commission has postponed all further proceeding of the matter and practically waiting for a decision from the Court. Confronted with the question whether the Commission is enjoined with power to cancel registration of a political party whose constitu-tional objective is found to be contrary to Bangladesh Constitution, Mr. Rashid submitted that the registration given was merely an ad hoc arrangement and never treated to be final either by the Commission or by the concerned political party. The process is still pending before the Commission and the Commission is well within its power conferred by section 21 of the General Clauses Act, 1897 to cancel or rescind the registration temporarily given on provisional constitutions. Apart from the general power, he submitted, in view of the insertion of Sub-Article 90H (f) in Article 90H of the RPO by a subsequent amendment the Commission is now enjoined with power to cancel registration of a political party on the ground that its constitutional objective is contrary to the Constitution of the Republic.
 
Mr. Abdur Razzaque, learned Advocate, appearing for Respondent Nos. 1 and 2 raised essentially four contentions, namely, a) that the writ petition is premature and not maintainable b) that the petitioners do not have any locus standi to file this case c) the BJI constitution is not inconsistent with the Constitution or the law and d) that the RPO is unconstitutional as it tends to hinder democratic process than promotes it. The last contention, however, is not related to the issue at hand.
 
Mr. Razzaque tried to explain his first point by mention of the fact that the law requ-iring registration of political parties underwent sudden and drastic changes during the last Caretaker Government with the introduction of stringent conditions difficult to be complied with within a short span of time. The lawmakers, in anticipation of the difficulties, brought further amendment in the RPO allowing registration on the basis of provisional constitutions subject to certain conditions. Almost all the political parties, including BJI, took the opportunity and got registration for the purpose of election on the basis of provisional constitutions. Although election was held the Commission did never abandon the issue. It has been pursuing the matter ever since.
 
After the election was held, Mr. Razzaque submits, the Commission sat on a meeting on the issue, found constitutions of at least thirteen political parties, including Bangladesh Nation-alist Party (BNP), Workers Party, Jatiya Samajtantrik Dal (JSD), National Awami Party (NAP), Jatiya Party, Jamaat-e-Islami, Tariqat Federation, Zaker Party and Bangladesh Khelafat Andolon non-compliant with the RPO. The Commission decided to issue letters to them urging upon them to update their constitutions in keeping with law. Pursuant to the decision the Commission issued letters to BJI. And the BJI responded to the letters of the Commission positively and thrice amended its constitution in order to update the same in line with law and the Constitution. The last one of the kind was received by the Commission on 02.12.2012. The Commission has never treated the registration of BJI as final nor does the BJI treats it as final. Subsequently, the Scrutiny Committee was reconstituted for examining the constitutions of the parties which examined amended constitu-tions of BJI and recorded its findings for consideration of the Commission. The procee-dings before the Commission had to be postponed on account of the pendency of the present Rule.
 
Mr. Razzaque next submits that, the question of other parties apart, the constitutions of three Islamist parties, namely, Tariqat Federation of which petitioner No. 1 is the general-secretary and petitioner No. 14 is the Publicity Secretary, Zaker Party, of which petitioner No. 2 is the general-secretary and of Bangladesh Khelafat Andolon were also found by the Scrutiny Committee non-compliant with the RPO requirements but they were given registration. Despite the fact that the parties of the three leading petitioners stand on the same footing with BJI so far as registration is concerned, they have filed the writ petition without saying a single word about their own disqualifications. They have also not mentioned the fact that Bangladesh Khelafat Andolon, an Islamist party, whose constitution was found by the Scrutiny Committee to be violative of both qualification and disqualification clauses of the RPO has also been given registration by the Commission. The petitioners chose not to challenge the registration of Khelafat Andolon either. This non-mention of material facts, let alone the pick and choose made, he insisted, constitutes gross suppression of material facts which is singly enough to render the rule liable to be discharged. Mr. Razzaque, in support of his contention, referred to the case of Dr. Mohiuddin Faruque v Bangladsh, 49 DLR (AD) 1; SP Gupta and  others v President of India and others, AIR 1982 SC 149; Md. Shajahan Santa v Bangladesh, 17 BLC 844 and KR Srinivas v RM Premchand, (1964) 6 SCC 620.
 
The third contention sought to be canvassed by Mr. Razzaque is that the scrutiny committee subsequently formed for examining the party constitutions examined the amended BJI constitution submitted on 02.12.2012. The committee already submitted its report contained in Annexure-27. In the report the committee found all the changes, except one, brought in the original constitution acceptable as consistent with law 11 and the Constitution. It is against only one controversial area that the committee opined that the BJI constitution is still at variance with Articles 8,9,10, 11 and 12 of the Constit-ution which, he argues, is misconceived and open to clarifications to be made before the Commission. The point sought to be made by him, therefore, is that BJI constitution, by its latest position, is no more inconsistent with the Constitution or the law.
 
In this case there is a co-mingling of a set of muslim clerics, a number of ordinary citizens and three members of Amra Muktijyoddhar Santan (an organization composed of the children of the martyrs of the liberation war) who conjointly brought the petition. More specifi-cally, twelve petitioners (Petitioner Nos. 1-11 and 14) are muslim clerics and they professedly are believers of traditional Islam which, according to them, is inherently secular, tolerant, peaceful, non-sectarian, non-communal and non-discriminatory. They, as opposed to Jamaat, are pro-liberation clerics. Among them petitioner Nos. 1, 2, 3 and 14 are directly involved in religion based politics. Petitioner Nos. 1 is the secretary-general of Tariqat Federation. Petitioner No.2 is the secretary-general of Zaker Party and Petitioner No. 3 is the President, Sammilito Islamic Jote. Petitioner No.14 is the Publicity Secretary of Tariqat Federation. Records suggest that the constitutions of the first two parties were found by the Scrutiny Committee non-compliant with Article 90B of the RPO. They were given registration by the Commission. Another Islamist party named Bangladesh Khelafat Andolon, constitution of which was found to be violative of both Articles 90B and 90C of the RPO was also given registration by the Commission. There is no mention about the facts in the petition and the petitioners are conspicuously silent about them.
 
Ten petitioners i.e. petitioner Nos. 12-13, 15 and 19-25 are ordinary citizens who did not disclose their special identity or special case as to how they are concerned about the BJI registration. Petitioners Nos. 16-18 are members of “Amra Muktijyodhar Santan” who have not made out a separate case of their own. They are unlikely to share the whole range of sentimental grievances of the clerics. They being descendants of the victims of Jamaat’s atrocities during liberation war bear inborn hatred and contempt for the party. They naturally are interested to see that BJI is not given registration as a political party and is not allowed to do politics in Bangladesh.
 
With the above background the petitioners brought this petition in the form of public interest litigation (referred to hereinafter as “PIL”) challenging the registration of BJI on the ground stated above.
 
From the sentimental point of view the case of the petitioners obviously carries weight with the people in general. They having come to court as petitioners of a legal action cannot unfortunately depend on mere sentiment and must stand the test of law before being qualified as such. Since the action brought by them is in the nature of PIL the test is still stricter.
 
The PIL jurisprudence has developed over the decades essentially as a mechanism for protection of basic human rights and fundam-ental freedom of backward and underprivileged section of the people violated by the state or its instrumentalities. Superior courts, in their anxiety to reach justice to the backward and the underprivileged section of citizens allowed, in fit circumstances, public spirited persons or organizations to maintain action on a liberal view of standing and thus ensured them access to justice. It is in the sense that the PIL owes its existence in the privilege granted by the courts by an extended meaning of the traditional rule of standing. Since PIL is an exception to the general rule of standing the petitioner has to go through certain test based on some principles developed over the decades, for example, the petitioner should be a public spirited person and must approach the court bona fide for public purpose. There must exist ‘public injury’ or ‘public wrong’ resulting from actions of the state or its instrumentalities sought to be remedied. The privilege must not be allowed to persons or organizations approaching court with ulterior motive for satisfying personal grudge, generating publicity or public sensation. A brief account of the developments of PIL would be of use in appreciating the competence of the petitioners as petitioners of a pro bono action of the present kind.
 
In the United States, the country of origin of the public interest litigation, the public interest law gained currency in 1960’s and by activisms of lawyers and various social action groups the frontiers of locus standi has remar-kably expanded with the resultant development of public interest litigations covering multiple areas like minority rights, race and gender relations, public health, environmental pollution, social exploitations, consumer protection etc.
 
In 1970’s England found a champion of public causes in Mr. Raymond Blackburn, a former MP, who generated a considerable expanding thrust in the rigid mould of standing by filing a series of cases known as ‘Blackburn Cases’. The court heard Mr. Blackburn in those cases filed challenging inaction of police in prosecuting gaming houses, action of the government in joining European Common Market and for enforcing public duty owed by the police and Greater London Council in respect of exhibition of pornographic films. In all the cases the applicants, though not aggrieved in the ordinary sense, were found to have locus standi as they have “sufficient interest” in the performance of public duties. By early 1980 when the House of Lords was deciding the case of IRC v Federation of Self Employed, (1981) 2 All E R 93, the court was insisting only on ‘sufficient interest’ not on the applicant’s personal grievance. Meanwhile Rules of the Supreme Court was introduced and the Supreme Court Act, 1981 came into being in which liberalized rule of standing was recognized.
 
In India Public Interest Litigation has attracted huge literature focused by and large on public injury or public wrong affecting common man specially the downtrodden, underprivileged and socio-economically backward sections of the population. The basic concern that worked behind development of the PIL in India is to see that huge number of its population belonging to socio-economically backward strata, who are neither aware of their constitutional or legal rights nor have the ability to afford the huge expense of litigations, get access to justice and do not lose confidence in the rule of law. Articles 226 and 32 of the Indian constitution which confer jurisdiction upon the High Courts and the Supreme Court respectively to issue writs, orders, directions etc. do not contain the restrictive phrase ‘person aggrieved’ for filing writ or constitutional petitions. Article 32 empowers the Supreme Court to issue writ only for enforcement of fundamental rights. In the peculiar constitutional and factual background Supreme Court of India practically initiated its contemporary journey in the area of public interest litigations with the case of Mumbai Kamgar Sabha v Abdullah, AIR 1976 SC 1455, wherein Krishna Ayre, J stated:
 
“Public interest is promoted by a spacious construction of locus standi in our socio-economic circumstances and conceptual latitudinarianism permits taking liberties with individualization of the right to invoke the higher courts where the remedy is shared by a considerable number, particu-larly when they are weaker.”
 
The Supreme Court thereafter came down heavily in aid of the downtrodden, backward and underprivileged sections of people and allowed standing to public spirited persons and organiz-ations as petitioners seeking enforcement of fundamental and other rights of the helpless victims of public wrong and public injury. Down the line came the famous cases like People’s Union for Democratic Rights v Union of India; Olga Tellis v Bombay Municipal Corporation; Vellore Citizen’s Welfare Forum v Union of India; Bandhu Mukti Morcha v Union of India; Charanlal Sahu v Union of India; MC Mehta v Union of India; Paramanand Katara v Union of India; Banwasi Sheba Asram v State of UP and many others. All these cases are someway or other relatable to right to life of the vulnerable section of the population. In the People’s Union for Democratic Rights v Union of India, (1982) 3 SCC 235, standing was allowed to a public spirited organization on behalf of the labourers engaged in construction works in the various projects connected with Asian Games,1892 complaining payment of wages less than what was minimum permissible by law. While explaining the nature and scope of PIL, Bhagwati, J stated:
 
“ We wish to point out with all the emphasis at our command that public interest litigation which is a strategic arm of the legal aid movement and which is intended to bring justice within the reach of the poor masses …is a totally different kind of litigation it is intended to promote and vindicate public interest which dem-ands that violation of constitutional and legal rights of large number of people who are poor, ignorant or socially or econom-ically disadvantaged position should not go unnoticed and unreddressed.”
 
In Olga Tellis v Bombay Municipal Corporation, (1985)3 SCC 545, Supreme Court allowed standing to journalist and social activists to maintain petitions complaining plight of several slum dwellers of Bombay facing eviction and demolition of pavements. In Vellore Citizen’s Welfare Forum v Union of India, (1996) 5 SCC 647, Supreme Court accorded standing to a public spirited organization to vindicate rights of the victims of tannery-pollution. In Bandhu Mukti Morcha v Union of India, (1984) 3 SCC 161, a letter addressed to the Supreme Court by a public spirited organization complaining that several workers were kept as bonded labourer in certain stone quarries was treated as a writ petition. In Charanlal Sahu v Union of India, (1989) 4 SCC 286, Supreme Court, on a PIL petition, provided immediate relief to the victims of Bhopal gas leak tragedy. In a similar case, i.e. in MC Mehta v Union of India, (1987) 1 SCC 395, on a PIL petition filed by a lawyer, Supreme Court granted relief to gas leak victims of Shriram Fertilizer and Chemical Plant, Delhi. In Paramanand Katara v Union of India, (1990) 1 SCC 613, Supreme Court, on a PIL petition, issued direction to the Government that every injured person brought for medical treatment should immediately be given medical aid without waiting for police formalities. In Banwasi Sheba Asram v State of UP, (1993) 2 SCC 612, on a PIL petition Supreme Court granted relief to the Adibashi community and other backward section of people using forest as their habitat and means of livelihood against their eviction.
 
The Supreme Court while maintaining its main concern to reach the poor and underp-rivileged through PIL, sometimes traveled beyond and allowed standing to public spirited persons or organizations complaining violation of constitutional and legal obligations affecting determinate or indeterminate class of people irrespective of their socio-economic background. In Communist Party of India(M) v Bharat Kumar, (1998) 1 SCC 2001, Supreme Court upheld the judgment of the High Court of Kerala declaring “bandh” ordered and enforced by political parties illegal as violative of funda-mental rights of citizens. In Union of India v Association for Democratic Reforms, (2002) 5 SCC 294, the question raised was that whether a voter has the right to information regarding assets and liabilities, educational qualification, involvement in offence, if any, of the candidate seeking election. Supreme Court allowed standing to an organization working in the field. In Bangalore Medical Trust v Muddappa, (1991) 4 SCC 54, local residents approached the High Court challenging allotment of a land earmarked in the development plan as park to a private trust for construction of nursing home. The petition made by the residents was allowed. Supreme Court upheld the judgment passed by the High Court.
 
The case of SP Gupta v Union of India, AIR 1982 SC 149, (popularly known as ‘Judges’ Transfer Case’) is the first leading decision of Supreme Court on PIL. In this case Supreme Court entertained a petition filed by some practicing lawyers challenging the constitut-ionality of the circular issued by the Law Minister regarding transfer of the High Court Judges and non confirmation of the sitting Additional Judges of the High Courts (at one stage the affected Judges joined the proceeding as petitioners). Standing was allowed on the ground that the independence of judiciary is a matter of grave public importance. While according standing Bhagwati, J, stated:
 
“There can be no doubt that the practicing lawyers have a vital interest in the independence of the judiciary and if any unconstitutional and illegal action is taken by the State or any public authority which has the effect of impairing the indepen-dence of judiciary they would certainly be interested in challenging the constitution-ality or legality of such action. They had clearly a concern deeper than that of a busybody and they cannot be told off at the gate.”
 
At the same time his Lordship expressed a note of caution in the following words:
 
“But the individual who moves the court for judicial redress in cases of this kind must be acting bona fide with a view to vindicating the cause of justice and if he is acting for personal gain or private profit or out of political motivation or other oblique consideration the court should not allow itself to be activised at the instance of such person and must reject his application at the threshold.” (Emphasis added)
 
In Benazir Bhutto v Pakistan, PLD 1988 SC 416, Pakistan Supreme Court held that as Article 184(3) is open ended the proceedings could be maintained by an individual whose fundamental rights are infracted or by a person bona fide alleging infraction of the fundamental rights of a class or group of persons as there is no rigid incorporation of the notion of aggrieved party in art 184(3). In Darshan Masih v State, PLD 1990 SC 513, Pakistan Supreme Court entertained telegram as a petition for enforce-ment of the fundamental rights of bonded labourers. Both Indian and Pakistan Supreme Court, in extending traditional rule of standing, obviously enjoyed the added advantage of the absence of the qualifying phrase “person aggrieved” in their respective constitution. Whereas PIL has come to stay, it has also suffered extensive criticism especially in India for rampant misuse.
 
Clear reflection of the criticism is noticed in many of the later judgments of the Indian Supreme Court in which it appears that the Supreme Court has made an apparent shift from its earlier position and followed a policy of restrictive interference. In Sachidanand Pandey v State of WB, (1987) 2 SCC 295, Khalid, J, (in concurring the main judgment) observed:
 
“My purpose in adding these few lines of my own is to highlight the need for restraint on the part of the public interest litigants when they move courts. Public interest litigation has now come to stay. But one is led to think that it poses a threat to courts and public alike. Such cases are now filed without any rhyme or reason. It is, therefore, necessary to lay down clear guidelines and to outline the correct parameter foe entertainment of such petitions. If courts do not restrict the free flow of such cases in the name of public interest litigations, the traditional litigation will suffer and the court of law, instead of dispensing justice, will have to take upon themselves administrative and executive functions.”
 
His Lordship further observed:
 
“It is only when courts are apprised of gross violation of fundamental rights by a group or class action or when basic human rights are invaded or when there are complaints of such acts as shocks the judicial conscience that the courts, specially this court, should leave aside procedural shackles and hear such petition and extend its jurisdiction under all available provisions for remedying the hardship and miseries of the needy, the underdog and the neglected.” (Emphasis supplied)
 
In B. Singh v Union of India, (2004) 3 SCC 363, the Supreme Court held:
 
“Public interest litigation which has now come to occupy an important field in the administration of law should not be “publicity interest litigation’ or “private interest litigation” or “politics interest litigation” or the latest trend “Paise Income Litigation”. If not properly and strictly regulated at least in certain vital areas or spheres and abuse averted, it becomes also a tool in the unscrupulous hands to release vendetta … It cannot also be invoked by a person or a body of persons to further his or their personal causes or satisfy his or their personal grudge and enmity”. (Emphasis supplied).
 
Back in Bangladesh, Article 102 of the Constitution, save in cases of orders in the nature of habeus corpus and quo warranto, makes standing available only to a “person aggrieved.” Article 102(1) of our constitution empowers the High Court Division to issue directions or orders for enforcement of fundamental rights on an application made by a person aggrieved. Article 102(2) further restricts access to judicial review by inserting the rider “if no other equally efficacious remedy is provided by law.” With the peculiar jurisdictional restrictions Supreme Court of Bangladesh did not lag far behind in its bid to reach justice to the poor and the underprivileged in times of their need. Our Supreme Court responded almost contemporaneously with the Indian Supreme Court in according standing to citizens in matters of constitutional issues of grave importance. In Kazi Mukhlesur Rahman v Bangladesh, 26 DLR (AD) 44, the constitutionality of the Delhi Treaty of 1974 seeking to demarcate the land boundary between Bangladesh and India in certain areas was challenged by an Advocate as violative of his fundamental right. The Appellate Division while maintaining his petition made the following observation:
 
“The fact that the applicant is not a resident of South Berubari or the adjacent enclaves involved in the Delhi Treaty need not stand in the way of his claim to be heard in this case. We heard him in view of the constitutional issue of grave impor-tance raised in the instant case involving an international treaty affecting the territory of Bangladesh and his complaint as an impending threat to his certain fundamental rights…”
 
After Mukhlesur Rahman the noble journey just started, lapsed into long slumber largely due to extra-constitutional interventions into the constitutional order. Quite a long time thereafter the question of standing again came up in 1990 before the Supreme Court. Bangladesh Sangbadpatra Parishad (Bangladesh Sangbad-patra Parishad v Bangladesh, 43 DLR (AD) 126) challenged an award passed by the Wage Board. High Court Division refused to allow standing to the Sangbadpatra Parishad. The Appellate Division upheld the finding of the High Court Division and in contrast with Indian development, observed:
 
“In our constitution the petitioner seeking enforcement of fundamental right or constitutional remedies must be a ‘person aggrieved’. Our constitution is not at pari materia with the Indian constitution on this point. The Indian constitution, either in article 32 or in article, 226, has not mentioned who can apply for enforcement of fundamental rights and constitutional remedies. The Indian courts only honoured a tradition requiring that a petitioner must be an aggrieved person. The emergence in India of pro bono publico litigations, that is litigation at the instance of a public spirited citizen espousing cause of others, has been facilitated by the absence of any constitutional provision as to who can apply for a writ.”
 
Series of cases followed after Sangba-dpatra Parishad in which standing was allowed to public spirited persons and organizations to maintain petitions vindicating constitutional and legal rights relating to health hazard, environment, flood control, unlawful detention and so on among which the case of Dr. Mohiuddin Faruque v Bangladesh, 49 DLR (AD) 1, is the leading and most comprehensive. In Mohiuddin Faruque Appellate Division held:
 
“…when a public injury or public wrong or infraction of fundamental rights affecting an indeterminate number of people is involved it is not necessary, in the scheme of our constitution, that the multitude of individuals who has been collectively wronged or injured or whose collective fundamental rights have been invaded are to invoke the jurisdiction under article 102 in a multitude of individual writ petitions, each represe-nting his own portion of concern. In so far as it concerns public wrong or public injury or invasion of fundamental rights of an indeterminate number of people, any number of the public, being a citizen, suffering the common injury or common invasion in common with others or any citizen or an indigenous association, as distinguished from a local component of foreign organization, espousing that particular cause is a ‘person aggrieved’ and has the right to invoke jurisdiction under article 102.”(Emphasis supplied)
 
The Appellate Division, alongside liberali-zation of standing rules for public interest, formulated some guidelines for the High Court Division so that its jurisdiction is not misused at the hands of unscrupulous litigants. The guidelines are handed down by the Appellate Division in the following words:
 
“The High Court Division will exercise some rules of caution in each case. It will see that the applicant is, in fact, espousing a public cause, that his interest in the subject matter is real and not in the interest of generating some publicity for himself or to create mere public sensation, that he is acting bona fide, that he is not a busybody or an interloper, that it is in public interest to grant him standing and that he is not acting for a collateral purpose to achieve a dubious goal including serving a foreign interest.” (Emphasis added)
 
Down the line came the case of ETV Ltd. v Dr. Chowdhury Mahmud Hasan and others, 54 DLR (AD) 130, in which standing was granted to two professors of Dhaka University and the President, Bangladesh Federal Union of Journalist to challenge the licensing agreement between the Ministry of Information and one SM Mahmud and thereafter approval to transfer the license to ETV (a private TV channel). The allegation was no less than of tampering evaluation report by the official of the concerned Ministry placing the one particular bidder from the rejected list to the top and thereupon signing the contract with one private individual, not a commercial enterprise, not participating in the bid, to install and operate a private TV channel. This was treated by the Supreme Court to be a desperate case of abuse of public office highly derogatory to the rule of law affecting public interest. And the Supreme Court considered the concern shared by three responsible citizens in this respect to be bona fide and allowed standing to them to maintain an action pro bono publico.
 
With the progress of PIL in our jurisdiction, as in India, many publicity mongers, interlopers and ill advised self seekers turned ambitious and took up PIL as a tool for serving their hidden purposes. Thus PIL fell into abuse at the hands of the unscrupulous litigants. In the background came the case of Sayeda Rezwana Hasan (Unreported), Civil Appeal No. 200 of 2004 and NBR v Abu Saeed Khan (unreported), Civil Appeal Nos. 38-39 of 2007. A plain reading of the aforesaid decisions in the above cases suggests that the Appellate Division took serious notice of the persistent misuse of court’s discretion in the name of PIL and in its anxiety tried to bring the unbridled activism in the area into discipline by setting out parameters to be followed. In Rezwana Hasan Appellate Division held that filing of PIL is essentially meant to protect basic human rights of the disadvantaged citizens and the High Court Division should guard that filing of such petition does not convert into “publicity interest litigation” or ‘private interest litigation’. The case of NBR v Abu Saeed Khan (supra) is the latest in the line in which Supreme Court took restrictive view in granting standing for pro bono action. Here the petitioner, a freelance journalist, challenged an allegedly arbitrary fixation of tariff value and imposition of supplementary duty thereupon on the SIM card/mobile telephone connections thereby driving up the charge of phone connection beyond the affordable capacity of the citizens. In this case the Appellate Division has taken serious notice of the abuse of court process in the name of PIL. SK Sinha, J, speaking for the court, made the following observations:
 
“Nowadays, it is noticeable that a group of lawyers have developed a tendency of filing PIL petitions on behalf of persons or organizations challenging the propriety of the Government in taking decisions relating to policy matters, its development works, orders of promotions and transfers of public servants, imposition of taxes and fixation of tariff value by the authority for achieving dubious goal for generating publicity for themselves or to create public sensation. The High Court Division has been taking cognizance of those petitions without looking at whether or not such petitions are at all maintainable in the light of the principles settled by this Division in Mohiuddin Faruqe, Professor Mozaffar Ahmed and Syeda Rizwana Hasan…”
 
His Lordship further observed:
 
“A person who has filed a petition for personal gain or for private profit or personal propaganda or political motive or any other extraneous considerations will not be entertained …High Court Division does not have power to take cognizance of any petition which trespasses into the areas which is reserved to the executive and legislative by the Constitution.”
 
In the aforesaid case Appellate Division found it expedient to outline certain principles for the court to be followed and indicated certain areas to which discretion of the court must be confined while taking cognizance of a PIL petition. An abridged version of the principles is a) there is no scope in PIL for serving private or publicity interest or to attain dubious goal. Therefore, bona fide of the petitioner in PIL is important. His bona fide must be tested against the absence of the actually affected person. If no satisfactory answer is given for non appearance of the affected person the petition may not be entertained, b) policy decision of the Government, development works, orders of promotion or transfer of public servants are not open to challenge in PIL, c) PIL is essentially meant to protect the poor and disadvantaged who are unable to reach the court by reason of their poverty or other constraints. The areas of PIL ,activity as the Appellate Division has specially identified are: cases of child abuse, non-payment of minimum wages, exploitation of casual workers, custodial torture or death, violence against women and children, environmental pollution and disturbance of ecological balance, drug and food adulteration.
 
A plain reading of the leading cases of different jurisdictions suggests that the basic thrust of PIL has always been to protect fundamental freedom and basic rights of the backward and less fortunate section of the people but at times PIL surpassed its narrow frontiers and developed in other dimensions of public causes. Thus Superior courts in appropriate cases found it proper to allow standing to individuals having sufficient interest to maintain action treating constitutional questions of grave importance or gross and manifest abuse of public office which shocks public conscience. In the ever evolving trend of PIL pro bono cases have, save in cases of misuse, consistently followed certain common principles. Courts have always insisted on existence of either a public or private wrong or injury suffered by any determinate or indeter-minate class or group of persons or individuals; the wrong or injury must result from an act or omission of the state or of a public authority done in violation of their legal or constitutional obligations; any member of public approaching court must have sufficient interest and must be acting bona fide. Extreme caution is taken to prevent mere busybodies or persons coming to court with ulterior motive for satisfying private or publicity interest or persons coming for satisfying personal grudge or enmity.
 
Since the concept of ‘public wrong’ or ‘public injury’ and ‘private wrong’ or ‘private injury’ has assumed technical meanings in PIL literature those concepts must of necessity be seen in that context.
 
Public wrong or public injury has assumed a distinctive meaning in PIL as against private wrong or injury. Every wrong or injury is not a public wrong or injury in PIL sense. Public wrong or injury as opposed to public sentiment, emotion or curiosity is relatable to public interest. Public interest is nowhere defined in our Constitution or General Clauses Act. In Stroud’s Judicial Dictionary ‘public interest’ is defined as follows:
 
“Public Interest”- A matter of public or general interest does not mean that which is interesting as gratifying curiosity or a love of information or amusement; but that in which a class of the community have a pecuniary interest or some interest by which their legal rights or liabilities are affected.” (Emphasis supplied)
 
It follows from the definition of public interest given by Stroud that public wrong or injury is relatable to act affecting legal right or liabilities of the public which means violation of legal rights or obligations of a community or class. PIL, however, remained no more confined to cases of violation of legal rights or liabilities in their strict sense. It was also available in cases involving constitutional questions of grave importance or gross abuse of power by the state or public authorities affecting people in general.
 
The concept of public as against private wrong is more succinctly stated in SP Gupta. In SP Gupta Bhagwati, J, observed that if any specific injury or wrong suffered by a determinate class or group of persons resulting from an act of the state or public authority done in violation of its constitutional or legal obligation it is a ‘private wrong’ or ‘private injury’ specified as against the affected indivi-dual or the determinate class or group of persons. Since the injury to life, liberty, body or property is specific injury meted out to an individual or determinate class or group of persons remedy lies in traditional adversarial system. Any of the affected individual or group of individual or any member of the public acting bona fide can maintain an action for the affected persons if they are unable to approach the court by reason of their social, economic or other constraints. But if any act of the state or any public authority done in violation of constitutional or legal obligation which causes injury or wrong to the public in general and there is no specific injury as against any of the affected persons the injury or wrong is a ‘public injury’ or ‘public wrong’. In such circumstances any member of public acting bona fide and having sufficient interest in seeking remedy can maintain an action.
 
The muslim clerics are certainly respectable persons in the society and their long ideological struggle against BJI as a party allegedly pursuing radical Islamist agenda in politics and contempt for them especially on account of their hateful role during liberation war may be appreciated. Their grievance against registration of Jamaat and its politics in Bangladesh is also shared by the people in general. The three petitioners belonging to Amra Muktijyoddhar Santan as well as other children of the martyrs of liberation war deserve and indeed enjoy highly compassionate and respectful attention of the whole nation. None can afford to demean or belittle their personal sufferings and their concern against the registration given to BJI as a political party and thereby allowing them to do politics in Bangladesh. But unfortunately for both the groups of petitioners, law is blind and since they have resorted to law they must take in good grace the technical language of law even if unkind.
 
Reverting to the case, the statements made in the writ petition clearly indicate that the twelve leading petitioners as Islamic clerics belong to traditional school of Islamic thoughts and ideologies while BJI, according to them, pursues radical ideologies of Maulana Maud-oodi and Wahhabism which pursues radicalism, extremism and militancy not approved by Islam. This ideological disapproval of the petitioners virtually turned them hostile to BJI. Especially for petitioner Nos. 1, 2, 3 and 14 their conflicting  religious ideologies with BJI have received an added dimension from their political opposition to them. It is also not difficult to infer that the above four leading clerics conceived the idea of fighting BJI in court and in their bid to give their move a label of bona fide organized eight other clerics belonging to their ideologies and they again conjointly made ten of their own men having no special identity to join them as petitioners. The three members of Amra Muktijyoddhar Santan who joined the petition seemingly lent their names on persuasion out of their inherent hatred to Jamaat.
 
There is nothing on record to show that they or any of the petitioners are public spirited persons and working in the legal field to vindicate public causes. Their apparent grieva-nce against registration of BJI is merely senti-mental not legal. Mere sentimental grievance or injury, however genuine or grave, does not confer standing in law to maintain pro bono action. Technically, the petitioners are not public spirited persons and have practically come to court (in the language of law) with ulterior motive obviously to satisfy their grudge against an old enemy.
 
Furthermore, the petitioners did not disclose anywhere in their petition that the parties of petitioner Nos. 1, 2 and 14 participated in the same registration-race with BJI with similar non-compliant constitutions and obtained registration as political parties exactly as was done by BJI. They did not also mention the fact that Khelafat Andolon, another Islamist party suffering no less disqualification than BJI, also got registration at the same time. The petitioners did not challenge their registration either. The conspicuous silence of the petitioners on the above facts amounts to suppression of material facts on the one hand and signifies that they have not come with clean hands on the other which is the basic foundation of PIL. It is, therefore, not difficult to conclude that the petitioners seriously lack in bona fide so as to qualify as such to maintain a pro bono action.
 
Next comes the question of public wrong’ or ‘public injury’ or ‘private wrong’ or ‘private injury’ suffered by any determinate or indeterm-inate class or group of persons resulting from violation of the constitutional or legal obligations by the state or any public authority. The public or private wrong as discussed above are essentially relatable to act violative of or derogatory to public interest which means that the act must adversely affect public interest or there must be manifest abuse of public office so as to create a public wrong strictly in its technical sense, affecting the people in general.
 
In the instant case there is nothing on record to show that there is existence of any public wrong or injury in their technical sense or there is any occasion for people determinate or indeterminate in number to suffer any wrong, public or private, on account of violation of any constitutional or legal obligations by the state or any public authority.
 
Here in this case, as indicated in the petition and other materials on record, Election Commission as a constitutional body, propelled by mixed thrust of law and policy, having been confronted with difficulty to reconcile strict compliance of newly made registration law and the mounting pressure for holding the election with participation of all the political parties and alliances allowed registration to a good number of political parties including BJI on the basis of their provisional constitutions not fully compliant with law. The election was thus held with participation of all the political parties and alliances and democracy was restored. After the crisis was over the Commission took steps for review of registration and has been insisting on compliance of the party constitutions with the registration law. The registration so given by the Commission at a crisis moment without strict adherence to law cannot, by any stretch of imagination, cannot be said to have resulted in ‘public injury’ or ‘pubic wrong’ let alone suffered by any determinate or indeterminate number or group of people so as to justify pro bono action.
 
Seen in the light of what has been discussed above I have no hesitation to say that the writ petition is not maintainable as pro bono publico for the precise reason that there is no ‘public wrong’ or ‘public injury’ in their technical sense, resulting from the registration of BJI, let alone, suffered by any determinate or indeterminate group or class of people and that the petitioners’ are not public spirited persons and their bona fide is tainted with grudge and hatred.
 
A question may and indeed was faintly raised that three of the petitioners (members of Amra Muktijyoddhar Santan), in response to a general notification issued by the Commission in pre-registration days, lodged (along with a good number of other social organizations) formal protest against probable registration of Jamaat, therefore, they may be treated as ‘persons aggrieved’ if not qualified to maintain pro bono action and the petition may be treated as a regular writ petition. The answer is latent in the discussions made above in that one who does not fit in the flexible mould of standing rule cannot fit in the rigid mould. Nevertheless, for argument’s sake if the petition is treated as a regular writ petition can the petitioners be treated as ‘persons aggrieved’ as contemplated under Article 102(2) (a) of the Constitution which necessarily means they must be persons against whom a decision or order has been passed which has affected their right, liberty or interest recognized by law. Mere protest raised against a possible decision of a public authority does not ipso facto qualify the protesters as persons aggrieved. In ex-parte Sidebotham [(1880) 14 Ch.D.458] James, LJ, stated:
“The words ‘person aggrieved’ do no really mean a man who is disappointed of a benefit which he might have received if some other order has been passed. A ‘person aggrieved’ must be a man who has suffered a legal grievance, a man against whom a decision has been pronounced which has wrongfully deprived him of something or wrongfully refused him something , or wrongfully affected his title to something.”
 
A comparatively liberal view of the expression ‘person aggrieved’ was taken in the case of Attorney General of Gambia v Pierra Sarr N’Jie [(1961) 2 All E R 508] wherein Lord Denning stated:
 
“(T)he words ‘person aggrieved’ are of wide import and should not be subjected to a restrictive interpretation. They do not include, of course, a mere busybody who is interfering in things which do not concern him; but they include a person who has a genuine grievance because an order has been made which prejudicially affects his interests.”
 
This again does not come in aid of the petitioners for every interest does not confer locus standi upon a person to invoke the power of judicial review. The word ‘interest’ is used in qualified sense under law. Any person aggrieved can maintain an action but any person interested may not have locus standi to file a petition. Thus, a person who has purchased a property subsequent to filing of the petition may, at best, be called a ‘person interested’ but not a ‘person aggrieved’ inasmuch as no right or title to the property vested in him on the date of filing the petition. Similarly a person annoyed or hurt or even shocked by any act of an authority may not be a ‘person aggrieved’ in the technical sense. Although conceptually the expression ‘person aggrieved’ cannot be fit in a straight jacket there has been a lose but consistently followed parameter of the phrase. In the landmark case of Jashbhai Motibhai v Roshan Kumar reported in (1976) 1 SCC 671, Supreme Court of India described ‘person aggrieved’ as person whose legal right has been infringed or who has suffered legal wrong or injury in the sense that his interest recognized by law has been prejudicially and directly affected by an act or omission of the authority. It is, therefore, a logical fallacy to suppose that persons who do not stand the test of liberal rule may stand the rigid rule of standing as contemplated under Article 102(1) (a) of the Constitution.
 
Next and possibly the most important point in this case is whether the rule is premature. It appears from the annexures referred to by Mr. Razzque that the Commission addressed series of post-registration communications to BJI asking the latter to update its constitution in keeping with the requirement of law. Letters issued by BJI in response indicate that BJI took positive steps towards updating its constitution so that it may be acceptable to the Commission. Records suggest that the registration given on provisional constitution is not treated to be final by any of the parties to the registration and ever since the registration BJI brought about three amendments in its constitution in their bid to make it compliant with law. The last such amendment appears to have been submitted by BJI and was received by the Commission on 02.12.2012. It further appears that the Scrutiny Committee originally formed for scrutiny of the party constitutions was subsequently reconstituted and the reconstituted Scrutiny Committee meanwhile scrutinized the BJI constitution as amended and noted its comments in a note-sheet to be submitted for decision of the Commission.
 
Affidavit-in-opposition and the supplem-entary affidavit submitted on behalf of the Commission clearly suggest that the Commi-ssion has been pursuing the matter ever since the days of registration and in its efforts to bring the party constitutions back on compliance with law it has addressed, amongst others, series of letters specially to BJI over the years. BJI also responded positively, albeit, not convincingly, and amended its constitution thrice and submitted the same with the Commission in 2009, 2010 and 2012. The Commission also admits that it has received the last amendment of BJI constitution on 02.12.2012 which has already been scrutinized by the reconstituted Scrutiny Committee and findings thereon given by the Committee to be placed before the Commission. Clear case of the Commission is that due to pendency of the instant rule before the High Court Division they could not further proceed with the matter. Therefore, the case of BJI that the Commission is still in seisin of the matter is established on admission by the Commission itself.
 
Mr. Razzaque submits that judicial interference in a premature stage did never find favour with the superior courts and the practice was consistently disapproved at least as a matter of policy. He lends support to his contention from the cases of Kazi Mukhlesur Rahman v Bangladesh, 26 DLR (SC) 44, Ashutosh Chakma v RAJUK, 60 DLR 273 and the case of Kunda S Kadam v KK Soman, reported in AIR 1980 (SC) 881.
 
None of the cases is found to be exactly on point except Kunda S Kadam. In Kunda S Kadam an in service employee of Bombay Municipal Corporation applied for the post of Deputy Municipal Commissioner of the same Corporation with the recommendation of the Public Service Commission. While the name was under consideration by the Bombay Municipal Corporation for appointment a writ petition was filed by the respondent Nos. 1 and 2 challenging the recommendation itself on the ground that the applicant did not fulfill the required statutory qualifications. Bombay High Court took the view that the applicant did not possess one of the qualifications required for appointment and quashed the recommendation. Supreme Court set aside the judgment of the High Court. Speaking for the Court Krishna Ayre, J, observed:
 
“We consider that the time has not arrived for the court to adjudicate upon the merit and that the writ petition itself was premature… It was open to the Municipal Corporation to accept or not to accept the recommendation …We are not called upon to state what the powers of the Corporation in such a situation are. It was also open to the State Government even if the Corpor-ation had made an appointment to confirm or not to conform it depending on its own view of the matter. We mention all this only to emphasize that it was too early for the writ petition to be entertained and decided on merit.”
 
The view taken by Ayre, J is representative of the common law policy of non interference with acts, decisions and omissions of public authorities when there is availability of alternative remedy, a principle, which is consistently followed by the courts of this sub-continent, a fortiori, if the matter is already pending before any administrative forum. The underlying principle is that ‘a person cannot pursue two parallel remedies in respect of the same matter at the same time’.
 
In our jurisdiction this is not only a rule of policy but a rule of law enshrined in Article 102(2) (a) of the Constitution. The rider, ‘if satisfied that no other equally efficacious remedy is provided by law’ ingrained in the Article has made the power of judicial review subject to availability of other and equally efficacious remedy. As to whether a particular remedy provided by statute is equally efficacious or not is a matter to be decided from case to case. There is a long line of cases decided on the point of which, Srivastava KK v Bhupendra Kumar Jain, (1977) 2SCC494, Sree Ramdas Motor Transport Ltd. v Tadi Adhinarayana,(1997) 5 SCC 446 and the State of Punjab v Punjab Fibres Ltd. (2005) 1 SCC 604 are but few.
 
In Srivastava KK v Bhupendra Kumar Jain, (1977) 2 SCC 494, validity of the election of Madhya Pradesh Bar Council was challenged before the Election Tribunal. During pendency of the trial the petitioner approached the High Court under Article 226 of the Constitution and obtained an order. Supreme Court set aside the decision with the observation, inter alia, that when election petition covering the same subject-matter was actually pending the High Court should not have entertained the petition. The Supreme Court described the interference as miss exercise of the power of judicial review.
 
In Sree Ramdas Motor Transport Ltd. v Tadi Adhinarayana, (1997) 5 SCC 446, a petition under Sections 397 and 398 of the Companies Act alleging oppression of minority shareholders and mismanagement of the company affairs was filed in the Company Law Board. During pendency of the application a petition under Article 226 of the Constitution was filed seeking direction to the Central Government to investigate into the allegations against management by the CBI. High Court issued direction as prayed for. Supreme Court set aside the direction and observed that where statutory remedies were available and the matter was pending the High Court ought not to have passed the order.
 
In the State of Punjab v Punjab Fibres Ltd. (2005) 1 SCC 604, an assessee challenged the assessment before the Sales Tax Tribunal and the appeal was pending. During pendency of the appeal the assessee filed petition under Article 226 of the Constitution. Supreme Court held that the petition would not lie.
 
Unless under exceptional circumstances, the rule of exhaustion of alternative remedy is strictly insisted by the superior courts. There is an unbroken chain of cases decided in different jurisdictions in which the petitioner directly approaching the court without availing alternative remedy were refused relief. Power of judicial review invoked while there were proceedings pending before any administrative forum or tribunals met the same fate with still stronger disapproval. The instant case is no exception to the general rule and seems to be worse than others as the petitioners approached the court with questionable standing as well as while the registration process/proceedings is still pending for disposal and before no less an authority than a constitutional body like Election Commission. It follows, therefore, that on the admitted facts the registration process is still pending before the Commission for final decision and, thus, I have no hesitation to say that the writ petition is not maintainable as being premature.
 
This apart, Mr. Razzaque pointed out that if a defect is subsequently cured judicial review does not lie as the court does not answer merely academic questions. BJI, according to him, having cured the inconsistencies in its consti-tution by subsequent amendments adjudication upon the rule is tantamount to mere academic exercise. He lends support to this contention from the cases of Anwar Hossain v Mainul Hossain, 10 MLR (AD) 319 and State of Hariana v Krishna Rice Mill, (1981) 4 SCC 148. In Anwar Hosain subsequent withdrawal of the impugned order was held by the Appellate Division to have made the writ petition infractuous which necessarily means that subsequent curing of the defect affects the maintainability of the writ petition. The Hariana case of Indian jurisdiction appears to be distinguishable and does not apply to the present case. As for the principle canvassed, I find no controversy. But in the instant case the Commission nowhere admitted that the defects in the BJI constitution has been cured in the sense it is meant by the Appellate Division. The contention of Mr. Razzaque, therefore, is devoid of substance.
 
Mrs. Tania Amir, however, raised technical question of law suggesting that there cannot be anything pending as claimed by the contesting respondents. The precise point she raised is that there is sharp difference between qualification clause and disqualification clause of the RPO. And a political party disqualified from being registered from outset cannot be registered. Any registration given to such a party under whatever pretext is void ab initio and non est. That which is not in existence in the eye of law cannot be pending and by parity of reasoning the Commission’s efforts all these years, as she maintained, to bring back BJI constitution into compliance with law is nothing but flogging a dead horse. Therefore, nothing remains before the Commission so as to say that the writ petition is premature. Mrs. Tania Amir tried to defend maintainability of the rule on the contention that the RPO does not empower the Commission to cancel the registration on the ground that ‘the party constitution is contrary to the Constitution of the Republic’. She finally posed a question whether a constitutional authority can do an act in violation of law under the guise of political expediency. The points raised appears to be vital but none of them is properly mooted in the petition nor any informed argument addressed from any of the sides. Be that as it may, the points can hardly be overlooked.
 
As for the first point, I do not find any substance. The reason being that an act of a public authority, though can be ultra vires and thus void or for that matter void ab initio, cannot be void or void ab initio in the sense that it is stillborn admitting of no reopening by the authority that passed it. The argument is jurisprudentially wrong and seemingly imported from the law of contract. No party is bound by a void contract and by the same token no declaration of invalidity of a void contract is necessary as either party can refuse to be bound by it without any adverse consequence ensuing. In public law domain the case is different. If any public authority passes any order, for example, grants any license, lease or registration in exercise of statutory power there is no scope for avoiding the same except by intervention of court regardless of the fact that it is given in violation of qualification or disqualification clause or that it is contrary to the Constitution. It is never stillborn in the sense it is canvassed. If the public authority in exercise of its statutory discretion falls foul of due process of law affecting merit of the decision, or acts on irrelevant and extraneous considerations, takes into consideration inadmissible or void document or acts on misconstruction of law and thereupon takes a decision the same is ultra vires and amenable to judicial review. Unless it is turned down by a competent court the decision is not void or void ab initio and operates with all the consequences of a valid act. Even in case of total lack of jurisdiction (coram non judice), mala fide or malice in law where the action taken by the public authority is generally considered to be a nullity and no decision in the eye of law the same is still not void or void ab initio and need be challenged by an appropriate person in an appropriate proceedings and in appropriate time for declaring the same null and void. Before such a declaration is made by a competent court or authority action taken by any public authority cannot be presumed to be dead or non est and it operates in full force. The underlying principle is that there is a presumption of validity of acts of the Government or of public bodies and secondly, a subject cannot afford to ignore the will of the sovereign.
 
The position is well expressed in the impressive words of Lord Radcliffe appearing in Smith v East Elloe Rural District Council (1957) AC 736, 739, which reads: “…an invalid order bears no brand of invalidity on its forehead. Unless the necessary proceedings are taken at law to establish the case of invalidity and to get it quashed or otherwise upset, it will remain as effective for its ostensible purpose as the most impeccable of orders.” In Ridge V Baldwin [1963] 2 ALL E R 66(HL), Lord Morris said, “a void order carries a presumption of validity unless it is declared invalid by the court, and in this sense an administrative act, however invalid, is merely voidable.”
 
The registration thus given on a document even if inconsistent with the Constitution does not per se render the same void and non est so as to say nothing is pending before the Commission or that the rule is not premature.
 
The question that seemingly weighed much in the mind of the petitioners and pers-istently hammered by Mrs. Tania Amir before us is whether a constitutional authority can give registration to a political party in violation of law under any pretext especially under the pretext of political expediency. The contention raised seems to me to be too technical and proceduralised in approach to fit in any accepted canon of interpretation of law. Infinite variety of human conditions and exigencies hardly admit of any uniform rule to regulate all possible human conduct and exigencies so is the case with interpretation of law. Strict literalism in interpretation of law, therefore, is gradually being replaced by purposive interpretation intended to carry out the objective of law tampered with rule of expediency and public policy. Instances are not rare where strict adherence to law were sacrificed to the greater public causes according as the situation demanded. Mrs. Tania Amir’s insistence on the technicality of law was curiously divorced from the reality on the ground in which the Commission had to work for holding a general election and restore democracy, the crying need of the time. What Mrs. Tania Amir tried to suggest is that the nature and degree of disqualification suffered by Jamaat was distinguishable and enough for refusing registration but the Commission allowed registration as of political expediency.
 
Here again her argument is too simplistic and unsound. Before I go into the point a number of articles of the RPO having direct bearing upon registration of political parties may aptly be quoted.
 
90A.  For the purpose of this Order, any political party willing to participate in election under this Order shall be registered with the Commission subject to the conditions laid down in Article 90B.

90B. (1) for the purpose of registration under Article 90A, every political party shall—
  1. fulfill one of the following condit-ions, namely— 
    1. secured at least one seat with its electoral symbol in any parliamentary election held since the independence of Bangladesh; or
    2. secured five percent or total votes cast in the constituencies in which its candidates took part in any of the aforesaid parliamentary elections; or
    3.  established a functional cent-ral office, by whatever name it may be called, with central committee and district offices in at least ten administrative districts and offices in at least in fifty Upazilas or metrop-olitan Thanas; and
(b)     in addition to complying with the terms and conditions referred to in clause (1), shall have the following specific provisions in its constitution, namely-
  1. to elect the members of the committees at all levels including members of the central committee;
  2. to fix the goal of reserving at least 33% of all committee positions for women includ-ing the central committee and successively achieving this goal by the year 2000;
  3. to prohibit formation of any organization or body as its affiliated or associated body consisting of teachers or students of any educational institution or the employees of labourers of any financial, commercial or industrial insti-tuting or establishment or the members of any other profes-sion;
Explanation:-Nothing shall be construed to prevent-
  1. the teachers, students, employees or labourers from organizing independently in their respective fields of form-ing association, society, trade union etc. and exercising all democratic and political right; and
  2. individuals, subject to provisions of the existing law, to be a member of any political rights; and
(vii)   to finalize nomination of candidates by central parli-amentary board of the party from the panels prepared by members of the Ward, Union, Thana, Upazila or District committee, as the case may be, of the concerned constit-uency.
(2)     If an independent member of parliament joins any unregistered political party, the fact of his joining alone shall not qualify that party for registration with the Commission.

90C.  (1) A political party shall not be qualified for registration under this chapter, if—
  1. the objectives laid down in its constitution are contrary to the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh; or
  2. any discrimination regarding religion, race, caste, language or sex is apparent in its consti-tution; or
  3. by name, flag, symbol or any other activity it threatens to destroy communal harmony or leads the country to territorial disintegration; or
  4. there is any provision in its constitution for the establis-hment or operation of any office, branch or committee outside the territory of Bangladesh.
(2)     No political party shall be registered under a name , under which another political party has already been registered:
Provided that where more than one party apply for registration with the same name and no party has already been registered under such name, the Commission may, after giving the parties reasonable opportunity of being heard, register any of the parties with such name.
(3) The Commission shall not register any party banned by the Government.

90D. Any political party complying with the conditions laid down in Article 90A and Article 90B and not disqualified under Article 90C may apply for registration in the prescribe manner under the signature of its chairman and general-secretary or any other person holding equivalent rank:
provided that the Commission may allow any political party to apply for registra-tion which has a provisional constitution containing provisions as specified under sub-clause (b)(i), (b)(ii), b(iii) and (b)(iv) of Clause (1) of Article 90B as well as complying with provisions under Article 90C along with a resolution of the highest policy making body of the party, by whatever name it may be called, to the effect that the party shall submit a ratified constitution within six months from the date of first sitting of the ninth parliament.
 
A plain reading of the registration law provided in Articles 90A, 90B, 90C and 90D of the RPO quoted above does not suggest that there was any scope for the Commission to give separate treatment to any political party on the basis of degree of disqualifications. So far as registration is concerned violation of Article 90B is as good as violation of Articles 90C (1). Registration may equally be refused for violation of any of the conditions required to be fulfilled for registration under any of the articles. In practice many of the political parties seeking registration at that moment were at fault. Question of legal competence apart, any attempt to pick and choose by the Commission in terms of degree of disqualification at the material time was well nigh impossible, without jeopardizing the main objective it was striving to achieve.
 
It is fairly deducible from judicial notice as well as from the facts on record and arguments addressed that Jamaat was an important comp-onent of a major political alliance of the time. Side by side pressure for holding election with participation of all the political parties and alliances was mounting. The law with stringent conditions for registration was meanwhile intr-oduced which could hardly be fulfilled without a certain amount of time. The election was meanwhile long delayed and popular demand was to hold election and restore democracy as soon as possible. The country was run by a crisis government and the emergency proclaimed earlier was still continuing. Confronted with difficult choices to be made during a crisis time the Commission chose to discharge its overriding obligation to restore democracy and constitu-tionalism in the country by holding a general election with participation of all political parties and alliances down playing for the time being the technicalities of law. The decision of the Commission was clearly taken as of public policy which may be explainable upon rule of expediency not on political expediency as indicated by Mrs. Tania Amir.
 
The case of the petitioners indicating Jamaat’s involvement in religious extremism, fanaticism or militancy culminating in modern-day jihad sounds alarming and undoubtedly poses serious threat to Bangladesh as a demo-cracy founded on the principles of secularism, nationalism, socialism and over and above popular sovereignty. This anti state agenda of Jamaat is claimed to be age old and nothing new. In that view it is difficult to follow why the petitioners specially the clerics chose not to play any tangible role against such potential menace designed and harboured by a group of people under the banner of Islam and/or a political party and why after so long years they woke up late in 2009 to ventilate all their concerns and grievances, that too in court, having had hardly or no jurisdiction to adjudicate the matter, leaving aside the administration and the successive governments of the country.
 
As for the question of Jamaat’s reprehensible role in our war of liberation and by the same token losing moral right to do politics in Bangladesh, there would, to my mind, be scarcely anyone here to say otherwise or not to share the sentiment. Unfortunately, law does not allow us to make any declaration to the deprivation of right or interest of any person or body merely on the basis of moral disentitlement.
 
The next contention of the petitioners was that the RPO does not confer upon the Com-mission to cancel registration on the ground that party constitution is contrary to the Constitution of the Republic suggesting thereby that judicial review is maintainable. The Commission does not say that it is powerless nor is there any law that expressly bars the Commission to entertain the matter. Rather the Commission’s case is that the registration given to BJI is provisional not final and it is yet to decide the matter. BJI itself does not deny the position. I, for myself, have already held that the same issue is pending before the Commission for its decision. More importantly, this Division is the appellate forum for any possible cancellation of registration of a political party. At this stage embarking upon an inquiry into the power of the Commission to cancel registration of a political party is uncalled for and is tantamount to usurping the power of a constitutional body without due deference to its jurisdiction. Furthermore, this admittedly not being a case of registration simpliciter and a case of registration provisionally or temporarily given the Commission, if necessary, might see its power lying in its general power to rescind without reverting to the ‘cancellation clause’. It is neither necessary nor expedient, at this stage, to lose confidence in the wisdom of a co-ordinate branch of the Government. I would only conclude, if I may, by saying that the reply given by Mr. Mohsen Rashid to a question of the kind appears to me to be sound.
 
Another question mooted during hearing as to whether the Commission can receive ratified constitution submitted by a political party beyond time. It is difficult to explain the question upon any sound proposition of law. If any law requires a party to submit certain document within certain time for confirmation of any interim relief earlier given can it be construed to mean delayed submission of document cannot be received? In absence of any contrary intention appearing in law, such interpretation of limitation clauses is bound to lead to absurdity. Firstly because, the authority in seisin of the matter in such cases will find itself bereft of evidence as to time the document was filed. Secondly, it would be difficult for the authority to take action on the delayed filing, if the law so requires. The question seems to me not well mooted on law.
 
For all the reasons stated above I am constrained to hold that this writ petition is not maintainable. But at the same time one thing hardly escapes sight, that is, the issue of registration of BJI is long lingering for a good length of time which may fairly be called undue. This does not seem to be befitting for the Election Commission. It is difficult to be at one with the Commission when it says that the issue could not be disposed of due to pendency of this rule before the High Court Division. The Commission, in the peculiar circumstances, could have made appearances in the rule and take steps for early disposal. The Commission instead sat idle on the issue and virtually allowed the matter to be dragged years together and at the hearing stage appeared before this court only when direction issued from this court so to do.
 
In view of the peculiar facts and circumstances of the case, I am of the opinion that ends of justice would be met if I dispose of the rule with direction to the Election Comm-ission to dispose of the registration issue of Respondent No.1 i.e. the Bangladesh Jamaat-E-Islami.
 
Accordingly, the Election Commission is directed to dispose of the BJI registration issue in accordance with law with reasonable haste.
        
This rule is thus disposed of without any order as to cost.

 
বিচারপতি এম. ইনায়েতুরু রহিম:
 
আমি, আমার বিজ্ঞ ভ্রাতৃদ্বয় বিচারপতি এম. মোয়াজ্জাম হো‡সন ও বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক কর্তৃক পৃথকভা‡ব প্রসতুতকতৃ রায় দু'টি পা‡ঠর সু‡যাগ হ‡য়‡ছ। অÎ রতলটি নিরঙ্কুশ (absolute) ক‡র বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক যে রায় ও সিদ্ধামত প্রদান ক‡র‡ছন তার সা‡থ সম্পূর্ণ একমত পোষন ক‡র আমি আমার কিছু নিজস্ব অভিমত ব্যত্তু ও সং‡যাজন করছিঃ
 
১-৩ নং প্রতিবাদী প‡ক্ষর বিজ্ঞ আইনজীবী জনাব আব্দুর রাজ্জাক আ‡লাচ্য রতলটি খারি‡জর স্বপ‡ক্ষ অত্যমত জোরা‡লা যুত্তিু উপসাহপন ক‡র নি‡বদন ক‡রন যে, রতলটি অপরিপ° (premature) ও রক্ষনীয় নয়। এ প্রস‡ঙ্গ তিনি প্রতিপক্ষ নির্বাচন কমিশন কর্তৃক দাখিলকতৃ হলফনামার সংযুত্তিু ২৪, ২৫, ২৬ ও ২৭-এর প্রতি আদাল‡তর দৃষ্টি আকর্ষণ ক‡র নি‡বদন ক‡রন যে, বাংলা‡দশ জামায়া‡ত ইসলামী দলটি‡ক সাময়িক গঠনত‡মএর (provisional constitution) ভিত্তি‡ত নির্বাচন কমিশন কর্তৃক গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ, ১৯৭২-এর অনু‡”Qদ ৯০ ডি এর "ব্যতিµম বিধান' অনুযায়ী শর্ত সা‡প‡ক্ষ নিবন্ধন প্রদান করা হয়। অনy‡”Q` ৯০ ডি-এর "ব্যতিµg বিধান' অbyhvয়ী জামায়া‡ত ইসলামীর প‡ক্ষ বিভিন্ন সম‡য় সং‡শাধনকৃত দলীয় গঠনতমএ নির্বাচন কমিশ‡ন দাখিল করা হ‡য়‡ছ এবং কমিশ‡নর চাহিদা অনুসা‡র গঠনত‡মএর সর্ব‡শষ সং‡শাধিত কপি কমিশ‡ন জমা প্রদান করা হ‡য়‡ছ বিগত ০২.১২.২০১২ তারি‡খ। কিমও অদ্যাবধি নির্বাচন কমিশন ঐ সং‡শাধিত গঠনতমএ সম্প‡র্ক চুড়ামত কোন সিদ্ধামত প্রদান ক‡রনি অর্থাৎ নিবন্ধন সংµvমত বিষয়টি এখনও নির্বাচন কমিশ‡ন বি‡বচনাধীন আ‡ছ; উপযুত্তু কর্ত„প‡ক্ষর নিকট বি‡বচনাধীন কোন বিষ‡য় আদাল‡তর কোনরদপ হসত‡ক্ষপ বি‡শষতঃ সংবিধা‡নর অনু‡”Qদ ১০২ এর প্র‡য়াগ কাম্য হ‡ত পা‡র না এবং তা করা হ‡ল আদালত তাঁর স্বীয় এখতিয়ার-এর সীমা অতিµম কর‡ব (the court will exceed it’s jurisdiction); নির্বাচন কমিশন যে‡হতু একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান, সুতরাং একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠা‡নর কায©µ‡মর উপর আদাল‡তর হসত‡ক্ষপ কাঙ্খিত নয় এবং এ বিষ‡য় জনাব রাজ্জাক বাংলা‡দশ সুপ্রীম কো‡র্টর আপীল বিভাগ এবং উপমহা‡দ‡শর বিভিন্ন উ”P আদvল‡তর নজীরসমূহ উপসাহপন ক‡রন যা ইতিম‡ধ্য মাননীয় বিচারপতি এম. মোয়াজ্জাম হো‡সন এবং মাননীয় বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক তাঁ‡দর প্রদত্ত রায়সমূ‡হ উ‡ল্লখ ক‡র‡ছন। জনাব রাজ্জা‡কর উপ‡রাত্তু যুত্তিু বি‡বচনা ও আ‡লাচনার পূ‡র্ব গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ, ১৯৭২-এর অনু‡”Qদ ৯০ডি-এর বিধানটি উ‡ল্লখ করা প্র‡য়াজন, যা নিমণরদপঃ
 
"Any political party complying with the conditions laid down in Article 90A [Article 90B and not disqualified under Article 90C] may apply registration in the prescribed manner under the signature of its Chairman and General-Secretary or any other person holding equivalent ranks[:]
[Provided that the Commision may allow any political party to apply for registration which has a provisional constitution containing provisions as specified under sub-clause (b)(i), b(ii), (b)(iii) and (b) (iv) of clause(1) of Article 90B as well as complying with the provisions under Article 90C along with a resolution of the highest policy-making body of the party, by whatever name it may be called, to the effect that the party shall submit a ratified constitution within six months from the date of first sitting of ninth parliament.]''
        
ciewZ©‡Z এই আইনটি সং‡শাধন ক‡র "six months' এর সহ‡ল "twelve months' শব্দসমূহ প্রতিসহাপন করা হয় এবং এই সং‡শাধনীটির কার্যকারিতা দেয়া হয় ২৫ জুলাই, ২০০৯ হ‡ত।
 
উপ‡রাত্তু বিধানটির "ব্যতিµg অংশ' পর্যা‡লাচনা কর‡ল সুস্পষ্ট ভা‡ব প্রতীয়মান হয় যে,
ক) নির্বাচন কমিশন যে কোন রাজনৈতিক দ‡লর সাময়িক গঠনতমএ (provisional constitution) থাক‡ল নিবন্ধ‡নর জন্য আ‡বদন গ্রহন কর‡ত পার‡ব; ত‡ব শর্ত থা‡ক যে,
প্রথমতঃ আ‡বদিত দলটির সাময়িক গঠনতমএ গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ, ১৯৭২-এর অনy‡”Qদ ৯০বি এবং ৯০সি তে উ‡ল্লখিত শর্তসমহূ অবশ্যই পূরন কর‡ত হ‡ব;
দ্বিতীয়তঃ নিবন্ধ‡নর আ‡বদ‡নর স‡ঙ্গ সংশ্লিষ্ট দলটির স‡বা©”P নীতি নির্ধারণকারী কর্তৃপক্ষ (highest policy making body of the party) কত„©K গৃহিত এই ম‡র্ম সিদ্ধামত (resolution) দাখিল কর‡ত হ‡ব ‡য, দলটি নবম জাতীয় সংস‡দর প্রথম বৈঠ‡কর দিন হ‡ত ছয় মাস (পরবর্তী‡ত সং‡শাধন ক‡র বা‡রা মাস করা হ‡য়‡ছ) - এর ম‡ধ্য উত্তু দাখিলকৃত MVbZš¿wU  অনুসমর্থন (ratify) ক‡র কমিশ‡ন দাখিল কর‡ব।
 
এখা‡ন ব্যাখ্যা করা প্রাসঙ্গিক হ‡ব যে, যদিও উপ‡রাত্তু বিধানটির সং‡শাধনীর কার্যকারিতা ২৫ জলুাই,২০০৯ হ‡ত দেয়া হ‡য়‡ছ; তথাপি আমরা যদি "ছয় মা‡সর' সহ‡ল "বা‡রা মাস' প্রতিসাহপিত ক‡র আইনটি GK‡Î পাঠ করি তা হ‡ল অর্থ দাঁড়ায় যে, নবম জাতীয় সংস‡দর প্রথম বৈঠ‡কর বা‡রা মা‡সর ম‡ধ্য "অনুmgw_©Z গঠনতমএ' (ratified constitution) নির্বাচন কমিশ‡ন জমা দি‡ত হ‡ব; ২৫ জুলাই ২০০৯ হ‡ত পরবর্তি বা‡রা মা‡সর ম‡ধ্য নয়।
 
গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ-এর অনy‡”Qদ ৯০ ডি এর উপ‡রাত্তু শর্তসম~‡হর আ‡লা‡ক জনাব রাজ্জা‡কর উপসহাপিত যুত্তিুসমূহ বিচার বি‡শ্লষন কর‡ল প্রথমতঃ যে প্রশণটির নিষ্পত্তি হওয়া প্র‡য়াজন তা হ‡লা, যে গঠনত‡মএর ভিত্তি‡ত (provisional constitution) বাংলা‡দশ জামায়া‡ত ইসলামী‡ক অনy‡”Qদ ৯০ডি-এর বিধান অনুসা‡র নিবন্ধন দেয়া হ‡য়‡ছ ম‡র্ম জামায়া‡ত ইসলামী ও নির্বাচন কমিশন দাবি কর‡ছ সে গঠনতমএটি কি নিবন্ধনকালীন সম‡য় গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দ‡শর ১৯৭২-এর অনy‡”Qদ ৯০বি ও ৯০সি এ উ‡ল্লখিত শর্তসমূহ পyiণ কর‡ত সক্ষম হ‡য়ছিল?
 
নির্বাচন কমিশন ও জামায়া‡ত ইসলামী কর্তৃক দাখিলকতৃ হলফনামা এবং সম্পূরক-হলফনামাযুত্তু জবাবসমহূ হ‡ত এটা সুস্পষ্ট ‡য, যে গঠনত‡মএর উপর ভিত্তি ক‡র জামায়া‡ত ইসলামী‡ক নিবন্ধন দেয়া হ‡য়ছিল ঐ গঠনত‡মএ গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ, ১৯৭২-এর অনy‡”Qদ ৯০সি -এর (এ) ও (বি) শর্তসমহূ যথাযথভা‡ব পূরণ করা হয়নি।
 
নির্বাচন কমিশন কর্তৃক দাখিলকৃত হলফনামা যুত্তু জবা‡বর অনy‡”Qদ ২২(IX)-এ সুষ্পষ্টভা‡ব উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ যে, নির্বাচন কমিশন কর্তৃক গঠিত সংশ্লিষ্ট কমিটি জামায়া‡ত ইসলামী কর্তৃক দাখিলকৃত গঠনতমএ পরীক্ষা‡মত মতামত দি‡য়ছিল যে, দাখিলকৃত গঠনত‡š¿i উ‡ল্লখ‡যাগ্য বিধান সমূহ সংবিধা‡নর সা‡থ বি‡শষতঃ সংবিধা‡নর প্রসাতvবনা এবং অনy‡”Qদ ৮,৯,১০ এবং ১১ এর সা‡থ সাংঘর্ষিক। উত্তু অনy‡”Q‡দ আ‡রা উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ যে, উপ‡রাত্তু বিষয়টি জামায়া‡ত ইসলামী‡ক অবহিত করা হ‡ল জামায়া‡ত ইসলামীর কেন্দ্রীয় কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক জনাব মোঃ জসিমউদ্দিন সরকার দাখিলকৃত গঠনত‡š¿i ধারা ৫ এর কিছু বিধান নিজ হা‡ত কর্তন ক‡রন (deleted) এবং কমিশ‡নর কা‡ছ তিনি প্রতিশ্রততি দেন যে, তাঁরা সংশ্লিষ্ট বিধানগুলি দ‡লর পরবর্তী কাউন্সিল সভায় বাদ দি‡বন।
 
নির্বাচন কমিশন কর্তৃক দাখিলকৃত হলফনামা যুত্তু সম্পূiক জবা‡বর অনy‡”Qদ ৭-এ উপ‡রাত্তু বত্তুব্য সমূহ পুনরায় দৃঢ়তার সা‡থ পর্নুe¨ক্ত করা হ‡য়‡ছ।
 
কমিশ‡নর হলফনামা যুত্তু সম্প~iক জবা‡বর অনু‡”Qদ ৯-এ আ‡রা সুস্পষ্টভা‡ব উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ যে, কমিশ‡নর ২৭০/২০১০ সভায় কমিশন অভিমত ব্যত্তু ক‡র‡ছ যে,
ক) জামায়া‡ত ইসলামী প্রদত্ত প্রতিশ্রততি অনুh¡য়ী তা‡দর সংবিধান অনুসমর্থন (ratified) ক‡রনি;
খ) জামায়া‡ত ইসলামীর গঠনত‡মএর ধারা ৩-এ উ‡ল্লখিত লক্ষ্য ও উ‡দ্দশ্য (object) সংবিধা‡নর প্রসতvবনার সা‡থ সাংঘর্ষিক;
(গ) জামায়া‡ত ইসলামীর গঠনত‡মএ aviv 5৩) এবং ৬(৪) সংবিধা‡ন বর্ণিত রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতির সা‡থ সামÄm¨পূর্ণ নয়;
ঘ) জামায়া‡ত ইসলামীর গঠনত‡মএর ধারা ৭(১)-(৪) এবং ধারা ১১(২), যা অমুসলিম‡দর সদস্যপদ এবং শপথ সংµvমত, তা বাসতবসম্মত নয় (not realistic) এবং জামায়া‡ত ইসলামীর লক্ষ্য ও উ‡দ্দ‡শ্যর সা‡থও সাংঘর্ষিক;
ঙ) জামায়া‡ত ইসলামীর গঠনত‡মএর ধারা ১৮(৪)(চ) গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দ‡শর অনy‡”Qদ ৯০ বি(১)(বি)(ভ) এর সা‡থ সাংঘর্ষিক।
 
নির্বাচন কমিশন এর সম্পূরক হলফনামার উপ‡রাত্তু বত্তুব্যসমূহ হ‡ত এটা অত্যমত সুস্পষ্ট যে, নিবন্ধ‡নর সময় দাখিলকৃত জামায়া‡ত ইসলামীর গঠনতমএটির উ‡ল্লখ‡যাগ্য ধারা বা বিধানসমূহ সংবিধা‡নর সা‡থ সাংঘর্ষিক ছিল অর্থাৎ গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ ১৯৭২-এর অনy‡”Qদ ৯০ সি-এ উ‡ল্লখিত শর্তসমহূ পূর‡ন সক্ষম হয়নি।
 
‡য‡হতু সাময়িক গঠনতমএটি (provisional constitution) নিবন্ধনকালীন সম‡য় গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ ১৯৭২ এর অনy‡”Qদ ৯০ সি-এর শর্তসমহূ পূরন ক‡র দাখিল করা হয়নি, সুতরাং নির্বাচন কমিশন বে-আইনী ও আইন বহির্ভূতভা‡ব তকির্ত নিবন্ধনটি প্রদান ক‡র‡ছ; যা আইনসংগত কZ©„Z¡ ব্যতি‡র‡ক করা হ‡য়‡ছ এবং এর কোন আইনগত কার্যকারিতা নেই।
            প্রাসঙ্গিকভা‡ব এখা‡ন আ‡রকটি বিষয় আ‡লাচনা করা প্র‡য়াজন।
 
নির্বাচন কমিশন কর্তৃK দাখিলকৃত হলফনামা ও সম্পূরক হলফনামা হ‡ত এটা প্রতীয়মান nq যে, বিদ্যমান সকল রাজনৈতিক দ‡লর অংশ গ্রহ‡নর মাধ্য‡ম একটি সুষ্ঠু নির্বাচন অনষ্ঠুা‡নর জন্য নির্বাচন কমিশন আইন প্র‡য়া‡গ নমনীয় ম‡নাভাব দেখি‡য়‡ছ। সে কার‡ন কমিশন জামায়া‡ত ইসলামীর কেন্দ্রীয় আইন সম্পাদক জনাব জসিমউদ্দিন সরকার-কে শর্ত সা‡প‡ক্ষ দাখিলকৃত গঠনত‡মএর কিছু বিধান নিজ হা‡ত কতর্ন করার সু‡যাগ প্রদান ক‡রছিল।
 
গণপ্রতিনিধিত্ব অা‡দশ-এর অনy‡”Qদ ৯০ ডি এর "ব্যতিµম বিধা‡ন' সুস্পষ্টভা‡ব উ‡ল্লখ করা আ‡ছ যে, একটি রাজনৈতিক দ‡লর সাময়িক গঠনতমএ থাক‡ল নিবন্ধ‡নর জন্য কতিপয় শর্তপূরন ক‡র নিবন্ধ‡নর জন্য ঐ দল কমিশ‡ন আ‡বদন কর‡ত পার‡ব।
         শর্তসমূ‡হর অন্যতম হ‡লা দ‡লর গঠনত‡মএ গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দ‡শর অনু‡”Qদ ৯০বি ও ৯০সি তে উ‡ল্লখিত শর্তসমূহ পূরণ করার পাশাপাশি দ‡লর স‡বা©”P নীতি নির্ধারণকারী কর্তৃপক্ষ (highest policy making body) কর্তৃক গৃn£ত এই ম‡র্ম সিদ্ধামত দাখিল কর‡ত হ‡ব যে, ঐ দলটির সাময়িক MVbZš¿wU নবম জাতীয় সংস‡দর প্রথম বৈঠ‡কর বা‡রা মা‡সর ম‡ধ্য নিজ দ‡লর সংশ্লিষ্ট কর্তৃ‡ত্বর অনুসমর্থন (ratify) করি‡য় কমিশ‡ন জমা প্রদান কর‡ব।
 
জামায়া‡ত ইসলামী নিবন্ধ‡নর আ‡বদ‡নর প‡Îর স‡ঙ্গ দাখিলকৃত গঠনত‡š¿র সা‡থ আই‡নর বিধান অনুh¡য়ী স‡বা©”P নীতি নির্ধারণকারী কর্তৃপক্ষ অর্থাৎ কেন্দ্রীয় মজলি‡স শূi¡ "দলটি নবম জাতীয় সংসদর প্রথম বৈঠকর আইন নির্ধারিত সময়র মধ্য তাদর গঠনতমএ দলর সংশ্লিষ্ট কর্তপৃক্ষ কতর্কৃ অনুমাদন করিয় কমিশন জমা প্রদান করg‡g©Õ কোন লিখিত সিদ্ধামত দাখিল ক‡রনি এবং সংশ্লিষ্ট পক্ষগন তা দাবীও কর‡ছ না। নির্বাচন কমিশন-এর হলফনামায় শুধygvÎ উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ যে, নিবন্ধ‡নর আ‡বদ‡নর স‡ঙ্গ নিবন্ধ‡নর সমর্থ‡ন জামায়া‡ত ইসলামী'র কার্যনির্বাহী কমিটির সিদ্ধামত জমা দেয়া হ‡য়ছিল। ত‡ব, ১-৩ নং প্রতিবাদী পক্ষ কর্তৃক তা‡দর দাখিলকৃত রতল'টি খারি‡জর আ‡বদন প‡Îর সংয¤ুত্তু X-4(পৃষ্ঠা-২০৭) হ‡ত দেখা যায় যে, ৩নং প্রতিবাদী ২০-১০-২০০৮ ইং তারি‡খ নির্বাচন কমিশন সচিব বরাব‡র একটি পÎ দি‡য় অবহিত ক‡রছি‡লন যে, ৯ম জাতীয় সংস‡দর পর ছয় মা‡সর ম‡ধ্য বাংলা‡দশ জামায়া‡ত ইসলামী'র নির্ধারিত ফোরা‡ম উত্তু প্রসতvবনা বি‡বচনা ক‡র অনু‡মাদন করা হ‡ব। এ প্রস‡ঙ্গ উ‡ল্লখ করা প্র‡য়াজন যে, ৩নং প্রতিবাদী'র উত্তু চিঠিটি‡ত দ‡লর স‡র্বা”P নীতি নির্ধারণকারী কর্তৃপ‡ক্ষর এ সংµvমত কোন সিদ্ধা‡মতর বিষয় উ‡ল্লখ নেই। সুতরাং, এটা সy¯úষ্ট যে, ঐ ধর‡নর কোন সিদ্ধামত নির্বাচন কমিশ‡ন নিবন্ধ‡নর আ‡বদনপ‡Îর সা‡থ দাখিল করা হয়নি। এমতাবসাহয়, ঐ ধর‡নর একটি গুরতত্বপূর্ণ আবশ্যকীয় শর্ত প্রতিপালিত না হওয়া স‡ত্তবও নির্বাচন কমিশন আইন ভঙ্গ ক‡র জামায়া‡ত ইসলামী-‡ক নিবন্ধন প্রদান ক‡র অবৈধ ও ক্ষমতা বহির্ভূত কাজ ক‡র‡ছ। একটি সষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠা‡নর যুwত্তু দেখি‡য় ‡কান দল‡ক অবৈধ ও অনৈতিক সুবিধা প্রদান একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠা‡নর নিকট কাম্য হ‡ত পা‡র না। একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান ¯^”QZvi স‡ঙ্গ সংবিধান ও আইন অনুh¡য়ী কার্য পরিচালনা কর‡ব এটাই স্বাভাবিক ও তাই কাম্য। নির্বাচন কমিশন জামায়া‡ত ইসলামী'র দাখিলকৃত গঠনতমএ পরীক্ষা‡মত উ‡ল্লখ‡যাগ্য সংখ্যক বিধানসমূহ সংবিধা‡নর স‡ঙ্গ সাংঘর্ষিক হওয়ায় বিষয়টি দলটি‡ক অবহিত ক‡র জামায়া‡ত ইসলামী'র কেন্দ্রীয় আইন সম্পাদক জনাব জসিমউদ্দিন সরকার‡ক গঠনত‡মএর কিছু বিধান‡ক নিজ হা‡ত কর্তন করার সু‡যাগ ক‡র দেয় এবং এর ভিত্তি‡ত জামায়া‡ত ইসলামী-‡ক নিবন্ধন প্রদান করা হয়। একজন ব্যত্তিু‡ক দ‡লর নীতি নির্ধারণকারী স‡র্বা”P কর্তৃপ‡ক্ষর কোন সিদ্ধামত ব্যতি‡র‡ক তাৎক্ষনিকভা‡ব কমিশ‡নর অফি‡স ব‡স গঠনত‡মএর কিছু অংশ হা‡ত কর্তb করার সু‡যাগ দেয়ার ঘটনা বিস্ময়কর, অনৈতিক এবং বি‡শষ রাজনৈতিক দ‡লর প্রতি কমিশ‡নর আনুকূ‡ল্যর বহিঃপ্রকাশ।
 
উপ‡রাত্তু অবসহার সু‡যাগ গ্রহণµ‡g জামায়া‡ত ইসলামী তা‡দর দাখিলকৃZ হলফনামার অনy‡”Qদ ১৬ ও ৩৭-এ উ‡ল্লখ ক‡র‡ছ যে, নির্বাচন কমিশন দলটির উ‡দ্দশ্য ও লক্ষ্য সম্প‡র্ক অবহিত হ‡য়ই নিবন্ধন প্রদান ক‡র‡ছ এবং দলটি গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দ‡শর সকল শর্ত পূরণ ক‡রই নিবন্ধন প্রাপ্ত হ‡য়‡ছ এবং এ পর্যা‡য় নিবন্ধন বাতি‡লর কোনরদপ সু‡যাগ নেই।
 
নির্বাচন কমিশন কর্তৃক দাখিলকতৃ হলফনামা ও সম্পূরক হলফনামায় (যথাµ‡ম অনy‡”Qদ ২২ (ix) এবং ৭) দ্ব্যর্থn£ন ভা‡ব উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ যে, জামা‡ত ইসলামী'র প‡ক্ষ জনাব জসিমউদ্দিন সরকার গঠনত‡মএর কতিপয় বিধান কর্তন করার সময় প্রতিশ্রততি (promised) দি‡য়ছি‡লন যে, দ‡লর পরবর্তী কাউন্সিল সভায় সংবিধান বহির্ভূত গঠনত‡মএর বিধানসমূহ বাদ ‡দয়া হ‡ব; কিমও সেই প্রতিশ্রততি অনুh¡য়ী পরবর্তি‡ত গঠনত‡মএর সংবিধান বর্হিভূZ বিধানসমূহ বাদ দেয়া হয়নি। কোন ব্যত্তিু বা দ‡লর মৌখিক প্রতিশ্রততির উপর ভিত্তি ক‡র নির্বাচন কমিশ‡নর মত একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক একটি রাজনৈতিক দল‡ক নিবন্ধন প্রদান আইনতঃ ও ন্যায়ত অনু‡মাদন‡যাগ্য নয়; এ ধর‡নর কাজ বে-আইনী ও ক্ষমতা বহিভ©¨Z ।
 
১-৩ নং প্রতিবাদী প‡ক্ষর হলফনামায় দাবী করা হ‡য়‡ছ যে, নির্বাচন কমিশন দলটির গঠনত‡মএর লক্ষ্য ও উ‡দ্দশ্য সম্প‡র্ক সমওষ্ট হ‡য়ই নিবন্ধন দি‡য়‡ছ এবং তা আইনানুগ ভা‡বই দেয়া হ‡য়‡ছ এবং বতর্মান অব¯’vয় তা বাতি‡লর কোন সু‡যাগ নেই।
 
জামায়া‡ত ইসলামী'র এ বত্তুব্য নির্বাচন কমিশন ও উত্তু দল কর্তৃক দাখিলকতৃ দলিলাদির স‡ঙ্গ এ‡কবা‡রই সংগতিপূর্ণ নয়। কমিশ‡নর সম্পূরক হলফনামায় সংযুত্তিু-১৭ এবং সংযুwত্তু-২৪ হ‡ত প্রতীয়মান nq যে, ১৯ এপ্রিল, ২০১০ ও ৪ ন‡ভম্বর, ২০১২ সা‡ল নির্বাচন কমিশন কর্তৃক জামায়া‡ত ইসলামী-এর সে‡µটারী-জেনা‡রল, ৩নং প্রতিবাদী, বরাব‡র যথাµ‡ম তাগিদপÎ-১ ও তাগিদপÎ-২ দেয়া হয়; তাগিদপÎ-২-এর দ্বারা ৫ ডি‡সম্বর, ২০১২-এর ম‡ধ্য সং‡শাধিত গঠনতমএ কমিশ‡ন দাখি‡লর জন্য অনু‡রাধ করা হয়।
 
ঐ তাগিদপ‡Îi জবা‡ব জনাব জসিমউদ্দিন সরকার ২০ ন‡ভম্বর, ২০১২ তারি‡খ কমিশন সচিব বরাব‡র একটি পÎ দি‡য় সং‡শাধিত গঠনত‡মএর কপি দাখি‡লর জন্য ০৫ ফেব্রতয়ারী, ২০১৩ পয©মত সময় বর্ধিত করার আ‡বদন ক‡রন (সংযুwত্তু-২৫) এবং অব‡শ‡ষ ০২ ডি‡সম্বর, ২০১২ তারি‡খ কমিশন সচিব বরাব‡র দলটির সং‡শাধিত গঠনতমএ-এর কপি জমা প্রদান করা হয় (সংযুত্তিু-২৬)। ১-৩ নং প্রতিপক্ষ অÎ রতলটি খারিজ করার জন্য পৃথকভা‡ব যে দরখাসতটি আদাল‡ত দাখিল ক‡রছি‡লা, ‡সই দরখা‡সত উপ‡রাত্তু দলিলাদিসহ এ সংµvমত অন্যান্য দলিলাদি সংযুত্তু (X5 - X10) করা আ‡ছ ।
         কমিশ‡নর সম্পূরক হলফনামার সংযুত্তিু ২৭ হ‡ত স্পষ্টতtই দৃশ্যমান যে, জামায়া‡ত ইসলামী সর্ব‡শষ যে গঠনতমএটি কমিশ‡ন জমা দি‡য়‡ছ ‡স গঠনতমএটিও সংবিধা‡নর অ‡নক বিধা‡নর এর সা‡থ mvsNwl©ক। এমতাবসাহয়, ১-৩ নং প্রতিবাদী প‡ক্ষর যে বত্তুব্য ও দাবী "নির্বাচন কমিশন তা‡দর লক্ষ্য ও উ‡দ্দশ্য সম্প‡র্ক অবহিত হ‡য় নিবন্ধন প্রদান ক‡র‡ছ' তার কোন বাসতব ভিত্তি ও উৎকষর্তা নেই এবং ঐ বত্তুব্য ও দাবী অমতঃসার শূন্য এবং স্ববি‡রাধী।
 
উপ‡রাত্তু আ‡লাচনা হ‡ত এটা অত্যমত সুস্পষ্ট যে, জামায়া‡ত ইসলামী'র কেন্দ্রীয় আইন সম্পাদক জনাব জসিমউদ্দিন সরকার দ‡লর প‡ক্ষ নির্বাচন কমিশন-কে সংবিধা‡নর আ‡লা‡ক যথাযথ ভা‡ব দলীয় গঠনতমএ সং‡শাধনµ‡ম আইন অনুh¡য়ী কমিশ‡ন জমা প্রদান কর‡বন এ‡হন মৌখিক প্রতিশ্রততি ও আশ্বvস প্রদান ক‡রই দ‡লর নিবন্ধন হাসিল ক‡র‡ছন। কিমও প্রতিশ্রততি ও আশ্বvস অনুযায়ী পরবর্তী‡ত সংবিধা‡নর আ‡লা‡ক গঠনতমএ সং‡শাধন না ক‡র বরং এখন দাবী করা হ‡”Q যে, দলটির নিবন্ধন সঠিক ভা‡বই ‡দয়া হ‡য়‡ছ এবং তা হসত‡ক্ষপ‡যাগ্য নয়। জামা‡ত ইসলামী'র প‡ক্ষ সংবিধা‡নর আ‡লা‡ক দ‡লর গঠনতমএ সং‡শাধন করার যে প্রতিশ্রততি ও আশ্বvস কমিশ‡ন প্রদান করা হ‡য়ছিল তা ১-৩ নং প্রতিবাদীগণ তাঁ‡দর দাখিলকৃত হলফনামা ও সম্পূরক হলফনামায় কখনও অস্বীকার ক‡রননি।
 
উত্তু উপা‡য় তর্কিত নিবন্ধনটি হাসি‡লর পর ৩নং প্রতিবাদী তাঁর দাখিলীয় রীট পিটিশন নং ৬৮১২/২০০৮-টি আদাল‡ত উপ¯’vপিত হয়নি ম‡র্ম খারিজ করি‡য় নেন। ঐ রীট মোকদ্দমায় ৩ নং প্রতিবাদী গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দ‡শর অনy‡”Qদ ৯০ বি (১) (বি)(ii), ৯০ সি (১)(এ)(বি) অর্থাৎ নিবন্ধনসংµ¡মত বিধানসমূহ সম্প‡র্ক আপত্তি উথুাপন অর্থাৎ চ্যা‡লঞ্জ ক‡রছি‡লন।
 
উপ‡রাত্তু ঘটনাসমূহ বিচার বি‡শ্লষ‡ণ আমি নিঃসং‡কা‡চ ও দ্ব্যর্থn£নভা‡ব মতামত ব্যত্তু কর‡ত চাই যে, জামায়া‡ত ইসলামী নিবন্ধন হাসি‡লর জন্য নির্বাচন কমিশ‡ন ঐ ধর‡নর মৌখিক প্রতিশ্রততি ও আশ্বvস ছিল প্রকারামত‡র নির্বাচন কমিশন‡ক বিভ্রামত (mislead) ক‡র কৌশল ও শঠতার আশ্রয় গ্রহ‡নর মাধ্য‡ম তর্কিত নিবন্ধনটি হাসিল করা; এবং অব‡শ‡ষ দলটি তা কর‡ত সক্ষম হ‡য়‡ছ। অধিকমও, উত্তু রীট মোকদ্দমাটি দা‡য়‡রর উ‡দ্দশ্য ছিল নির্বাচন কমিশ‡নর উপর মনসতাত্বিক চাপ সৃষ্টি করা।
 
মুn¡ম্মদ হাবিবুর রহমান (সা‡বক প্রধান বিচারপতি) এবং আনিসুজ্জামান (অধ্যাপক আনিসুজ্জামান) কর্তৃক সংকলিত ও সম্পাদিত ""আইন-শব্দ‡কাষ'' গ্র‡মহ "fraud' শ‡ব্দর অর্থ ও ব্যাখ্যায় উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ যে, "কোন বসতুগত সুwবধালা‡ভর উ‡দ্দ‡শ্য কথায় বা কা‡জ জ্ঞাতসা‡র বা বেপ‡রায়াভা‡ব কৃZ কোন মিথ্যা বর্ণনা।' ব্যাখ্যায় deceit শব্দটি‡কও fraud–এর অর্মতfy³ করা হ‡য়‡ছ।
 
Deceit বা প্রতারণা, প্রবঞ্চনা-এর ব্যাখ্যায় উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ যে, ""যদি কেহ জ্ঞাতসার অথবা nVKvixZv পূর্বক কোন ঘটনা সম্পর্ক এমন উদ্দশ্য মিথ্যা কথা বলন যে, অপর ব্যত্তিু তাহার উপর নির্ভর করিয়া কাজ করন; "প্রতারণা' বা "প্রতারকর কৌশল' একটি সূক্ষ্ম, ধূ ফন্দি বা পরিকল্পনা যাহার কোন নাম নাই। সকল ধর‡bi kVZv, সূক্ষ্মতা, চাতু, প্রবঞ্চণা, ধূর্ততা, অবজ্ঞা, দক্ষতা, গোপনচুত্তিু, আচরণ ও আµমন এবং অন্যক প্রতারিত করিবার যে কোন উপায়, যাহার "অপরাধ' ব্যতীত কোন যথার্থ বা স¤ুনর্দিষ্ট নাম নাই।''
 
আই‡নর সুপ্রতিষ্ঠিত নীতি হ‡লা যে, "শঠতাপূর্ণ যে কান কার্যµমই অশুদ্ধ ও অকাযর্কর।'
         উপ‡রাত্তুভা‡ব বি‡বচনা কর‡ল এ অভিমত ব্যত্তু করা যায় যে, জামায়া‡ত ইসলামী তর্কিত নিবন্ধনটি হাসি‡লর জন্য নির্বাচন কমিশ‡ন প্রবঞ্চনা বা প্রতারণার (fraud on the Election Commission) আশ্রয় নি‡য়ছিল। অতএব, ঐ নিবন্ধনটি অশুদ্ধ ও অকার্যকর।
 
"নির্বাচন কমিশ‡ন জামায়া‡ত ইসলামী'র নিবন্ধ‡নর বিষয়টি এখনও বি‡বচনাধীন আ‡ছ; সুতরাং বর্তমান রতলটি অপরিপ°'-- জনাব রাজ্জা‡কর এ বত্তুব্য কতটুকু গ্রহন‡যাগ্য তা এখন বিচার-বি‡শ্লষন কর‡বা।
 
গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ ১৯৭২ এর অনy‡”Qদ ৯০ ডি এর "ব্যতিµg বিধানটি' বি‡শ্লষণ কর‡ল এটা অত্যমত সুস্পষ্ট যে, ঐ বিধানটি একটি অসহায়ী বিধান (temporary statute), যা নির্দিষ্ট একটি সময় পযমত© বলবৎ‡যাগ্য ছিল। অর্থাৎ, ‡কান রাজনৈতিক দল‡ক সাময়িক গঠনত‡মএর ভিত্তি‡ত নিবন্ধন দেয়া হ‡ল পরবর্তী‡ত উত্তু সাময়িক গঠনতমএটি নবম জাতীয় সংস‡দর প্রথম বৈঠ‡কর বা‡রা মা‡সর ম‡ধ্য সংশ্লিষ্ট দ‡লর স‡বা©”P নীতি নির্ধারণকারী কর্তৃপক্ষ কর্তৃK অনুসমথর্ন (ratified) ক‡র নির্বাচন কমিশ‡ন দাখি‡লর বিধান রাখা হ‡য়ছিল। বতর্মান নবম জাতীয় সংস‡দর প্রথম বৈঠ‡কর (২৪-০১-২০০৯) বা‡রা মাস অর্থাৎ ২৫-০১-২০১০ইং তারি‡খর পর ঐ আই‡নর স্বাভাবিক ম„Zz¨ (natural death) ঘ‡ট‡ছ। নবম জাতীয় সংস‡দর প্রথম বৈঠ‡কর বা‡রা মাস অতিµvমত হওয়ার পর ঐ আই‡নর আর কোন অসিতত্ব নেই। এরদপ অবসহvয় নির্বাচন কমিশন কর্তৃক জামায়া‡ত ইসলামী'র সং‡শাধিত গঠনতমএ জমা দা‡নর জন্য বিগত ২৯-০৪-২০১০-এর তাগিদcÎ-১ (নির্বাচন কমিশ‡নর সম্পূরক হলফনামার সংযুত্তিু-১৭), ০৪-১১-২০১২-এর তাগিদপÎ-২ (নির্বাচন কমিশ‡নর সম্পূরক হলফনামার সংযুwত্তু-২৪) প্রদান আইন ও ক্ষমতা বর্হিভতূ কাজ ছি‡লা এবং ঐ তাগিদপÎ সমূহ প্রদান ক‡র নির্বাচন কমিশন তার ক্ষমতা ও এখতিয়ার এর সীমা অতিµম ক‡র‡ছ। অনুরদপভা‡ব ঐ তাগিদপ‡Îর জবা‡ব জামায়া‡ত ইসলাম নির্বাচন কমিশ‡ন গঠনতমএ দাখি‡লর সময় বৃদ্ধির যে আ‡বদনসমূহ ক‡রছিল (নির্বাচন কমিশ‡নর সম্পূরক হলফনামার সংযুত্তিু-১৯ ও ২৫) তারও কোন আইনগত ভিত্তি নেই। স‡র্বাপরি ০২-১২-২০১২ তারি‡খ জামায়া‡ত ইসলামী কর্তৃক দাখিলকৃZ কথিত সং‡শাধনকৃত গঠনতš¿wট নির্বাচন কমিশন কর্তৃক গ্রহনও (নির্বাচন কমিশ‡নর সম্পূরক হলফনামার সংযুত্তিু-২৬) এখতিয়ার বহির্ভূত ছিল।
 
নবম জাতীয় সংস‡দর প্রথম বৈঠ‡কর বা‡রা মাস অতিµ¡মত হওয়ার পর জামায়া‡ত ইসলামী'র নিবন্ধন সংµ¡মত সব Kvh©µgB †e-AvBbx I ক্ষমতা বহির্ভূত এবং সকল কার্যµম অশুদ্ধ (vitiated) হ‡য়‡ছ। নির্বাচন কমিশ‡নর মত একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠা‡নর এ ধর‡ণর বে-আইনী ও ক্ষমতা বহির্ভূত কার্যµম-কে অনু‡মাদন দেয়া যায় না।
 
জনাব রাজ্জাক দৃpতার সা‡থ আমা‡দর ধারনা দি‡ত চেষ্টা ক‡রন যে, গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ-এর অনy‡”Qদ ৯০ ডি-এ "সময় সংµ¡মত' যে বিধানটি ছিল তা আ‡দশমূলক (directory); বাধ্যতামূলক (mandatory) নয়। জনাব রাজ্জা‡কর এ বত্তুব্য আ‡দ± গ্রহণ‡যাগ্য নয়।
 
যখন একটি আই‡ন তার কার্যকারিতার মেয়াদ নির্দিষ্ট করা থা‡ক তখন সেই আইনটি অসহায়ী আইন হি‡স‡ব বি‡বচিত হয় (temporary statute)। পরবর্তী‡ত উত্তু আই‡নর মেয়াদ বৃদ্ধি করা না হ‡ল আই‡ন উ‡ল্লখিত মেয়াদা‡মত উত্তু আইনটি স্বয়ং¢µয়ভা‡ব বিরত/ক্ষামত হ‡য় প‡ড় (ceases to have operation on the expiry of the period fixed by the legislation)।এ ক্ষে‡Î আই‡নর সুপ্রতিষ্ঠিত নীতি হ‡লা যে, অসহায়ী আইনর ভিত্তিত গৃত/স~চিত কার্যµg যদি ঐ আইন উল্লখিত মেয়াদর মধ্য সমাপ্ত না হয় তাহময়াদউত্তীর্ন হওয়ার পর বিবচনাধীন/বিচারাধীন সকল কার্যµম "ক্ষামত' n‡q hv‡e| যদি আইন হেফাজত করনর (saving clause) বিধান না থাক।
 
Trust Mai Lachhmi Sialkot Bradari Vs. Amritsar Improvement Trust, AIR 1963(SC), Page 976 মামলায় সিদ্ধামত হ‡য়‡ছ যে,
 
ÒAs because S.24 of the General Clauses Act is not applicable in case of temporary statute, any notification, appointment, order, scheme, rule, or bye-law made or issued under a temporary statute comes to an end with the expiry of the statute and will not be continued even if the expired temporary statute is re-enacted.''
 
সিনিয়র আইনজীবী ও সা‡বক অ্যাটর্নী-জেনা‡রল জনাব মাহমুদলু ইসলাম তাঁর সুলিখিত Interpretation of Statutes and Documents গ্র‡মহ ভারতীয় সুপ্রীম কো‡টর্র বিভিন্ন মামলার নজীর উদ্ধৃত ক‡র মšÍeÉ ক‡র‡ছন যে,
 
“In the absence of any such saving provision displacing the normal rule, once the temporary statute expires, no right can be claimed nor any liability can be imposed under that statute and the position is as if the temporary statute had not been passed at all.” (c„ôv-277)
 
S. Krishnan Vs. State of Madras, reported in AIR 1951 (SC), page 301, মামলায় সিদ্ধামত হ‡য়‡ছ যে,
“The general rule in regard to a temporary statute is that, in the absence of special provision to the contrary, proceedings which are being taken against a person under it will ipso facto terminate as soon as the statute expires.''
 
উপ‡রাত্তু নজীর সমূহ বি‡বচনায় আমার নিঃসং‡কাচ অভিমত যে, জামায়া‡ত ইসলামী'র নিবন্ধন সংµv¡মত সকল কার্যµম নবম জাতীয় সংস‡দর প্রথম বৈঠ‡কর (নবম জাতীয় সংস‡দর প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হ‡য়ছিল ২৪-০১-২০০৯) বা‡রা মাস অতিµvমত হওয়ার স‡ঙ্গ স‡ঙ্গই অর্থাৎ ২৫-০১-২০১০ইং তারি‡খর পর নির্বাচন কমিশ‡ন বি‡বচনাধীন থাকার দাবীর আইনগত কোন ভিত্তি নেই এবং ঐ তারি‡খর পর এ সংµvমত সকল কার্যµমই বে-আইনী এবং ক্ষমতা বহির্ভূত ও অশুদ্ধ। বরং, নির্বাচন কমিশন নবম জাতীয় সংস‡দর প্রথম বৈঠ‡কর বা‡রা মাস অতিµvমত হওয়ার পর গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ-এর অনy‡”Qদ ৯০এইচ (এফ)-এর বিধান অনুযায়ী সাময়িক গঠনত‡মএর ভিত্তি‡ত জামায়া‡ত ইসলামী‡ক প্রদত্ত নিবন্ধনটি বাতি‡লর কার্যµম গ্রহন না ক‡র সাংবিধানিক ও আইনগত দায়িত্ব পাল‡ন বিরত ‡থ‡ক প্রতিনিয়তই সংবিধান ও আইন ভঙ্গ ক‡র চ‡ল‡ছ; যা একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠা‡নর কা‡ছ কাম্য নয় এবং উত্তু wbw®ŒqZvi বিষয়টি জ্ঞাত হ‡য় সাংবিধানিক আদালত তার উপর অর্পিত দায়িত্ব পাল‡ন বিরত থাক‡ত পা‡র না।
 
সুÿè বি‡শ্লষ‡ণ ‡তা ব‡টই, সাধারণ পা‡ঠও এটা প্রতীয়মান nq যে, গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ-এর অনy‡”Qদ ৯০ডি-এর ব্যতিµম বিধা‡ন ""ratified constitution'' দাখি‡লর কথা উ‡ল্লখ করা হ‡য়ছিল। আই‡নর সুপ্রতিষ্ঠিত নীতি হ‡লা যে, ""আই‡ন উ‡ল্লখিত শব্দ বা বাক্য‡ক সাধারণ ভা‡বই অর্থ কর‡ত হ‡ব (the words be given their ordinary meaning)।'' আই‡নর এই সুপ্রতিষ্ঠিত নীতির আ‡লা‡ক আমরা "ratify' এবং ‘amendment’ শব্দ দু'টির সাধারন ও জনপ্রিয় অর্থ কি তা জানার চেষ্টা কর‡বা।
 
বাংলা একা‡ডমি হ‡ত প্রকাশিত English-Bangali অভিধান অনযুায়ী "ratify' শ‡ব্দর অর্থ হ‡লাঃ
"স্বাক্ষর দি‡য় (চুত্তিু ইত্যাদি) দৃpভা‡ব অনু‡মাদন করা; অনুসমর্থন করা।'
অন্য দি‡ক "amendment' শ‡ব্দর অর্থ হ‡লাঃ উন্নতিসাধন; ভুল সং‡শাধন।
Concise Oxford Dictionary অনুh¡য়ী "ratify' শ‡ব্দর অর্থ হ‡লাঃ ‘give formal consent to; make officially valid’
এবং
"amendment' শ‡ব্দর অর্থ হ‡লাঃ ‘a minor improvement’
The Chambers Dictionary অনুযায়ী "ratify' শ‡ব্দর অর্থ হ‡লাঃ
To approve a sanction; to give validity on legality to; to confirm the correctness of ratifier
এবং
"amendmant' শ‡ব্দর অর্থ হ‡লাঃ
Improvement; an alteration or addition to a document, agreement etc.
‘Ratify’ এবং ‘amendment’ শব্দ দুwUi Awভধানিক অর্থ বি‡শ্লষ‡ণ এটা অত্যমত সুস্পষ্ট যে শব্দ দুটির ম‡ধ্য মৌলিক পার্থক্য বিদ্যমান।
 
নির্বাচন কমিশ‡নর হলফনামার সংযুত্তিু-১৭,২৪-২৬ এবং ১-৩ নং প্রতিবাদী প‡ক্ষর হলফনামাসমূহ পর্যা‡লাচনায় প্রতীয়মান nq †h, নির্বাচন কমিশন এবং ১-৩ প্রতিবাদীগণ ""গঠনত‡মএর সং‡শাধন বিষ‡য়'' পরষ্প‡রর ম‡ধ্য চিঠি আদান প্রদান ক‡র‡ছন; কিমও গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ-এর অনy‡”Q` ৯০ ডি-‡ত বা উত্তু আই‡নর অন্য কোথাও নির্বাচন কমিশন‡ক কোন রাজনৈতিক দ‡লর গঠনতমএ সং‡শাধন, পরিমার্জন বা সং‡যাজ‡নর জন্য তাগিদপÎ প্রদা‡নর মাধ্য‡ম "অভিভাবক' বা "পরামর্শদাতার' ভূমিকা পাল‡নর কোন ক্ষমতা ও এখতিয়ার প্রদান করা হয়নি। নির্বাচন কমিশ‡নর কার্যµম হ‡ত প্রতীয়মান nq যে, ঐ প্রতিষ্ঠানটি জামায়া‡ত ইসলামী'র গঠনতমএটি বছ‡রর পর বছর কথিত সং‡শাধ‡নর সু‡যাগ প্রদান অব্যাহত রে‡খ আইন বহির্ভূত কাজ অব্যাহত রে‡খ‡ছ; যা বে-আইনী। এ ধর‡ণর কাজ‡ক আই‡নর ভাষায় বলা হ‡য় থা‡ক "সংবিধি বা আই‡নর সা‡থ প্রতারনা (fraud on the statute)' । এ প্রস‡ঙ্গ আই‡নর একটি সু-প্রতিষ্ঠিত নীতি উ‡ল্লখ করা যে‡ত পা‡র যে "যা প্রত্যক্ষভাব করা যায় না, তা  c‡iv¶fv‡eI করা যাব না।'
 
এখা‡ন আ‡রা একটি বিষয় সম্প‡র্ক স্পষ্টভা‡ব উ‡ল্লখ করা প্র‡য়াজন। ১-৩ নং প্রতিবাদী ও ৪ নং প্রতিবাদীগণ কর্তৃক দাখিলকতৃ দলিলাদিসমূহ হ‡ত এটা অত্যমত পরিস্কার যে, যে সাময়িক গঠনত‡মএর ভিত্তি‡ত তর্কিত নিবন্ধনটি প্রদান করা হ‡য়ছিল সেই গঠনত‡মএর বিভিন্ন ধারা বা বিধান স্পষ্টতঃই ছিল সংবিধা‡নর সা‡থ সাংঘর্ষিক। সুZরাং, ঐ সাময়িক গঠনতমএটি যদি জামায়া‡ত ইসলামী'র স‡বা©”P নীতি নির্ধারণকারী কর্তৃcক্ষ কর্তৃক নির্ধারিত সম‡য়র ম‡ধ্য অনসুমর্থনও (ratified) করা হ‡তা তাহ‡লও ঐ নিবন্ধ‡নর কোন আইনগত বৈধতা সৃষ্টি হ‡তা না। কারণ, অবৈধ কোন কিছু‡ক অনুসমথর্ন কর‡লই তা বৈধ হ‡য় যায় না কিংবা যা‡ব না।
 
উপ‡রাত্তু সার্বিক আ‡লাচনা‡মত আমার সুচিমিতত অভিমত যে, জনাব রাজ্জা‡কর বত্তুব্য "জামায়া‡তর নিবন্ধ‡নর বিষয়টি নির্বাচন কমিশ‡ন এখনও বি‡বচনাধীন আ‡ছ এবং সে কার‡ণ "রতলটি অপরিপ° এবং খারিজ‡যাগ্য' ঐ বত্তু‡ব্যর কোন সারবত্তবা বা উৎকর্ষতা (merit) ‡নই এবং তিনি তাঁর যুত্তিুর সমর্থ‡ন যে সমসত নজীরসমূহ উপসহাপন ক‡র‡ছন, তা অÎ মামলার ক্ষে‡Î প্র‡যাজ্য নয়। অতএব, সাবির্ক বি‡বচনায় রতলটি রক্ষনীয় এবং নিরঙ্কুশ‡যাগ্য (liable to be absolute)।
 
প্রাসঙ্গিকভা‡ব আ‡লাচ্য বিষ‡য় নির্বাচন কমিশ‡নর বিজ্ঞ আইনজীবী জনাব মহসিন রশীদ এর বত্তুব্য সমূহ বি‡বচনা করা আবশ্যক। তিনি যুত্তিু উপ¯’vপনকা‡ল অত্যমত জোরা‡লাভা‡ব নি‡বদন ক‡রন যে, জামায়া‡ত ইসলামীর দাখিলকৃত গঠনতমএwট নিবন্ধনকালীন সম‡য় বিদ্যমান সংবিধা‡নর কোন অং‡শরই সা‡থ সাংঘর্ষিক ছিল না এবং সে কার‡ণ কমিশন সমওষ্ট হ‡য় নিবন্ধন প্রদান ক‡রছিল এবং ঐ নিবন্ধন প্রদান ক‡র কমিশন আই‡নর ‡কান বিধান লংঘন ক‡রনি।
 
জনাব রশী‡দর উপ‡রাত্তু বত্তুব্যসমূহ আদালত‡ক বিস্মিত ক‡র‡ছ। কেননা, তাঁর ঐ বত্তুব্যসমূহ কমিশন কর্তৃK দাখিলকৃত হলফনামাযু³ জবাব, হলফনামাযুত্তু সম্পূরক জবাব এবং সংযুত্তু দলিলাদির সম্পূর্ণ বিপরীতধর্মী বত্তুব্য।
 
কমিশন কর্তৃK হলফনামা সহকা‡র লিখিত বত্তু‡ব্যর বিপরী‡ত তাঁর তৃতীয় কোন বত্তুব্য বা যুত্তিু উপসাহপ‡নর কোন সু‡যাগ আ‡ছ কিনা সে প্রশণ করা হ‡ল তিনি সে প্রসঙ্গ এড়ি‡য় তাঁর ‡দয়া বত্তু‡ব্য অনঢ় থা‡কন। এ‡হন পরিসিহতি‡ত আদালত যদি জনাব রশী‡দর মৌখিক বত্তুব্য গ্রহন ক‡র, যা কমিশ‡নর হলফনামা যুত্তু বত্তু‡ব্যর সম্পূর্ণ বিপরীত, তা হ‡ল আদালত‡ক এ সিদ্ধা‡মত আস‡ত হ‡ব যে, কমিশন আদাল‡ত মিথ্যা হলফনামা ও আদালত‡ক বিভ্রামত করার জন্য অসত্য বত্তুব্য ও তথ্য দি‡য়‡ছ; আর যদি কমিশ‡নর হলফনামা যুত্তু বত্তুব্য আদালত গ্রহন ক‡র এবং যা গ্রহন করাই আইনসংগত, তা হ‡ল আদালত‡ক বল‡ত হ‡ব যে, জনাব রশীদ তাঁর মোয়া‡°‡লর নি‡র্দশনা ব্যতি‡র‡ক নিজস্ব বত্তুব্য আদাল‡ত উপসvÛপন ক‡র‡ছন।
 
জনাব রশীদ তাঁর বত্তু‡ব্য নিবন্ধনকালীন সম‡য় বিদ্যমান সংবিধা‡নর cÖ¯Ívবনার দ্বিতীয় অনy‡”Qদ-এর প্রতি আমা‡দর দৃষ্টি আকর্ষণ ক‡র নি‡বদন ক‡রন যে, জামায়া‡ত ইসলামীর দাখিলকৃত গঠনতমএ সংবিধা‡নর প্রসতvবনার সা‡থ সংগতিপূর্ণ ছিল।
 
১৯৭২ স‡ন প্রণীত সংবিধা‡নর প্রসতvবনার দ্বিতীয় অনy‡”Qদwট ছিল নিমণরদপঃ
""আমরা অঙ্গীকার করি‡তছি যে, যে সকল মহান আদর্শ আমা‡দর বীর জনগণ‡ক জাতীয় মুত্তিু সংগ্রা‡ম আত্মনি‡য়াগ ও বীর শহীদদিগ‡ক প্রা‡নাৎসর্গ করি‡ত উদ্বুদ্ধ করিয়াছিল- জাতীয়তাবাদ, সমাজতমএ, গণতমএ ও ধর্মনির‡পক্ষতার সেই সকল আদর্শ এই সংবিধা‡নর মূলনীতি হই‡ব;''
 
১৯৭৫ সা‡ল জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান‡ক হত্যার পর সামরিক ফরমান ব‡ল উত্তু অনy‡”Q` পরিবর্তন ক‡র নিমণরদপ করা হয়;
""আমরা অঙ্গীকার করি‡তছি যে, যে সকল মহান আদর্শ আমা‡দর বীর জনগণ‡ক জাতীয় স্বাধীনতার জন্য যু‡দ্ধ আত্মনি‡য়াগ ও বীর শহীদদিগ‡ক প্রা‡নাৎসর্গ করি‡ত উদ্বুদ্ধ করিয়াছিল সর্বশত্তিুমান আল্লাহর উপর পূর্ণ আসহা ও বিশ্বাস, জাতীয়তাবাদ, গণতমএ এবং সমাজতমএ অর্থাৎ অর্থনৈতিক ও সামাজিক সুবিচা‡রর সেই সকল আদর্শ এই সংবিধা‡নর মূলনীতি হই‡ব;''
 
এখা‡ন উ‡ল্লখ করা প্র‡য়াজন যে, সামরিক ফরমান ব‡ল প্রসতvবনার ঐ সং‡শাধনী সহ সংবিধা‡নর বিভিন্ন সং‡শাধন, সং‡যাজন ও পরিবর্তন পরবর্তী‡ত সংবিধা‡নর কথিত ৫ম সং‡শাধনীর দ্বারা সংবিধা‡ন সন্নি‡বশিত করা হয়।
 
কিমও মহামান্য সুপ্রীম কো‡র্টর হাই‡কার্ট বিভাগ Bangladesh Italian Marble Works Limited Vs. Government of Bangladesh and others মামলায় The Constitution (Fifth Amendment) Act, 1979 (Act 1 of 1979) ‡ক ‡ব-আইনী ও বাতিল ঘোষণা ক‡র‡ছ। অবশ্য এ রা‡য় কিছু বিধান ও কাজ (actions)- ‡ক মাজর্না (condoned) করা হয়।
 
উত্তু রা‡য় সংবিধা‡নর প্রসতvবনার দ্বিতীয় অনy‡”Q‡দর যে সং‡শাধন সামরিক ফরমান ব‡ল এবং পরবর্তী‡ত ৫ম সং‡শাধনীর মাধ্য‡ম সন্নি‡বশিত করা হ‡য়ছিল তা মাজর্না (condoned) করা হয়নি। সামরিক ফরমান ব‡ল সংবিধা‡নর যে সকল সং‡শাধন, বি‡য়াজন ও পরিবর্তন করা হ‡য়ছিল তা‡ক এখতিয়ার বহির্ভূত (without jurisdiction) এবং "আই‡নর দৃষ্টি‡ত কখনই এর অসিতত্ব ছিলনা' (non-est in the eye of law) ম‡র্ম ‡ঘাষণা করা হয়।
 
হাই‡কা‡টর্র উত্তু রায় আপীল বিভাগ কর্তৃK বহাল রাখা হ‡য়‡ছ। (খন্দকার দেলওয়ার হো‡সন, সে‡µটারী বিএনপি, পার্টি/মুন্সী আহসান কবির গং বনাম বাংলা‡দশ ইটালিয়ান মা‡র্বল ওয়াকর্স লিঃ, ঢাকা গং)।
 
আপীল বিভাগও সংবিধা‡নর প্রসতvবনার দ্বিতীয় অনy‡”Q‡দর সং‡শাধন মাজর্না (condoned) ক‡রনি। নথী দৃ‡ষ্ট প্রতীয়মান nq যে, জনাব রশীদ আপীল বিভা‡গ উত্তু মামলার একটি প‡ক্ষর একজন আইনজীবী ছি‡লন। উত্তু রা‡য়র বিষ‡য় সম্যক জ্ঞাত থে‡কও জনাব রশীদ যে ""তৃতীয় বত্তুব্যটি'' আদাল‡ত উপসাহপন ক‡র‡ছন তার আইনগত কোন ভিত্তি নেই এবং আইনতঃ গ্রহনীয় নয়। স‡e©v”P আদালত কর্তৃক যে বিষয়টি‡ক "এখতিয়ার বর্হিভতূ' এবং "আই‡নর দৃষ্টি‡ত কখনই এর অসিতত্ব ছিল না' (non-est in the eye of law) হি‡স‡ব ঘোষণা করা হ‡য়‡ছ তার উপর ভিত্তি ক‡র ‡কান কার্য সম্পাদন করা হ‡য় থাক‡লও উত্তু কাজটিও বে-আইনী, ক্ষমতা বহির্ভূত ও অসিতত্বহীন ব‡ট এবং এর কোন কাযর্কারিতা আইনগতভা‡ব থাক‡ত পা‡র না।
 
১-৩ নং প্রতিবাদী প‡ক্ষর বিজ্ঞ আইনজীবী জনাব আব্দুর রাজ্জাক ও ৪ নং প্রতিবাদী প‡ক্ষর বিজ্ঞ আইনজীবী জনাব মহসিন রশীদ প্রায় একই সু‡র আ‡রকটি বত্তুব্য আদাল‡ত উপসহvপন ক‡রন যে, যে‡হতু সংবিধা‡ন "রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম' সন্নি‡বশিত আ‡ছ সে‡হতু জামায়া‡ত ইসলামী'র গঠনতমএ‡ক তার আ‡লা‡কই বি‡বচনায় নি‡ত হ‡ব।
 
জামায়া‡ত ইসলামী'র দাখিলকৃZ গঠনত‡মএi Ôivóª a‡g©iÕ wbe©চন কমিশ‡নর বত্তুব্য আমি ইতিপূ‡র্ব আ‡লাচনা ক‡রছি এবং এর প্রকৃষ্ট জবাব কমিশ‡নর হলফনামা যুত্তু জবাব ও সম্পূরক জবা‡ব স্পষ্টতঃই উ‡ল্লখ আ‡ছ।
 
ত‡ব প্রাসঙ্গিকভা‡ব সংবিধা‡ন সন্নি‡বশিত "রাষ্ট্র ধ‡র্মর' বিষয়টি আ‡লাচনা করা যে‡ত পা‡র। অষ্টম সং‡শাধনীর মাধ্য‡ম সংবিধা‡নর প্রথম ভাগ-এ "অনy‡”Qদ ২ক' সং‡যাজন ক‡র প্রজাত‡মএর রাষ্ট্র ধর্ম "ইসলাম' উ‡ল্লখ করা হয়। অনy‡”Qদ ২ক-টি ছিল নিমণরদপঃ
   "প্রজাতমএর রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম, তব অন্যান্য ধর্মও প্রজাতমএ শামিতত পালন করা  hvB‡e ।'
পরবর্তী‡ত পঞ্চদশ সং‡শাধনীর মাধ্য‡ম সংবিধা‡নর অনy‡”Qদ ২ক সং‡শাধনµ‡ম নিমণরদপ করা হ‡য়‡ছঃ
   প্রজাতমরএ রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম, তব হিন্দু,বৌদ্ধ, খ্রিষ্টানসহ অন্যান্য ধর্ম পালন রাষ্ট্র সমমর্যাদা ও সম অধিকার নিশ্চিত করিবন।
 
আমা‡দর সংবিধা‡নর প্রসতvবনায় ধর্মনির‡পক্ষতার আদর্শ কে সংবিধা‡নর অন্যতম একটি মুjনীতি এবং বৈশিষ্ট্য হি‡স‡ব উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ। সে বি‡বচনায় এটা খুব সঙ্গত প্রশণ যে, অনy‡”Q` ২কএ উ‡ল্লখিত রাষ্ট্র ধ‡র্মর বিধানটি সংবিধা‡নর প্রসতাবনায় সা‡থ কতটুকু সামঞ্জস্যপূর্ন।
 
এ বিষ‡য় জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জনাব মাহমুদুj ইসলাম তাঁর লিখিত Constitutional Law of Bangladesh, 3rd Edition, পৃষ্ঠা ৬৮-তে উ‡ল্লখ ক‡র‡ছন যে,
 
"1.75A Preamble and State religion: when ‘secularism’ remained excluded from the preamble because of amendment of the preamble by martial law procla-mation (ratified by the Fifth Amendment), the Eighth Amendment of the Constitution incorporated art. 2A to make Islam the State religion of Bangladesh. As secula-rism essentially means that the State shall not give any special status to any particular religion art.2A became inconsistent with the restoration of the original preamble together with the principle of secularism by the Fifteenth Amendment. To remove the obvious inconsistency, the Fifteenth Amendment reformulated art.2A as follows; The State religion of the Republic is Islam, but the State shall ensure equal status and equal right in the practice of the Hindu, Buddhist, Christian and other religions. It is submitted that Islam being given the status of State religion, the consequent inconsistency is not removed by saying that the State shall ensure equal status and equal rights in the practice of the other religions.”
 
আমা‡দর সংবিধা‡নর "প্রসতvবনা' সস্প‡র্ক বিশদ আ‡লাচনা, বি‡শ্লষণ ও গুরতত্বপূর্ণ সিদ্ধামত আপীল বিভাগ কর্তৃক দেয়া হ‡য়‡ছ "আ‡নায়ার হো‡সন চৌধুরী গং বনাম বাংলা‡দশ' মোকদ্দমায়, যা বহুলভv‡ব পরিচিত ৮ম সং‡শাধনী সংµ¡মত মামলা হি‡স‡ব।
 
ঐ মামলায় বিচারপতি বদরতল হায়দার চৌধুরী আমা‡দর "সংবিধা‡নর প্রসতvবনা‡ক' সংবিধা‡নর অংশ হি‡স‡ব এবং অপরিবতর্নীয় ব‡ল অভিমত ব্যত্তু ক‡র‡ছন। [৪১ ডি. এল. আর (এ ডি), পৃষ্ঠা- ১৯৭,অনy‡”Qদ-৫৩]
 
তিনি উত্তু রা‡য় আ‡রা অভিমত দি‡য়‡ছন যে, জাতীয় সংসদ যে‡হতু সংবিধান কর্তৃK সৃষ্ট সে‡হতু জনগ‡ণর অভিপ্রায় হি‡স‡ব গৃহীত সংবিধা‡নর প্রসতvবনা সং‡শাধ‡নর ‡কান এখ্তিয়ার সংস‡দর নেই । [৪১ ডি. এল. আর (এ ডি), পষ্ঠৃা-২২০, অনু‡”Q` ২০৬-২০৭]
 
ঐ রা‡য় বিচারপতি এম. এইচ. রহমান সংবিধা‡নর প্রসতvবনা‡ক সংবিধা‡নর "ধ্রবতারা' (pole star) হি‡স‡ব উ‡ল্লখ ক‡র মমতব্য ক‡র‡ছন যে, সংবিধা‡নর প্রসতাবনা শুধুমাÎ সংবিধা‡নর অংশই নয় বরং এটা একটি সুiক্ষিত বিধান (entrenched provision) এবং এটা সং‡শাধ‡নর ক্ষমতা এককভা‡ব সংস‡দর নেই। [৪১ ডি. এল. আর (এ ডি), c„ô¡-২৭৪, অনু‡”Qদ- ৪৯৬]
 
উত্তু রা‡য় আ‡রা সিদ্ধামত দেয়া হ‡য়‡ছ যে, সংবিধা‡নর যে কোন সং‡শাধন সংবিধা‡নর প্রসতাবনার আ‡লা‡ক বি‡শ্লষণ বা পরীক্ষা কর‡ত হ‡ব। [৪১ ডি. এল. আর (এ ডি), পৃষ্ঠা-২৭২, অনy‡”Qদ ৪৮৩ এবং পৃষ্ঠা-২৭৪, অনy‡”Qদ ৪৯৬]
 
ঐ মামলায় রা‡য় ৮ম সং‡শাধনীর মাধ্য‡ম সংবিধা‡নর অনy‡”Qদ ১০০-এর সং‡শাধনী, যার মাধ্য‡ম দে‡শর বিভিন্ন সহা‡ন হাই‡কা‡টর্র ৬(ছয়)টি সহায়ী বেঞ্চ প্রতিষ্ঠা করা হ‡য়ছিল, সংবিধা‡নর প্রসতvবনার অন্যতম মূjনীতি "আই‡নর শাস‡নর' সা‡থ "অ-আ‡পাষ‡যাগ্য' (irreconcilability) হওয়ায় উত্তু সং‡শাধনীটি বাতিল করা হ‡য়ছিল। (৪১, ডি এ আর (এ ডি) পষ্ঠৃা-২৭৮,অনy‡”Qছদ ৫২৩)
 
ঐতিহাসিক ৫ম সং‡শাধনী সংµvমত মামলার রা‡য় বিচারপতি এ. বি. এম খায়রতল হক মšÍe¨ ক‡র‡ছন যে, ""mvgwiK digvb e‡j msweav‡bi মূল বৈশিষ্ট্য (basic feature) পরিবর্ত‡নর চেষ্টা বে-আইনী, অকাযর্কর ও "আই‡নর দৃষ্টি‡ত কখনই এর অ¢¯ÍZ¡ (non-est) ছিল না। সামরিক ফরমান ব‡ল ধম©নির‡পক্ষ বাংলা‡দশ‡ক একটি ধর্মীয় রা‡ষ্ট্র (theocratic State) রতপামতর করা হ‡য়‡ছ, যা শুধু সংবিধা‡নর মূল (basic) ও মৌলিক (fundamental) বৈশিষ্ট্য‡কই পরিবর্তন ক‡রনি, বরং স্বাধীনতা সংগ্রা‡মর স‡e©v”P একটি অঙ্গিকার (dominate cause)-এর প্রতি বিশ্বvসঘাতকতা।'' [বি এল ডি (বি‡শষ সংখ্যা) ২০১০, c„ôv-২৩৮]
 
আব্দুল মান্নান খান বনাম বাংলা‡দশ মামলায় (যা ·য়াদশ সং‡শাধনী সংµvমত মামলা হি‡স‡ব পরিচিত) বিচারপতি এস. কে. সিনহা্ আমা‡দর সংবিধা‡নর প্রসতাবনা সম্প‡র্ক অভিমত ব্যত্তু ক‡র‡ছন যে, বি‡শ্বর অন্যান্য সংবিধা‡নর প্রসতাবনা হ‡ত আমা‡দর সংবিধা‡নর প্রসতvবনা ব্যতিµমধর্মী; কেননা ঐ প্রসতvবনায় সমগ্র সংবিধা‡নর দর্শন, লক্ষ্য-উ‡দ্দশ্য প্রতিফলিত এবং বিভিন্ন চারি¢Îক বৈশিষ্ট্য বা দিক সমূহ (qualitative aspects of the constitution) বর্ণিত হ‡য়‡ছ, তা অর্জ‡নর জন্য।
 
তিনি আরও মতামত ব্যত্তু ক‡র‡ছন যে, বাংলা‡দ‡শর স্বাধীনতা অর্জন কোন স্বাভাবিক প্র¢µয়ায় হয়নি; জনগ‡ণর ঐতিহাসিক সংগ্রা‡মর মাধ্য‡ম তা অর্জিত হ‡য়‡ছ। প্রসতাবনার শুরত "আমরা বাংলা‡দ‡শর জনগণ'; সুZরাং সংবিধা‡নর প্রসতvবনা এবং এর ভ¨ূ মকা‡ক (role) সংবিধিবদ্ধ কোন আই‡নর প্রসতvবনার ¯Í‡i নামা‡না (relegate) যা‡ব না। সংবিধা‡নর প্রসতvবনা সংরক্ষণ কর‡ত হ‡ব এবং তা পরিবর্তন করা যা‡ব না (must be preserved and can not be altered.) {৬৪ ডি.এল. আর. (এডি), পৃষ্ঠা-৩৪০, অনy‡”Qদ-১১৮১-১৮৮৩ }
 
এখা‡ন উ‡ল্লখ করা খুবই প্রাসঙ্গিক হ‡ব যে, ৫ম সং‡শাধনী সংµvমত মামলায় হাই‡কার্ট বিভাগ সামরিক ফরমান ব‡ল সং‡শাধীত সংবিধা‡নর অনy‡”Qদ ৮ এবং ১২-এর বিধানসমূহ মার্জb¡ কর‡ত অস্বীক„wZ জানি‡য়‡ছ অন্যান্য বিধানসg§‡হর সা‡থ। আপীল বিভাগ মার্জনার ক্ষে‡Î কিছুU¡ পরিবর্তন কর‡লও সংবিধা‡নর ঐ অনy‡”Qদ সমূ‡হর সং‡শাধন "মাজর্না না করা সংµvমত হাই‡কার্ট বিভা‡গর রা‡য়' কোনরদপ হসত‡ক্ষপ ক‡রনি। অর্থাৎ ৫ম সং‡শাধনী মূ‡ল সংবিধা‡নর অনু‡”Qদ ৮ এবং ১২-এর সং‡শাধন সম্পূর্ণ বে-আইনী, এখ্তিয়ার বহির্ভূত ও আই‡নর দªৃ ষ্ট‡ত এর কোন অসিতত্ব ছিল না (non-est)।
 
১৯৭২-এর মূল সংবিধা‡নর অনু‡”Q` ৮ এবং ১২ ছিল নিমণরদপঃ
 
অনু‡”Q`-৮ (মূলনীতি সমূহ)
  1. জাতীয়তাবাদ, সমাজতমএ, গণতমএ ও ধর্মনির‡পক্ষতা-এই নীতিসমূহ এবং তৎসহ এই নীতিসমূহ হই‡ত উদ্ভূত এই ভা‡গ বর্ণিত অন্য সকল নীতি রাষ্ট্রপরিচালনার মূলনীতি বলিয়া পরিচিত হই‡ব।
  2. এই ভা‡গ বর্ণিত নীতিসমূহ বাংলা‡দশ-পরিচালনার মূলgš¿ হই‡ব, আইনপ্রণয়নকা‡ল রাষ্ট্র তাহা প্র‡য়াগ করি‡বন, এই সংবিধান ও বাংলা‡দ‡শর অন্যান্য আই‡নর ব্যাখ্যাদা‡নর ক্ষে‡Î তাহা নি‡র্দশক হই‡ব এবং তাহা রাষ্ট্র ও নাগরিক‡দর কা‡র্যর ভিত্তি হই‡ব, ত‡ব এই সকল নীতি আদাল‡তর মাধ্য‡ম বলবৎ‡যাগ্য হই‡ব না।
 
অনু‡”Qদ-১২ (ধম"র্"নিরপক্ষতা ও ধর্মীয় স্বাধীনতা)
ধর্মনির‡পক্ষতার নীতি বাসতe¡য়‡নর জন্য
(ক) সর্বপ্রকার সাম্প্রদায়িকতা,
(খ) রাষ্ট্র কতৃKÑ কোন ধর্ম‡ক রাজনৈতিক মর্যাদাদান,
(গ) রাজনৈতিক উ‡দ্দ‡শ্য ধ‡র্মর অপব্যবহার,
(ঘ) কোন বি‡শষ ধর্মপালনকারী ব্যত্তিুর প্রতি বৈষম্য বা তাহাঁর উপর নিপীড়ন বি‡লাপ করা হই‡ব।
 
৫ম সং‡শাধনী সংµ¡মত রায় অনুh¡য়ী সংবিধা‡নর ঐ অনু‡”Qদ দু'টি উপ‡রাত্তুভা‡ব অর্থাৎ "অনু‡”Q` ৮ ও ১২' ১৯৭২ সা‡লর মূল সংবিধা‡ন যেরদপ অবসাহয় ছিল তা সংবিধান থে‡ক কখনও বি‡লাপ হয়নি ব‡ল বি‡বচিত হ‡ব এবং অনু‡”Q` দু'টি কখনও সং‡শাধীত হ‡য়‡ছ ব‡লও গণ্য হ‡ব না এবং ভবিষ্য‡তও ঐ অনু‡”Qদ দু'টি সং‡শাধন‡যাগ্য নয়।
 
আপীল বিভা‡গর উত্তু রায়সমূ‡হর আ‡লা‡ক সংবিধা‡নর প্রসতাবনার অন্যতম মূলনীতি "ধম©নির‡পক্ষতার নীতি' এবং সংবিধা‡নর অনু‡”Qদ ৮ এবং ১২-এর সা‡থ আমরা যদি সংবিধা‡নর অনু‡”Q` "২ক' বি‡বচনা ও বি‡শ্লষন করি তাহ‡ল নিঃসং‡কা‡চ বলা যে‡ত পা‡র সংবিধা‡নর ঐ অনু‡”Q`,বর্তমান (পঞ্চদশ সং‡শাধনী মূ‡ল) এবং পূর্বeর্তী (অষ্টম সং‡শাধনী মূ‡ল) যাই হোক না কেন, যেখা‡ন "রাষ্ট্র ধ‡র্মর' বিধান সন্নি‡বশিত করা হ‡য়‡ছ তা সংবিধা‡নর প্রসতvবনার সা‡থ অসামঞ্জস্যপূর্ণ এবং অআ‡পাষ‡যাগ্য। একইভা‡ব ঐ বিধানটি সংবিধা‡নর দ্বিতীয় ভা‡গ উ‡ল্লখিত রাষ্ট্রপরিচালনার মূলনীতিসমূহ অর্থাৎ অনু‡”Q` ৮ ও ১২-এর সা‡থও অসামঞ্জস্যপূর্ণ।
 
প্রসঙ্গµ‡ম পবিÎ ইসলাম ধ‡র্মর আ‡লা‡ক "রাষ্ট্র ধ‡র্মর' বিষয়টি আ‡লাকপাত করার একটি সু‡যাগ নি‡ত চাই। পবিÎ কুরআন শরীফ-এর মর্মম‡ত "বিশ্ব ও সর্বজনীন ইসলাম ধর্ম‡ক' মহান আল্লাহ কেয়ামত (পৃথিবী ধ্বং‡সর দিন) পর্যমত সারা বি‡শ্বর মানু‡ষর জন্য জারী রে‡খ‡ছন। সুরা মায়িদা-৫ঃ আয়ত ৩-এ মহান আল্লাহ্ নি‡জই ঘোষণা ক‡র‡ছনঃ
 
""আজ আমি তোমা‡দর ধর্ম‡ক (শা¢š—`¡য়ক জীবন বিধান‡ক) পরিপূর্ণ করিলাম এবং তোমা‡দর উপর আমার ‡নয়ামত (অনুগ্রহ) সম্পূর্ণ করিলাম এবং তোমা‡দর জন্য ইসলাম‡কই একমাÎ (সত্য) ধর্ম বলিয়া ম‡নানীত করিলাম।''
 
এইরদপ বিশ্ব ও সর্বজনীন একটি ধর্ম‡ক "রাষ্ট্র ধর্ম ক‡র' একটি রা‡ষ্ট্রর গন্ডির ম‡ধ্য আবদ্ধ ক‡র রা‡ষ্ট্রর অধীন করা হ‡য়‡ছ।
 
আসমান-জমিন এবং এই দু'‡য়র মধ্যবর্তী যা কিছু দৃশ্য-অদৃশ্যমান সকল কিছুরই সৃwষ্টকর্তা হ‡লন মহান আল্লাহ্। সুরা কাফ (৫০) আয়াত ৩৮, সুরা ফুরকান (২৫) আয়াত ৫৯, সুরা ইউসুফ (১০) আয়াত ৩, সুরা বনি-ইসরাইল (১৭) আয়াত ৯৯, সুরা শুরা (৪২) আয়াত ১১, সুরা নাহল (১৬) আয়াত ৩-৮, ও সুi¡ ইয়াসিন (৩৬) আয়াত ৮১-৮৩ সহ পবিÎ কুরআন শরীফ-এর বিভিন্ন সহv‡ন এ বিষ‡য় সুস্পষ্টভা‡ব উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ। মহান আল্লাহ্ অন্যান্য কিছুর সা‡থ পৃwথবীও সৃষ্টি ক‡র‡ছন; কিমও পৃথিবী‡ত রাষ্ট্র সৃষ্টি ক‡র‡ছ মানুl তাঁ‡দর স্বীয় প্র‡য়াজ‡ন । মহান আল্লাহ্র কা‡ছ রা‡ষ্ট্রর কোন জবাবদিহিতা নেই; কিমও মানুষ‡ক তাঁর কা‡ছ জবাবদিহি কর‡ত হ‡ব।
 
এ বিষ‡য় পবিÎ কুরআন শরী‡ফ বণির্ত হ‡য়‡ছঃ
 
""......... এবং তোমা‡দর সকল কা‡জর জ‡ন্য তোমা‡দর‡ক অবশ্যই কৈফিয়ত দি‡ত হ‡ব।'' (সূরা নাহ্ল-১৬ আয়াত ৯৩) এবং ""যারা তা‡দর প্রতিপালক‡ক সকা‡ল ও সন্ধ্যায় তাঁর সমওষ্টি পাবার জ‡ন্য ডা‡ক, তা‡দর তুমি তাড়ি‡য় দিও না। তা‡দর ক‡র্মর জবাবদিহির দায়িত্ব তোমার নয়, আর তোমার কো‡না ক‡র্মর জবাবদিহির দায়িত্ব তা‡দর নয় যে তুমি তা‡দর তাড়ি‡য় দে‡ব, দি‡ল তুমি অত্যাচারী‡দর শামিল হ‡ব।'' (সূi¡ আল আনআম-৬ আয়াত ৫২)
এবং
সূi¡ আল আনআম-এর আ‡রক সাহ‡ন (আয়াত ৬৯) আল্লাহ্ ব‡ল‡ছনঃ ""পর‡হজগারগণ গুনাহগার‡দর বা অত্যাচারী‡দর কো‡না কা‡জর জ‡ন্য দায়ী নয়, ত‡ব উপ‡দশ দেয়া তা‡দর কতর্ব্য যা‡ত ক‡র ওরাও সাবধান হ‡ত পা‡র।''
এবং
""তুমি বল, আমা‡দর পা‡পর জ‡ন্য তোমা‡দর জবাবদিহি কর‡ত হ‡ব না। আর তোমরা যা কর সে সম্প‡র্ক আমা‡দরও জবাবদিহি কর‡ত হ‡ব না। তুমি বল আমা‡দর প্রভু আমা‡দর‡ক এক‡Î জমা কর‡বন, অতঃপর আমা‡দর ম‡ধ্য ন্যায্যভা‡ব বিচার কর‡বন এবং তিনি মহাবিচারক, জ্ঞানময়।'' (সূরা সাবা-৩৪ঃ আয়াত ২৫-২৬)
 
মহান আল্লাহ পবিÎ কুরআন-এ আ‡রা উ‡ল্লখ ক‡র‡ছন যে, তিনি ইন্সান (মানুষ) কে তাঁর ইবাদ‡তর জন্য সৃষ্টি ক‡র‡ছন [ সূরা যারিয়াত (৫১) আয়াত ৫৬]
 
সূi¡ বাকারাহ্-এ (আয়াত ১৭৭) মহান আল্লাহর বাণী হ‡”Qx ""পূe© ও পশ্চিম দি‡ক তোমা‡দর মুখ ফেরা‡না‡ত কোন পূণ্য নেই; কিমও পূণ্যবান সে, যে আল্লাহ, কিয়ামত, ফিরিশতা, সকল কিতাব, এবং নবীগ‡ণর প্রতি ঈমান এ‡ন‡ছ; এবং আল্লাহর ভালবাসায় আত্মীয়, অনাথ, দরিদ্র, প‡থর কাঙ্গাল ও ভিক্ষুক‡দর‡ক এবং গোলা‡মর মুw³দা‡ন (অর্থাৎ দাসত্ব মোচ‡ন) ধন দান ক‡র‡ছ; এবং নামায কা‡য়ম ‡র‡খ‡ছ ও যাকাত আদায় ক‡র‡ছ; এবং যারা ওয়াদা করার পর সেটার খেলাপ ক‡র না এবং দুঃখ, কষ্ট ও যু‡দ্ধর সময় ধৈর্য ধারণ ক‡র। এ সকল লোকই খাঁটি, সত্যবাদী এবং এরা পর‡হজগার।''
 
মহান আল্লাহর উপ‡রাত্তু বাণীসমূn হ‡ত এটা অত্যমত পরিস্কার যে, তিনি মানুষ‡ক তাঁর সমওষ্টি অর্জ‡নর জন্য নামাজ কা‡য়ম, যাকাত আদায়, রোজা ও হজ্জ পাল‡ন, যা ইসলা‡মর মূল ভিত্তি, এবং সমা‡জর অন্যান্য মানু‡ষর প্রতি "হক' আদা‡য়র আ‡দশ দি‡য়‡ছন। রা‡ষ্ট্রর জন্য নামাজ, রোজা, হজ্জ, যাকাত কোনটিই পালনীয় নয়। বে‡হশত-দোযখ মানু‡ষর পুiস্কার ও শাসিত হি‡স‡ব শেষ বিচা‡র মহান আল্লাহ্ কর্তৃক নির্ধারীত হ‡ব। রা‡ষ্ট্রর জন্য ‡কান ইবাদত নেই; বিচারও নেই। রাষ্ট্র বে‡হশ‡তও যা‡ব না, দোয‡খও যা‡ব না; যা‡ব মানুষ। রাষ্ট্র প্রধান কিংবা সরকার প্রধান অথবা কোন দলীয় প্রধান বা আমীর শেষ বিচা‡রর দিন রা‡ষ্টর কোন নাগরিক বা দলীয় অনুসারী কাউ‡কই বে‡হশ্‡ত নেয়ার জন্য মহান আল্লাহ নিকট সুপারিশ করার ক্ষমতা রা‡খন না, সে ক্ষমতা একমাÎ রা‡খন সর্ব‡শষ নবী মুহাম্মাদুর রাসূল্লাহ (সাঃ)।
 
ধর্ম ব্যত্তিুর জন্য, যা‡ত ক‡র তাঁর ইহ‡ল±কিক ও পার‡ল±কিক কল্যাণ সাধিত হয়। কিমও রা‡ষ্ট্রর লক্ষ্য হ‡লা সকল নাগরি‡কর ইহ‡ল±কিক কল্যাণ সাধন; রা‡ষ্ট্রর পরকা‡ল কোন ভূমিকা বা করণীয় কিছু নেই। রা‡ষ্ট্রর দায়িত্ব হ‡লা সকল নাগরি‡কর ধর্মীয় অধিকারসহ সকল মৌলিক অধিকার সমূহ নিশ্চিত করা। নিজ নিজ ধর্ম পাল‡ন সকল ধ‡মর্র মানুষ‡ক সমান সু‡যাগ ও নিরাপত্তা প্রদান করা । রা‡ষ্ট্রর দায়িত্ব শুধু মসজিদ রক্ষা করা নয়; বরং মন্দির, গির্জা, প্যা‡গাডা সহ সকল ধ‡মর্র উপাসনাল‡য়র সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। রাষ্ট্র যে‡হতু ধর্ম পালন কর‡ত পা‡রনা, তাহ‡ল রা‡ষ্ট্রর আ‡দ± কি কোন সুনির্দিষ্ট ধ‡র্মর প্র‡য়াজন আ‡ছ?
 
বাংলা‡দ‡শর জনগণ তাঁ‡দর দীর্ঘ অভিজ্ঞতা দি‡য় উপলদ্ধি ক‡র‡ছ যে, কি ভা‡ব পবিÎ ধর্ম ইসলাম‡ক বর্ম বা ঢাল হি‡স‡ব ব্যবহার ক‡র তথা অপব্যবহার ক‡র বাঙালী জাতির বাংলা ভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রা‡ম, ৫৪-এর নির্বাচ‡ন, ৬২-এর ছাÎ সমা‡জর শিক্ষার অধীকার প্রতিষ্ঠার আ‡ন্দাল‡ন, ৬৬-এর ছয় দফা দাবী আদা‡য় তথা বাঙালীর স্বাধীকার ও স্বায়ত্তশাস‡নর আ‡ন্দাল‡ন, ৬৯-এর ছাÎ-জনতার অসহ‡যাগ আ‡ন্দাল‡ন, বাঙালী'র সাহিত্য, সংস্কৃতি-কৃwষ্টচর্চা ও বিকা‡শ এবং স‡র্বাপরি বাঙালী জাতীয়তাবা‡দর ভিত্তি‡ত একটি গণতামিএক, অসাম্প্রদায়িক বাংলা‡দশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার রত্তুসণাত মহান স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুত্তিুযদ্ধুকে বাধাগ্রসহ করার চেষ্টা করা হ‡য়ছিল। আর সে অভিজ্ঞতা থে‡কই সংবিধা‡নর প্রসতাবনার দ্বিতীয় অনু‡”Qদ, বাংলাশর জনগণর অঙ্গীকার ব্যত্তু কছ ঃ
 
""আমরা অঙ্গীকার করি‡তছি যে, যে সকল মহান আদর্শ আমা‡দর বীর জনগণ‡ক জাতীয় মুত্তিু সংগ্রা‡ম আত্মনি‡য়াগ ও বীর শহীদদিগ‡ক প্রা‡নাৎসর্গ করি‡ত উদ্বুদ্ধ করিয়াছিল- জাতীয়তাবাদ, সমাজতমএ, গণতমএ ও ধর্মনির‡পক্ষতার সেই সকল আদর্শ এই সংবিধা‡নর মূলনীতি হই‡ব;''
 
এবং উত্তু cÖ¯—vবনায় বাংলাশর জনগণ দৃঢ়ভাব ঘোষণা কছঃ
""..........., সেই জন্য বাংলা‡দ‡শর জনগ‡ণর অভিপ্রা‡য়র অভিব্যত্তিু স্বরদপ এই সংবিধা‡নর প্রাধান্য অক্ষুন্ন রাখা এবং ইহার রক্ষণ, সমর্থন ও নিরাপত্তা বিধান আমা‡দর পবিÎ কতর্ব্য।''
 
আমরা এই সাংবিধানিক আদাল‡তর বিচারকe„›`ও শপথবদ্ধ যে,
""বাংলাশর সংবিধান ও আইনর রক্ষণ, সমর্থন ও নিরাপত্তা বিধান করিব।''
 
শুধু নির্বাচন কমিশন নয় বাংলা‡দশ রা‡ষ্ট্রর সকল কর্তৃপক্ষকে যে কোন সিদ্ধামত গ্রহ‡নর ক্ষে‡Î অবশ্যই সংবিধা‡নর প্রসতvবনা কে স‡র্বা”P বি‡বচনায় নি‡ত হ‡ব, অনান্য সংশ্লিষ্ট বিধি-বিধান ও আই‡নর পাশাপাশি। অধিকমও, সকল কর্তৃপক্ষ‡ক স্মরণ রাখ‡ত হ‡ব যে, সুপ্রীম কো‡র্টর আপীল বিভাগ কর্তৃK ঘোষিত আইন এবং সিদ্ধামত সকল কর্তৃপ‡ক্ষর উপর বাধ্যকর এবং সকল কর্তৃপক্ষ সুপ্রীম কোর্ট-কে সহায়তা প্রদা‡ন বাধ্য। এমনকি আইন সভা‡কও সংবিধান সং‡শাধন কিংবা নতুন আইন প্রনয়‡নর ‡¶‡Î সংবিধা‡নর প্রসতাবনা এবং সংবিধা‡নর দ্বিতীয় ভা‡গ বর্ণিত রাষ্ট্র পরিচালনার মূj নীতিসমূহ‡ক স‡র্বা”P প্রাধান্য, গুরতত্ব ও বি‡বচনায় নি‡ত হ‡ব।
 
·য়াদশ সং‡শাধনী সংµ¡মত মামলায় প্রধান বিচারপতি এ.বি.এম. খায়রতল হক মতামত ব্যত্তু ক‡র‡ছন যেঃ
 
""জাতীয় সংসদ যে কোন সং‡শাধনী করি‡ত পারি‡লও সং‡শাধনীর শর্ত ভঙ্গ বা basic structure এর সহিত সাংঘর্ষিক কোন সং‡শাধন আইন জাতীয় সংসদ করি‡ত পা‡র না।'' [৬৪ ডি এল আর (এডি) পৃষ্ঠা ৩০৪, অনু‡”Qদ ৪৯১]
 
তিনি ঐ মামলায় আ‡রা মত প্রকাশ ক‡র‡ছন ‡h,
 
""গণতমএ, সমাজতমএ, জাতীয়তাবাদ ধর্মwনর‡পক্ষতা ইত্যাদি নীতি ও আদর্শ mমূn সংবিধা‡নর সহিত সাংশ্রয়িক ও বিন্যাসিত। এই আদর্শগুলিই সংবিধান‡ক প্রকৃতভা‡ব জনমানু‡ষর নিজস্ব সম্পদ হিসা‡ব প্রকাশ ক‡র। ইহা সাংবিধানিক আই‡নর অংশও ব‡ট। এইগুলি সংস‡দর সং‡শাধনী ক্ষমতা বহিভর্তূ ।'' [ ৬৪ ডি.এল. আর. (এডি) পৃô¡x৩০৫ অনু‡”Q` ৮৯৯]
 
ঐ রা‡য়র সারমর্ম অং‡শ প্রধান বিচারপতি এ, বি, এম, খায়রতল হক আ‡রা উ‡ল্লখ ক‡র‡ছন যে,
 
(৮) Òসংবিধা‡নর ১৪২ অনু‡”Q‡দর অধী‡ন জাতীয় সংসদ সংবিধা‡নর যে কোন সং‡শাধন করি‡ত ক্ষমতাপ্রাপ্ত কিমও রা‡ষ্ট্রর মূল ভিত্তি ও সংবিধা‡নর Basic structure ক্ষুন্ন বা খর্ব বা সং‡শাধন করি‡ত পা‡র না।'' (পৃষ্ঠাঃ ৩৩০, অনু‡”Qদ- ১১৪৪)
 
উপ‡রাত্তু আ‡লাচনার প্রেক্ষি‡ত আমার দ্ব্যর্থহীন অভিমত যে, জনাব রাজ্জাক ও জনাব রশীদ সংবিধা‡ন "রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম' উ‡ল্লখ থাকার কার‡ণ জামায়া‡ত ইসলামী-‡ক প্রদত্ত নিবন্ধনটি আইনানুগ হ‡য়‡ছ ম‡র্ম একই স্ব‡র যে যুত্তিু উপ¯’vপন ক‡র‡ছন তা অগ্রহন‡যাগ্য ও ভ্রামত ধারনার (misconceived) ফল।
 
জনাব রাজ্জাক রীট আ‡বদনকারীগ‡ণর রীট দরখাসত দাখি‡লর আইনগত অধিকার (locus standi) নেই উ‡ল্লখ পূবর্ক নি‡বদন ক‡রন যে, দরখাসতK¡রীগণ অসৎ উ‡দ্দ‡শ্য এবং অপরিছন্ন মন নি‡য় এই রীট মোকদ্দমাটি দা‡য়র ক‡র‡ছ; অতএব রতলটি খারিজ‡যাগ্য। দরখাসতকারীগ‡ণর রীট দরখা¯—wট দাখি‡লর আইনগত অধিকা‡রর বিষয়টি বিচারপতি কাজী রেজাউল হক বিসতvরিত আ‡লাচনা ক‡র‡ছন। আমি তাঁর মতাম‡তর স‡ঙ্গ যোগ ক‡র বল‡ত চাই যে, ইতিপূ‡র্ব আমি অভিমত ব্যত্তু ক‡রছি যে, "কৌশল' ও "শঠতা'র আশ্র‡য় তর্কিZ নিবন্ধনটি হাসিল করা হ‡য়‡ছ। আদাল‡তর সাম‡ন "শঠতা'র বিষয়টি উপসাহপিত হ‡ল কে বিষয়টি আদাল‡তর নজ‡র নি‡য় এ‡লা-তা গুরতত্বহীন হ‡য় প‡ড়; তখন প্রাধান্য পায় "শঠতা বা প্রতারণা'র বিষয়টি। আদালত যদি ম‡ন ক‡র কোন ব্যত্তিু বা কর্তৃপক্ষ "শঠতার আশ্র‡য়' কোন কিছু অর্জন ক‡র‡ছন তাহ‡ল আদালত স্বীয় ক্ষমতা ব‡লও হসত‡ক্ষপ কর‡ত পা‡রন। কারণ, "শঠতা' বা "প্রতারণা' সকল কাh©µg‡K অশুদ্ধ ও অকার্যকর ক‡র।
 
·য়াদশ সং‡শাধনী সংµ¡মত মামলায় (আব্দুল মান্নান খান বনাম বাংলা‡দশ) বৈচারিক পুbর্বি‡বচনা (judicial review) বিষ‡য় আ‡লাচনা ও বি‡শ্লষণ কর‡ত গি‡য় প্রধান বিচারপতি এ.বি.এম. খায়রতল হক "আসমা জিলানী বনাম পাঞ্জাব প্রা‡দশিক সরকার', "রাষ্ট্র বনাম জিয়া-উর-রহমান' এবং "সিন্ধ হাই‡কার্ট বার এ‡সাসি‡য়শন বনাম ফেডা‡রশন অফ্ পাকিসতvন' মোকদ্দমাসমূহ সহ বি‡শ্বর বিভিন্ন দে‡শর নজিরসমূহ বি‡বচনায় নি‡য় মমতeÉ ক‡র‡ছনঃ
 
""উ‡ল্লখ্য, সংক্ষুদ্ধ ব্যত্তিু বা তাহার প‡ক্ষ যদি সঠিক আই‡নর প্রশণ উথুাপন করা সম্ভব নাও হয় তবুও উথুাপিত ঘটনাবলীর উপর সঠিক আইন আ‡লাচনা ও তাহা প্র‡য়াগ করা বিচার‡কর দায়িত্ব ও কর্তব্য। তাহা করি‡ত যাইয়া যদি কোন আই‡নর বৈধতার প্রশণ উথুাপিত হয় ত‡ব তাহা এড়াইয়া না যাইয়া উভয় পক্ষ‡ক সেই প্রশণ সম্ব‡ন্ধ ওয়াকিবহাল করতঃ আই‡নর প্রশণটি নিরসন করা বাঞ্ছনীয়। এই পদ্ধতি যু³রাষ্ট্র ও ভারতীয় সুপ্রীম কোর্ট অনুসরণ করিয়া থা‡ক। যুত্তুরা‡জ্য এমনকি একটি মোকদ্দমায় একটি বিল আই‡ন পরিণত হইবার পূ‡র্বই আদালত তাহার বৈধতা বি‡বচনা ক‡র।'' (৬৪ ডিএলআর, পৃষ্ঠা ২৪৭, অনু‡”Qদ ৫৭৩)
তিনি আ‡রা মমতব্য ক‡র‡ছন যেঃ ""এই ‡প্রক্ষাপ‡ট সংসদ কতর্কৃ বিধিবদ্ধ আইন ও নির্বাহী কর্তৃপ‡ক্ষর যে কোন পদ‡ক্ষপ যদি সংবিধা‡নর সহিত অসামঞ্জস্যপূর্ণ হয় ‡সই আইন বা আ‡দশ বা পদ‡ক্ষপ সুপ্রীম কোর্ট ইহার judicial review এর ক্ষমতাব‡ল বাতিল বা ultra vires ঘোষণা করি‡ত পা‡র। judicial review এর ক্ষমতা যুত্তুরাষ্ট্র ও ভার‡তর সুপ্রীম কো‡টর্র ন্যায় বাংলা‡দ‡শর সুপ্রীম কো‡র্টও বিদ্যমান রহিয়া‡ছ।'' (৬৪ ডি, এল, আর, পৃষ্ঠা-২৫৭, অনু‡”Qদ ৬১৫)
এবং
""বাসতব সমস্যার কার‡ণ নির্বাহী বিভাগ‡কও হয়‡তা বিভিন্ন সিদ্ধামত লই‡ত হয় কিমও আইন বি‡শ্লষণ করিবার দায়িত্ব বিচার বিভা‡গর। সেই দায়িত্ব ও কতর্ব্য সংবিধান সুপ্রীম‡কার্ট তথা সামগ্রি্রকভা‡ব বিচার বিভা‡গর উপর অর্পণ করিয়া‡ছ। কোন বিচারক তাহার উপর অর্পিত উত্তুরদপ দায়িত্ব বা কর্তব্য পালন করি‡ত ব্যর্থ হই‡ল তিনি সংবিধান ও আইন ভঙ্গ করি‡বন।'' (৬৪ ডি,এল,আর, পৃষ্ঠাঃ ২২৪ অনু‡”Q` ৪৫১).
 
আসমা জিলানী বনাম গভ‡ম©›U অফ পাঞ্জাব, পিএলডি ১৯৭২ (এস, সি) ১৩৯ ‡মাকাদ্দমায় (পৃষ্ঠা ১৯৭) পাকিসতা‡নর প্রধান বিচারপতি হামদুi রহমান মমতব্য ক‡র‡ছন যে,
 
"This provision, as very appropriately pointed out by Mr. Brohi, strikes at the very root of the judicial power of the Court to hear and determine a matter, even though it may relate to its own jurisdiction. The Courts undoubtedly have the power to hear and determine any matter or controversy which is brought before them, even if it be to decide whether they have the jurisdiction to determine such a matter or not. The superior Courts are, as is now well settled, the Judges of their own jurisdiction. This is a right which has consistently been claimed by this and other Courts of superior jurisdiction in all civilized countries.''
 
প্রধান বিচারপতি হাwgদুi রহমান রাষ্ট্র বনাম জিয়া-উর-রহমান পিএলডি ১৯৭৩ (এস,সি) পৃষ্ঠাঃ ৪৯ ‡মাকদ্দমায় সুপ্রীম কো‡টর্র এখ্তিয়ার সর্ম্প‡ক মমতব্য ক‡র‡ছন ‡য,
 
"This is a right which it acquires not dehors the Constitution but by virtue of the fact that it is a superior Court set up by the Constitution itself. It is not necessary for this purpose to invoke any divine or super-natural right but this judicial power is inherent in the Court itself. It flows from the fact that it is a Constitutional Court and it can only be taken away by abolishing the Court itself.''
 
সিন্ধ হাই‡কার্ট বার এ‡সাসি‡য়শন বনাম ফেডা‡রশন অফ পাকিসতvন, পিএলডি ২০০৯ (এস, সি) ৮৭৯ মোকাদ্দমায় পাকিসতvন-এর প্রধান বিচারপতি ইফতিখার মুn¡ম্মদ চৌধুi£ অভিমত ব্যত্তু ক‡র‡ছন (পৃষ্ঠাঃ ১১৮০)ঃ
 
“169. “it is clear that the power of judicial review is a cardinal principle of the Constitution. The Judges, to keep the power of judicial review strictly judicial, in its exercise, do take care not to intrude upon domain of the other branches of the Government. It is the duty of the judiciary to determine the legality of executive action and the validity of legislation passed by the Legislature.”
 
উপ‡রাত্তু বৈচারিক মমতব্য সমূ‡হর আ‡লা‡ক এ কথা wনর্দ্বিধায় বলা যায় যে, দরখাসতকারীগ‡ণর রীট মোকদ্দমাটি দা‡য়‡রর আইনগত অধিকার আ‡ছ। অধিকমও, তাঁ‡দর অ‡ন‡কই সংক্ষুদ্ধ ব্যত্তিু হ‡”Qন;কেননা নির্বাচন কমিশন তর্কিত নিবন্ধনটি প্রদা‡নর সময় দরখাসতকারীগ‡ণর অ‡ন‡কই গণ শুনানী‡ত অংশ গ্রহন এবং দলিলাদি দাখিলµ‡g নিবন্ধ‡নর বিরত‡দ্ধ জোরা‡লা আপত্তি উথুাপন ক‡রছি‡লন। অতএব, জনাব রাজ্জা‡কর রীট আ‡বদনকারীগ‡ণর রীট দরখাসত দাখি‡লর আইনগত অধিকার সম্প‡র্ক উথুাপিত যুত্তিু আ‡দ± গ্রহণ‡যাগ্য নয়।
 
অÎ রতলটি শুনানীকা‡ল জামায়া‡ত ইসলামীর গঠনত‡মএর ধারা ৫৯ ও ৬০-এর প্রতি আদাল‡তর দৃwষ্ট আকর্ষিত হ‡য়‡ছ।
 
ধারা ৫৯-এ উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ যে, জামায়া‡তর প্র‡ত্যক সাংগঠনিক সত‡র "বাইতুjমাল' থাক‡ব এবং ধারা ৬০-এ বায়তুলমা‡লর আ‡য়র উৎস হি‡স‡ব অন্যান্য উৎ‡সর স‡ঙ্গ "যাকাত ও উশর' কথা উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ; যদিও বা উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ যে, শরীয়াত নির্ধারিত পমহvয় তা ব্যয় করা হ‡ব।
 
ইসলা‡মর দৃষ্টি‡ত "যাকাত' অন্যতম "ফরজ' ইবাদত হি‡স‡ব বি‡বচিত।
 
‡কান রাজনৈতিক দল-কে তা‡দর দলীয় তহবিল সংগ্রহ এবং দলীয় নেতা-কর্মী‡দর কল্যা‡ণর ল‡ক্ষ্য "যাকাত' ও "উশর' সংগ্রহ এবং এর ব্যয় অনু‡মাদন দেয়া যায় না। কারণ, প্রতিটি রাজনৈতিক দলকে যদি এ ধর‡ণর যাকাত সংগ্র‡হর অনু‡মাদন দেয়া হয় তাহ‡ল এ‡ক্ষ‡Î বিশৃংখলা সৃষ্টি হ‡ত পা‡র।‡কননা পবিÎ কুiআন অনুযায়ী যাকাত সংগ্রহ এর সা‡থ সংশ্লিষ্ট ব্যত্তিুবর্গও এর হকদার (সুরা তাওবাঃ আয়াত ৬০)। কোন রাজনৈতিক দল ‡যন "যাকাত' বা "উশর' এর অর্থ সংগ্র‡হর মাধ্য‡ম দলীয় তহবিল গঠন কর‡ত না পা‡র এ বিষ‡য় নির্বাচন কমিশন‡ক আইনানুগ ব্যবসহা গ্রহ‡নর নি‡র্দশ প্রদান করা হ‡লা।
 
রীট আ‡বদনকারীগ‡ণর বিজ্ঞ আইনজীবী মি‡mm তানিয়া আমীর ১৯৭১ সা‡লর মহান মুত্তিুযুদ্ধ চলাকালীন সম‡য় দখলদার পাকিসতvনী বাহিনী কর্তৃক গণহত্যা, লুণ্ঠন, নিরীহ সাধারণ মানু‡ষর ঘরবাড়ি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূ‡হ অগ্ণি সং‡যাগ, ধর্ষণ এর কথা উ‡ল্লখ পূর্বক নি‡বদন ক‡রন যে, জামায়া‡ত ইসলামী দলগতভা‡ব দখলদার পাক বাহিনীর ঐ সকল যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবি‡রাধী অপরাধ সমূহ‡ক শুধুg¡Î রাজনৈতিক, সাংগঠনিক এবং নৈতিক সমর্থনই প্রদান ক‡রনি, অধিকমও পাক বাহিনী‡ক সহ‡যাগিতার জন্য শামিত কমিটি এবং সশসএ আলবদর, আলশাম্স, রাজাকার বাহিনী গঠন ক‡র; এই সকল বাহিনী দখলদার পাকবাহিনীর সহ‡যাগী বাহিনী হি‡স‡ব গণহত্যা, লুণ্ঠন, ধর্ষণ, অগ্ণিসং‡যাগ সহ সকল মানবতা বি‡রাধী অপরা‡ধ স¢µয় সহ‡যাগিতা প্রদান এবং অংশ গ্রহন ক‡র। সশসএ আলবদর বাহিনীর নেতৃ‡ত্ব ছি‡লন ২ ও ৩ নং প্রতিবাদী। ঐ আল-বদর বাহিনীর মূল লক্ষ্যই ছিল বাঙালী বুদ্ধিজীবী, শিক্ষক, সাংবাদিক, চিকিৎসক, সাহিত্যিক, আইনজীবীগণ‡ক হত্যা করার মাধ্য‡ম বাঙালী জাতি‡ক মেধা শূbÉ করা। মহান মুwত্তুযু‡দ্ধ যে রাজনৈতিক দলটি রাজনৈতিক ও সাংগঠনিকভা‡ব সকল শত্তিু দি‡য় পাক হানাদার বাহিনীর সকল মানবতা বি‡রাধী অপকর্ম‡ক সমথর্ন দি‡য় বাঙালী জাতির স্বাধীনতা ও মুত্তিু সংগ্রাম‡ক বাধাগ্রসহ করার জন্য সশসএ বাহিনী গ‡ড় তু‡লছিল সেই রাজনৈতিক দলটির নিবন্ধন প্রাপ্তি শুধু বিস্ময়করই নয়, তা মহান স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুত্তিুযু‡দ্ধ আত্মদানকারী লক্ষ লক্ষ শহী‡দর ত্যা‡গর প্রতি চরম অবমাননা এবং বিশ্বvসঘাতকতা। মিস‡m আমীর আ‡রা নি‡বদন ক‡রন যে, দরখাসতকারীগ‡ণর পক্ষ হ‡ত এ বিষ‡য় নির্বাচন কমিশ‡ন গণ শুনানীকা‡ল প্র‡য়াজনীয় দলিলাদি দাখিল (নির্বাচন কমিশন কর্তৃক দাখিলকতৃ সম্পূরক হলফনামার সংযুত্তিু-৮-৯) করা হ‡য়ছিল এবং নির্বাচন কমিশন ঐ দলিলাদি সমূহ বি‡বচনায় না নি‡য় তর্কিত নিবন্ধন টি প্রদান ক‡র সংবিধা‡নর অনু‡”Qদ ৭-এর লঙ্ঘন ক‡র‡ছ। শুধু তাই নয়, তর্কিZ নিবন্ধনটি প্রদা‡নর মাধ্য‡ম জামায়া‡ত ইসলামীর বাংলা‡দ‡শর স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুত্তিুযু‡দ্ধ বি‡রাধীতা‡কও বৈধতা ও স্বীকৃতি দেয়া হ‡য়‡ছ। প্রজাত‡মএর মালিক যে‡হতু জনগণ, সেই জনগ‡ণর প্রত্যাশার সম্পূর্ণ বিপরীত হ‡লা তর্কিত নিবন্ধনটি। অতএব, নিবন্ধনটির সাংবিধানিক ও আইনগত ‡কান ভিত্তি থাক‡ত পা‡র না এবং তা বাতিল‡যাগ্য।
 
১-৩ নং প্রতিবাদী প‡ক্ষর বিজ্ঞ আইনজীবী জনাব রাজ্জাক উপ‡রাত্তু বত্তু‡ব্যর প্রতিউত্ত‡র তাঁর ‡মায়া‡°ল কর্তৃK দাখিলকৃত হলফনামার অনু‡”Qদ ৩০ এর প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ ক‡র নি‡বদন ক‡রন যে, জামা‡ত ইসলামী বা এই দ‡লর কোন সদস্য ১৯৭১-এ যুদ্ধাপরাধ বা মানবতা বি‡রাধী অপরা‡ধর সা‡থ কখনই জড়িত ছিল না, জামা‡ত ইসলামীর বিরত‡দ্ধ আনীত উপ‡রাত্তু অভি‡যাগসমূহ উ‡দ্দশ্য প্র‡নাদিত।
 
আ‡লাচ্য রতলটি বিচারাধীন থাকা অবসহvয় মানবতা বি‡রাধী অপরা‡ধ জড়িত থাকার অভি‡যা‡গ জামা‡ত ইসলামীর শীর্ষ ক‡য়কজন নেতা, যা‡দর ম‡ধ্য ২ ও ৩ নং প্রতিপক্ষও র‡য়‡ছন, তাঁ‡দর বিচার The Intenational Crimes (Tribunals) Act, 1973- এর অধী‡ন গঠিত আমতর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবু¨না‡ল শুরত হ‡য়‡ছ এবং ইতিম‡ধ্য ৩ নং প্রতিপক্ষসহ বেশ ক‡য়কজন শীর্ষ নেতার বিরত‡দ্ধ "মানবতা বি‡রাধী অপরা‡ধর অভি‡যাগ' প্রমানিত হওয়ায় দন্ড ও সাজা প্রদান করা হ‡য়‡ছ। দন্ড ও সাজাপ্রাপ্ত ঐ সকল জামায়াত নেতবৃ‡ন্দর দা‡য়রকৃত আপীল এখন আপীল বিভা‡গ বিচারাধীন।
 
এমতাবসহায়, আমর্তজাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল কর্তৃক জামায়া‡ত ইসলামী এর দন্ডপ্রাপ্ত শীর্ষ নেতা‡দর এবং মুত্তিুযু‡দ্ধ ঐ দ‡লর ভূমিকা সম্প‡র্ক যে সমসত মতামত ও পর্য‡বক্ষণ দেয়া হ‡য়‡ছ সে সম্প‡র্ক কোন মমতeÉ বা আ‡লাচনা বাঞ্ছনীয় হ‡ব না।
 
কিমও ইতিহাস, বাসতবতা এবং এ দে‡শর সাধারণ জনগ‡ণর অভিজ্ঞতা কি ব‡ল?
 
নির্বাচন কমিশ‡নর সম্পূরক হলফনামার সংযুত্তিু ৮ (পৃô¡ ৬৩-৬৪) হ‡ত প্রতীয়মান যে, তৎকালীন পূeÑ পাকিসতvন জামায়া‡ত ইসলামী'র আমীর জনাব গোলাম আযম ৬ই এপ্রিল ১৯৭১ সা‡ল "খ' অঞ্চ‡লর সামরিক প্রশাসক লেঃ ‡জনা‡রল টি°¡ খা‡নর সা‡থ একটি প্রতিনিধি দল স‡ঙ্গ নি‡য় সাক্ষাৎ ক‡রন । ঐ সাক্ষা‡তর মাধ্য‡ম জনাব গোলাম আযম দখলদার পাক-সামরিক বাহিনী কর্তৃক গৃn£ত ব্যবসহার প্রতি পূর্ণ সমর্থন জ্ঞাপন এবং সার্বিক সহ‡যাগীতার আশ্বাস প্রদান ক‡রন।
 
ঐ সাক্ষাৎকা‡রর ক‡য়কদিন প‡রই ৯ই এপ্রিল, ১৯৭১ সা‡ল শামিত কমিটি গঠন করা হয় এবং জনাব গোলাম আযম ঐ কমিটির অন্যতম সদস্য (৩ নং) নির্বাচিত হন। ঐ শামিত কমিটি ২২ এপ্রিল এক বিবৃতি‡ত সকল দেশ‡প্রমিক পূর্ব-পাকিসতানীর প্রতি রাষ্ট্রবি‡রাধী লোক‡দর হিংসাত্মক এবং নাশকতামূলক কাযর্কলাপ প্রতি‡রা‡ধর এবং উদ্যম ও উৎসা‡হর স‡ঙ্গ সর্বরকমভা‡ব সশসএ বাহিনী‡ক সাহায্য করার আহবান জানি‡য়ছি‡লা। (দৈনিক পাকিসতান, ২৩ এপ্রিল, ১৯৭১; সূÎx সংবাদপ‡Î মুত্তিুযু‡দ্ধর বি‡রাধীতা| বাংলা‡দশ প্রেস ইনস্টিটিউট হ‡ত প্রকাশিত, পৃষ্ঠা-২৫০)
 
মুwত্তুযুদ্ধ চলাকালীন সম‡য় জনাব গোলাম আযম বিভিন্ন সম‡য় বিভিন্ন সভা-সমা‡বশ ও সাংবাদিক স‡ম্মল‡ন বত্তুৃতা-বিবৃwতর মাধ্য‡ম বাংলা‡দ‡শর স্বাধীনতা ও মুত্তিুযু‡দ্ধর বি‡রাধীতা ক‡র পাকিসতান দখলদার বাহিনীর সকল বর্বর ও ন্যা°viRbK মানবতা বি‡রাধী কর্মকান্ড‡ক সমথর্ন জানি‡য় আ‡সন।
 
১৭ সে‡প্টম্বর, ১৯৭১ সা‡ল ঢাকার মোহাম্মদপুর ফিজিক্যাল এ্যাডু‡কশন সেন্টা‡র প্রশিক্ষণরত রাজাকার শিবির পরিদশর্ন কা‡ল জনাব গোলাম আযম তাঁর বত্তুৃতায় পাকিসতা‡নর হেফাজ‡তর জন্য রাজাকার, মুR¡হিদ ও পুলিশ বাহিনী‡ত ভর্তি হ‡য় সশসএ হIয়ার জন্য উৎসাহ প্রদান ক‡রন এবং আ‡রা ব‡লন যে, "রাজাকার বাহিনী কোন দ‡লর নয়, তারা পাকিসতা‡ন বিশ্বাসী সকল দ‡লর সম্পদ।' (দৈনিক সংগ্রাম, ১৮ সে‡প্টম্বর, ১৯৭১; সূÎx সংবাদপ‡Î মুwত্তুযু‡দ্ধর বি‡রাধীতাঃ বাংলা‡দশ প্রেস ইনস্টিটিউট হ‡ত প্রকাশিত, পৃষ্ঠা-২২১)
 
বাংলা‡দ‡শ মুত্তিুযুদ্ধ চলাকা‡ল পূeÑ পাকিসতv‡ন গঠিত অবৈধ সরকা‡রi নিযুত্তু জামায়া‡তর দুই মমএী জনাব আব্বাস আলী খান ও জনাব এ. কে. এম. ইউসুফ (তিনি রাজাকার বাহিনীর প্রতিষ্ঠাতাও ছি‡লন)-এর সম্বধর্না অনুষ্ঠা‡ন জনাব গোলাম আযম ব‡লনঃ
 
""জামায়াত ইসলামী পাকিসতান ও ইসলামক এক এবং অভিন্ন মন কর।পাকিসতান সারাবিশ্ব মুসলিমর জন্য ইসলামর ঘর। কা‡জই পাকিসতান যদি না থা‡ক তাহ‡ল জামায়া‡তর কর্মীরা দুনিয়া‡Zই বেঁ‡চ থাকার কোন সার্থকতা ম‡ন ক‡র না। তিনি আরও ব‡লন, জামায়া‡তর কর্মীরা জীবন বিপন্ন ক‡র পাকিসতv‡নর অসিতত্ব ও অখন্ডতা বজায় রাখার জন্য কাজ কর‡ছ।''
 
সম্বর্ধনার জবা‡ব জামায়াত নেতা আব্বাস আলী খান বতর্মান সংকটজনক পরিসিহতি‡ক চরম অগ্ণিপরীক্ষা আখ্যায়িত ক‡র ব‡লন. ""প্রতিটি কারবালার প‡রই ইসলাম জীবমত হ‡য় ও‡ঠ। আমা‡দর সাম‡ন আরও কারবালা র‡য়‡ছ। তার জন্য প্রসতুত থাক‡ত হ‡ব। (দৈনিক সংগ্রাম ২৬ শে সে‡প্টম্বর, ১৯৭১; myÎx সংবাদপ‡Î মুত্তিুযু‡দ্ধর বি‡রাধীতাঃ বাংলা‡দশ প্রেস ইনস্টিটিউট কর্তৃক প্রকাশিত, প„ô¡x ২২১-২২২)
 
২৩শে ন‡ভম্বর, ১৯৭১-এ লা‡হার বিমান বন্দ‡র সাংবাদিক‡দর সা‡থ আলাপ কা‡ল জনাব গোলাম আযম পূeÑ-পাকিসতv‡ন শামিত রক্ষার উ‡দ্দ‡শ্য সকল দেশ‡প্রমিক, শামিত কমিটির সদস্য এবং রাজাকার‡দর উন্নতমা‡নর ও স্বয়ং¢µয় অ‡সএ সজ্জিত করার দাবী জানান। (দৈনিক সংগ্রাম, ২৪ ন‡ভম্বর, ১৯৭১; সূÎ সংবাদপ‡Î মুত্তিুযু‡দ্ধর বি‡রাধীতাঃ বাংলা‡দশ প্রেস ইনস্টিটিউট কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡x ২৩৩)
 
২৫ ও ২৬ শে ন‡ভম্বর, ১৯৭১ লা‡হা‡র অনুষ্ঠিত দইু দিন ব্যাপী জামায়া‡তর কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠ‡কর এক প্রসতv‡ব সশসএ বাহিনী‡ক সমর্থন দেওয়ার জন্য পূeÑ পাকিসতv‡নর জনগ‡ণর প্রতি আহবান জানা‡না হয়। (দৈনিক সংগ্রাম ২৬ শে ন‡ভম্বর, ১৯৭১; সূÎx সংবাদপ‡Î মুwত্তুযু‡দ্ধর বি‡রাধীতাঃ বাংলা‡দশ প্রেস ইনস্টিটিউট কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡x ২৩৬)
 
২৭ শে ন‡ভম্বর, ১৯৭১-এ পিন্ডি আইনজীবী সমিতির এক সভায় জনাব গোলাম আযম ব‡লনঃ
""শÎæর হামলা মোকা‡বলায় আত্মরক্ষামুলক ভূwমকা নয় বরং শÎæর দে‡শ পাল্টা আµমন চালা‡নাই হ‡”Q স‡র্বাত্তম প্রতিরক্ষা। কোন জাতি যুদ্ধকা‡ল প্রতি‡শাধ মূjক ব্যবসহা ছাড়াই টি‡ক থাক‡ত পে‡র‡ছ এমন কোন নজির ইতিহা‡স খুঁ‡জ পাওয়া যা‡ব না।'' (দৈনিক সংগ্রাম ২৮শে ন‡ভম্বর, ১৯৭১; kÎæ সংবাদপ‡Î মুwত্তুযু‡দ্ধর বি‡রাধীতা বাংলা‡দশ প্রেস ইনস্টিটিউট কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡x ২৩৮)
 
জনাব গোলাম আযম ২১শে জুন, ১৯৭১ সা‡ল পশ্চিম পাকিসতা‡ন দলীয় কর্মী‡দর এক সভায় পাকিসতvনী সশসএ বাহিনীর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানি‡য় ব‡লন; ""সেনাবাহিনীর হসত‡ক্ষপ ছাড়া দেশ‡ক বি¢”Qb n‡Z রক্ষা করার অপর কোন বিকল্প কিছুই ছিল না।''দৈনিক পাকিসতান ২২শে জুন, ১৯৭১; সূÎx সংবাদc‡Î মুwত্তুযু‡দ্ধর বি‡রাধীতা বাংলা‡দশ প্রেস ইনস্টিটিউট কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡ ২০৩)
 
৪ ও ৫ অ‡ক্টাবর প্রা‡দশিক জামায়া‡তর মজলি‡স শূi¡র বৈঠ‡ক গৃn£ত এক প্রসতv‡ব উ‡ল্লখ করা হয় যে, তথাকথিত "বাংলা‡দশ' আ‡ন্দাল‡নর ছদ্মাবর‡ন "মুত্তিু ‡ফ±‡জর' না‡ম ভারতীয় সেনাবাহিনী পাকিসতানী এলাকায় মর্টা‡রর গোলাবর্ষণ, সশসএ অনুপ্র‡বশ ও বিমান হামলা ক‡র‡ছ। (দৈনিক ই‡ত্তফাক ৭ অ‡ক্টাবর, ১৯৭১, সূÎx সংবাদপ‡Î মুwত্তুযু‡দ্ধর বি‡রাধীতাঃ বাংলা‡দশ প্রেস ইনস্টিটিউট কর্তৃক প্রকাশিত, পৃষ্ঠাঃ ৩৯৬)
 
জনাব আযম ১লা সে‡প্টম্বর, ১৯৭১ এ করাচিতে দলীয় কার্যাল‡য় এক সাংবাদিক স‡ম্মল‡ন ভাষণ দান কা‡ল পাকিসতvন রক্ষা ও মানু‡ষর জীব‡নর নিরাপত্তার জন্য পাকিসতvন সেনাবাহিনীর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানি‡য় ব‡লন,
 
""‡কান ভাল মুসলমানই তথাকথিত "বাংলা‡দশ আ‡ন্দাল‡নর সমর্থক হ‡ত পা‡র না। পূeÑ-পাকিসতা‡ন বি¢”QbZvবাদী‡দর নির্মূল করার জন্য একমন ও দেশ‡প্রমিক লো‡করা এK†Î কাজ ক‡র যা‡”Qন। রাজাকাররা খুeই ভাল কাজ কর‡ছন।'' (দৈনিক পাকিসতান, ২ সে‡প্টম্বর, ১৯৭১, সূÎt বাংলা‡দ‡শর স্বাধীনতা যুদ্ধ দলিল প্রঃ সপ্তম খন্ড, পৃষ্ঠা-৬৮৬)
 
২ নং প্রতিপক্ষ ১৯৭১ সা‡ল মহান মুত্তিুযদ্ধু চলাকালীন সম‡য় জামায়া‡ত ইসলামী'র ছাÎফ্রন্ট পাকিসতvন ইসলামী ছাÎ সং‡ঘর সভাপতি ছি‡লন এবং ঘাতক আলবদর বাহিনী গঠ‡ন নেতৃত্ব প্রদান ক‡রন। বদর দিবস উপল‡ক্ষ দৈনিক সংগ্রাম, ১৪ই ন‡ভম্বর ১৯৭১-এ ২ নং প্রতিবাদীর লিখিত একটি নিবন্ধ প্রকাশ ক‡র। ঐ নিব‡ন্ধ তিনি লি‡খছি‡লনঃ
 
""দূর্ভাগ্যবশতঃ পাকিসতা‡নর কিছু মুb¡ফিক তা‡দর পক্ষ (হিন্দু বাহিনী) অবলম্বন ক‡র ভেতর থে‡ক আমা‡দর দূবর্ল করার ষড়য‡মএ লিপ্ত হ‡য়‡ছ। তা‡দর সকল ষড়যমএ বানচাল ক‡রই পাকিসতা‡নর আদর্শ ও অসিতত্ব রক্ষা কর‡ত হ‡ব। হিন্দু বাহিনী‡ক পর্যুদসত ও ভারত‡ক পদানত ক‡রই পাকিসাতv‡নর অসিতত্ব রক্ষার সংকল্প গ্রহণ কর‡ত হ‡ব। ..............। আমা‡দর পরম ‡স±ভাগ্য বল‡ত হ‡ব। পাক বাহিনীর সহায়তায় এ দে‡শর ইসলাম প্রিয় তরতন ছাÎ সমাজ বদর যু‡দ্ধর ¯§„তি‡ক সাম‡ন রে‡খ আলবদর বাহিনী গঠন ক‡র‡ছ। আমা‡দর বিশ্বাস সেদিন আর খুব বেশিদিন দূ‡র নয় যেদিন আলবদ‡রর তরতন যুব‡করা আমা‡দর সশসএ বাহিনীর পা‡শ দাঁড়ি‡য় হিন্দু বাহিনী‡ক (মুত্তিু‡যাদ্ধা‡দর প্রতি ইঙ্গিত পূবর্ক) পর্যুদসত ক‡র হিন্দুসহা‡নর অসিতত্ব খতম ক‡র ইসলা‡মর বিজয় পতাকা উড্ডীন কর‡ব। আর সেদিনই পূরন হ‡ব বিশ্ব মুসলমান‡দর অমত‡রর অপূর্ণ আকাঙ্খা।'' (সূÎx সংবাদপ‡Î মুwত্তুযু‡দ্ধর বি‡রাধীতাঃ বাংলা‡দশ প্রেস ইনস্টিটিউট কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡x ৫৮৭-৫৮৮)
 
১৪ সে‡প্টম্বর, ১৯৭১ "আল-বদর' শি‡রানা‡ম প্রকাশিত এক প্রতি‡বদ‡ন জামায়া‡ত ইসলামীর মুখপাÎ "দৈনিক সংগ্রাম' ‡ল‡খ: "আল-বদর একটি নাম! একটি বিস্ময়! আল-বদর একটি প্রতিজ্ঞা! যেখা‡ন তথাকথিত মুত্তিুবাহিনী আল-বদর সেখা‡নই। যেখা‡নই দুস্কৃwতকারী আল-বদর সেখা‡নই। ভারতীয় চর কিংবা দুস্কৃwZকারী‡দর কা‡ছ আল-বদর সাক্ষাৎ আজরাইল।' (সূÎx মতিউর রহমান নিজামী-আলবদর থে‡ক মš¿x, আলী আকবর টাবী, পৃষ্ঠাঃ ৩৯)
 
বিখ্যাত মার্কিন সাংবাদিক রবার্ট পেইন তাঁর সাড়া জাগা‡না "ম্যাসার্কার নামক গ্র‡মহ' উ‡ল্লখ ক‡র‡ছন যে, ""বুদ্ধিজীবী হত্যার দীর্ঘ তালিকা প্রসতুZ করা হয়ছিল আলবদর নাম ধর্মান্মত্ত দলক দিয়। এরা বিশ্বwবদ্যালয়র শিক্ষক ও ছা·দর গোপন হত্যার চµ¡মত কর। শুধু গাপন চµ¡মতই নয় আলবদরা এসকল হত্যাকান্ড ঘটিয়ছিল লোকচক্ষুi অমতরাল।'' (ম্যাসাকার, রবার্ট পেইন, পৃô¡ ৩৫, সূÎx মতিউর রহমান নিজামী-আলবদর থে‡ক মমীএ, আলী আকবর টাবী, পৃষ্ঠা ৪০)
 
মুwত্তুযু‡দ্ধর বিশিষ্ট গ‡বষক ডঃ মোঃ হান্নান, বাংলা‡দ‡শর ছাÎ আ‡ন্দাল‡নর ইতিহাস, মুত্তিুযু× পর্ব-পৃঃ ৩৮০ এ উ‡ল্লখ ক‡র‡ছনঃ
 
""নভম্বর মাসর শেষ ক ডিসম্বর মাসর মাঝ পর্যমত ঢাকা সহ সারা দেশ বেছ বেছ বুদ্ধিজীবীদর মধ্য যে হত্যাকান্ড চালানা হয়, তা করন একমাÎ জামায়াত ইসলামী ও ইসলামী ছাÎসংঘর বাহিনী-আলবদর গোষ্ঠি। পাকিসতvনী সেনারা এ সময় ছিল এদর সহযাগী মাÎ।'' (সূÎx মতিউর রহমান নিজামী-আলবদর থে‡ক মমএী, আলী আকবর টাবী, পৃষ্ঠাঃ ৪০)
 
১৯৭১ সা‡ল শ‡ব কদ্র উপল‡ক্ষ ২ নং প্রতিপক্ষ একটি প্রবন্ধ রচনা ক‡রন যা দৈনিক সংগ্রাম, ১৬ ন‡ভম্বর, ১৯৭১ সা‡ল প্রকাশিত হয়। ঐ প্রব‡ন্ধ তিনি মুত্তিু‡যাদ্ধা‡দর খোদা‡দ্রাহী ব‡ল অপবাদ দি‡য় লি‡খন যে, ""খোদাইবিধান বাসতবায়‡নর সেই পবিÎ ভূমি পাকিসাতান আল্লাহর ঘর। আল্লাহর এই পুতপবিÎ ঘ‡র আঘাত হে‡ন‡ছ খোদা‡দ্রাহী কাপুiæ‡ষর দল। এবা‡রর শ‡ব কদ্‡র সামগ্রিকভা‡ব ইসলাম ও পাকিসতv‡নর বিরত‡দ্ধ পরিচালিত উ‡ল্লখিত যাবতীয় হামলা প্রতিহত ক‡র সত্যিকা‡রর শামিত ও কল্যাণ প্রতিষ্ঠার এই তীব্র অনুভুwত আমা‡দর ম‡ন শত্তিু জাগা‡ব কি?'' (সূÎx মতিউর রহমান নিজামী-বদর থে‡ক মš¿x, আলী আকবর টাবী, পৃষ্ঠাঃ ৩০, ৩১)
 
প্রাসঙ্গিকভv‡ব এখা‡ন উ‡ল্লখ করা প্র‡য়াজন যে,  সারাবি‡শ্বর মুসলমান‡দর‡ক অবশ্যই বিশ্বvস কর‡ত হ‡ব যে, "পবিÎ কাবাঘর' হ‡”Q আল্লাহর নি‡র্দ‡শ তৈরী ঘর অর্থাৎ আল্লাহ্র ঘর এবং মুmলমান‡দর জন্য মহান আল্লাহ্ ঐ কাবাঘর "কিবলা' হি‡স‡ব সুনিদির্ষ্ট ক‡র দি‡য়‡ছন । কিমও জনাব গোলাম আযম এবং ২ নং প্রতিবাদী '৭১-সা‡ল মুত্তিুযু× চলাকা‡ল বিভিন্ন বত্তুব্য ও বিবৃতি‡ত পাকিসতvন‡ক আল্লাহর ঘর ব‡ল মyjত পাকিসতান‡ক কাবা শরী‡ফর সমপর্যা‡য় নি‡য় এ‡স প্রকারামত‡i তাঁরা পবিÎ কাবাঘ‡রর সুgহান মর্যাদা ও ভাবমূতির্ই কেবল ক্ষুন্ন ক‡রনি বরং তাঁ‡দর এই বিশ্বাস ইসলা‡মর আক্বীদার পরিপমহী এবং পবিÎ কাবাঘ‡রর চরম অবমাননা।
 
কেননা, পবিÎ "কাবাঘর' সম্প‡র্ক পবিÎ কyiআন শরী‡ফ মহান আল্লাহ্'র বানী সমূহ হ‡”Qx
 
""আর স্মরণ ক‡রা যখন আমি ইব্রাহি‡মর জন্য কা'বা ঘ‡রর জায়গা ঠিক ক‡র দি‡য়ছিলাম; তখন ব‡লছিলাম আমার স‡ঙ্গ কো‡না শরিক ক‡রা না আর আমার ঘর‡ক পবিÎ রে‡খা তা‡দর জন্য যারা তওয়াফ ক‡র ও যারা নামা‡জ দাঁড়ায়, রতকু ও সিজদা ক‡র।''-(সুi¡ হজ্জ-২২ঃ আয়াত ২৬)
এবং
""নিশ্চয় মানবজাতির জন্য সর্বপ্রথম যে গৃহ প্রতিষ্ঠিত হ‡য়ছিল তা তো বা°v [g°vi Aci bvg]-q, তা আশীবার্দ প্রাপ্ত ও বিশ্বজগ‡তর দিশারী। সেখা‡ন বহু স্পষ্ট নিদর্শন র‡য়‡ছ; (যেমন) ইব্রাহি‡মর দাঁড়াবার সহান। আর যে কেউ সেখা‡ন প্র‡বশ ক‡র সে নিরাপদ। মানু‡ষর ম‡ধ্য যার সেখা‡ন যাওয়ার সামর্থ্য আ‡ছ আল্লাহ্র উ‡দ্দ‡শ্য সেই গৃ‡হর হজ করা তার অবশ্য কর্তব্য। আর যে অস্বীকার কর‡ব সে জে‡ন রাখুক আল্লাহ্ বিশ্বজগ‡তর ওপর নির্ভi ক‡রন না।'' -( সুরা আল-ই-ইমরান-৩ঃ আয়াত ৯৬-৯৭)
এবং
""আর যেখান থে‡কই তুমি ‡বর হও না কেন মসজিদ-উল-হারা‡মর দি‡ক মুখ ফেরাও। নিশ্চয় এ তোমার প্রতিপাল‡কর কাছ থে‡ক প্রেরিত সত্য। তোমরা যা করছ তা আল্লাহ্র অ‡গাচর নয়। আর তুমি যেখান থে‡কই বের হও না কেন মসজিদ-উলহা রা‡মর দি‡ক মুখ ফেরাও, আর যেখা‡নই থাক-না ‡কন (তার) দি‡ক মুখ ফেরা‡ব, যা‡ত তারা সীমালঙ্ঘন ক‡র তারা ছাড়া অন্য কেউ তোমা‡দর স‡ঙ্গ ‡যন তর্ক কর‡ত না পা‡র।''-(সুi¡ বাকারা-২ঃ আয়াত ১৪৮-১৫০)
এবং
""আমি লক্ষ করি তুমি আকা‡শর দি‡ক বারবার তাকাও, তাই ‡তামা‡ক এমন কিবলার দি‡ক ঘুরি‡য় দি¢”Q যা তুমি পছন্দ কর‡ব। সুতরাং তুwম মসজিদ-উল-হারা‡মর (পবিÎ কা'বা ঘ‡রর) দি‡ক মুখ ফেরাও। তোমরা যেখা‡নই থাক-না কেন কাবার দি‡ক মুখ ফেরাও।আর যা‡দর‡ক কিতাব দেওয়া হ‡য়‡ছ তারা নিশ্চিতভা‡ব জা‡ন যে, এ তা‡দর প্রতিপালক ‡প্ররিত সত্য। তারা যা ক‡র তা আল্লাহ্র অজানা নেই। যা‡দর‡ক কিতাব দেওয়া হ‡য়‡ছ তুমি যদি তা‡দর কা‡ছ সমসত প্রমান পেশ কর তবুও তারা তোমার কিবলার অনুসরণ কর‡ব না আর তুwমও তা‡দর কিবলা অনুসরণ কর‡ব না। তারাও কেউ কারও কিবলার অনুসরণ ক‡র না। তোমার কা‡ছ জ্ঞান আসার পর তুমি যদি তা‡দর খেয়ালখুশির অনুmরণ কর ত‡ব তুমি তো সীমালঙ্ঘন কর‡ব।''-(সুরা বাকারা-২ঃ আয়াত ১৪২-১৪৫).
 
৩ নং প্রতিবাদীও আলবদর বাহিনীর শীর্ষ নেতৃ‡ত্ব ছি‡লন এবং তিনি ছি‡লন পূeÑ পাকিসতvন ইসলামী ছাÎ সং‡ঘর সভাপতি। বদর দিবস উপল‡ক্ষ ৭ ন‡ভম্বর ১৯৭১ সা‡ল ঢাকায় এক সমা‡ব‡শ তিনি উগ্র ও উ‡ত্তজনাকর বত্তুব্য দি‡য় ‡ঘাষণা ক‡রছি‡লন, প্র‡য়াজ‡ন নয়া দিল্লী পয©মত এগি‡য় গি‡য় পাকিসতv‡নর পতাকা উ‡ত্তালন কর‡বন। ঐ সমা‡ব‡শ জনাব মুজাহিদ ৪ দফা ঘোষণা প্রচার ক‡রন। প্রথম ঘোষণায় বলা হয়, ""দুনিয়ার বু‡ক হিন্দুসহা‡নর কোন মানচি‡Î আমরা বিশ্বাস করি না।Ó
 
যতদিন পর্যমত দুনিয়ার বুক থে‡ক হিন্দুসহা‡নর নাম মু‡ছ না ‡দয়া যা‡ব ততদিন পর্যমত আমরা বিশ্রাম নে‡বা না।'' দ্বিতীয় ঘোষনাটি প্রচারিত হয় লাই‡ব্ররিসমূ‡হর উ‡দ্দ‡শ্য: "আগামীকাল থে‡ক হিন্দু লেখক‡দর কোন বই অথবা হিন্দু‡দর দালালি ক‡র লেখা পুসতK¡দি লাই‡ব্ররি‡ত (‡কউ) সহvন দি‡ত পার‡বন না, বি¢µ বা প্রচার কর‡ত পার‡বন না। যদি কেউ ক‡রন ত‡ব পাকিসতv‡নর অসিত‡ত্ব বিশ্বvসী ‡¯^”Qvসেব‡করা জ্বালি‡য় ভস্ম ক‡র ‡দ‡ব।' তৃতীয় দফায় বলা হয়, "পাকিসতা‡নর অসিত‡ত্ব ‡¯^”Qv‡সবক‡দর সম্প‡র্ক বিরদপ প্রচার করা n‡”Q। যারা এই অপপ্রচার কর‡ছ তা‡দর সম্প‡র্ক হুyঁশয়ার থাকুন।' চতুর্থ দফায় বলা হয়: "বায়তুল ‡মাকাদ্দাস‡ক উদ্ধা‡রর সংগ্রাম চল‡ব।' ঐ সমা‡বশ শে‡ষ একটি মিছিল ঢাকার নওয়াবপুi ‡রাড হ‡য় বাহাদুরশাহ পা‡র্ক গি‡য় শেষ হয়। ঐ মিছি‡লর উ‡ল্লখ‡যাগ্য ক‡য়কটি শ্লোগান ছিলঃ (১) আমা‡দর র‡ত্তু পাকিসতান টিক‡ব; (২) বীর মুজাহিদ অসএ ধর, ভারত‡ক খতম কর; (৩) মুজাহিদ এগি‡য় চ‡লা, কলিকাতা দখল কর; (৪) ভার‡তর চর‡দর খতম কর। (দৈনিক পাকিসতvন, ৮ ন‡ভম্বর, ১৯৭১, সূÎx বাংলা‡দ‡শর স্বাধীনতা যুদ্ধ দলিলপÎx সপ্তম খন্ড, পৃষ্ঠা ৭৩৪-৭৩৫)
 
University of California Press, Berkley, Los Angeles ‡থ‡ক প্রকাশিত Seyed Vali Reza Nasr রচিত The Vangurad of the Islamic Revolution, The Jamat Islami of Pakistan শীর্ষক গ্র‡¿Û উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ,
 
""Not surprisingly the IJT was pushed further into the political twilight between 1969 and 1971 when Ayub regime collapsed and rivalry between the People’s Party and the secessionist Bengali party, the Awami League, resulted in civil war and the dismemberment of Pakistan. The IJT, with the encouragement of the govern-ment, became the main force behind the Jamaat’s national campaign against the people’s party in West Pakistan and the Awami League and Bengali secessionists in East Pakistan. The campaign confirmed the IJT’s place in national politics, especially in May, 1971, when the IJT joined the army’s counter insurgency campaign in East Pakistan. With the help of the army the IJT organized two para military units, called Al-Badar and Al-shams, to fight the Bengali guerrillas. Most of Al-Badar consisted of IJT members, who also galvanized support for the operation among the Muhajir community settled in East Pakistan. Matiur Rahman Nizami, the IJT’s nazim-i-a’la (supreme head or organizer) at the time, organized Al-Badar and Al-Shams from Dhaka University. The IJT eventually paid dearly for its part in the civil war. During clashes with the Bengali guerrillas (the Mukti Bahini) numerous IJT members lost their lives. These numbers escalated further when scores were settled by Bengali nationalists after Dhaka fell ...Page-66-67, The Vanguard of Islamic Revolution: The Jamaat-i-Islami of Pakistan-By Seyed Vali Reza Nasr, University of California Press, Berkeley: 1994z (সংযুwত্তু-৯, নির্বাচন কমিশ‡নর সম্পূরক হলফনামা, পৃষ্ঠা-১১০)
 
মুwত্তুযুদ্ধ চলাকালীন সম‡য় অর্থাৎ '৭১-এর অ‡ক্টাবর মা‡স স্বরাষ্ট্র মমএনাল‡য়র ‡গাপণীয় একটি গো‡য়ন্দা প্রতি‡বদন হ‡ত ২ ও ৩ নং প্রতিবাদী দে‡শর বিভিন্ন অঞ্চ‡ল গি‡য় আল-বদর বাহিনী গঠ‡ন ও মুwত্তুযুদ্ধ বি‡রাধী তৎপরতার বিষ‡য় প্রমাণ পাওয়া যায়। ঐ প্রতি‡বদনটি ছিল নিমণরদপঃ
 
""15. On 17-10-71, a Conference (100) of Pakistan Islami Chhatra Sangha (ICS), Rangpur Branch was held in Rangpur town with A.T. M. Azharul Islam (ICS) in the chair. Amongst others Ali Husain Md. Mujahid, Acting President, WPICS addressed the conference, explaining the present situation of the country and urging the party workers to mobilize the youths of Islamic spirit and launch a strong movement against anti-Islamic activities. He also urged them to form Al- Badar Bahini at different levels for defending the country from internal and external attack.
21. On 16-09-71, a public meeting (1000) was held under the joint auspices of Jalalabad Chhatra Samiti and ICS at Sylhet town wherein Matiur Rahman Nizami, President, ICS and others delivered speeches criticizing India for interfering in the internal affairs of Pakistan and obstructing the return of displaced persons. They stressed the need of Islamic education and Islamic constitution for the integrity of Pakistan. Matitur Rahman Nizami further condemned the outlawed Al leader for defaming the Pakistani muslims by revolting against Pakistan and joining hands with India. Resolutions on the above lines were also adopted in the meeting.'' (নির্বাচন কমিশ‡নর সম্পূরক হলফনামার সংযুত্তিু-৯, পৃôv-১৩৫)
 
৭১-এ মহান মুত্তিুযু× চলাকালীন সম‡য় জামাত ও তার বিভিন্ন বাহিনীর কর্মকান্ড সম্প‡র্ক বায়তুল মুKvররম জাতীয় মসজি‡দর খতিব মাওলানা উবাইদুল হক "সাপ্তাহিক বিচিΡ'র স‡ঙ্গ আলাপকা‡ল ব‡লছি‡লনঃ
 
"মুসলমান‡দর বিরত‡দ্ধ মুসলমান‡দর কোন জিহাদ হ‡ত পা‡র না। বরং এটা গুপ্ত হত্যা, মানবতা বি‡রাধী কাজ। ইসলাম মানবতা বি‡রাধী কাজ কখনও সমর্থন ক‡র না।' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃôvx ৬৮)
 
স্বাধীনতাযু‡দ্ধ জামা‡তর ভূwমকা সম্প‡র্ক মাওলানা ফজলুল হক আমিনী মমতব্য ক‡রছি‡লন- "এটা ছিল জালি‡মর বিরত‡দ্ধ মজলু‡মর যুদ্ধ ইসলা‡মর বিরত‡দ্ধ নয়। যারা "৭১-এর স্বাধীনতা যুদ্ধ‡ক ইসলা‡মর বিরত‡দ্ধ যুদ্ধ ব‡লছিল তারা ভুল ব‡লছিল।''
 
তিনি আ‡রা ব‡লন,
 
Rvgv‡Zi বিরাধীতা মান ইসলামর বিরাধীতা এটাও ঠিক নয়। কুরআন হাদিসর ইসলাম জামাতর ইসলাম সীমাবদ্ধ নয়। ৫০/৬০ বছর আগ জামাতর প্রতিষ্ঠার আগও ইসলাম ছিল, ইসলামর সঠিকতম অনুরীরাও ছিল। আর জামাত যে জেহাদর কথা বল তা কুরআন হাদিস নির্ধারিত পথই করত হব, এক্ষ‡Î নতুন কোন ব্যাখ্যা গ্রহনীয় হব না।'' (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আনায়ার কবির; ইসলামিক ফাউন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃষ্ঠাঃ ৬৭)
 
'৭১ স‡ন জামা‡তর কর্মকা‡ন্ডর মূjÉ¡য়ণ কর‡ত গি‡য় মাওলানা ইসহাক ওবায়দী ব‡লন, Ò৭১ সা‡ল জামাত সব‡চ‡য় বড় ভুলটি ক‡র ব‡স। স্বাধীনতা যুদ্ধ‡ক তারা ইসলাম এবং কফু‡রর লড়াই হি‡স‡ব উপসহাপন ক‡র। আমরা ম‡ন করি রাজনৈতিক মতপার্থক্য থাক‡লই কোন মুসলমান‡ক সে আওয়ামী লীগ বা কম~¨নিস্ট পার্টির ‡লাকই হোক- কা‡ফর ভাবা ঠিক নয়। '৭১ সা‡ল জামা‡তর কিছু লো‡কর বিরত‡দ্ধ গণহত্যা ধর্ষ‡ণর ম‡তা জঘন্য কা‡জ জড়িত থাকার অভি‡যাগ র‡য়‡ছ- ইসলা‡মর দৃষ্টি‡ত এসব অবশ্যই নাজা‡য়য।' (সূÎt মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৭৩)
 
মহান আল্লাহ্ পবিÎ কুরআন শরী‡ফ অন্যায়ভা‡ব মানুষ‡ক হত্যা ও সীমালঙ্ঘনকারীগণ‡ক সতর্ক ক‡র ব‡ল‡ছনঃ
 
""আর তোমরা নি‡জ‡দর‡ক হত্যা ‡কা‡রা না, নিশ্চয় আল্লাহ্ তোমা‡দর ওপর পরম দয়ালু। আর যে কেউ বি‡দ্বষবশত ও অন্যায়ভা‡ব তা কর‡ব আমি নিশ্চয় তা‡ক আগু‡ন ‡পাড়া‡বা, আর এ আল্লাহ্র প‡ক্ষ সহজসাধ্য।''-(সুরা নিসা-৪ঃ আয়াত ২৯-৩০)
 
এবং
""আল্লাহ্ তো সর্বজ্ঞ। আর যে-কেউ ই”Qvকৃতভা‡ব কো‡না বিশ্বাসী‡ক হত্যা কর‡ব তার শাসিত জাহান্নাম, সেখা‡ন সে চিরকাল থাক‡ব ও আল্লাহ্ তার ওপর µz× হ‡বন, তা‡ক অভিশাপ দে‡বন ও তার জন্য মহাশাসিত প্রসতুত ক‡র রাখ‡বন।''-(সুরা নিসা-৪ঃ আয়াত ৯২-৯৩)
 
এবং
""আল্লাহ্ যার হত্যা নিষিদ্ধ ক‡র‡ছন, যথার্থ কারণ ছাড়া তা‡ক হত্যা ‡কা‡রা না।''(সূরা বনি-ইসরাইল-১৭ঃ আয়াত ৩৩)
 
এবং
""তিনি তো সীমা অতিµমকারী‡দর ভালবা‡সন না।'' (সূরা আ'রাফ-৭ঃ আয়াত ৫৫)
 
এবং
""সীমাল•Nনকারী‡দর কো‡না অভিভাবক নেই, কো‡না সাহায্যকারীও নেই।'' (সূরা মুমিনঃ আয়াত ৫১-৫২)
 
এবং
""আমি সীমালঙ্ঘনকারী‡দর জন্য আগুন তৈরী ক‡র রে‡খছি যার বেড় ও‡দর‡ক ঘি‡র থাক‡ব। ওরা পান কর‡ত চাই‡ল ও‡দর দেওয়া হ‡ব গলিত ধাতুর ম‡তা পানীয় যা ও‡দর মুখ পুড়ি‡য় দে‡ব। কী ভীষণ সে পানীয়! আর কী খারাপ সে আশ্রয়।'' (সূরা কাহাফ-১৮ঃ আয়াত ২৯)
 
এবং
""যারা সীমালঙ্ঘন ক‡র‡ছ, যদি কিয়াম‡তর দিন কঠিন শাসিত থে‡ক মুত্তিুর জন্য পণ হিসা‡ব পৃথিবীর সমপরিমাণ আরও থা‡ক তবুও (তা‡দর কাছ থে‡ক তা নেওয়া হ‡ব না), আর তা‡দর ওপর আল্লাহ্র কাছ থে‡ক এমন শাসিত এ‡স পড়‡ব যা ওরা কল্পনাও ক‡রনি। ও‡দর কৃZক‡র্মর মন্দ ফল ও‡দর কা‡ছ প্রকাশ হ‡য় পড়‡ব; আর ওরা যা নি‡য় ঠাট্রাবিদ্রতপ করত তা ও‡দর‡ক ঘি‡র রাখ‡ব।''(সূ যুমার-৩৯ঃ আয়াত ৪৭-৪৮)
 
মহান আল্লাহ্-এর এ সকল সতর্কবাণীসমূহ ১৯৭১ সা‡ল মহান মুত্তিুযু× চলাকা‡ল জামাত নেতৃe„›`‡ক লক্ষ লক্ষ নিরীহ মানুষ‡ক হত্যা এবং মা-বোন‡দর সতীত্ব হর‡ণ রাজাকার, আল-বদর বাহিনী সহ বিভিন্ন সশসএ বাহিনী গঠন ক‡র পাক হানাদার বাহিনী‡ক স¢µয় সহায়তা ও অংশ নি‡ত নিবৃত কর‡ত পা‡রনি  এটাই রদঢ় সত্য, বাসতeতা ও ইতিহাস।
 
জামায়া‡ত ইসলামী শুধু ১৯৭১-এ স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুত্তিুযুদ্ধ বি‡রাধীতা ক‡রই ক্ষামত হয়নি স্বাধীনতার পর স্বাধীন বাংলা‡দশ‡ক বিভিন্ন মুসলিম রাষ্ট্র যা‡ত স্বীকৃwত প্রদান না ক‡র সে বিষ‡য় বিশ্বeÉ¡পী প্রচারণা অব্যাহত রে‡খছিল। জনাব গোলাম আয‡মর নাগরিকত্ব সংµ¡মত মামলায় সরকার কর্তৃK দাখিলকৃত হলফনামায় সুস্পষ্টভা‡ব উ‡ল্লখ করা হ‡য়ছিল যে, জনাব গোলাম আযম ১৯৭২ সা‡ল "পূeÑ পাকিসতvন পুনরতদ্ধার কমিটি' সংগঠিত ক‡র পাকিসতvন, লন্ডন এবং বিভিন্ন ইসলামী দে‡শ বাংলা‡দশ বি‡রাধী ব্যাপক প্রচারণা চালান। একই বছর রিয়া‡দ ইসলামী যুব স‡ম্মল‡ন পূর্ব পাকিসতান পুbরতদ্ধা‡র মুত্তিু সংগ্রা‡মর আহবান জানান এবং ১৯৭৩ সা‡ল বেনগাজি‡ত ও. আই. সি. পররাষ্ট্র মমীএ‡দর স‡ম্মল‡ন বাংলা‡দশ‡ক স্বীকৃতি না দেয়ার অনু‡রাধ জানান। বাংলা‡দশ‡ক স্বীকৃতি না দেয়ার অনু‡রাধ নি‡য় সৌদি বাদশার সা‡থ তিনি একাধিকবার সাক্ষাৎ ক‡রন। [ডি. এল. আর. (এডি) পৃষ্ঠাঃ ১৯২, অনু‡”Qদ ৫৮]
 
'৭১ সা‡ল মুwত্তুযুদ্ধ চলাকালীন সম‡য় এবং বাংলা‡দশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার প‡র জামা‡ত ইসলামী এবং এর তৎকালীন আমীর জনাব গোলাম আয‡মর বাংলা‡দশ বি‡রাধী তৎপরতা সম্প‡র্ক বিশদ একটি প্রতি‡বদন প্রকাশিত হয় এক সম‡য়র বহুল প্রচারিত সাপ্তাহিক প¢Îকা বিচিΡ'য় (১৫ বর্ষ ৮০ সংখ্যা ১৩ মার্চ ৮৭/২৮ ফালগুন '৯৩)।
 
অধ্যাপক জনাব আনিসুজ্জামান-এর এ সংµ¡মত একটি তথ্যবহুল লেখা প্রকাশিত হয় ১৪ই মার্চ ২০০৮-এ শুµবা‡রর দৈনিক প্রথম আ‡লা প¢Îকায়। (‡µ¡ড়পÎ; সাহিত্য সাময়িকী, পৃষ্ঠা-৪)
 
জামা‡ত ইসলামী পাকিসতv‡নর তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত আমীর মিয়া তোফা‡য়ল আহ‡মদ ""বাংলা‡দশ‡ক স্বীকৃতি প্রদান করার অর্থ কি''-এই প্র‡শণর জবা‡ব তিনি ব‡লছি‡লনঃ
 
""বাংলা‡দশ‡ক স্বীকৃতি প্রদান করার অর্থ হ‡লা জাতির বিশ্বvসঘাতক ব্যত্তিু‡ক বৈধ শাসক হি‡স‡ব স্বীকার ক‡র নেয়া আর পূeÑ পাকিসতv‡নর সেই লাখ লাখ দেশ প্রেমিক মানু‡ষর ত্যাগ-তিতিক্ষার প্রতি বিদ্রতপ করা যারা এখনও পাকিসতা‡নর সমর্থ‡ন এই বিশ্বvসঘাত‡কর বিরত‡দ্ধ অতন্দ্র প্রহরীর মত দাঁড়ি‡য় আ‡ছ। বাংলা‡দশ‡ক স্বীকৃতি প্রদান কর‡ল কাশ্মী‡রর বিষ‡য় আমা‡দর অবসহান দূবর্ল হ‡য় যা‡ব। আর আমা‡দর‡ক আজাদ কাশ্মীরও ভার‡তর হা‡ত তু‡ল দি‡ত হ‡ব। বাংলা‡দশ‡ক স্বীকৃতি প্রদান করার পর জাতীয় সম্পত্তি বন্টন ও বি‡দশী সাহা‡য্যর বিষ‡য়ও প্রশণ দেখা দি‡ব আর এসব ঋণ পাকিসতvন‡ক পরি‡শাধ কর‡ত হ‡ব। শেখ মুজিব শিল্প এবং কেন্দ্রীয় তহবী‡লর ক্ষে‡Î এবং উন্নয়নমূলক প্রকল্পসমূ‡হ ক্ষতিপূরণ দাবী কর‡বন, ভারত ও বাংলা‡দশ পাকিসতা‡নর কাছ থে‡ক যু‡দ্ধর ক্ষতিপূরণ পাবার আইগত অবসহান লাভ কর‡ব কেননা বাংলা‡দশ‡ক স্বীকৃতি প্রদা‡নর সা‡থ সা‡থ আমা‡দর ‡সনাবাহিনী আপনা আপনি হানাদার বা দখলদার সাব্যসত হ‡ব। এভা ‡ব এ‡দ‡শর অবশিষ্ট অংশও ধ্বংস হ‡য় যা‡ব।'' [জামা‡ত ইসলামী পাকিসতv‡নর মুখপাÎ "সাপ্তাহিক এশিয়া' প¢Îকা (লা‡হার, ৪ ঠা জুন, ১৯৭২); নির্বাচন কমিশ‡নর সম্পূরক হলফনামা, পৃô¡-১০৭]
 
প¢Îকাটির ঐ সংখ্যার ১১তম পৃôvয় স্বাধীন সার্ব‡ভ±ম বাংলা‡দশ‡ক জামা‡ত ইসলামী কীভা‡ব মূjÉ¡য়ন ক‡র সে কথাও তু‡ল ধরা হ‡য়‡ছ। এখা‡ন ধর্ম নির‡পক্ষ স্বাধীন বাংলা‡দশ‡ক মুরতাদ ও কা‡ফর পযর্মত আখ্যা দেয়া হয়। জামা‡ত ইসলামীর ঐ প¢Îকায় লেখা হ‡য়ছিলঃ
 
""বাংলা‡দ‡শর বিষয়টি দক্ষিণ আফ্রিকা ও উত্তর আয়ারল্যা‡ন্ডর মত দে‡শর একটি অং‡শর সাধারণ বি‡দ্রাহ হ‡ল বিষয়টি ভিন্ন ছিল। কিমও এর পেছ‡ন কার্যকর যে সব উপকরণ বণর্না করা হ‡”Q সেটা স্পষ্ট ব‡ল দি‡”Q, এটা কেবল একটি রাজনৈতিক বি‡দ্রাহ নয় বরং আদর্শ ও দর্শbগত একটি ঔদ্ধত্য। বাংলা‡দশ সরকার কেবল নি‡জ‡দর‡ক ধর্ম নির‡পক্ষ হি‡স‡ব ঘোষণা ক‡রনি বরং তা ইসলামী জাতীয়তাবাদ পরিত্যাগ ক‡র দেশীয় জাতীয়তাবাদ অবলম্বন কর‡ছ। ধর্মীয় দৃষ্টি‡কান থে‡ক এটা ইর‡তদাদ (অর্থাৎ ধমর্ত্যাগ) নয় তো কি? একজন মুসলমান ঘোষণা কর‡ছ, সে খোদার পক্ষ থে‡ক অবতীর্ণ আইন‡ক তার সামাজিক জীব‡নর জন্য গ্রহণ ক‡র না বরং সে জাগতিক আইন চায়-এটা‡ক কুফুi£ ছাড়া আর কি বলা যায়?'' (নির্বাচন কমিশ‡নর সম্পূiক হলফনামা, পৃষ্ঠা-১০৭)
 
[১৯৮৬ সা‡লর ১৪ই জানুq¡রী, পাকিসতv‡নর করাচী‡ত বাংলা‡দশ জামা‡ত ইসলামীর তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত আমীর জনাব আব্বাস আলী খান ব‡লছি‡লন যে, "বাংলা‡দ‡শর জনগণ এখন পাকিসতv‡নর স‡ঙ্গ তা‡দর বি‡”Q‡দর কার‡ণ অনুতপ্ত।' (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡x৫৪)
 
উপ‡রাত্তু ঘটনা ও তথ্যসমূহ প্রমান ক‡র যে, স্বাধীনতা পরবর্তী সম‡য়ও জামা‡তর বাংলা‡দশ বি‡রাধী দৃঢ় অবসহান লুকা‡না কোন বিষয় ছিল না।
 
সাম্প্রতিককা‡ল আমতRÑ¡তিক অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনাল সমূহ কর্তৃক প্রদত্ত বিভিন্ন রা‡য় মুত্তিুযু‡দ্ধ মানবতা বি‡রাধী অপরা‡ধ সম্পৃত্তু থাকার প্রমাণ পাওয়ায় জামা‡ত ইসলামী‡ক ""অপরাধী সংগঠন'' (criminal organisation) হি‡স‡ব চিহিুত করা হ‡য়‡ছ। যে‡হতু এ সংµ¡মত সকল রায় আপীল বিভা‡গ বিচারাধীন সে‡হতু এ বিষ‡য় অধিক কোন মমতeÉ না ক‡র এ কথা নির্দ্বিধায় বলা যায় যে, এ‡দ‡শর জনগন তাঁ‡দর নিজ অভিজ্ঞতা দি‡য়ই ১৯৭১ সা‡ল মহান মুত্তিুযু‡দ্ধ জামা‡ত ইসলামী'র বাংলা‡দশ বি‡রাধী সশসএ অবসহান ও মানবতা বি‡রাধী ভূমিকা প্রত্যক্ষ ক‡র‡ছ এবং ইতিহাস এর উজ্জবল সাক্ষ্য বহন কর‡ছ।
 
প্রাসঙ্গিকভা‡ব উ‡ল্লখ করা যে‡ত পা‡র যে, The International Crimes (Tribunals) Act, 1973 মূল আই‡ন মানবতা বি‡রাধী অপরা‡ধর জন্য ‡কান দল বা গোষ্ঠী‡ক বিচা‡রর সম্মুখীন করার বিধান না থাক‡লও সম্প্রতি আইনটি সং‡শাধ‡নর মাধ্য‡ম মানবতা বি‡রাধী অপরা‡ধর সা‡থ জড়িত দল‡ক (organisation) বিচা‡রর সম্মুখীন করার বিধান করা হ‡য়‡ছ (ধারা-৩)। কিমও দূর্ভাগ্যজনক হ‡লও সত্য যে ঐ আই‡ন ‡কান দল মানবতা বি‡রাধী অপরা‡ধ অভিযুত্তু হ‡ল ঐ দল‡ক কি ধর‡নর দন্ড এবং সাজা প্রদান করা হ‡ব ‡স সম্প‡র্ক সুনির্দিষ্ট কিছু উ‡ল্লখ নেই। আমার নিঃসং‡কাচ অভিমত এই যে, ঐ আই‡ন মানবতা বি‡রাধী কোন দ‡লর বিরত‡দ্ধ অভি‡যাগ প্রমাণিত হ‡ল, সেই দ‡লর বিরত‡দ্ধ ট্রাইব্যুনাল কতর্কৃ দন্ড আ‡রা‡পর বা গৃহীত ব্যবসহা সম্প‡র্ক সুনির্দিষ্ট বিধান করা প্র‡য়াজন।
 
আমরা ই‡তাম‡ধ্যই অবহিত হ‡য়ছি যে, একটি রাজনৈতিক দ‡লর নিবন্ধ‡নর শর্তসমূহ গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ ১৯৭২ এর অনু‡”Qদ ৯০বি এবং ৯০সি-‡ত উ‡ল্লখ করা আ‡ছ। ঐ আইনটির সহজ পা‡ঠ প্রতীয়মান যে, মুত্তিুযু× চলাকালীন সম‡য় কিংবা যে কোন সম‡য় মানবতা বি‡রাধী অপরা‡ধ জড়িত কোন রাজনৈতিক দল‡ক এমনকি কোন আদালত কিংবা ট্রাইবুb¡ল যদি কোন দল‡ক অপরাধী সংগঠন হি‡স‡ব ঘোষণাও ক‡র তাহ‡ল ঐ দল‡ক নিবন্ধন দেয়া যা‡ব না-এধর‡নর কোন সুস্পষ্ট ও সুwbর্দিষ্ট কোন বিধান রাখা হয়নি। যে কোন আইন প্রণয়‡নর সম‡য় আমা‡দর আইন প্র‡ণতা‡দর সংবিধা‡নর অনু‡”Qদ ৭ অবশ্যই স্মরণ এবং বি‡বচনা করা প্র‡য়াজন। সংবিধা‡নর অনু‡”Q` ৭-এ উ‡ল্লখ আ‡ছ, ""প্রজাত‡মএর সকল ক্ষমতার মালিক জনগণ; এবং জনগ‡ণর প‡ক্ষ সেই ক্ষমতার প্র‡য়াগ কেবল এই সংবিধা‡নর অধীন ও কর্তৃত্ব কাযর্কর হই‡ব।''
 
যে‡হতু, বর্তমান আই‡ন মানবতা বি‡রাধী অপরা‡ধ জড়িত কিংবা ১৯৭১ সা‡লর মহান মুwত্তুযু‡দ্ধর বি‡রাধীতাকারী কোন দল‡ক নিবন্ধন দেওয়া যা‡ব না ম‡র্ম কোন সুস্পষ্ট ও সুwনর্দিষ্ট বিধান রাখা হয়নি, ‡স‡হতু, শুধুgvÎ উপ‡রাত্তু কার‡ণ নির্বাচন কমিশন কর্তৃক নিবন্ধন আ‡বদন অগ্রাহ্য করার কোন সু‡যাগ নেই। ‡স‡ক্ষ‡Î আইনটি‡ক আ‡রা সুনিদির্ষ্ট ও সুস্পষ্ট করা প্র‡য়াজন। সার্ব‡ভ±ম জনগ‡ণর প্রতিনিধি হি‡স‡ব জাতীয় সংসদ‡কই এ বিষ‡য় চুড়ামত সিদ্ধামত গ্রহন কর‡ত হ‡ব; কারণ, সার্ব‡ভ±ম জনগ‡ণর ই‡”Q-অনি”Qvর প্রতিফলন ঘটা‡ত পা‡র একমাÎ জাতীয় সংসদ-সুনিদির্ষ্ট ও সুস্পষ্ট আইন প্রণয়‡নর মাধ্য‡ম।
 
এখা‡ন উ‡ল্লখ করা সঙ্গত হ‡ব যে, আমা‡দর স্বাধীনতা সংগ্রাম এবং "৭১-এর মহান মুত্তিুযু×' এ দে‡শর সর্বসত‡রর মানু‡ষর কা‡ছ গভীর এক আ‡ব‡গর বিষয়। একজন মানুষ হি‡স‡ব একজন বিচার‡করও আ‡বগ আ‡ছ ও থাক‡ব এটাই স্বাভাবিক। কিমও, একজন বিচারক আ‡বগ তাড়িত হ‡য় শুধুgvÎ নৈতিকতার মানদ‡ন্ড বিচার কর‡ত পা‡র না বা কাউ‡ক শাসিতও প্রদান কর‡ত পা‡র না। বিচা‡রর ক্ষে‡Î আইন ও সংবিধানই হ‡লা বিচার‡কর কা‡ছ মুখ্য বিষয়। কেননা, একজন বিচারক সংবিধান ও আইন অনুh¡য়ী বিচার কার্য পরিচালনা কর‡ত শপথবদ্ধ।
 
রীট আ‡বদনকারীগ‡ণর বিজ্ঞ আইনজীবী মি‡mস তানিয়া আমীর অÎ রতলটি‡ক নিরঙ্কুশ করার স্বপ‡ক্ষ আ‡রা যুwত্তু উপসহাপন ক‡রন যে, জামা‡ত ইসলামী মাওলানা মওদু`£ সৃষ্ট একটি দল; মাওলানা মওদুদী'র পবিÎ ধর্ম ইসলাম সম্প‡র্ক ভ্রামত মতবাদ প্রচার ও প্রতিষ্ঠাই এই রাজনৈতিক দলটির লক্ষ্য; তাঁর মতবাদ এ‡দ‡শর সর্বসত‡রর আ‡লম সমাজ প্রত্যাখ্যান ক‡র‡ছন এই বি‡বচনায় যে, ""মাওলানা মওদুদীর মতবাদ ইসলা‡মর মূল চেতনা, ঈমান ও আক্বীদার সা‡থ সংগতিপূর্ণ নয় বরং বিপরীত।''
 
মিm আমীর আ‡রা নি‡বদন ক‡রন যে, মাওলানা মওদুদী সৃষ্ট দল জামা‡ত ইসলামী রাজনৈতিক হীন উ‡দ্দ‡শ্য পবিÎ ধর্ম ইসলাম-এর অপ-ব্যবহার ও অপ-ব্যাখ্যা ক‡র আস‡ছ; কিমও নির্বাচন কমিশন উপ‡রাত্তু বিষয় সমূহ বি‡বচনা না ক‡র তর্কিত নিবন্ধনটি প্রদান ক‡র ইসলাম ধর্ম‡ক রাজনৈতিক হীন উ‡দ্দ‡শ্য ব্যবহা‡রর বৈধতা দি‡য়‡ছ; যা বাতিল যোগ্য।
 
১-৩ নং প্রতিবাদী প‡ক্ষর বিজ্ঞ আইনজীবী জনাব রাজ্জাক রীট আ‡বদনকারীগ‡ণর বিজ্ঞ আইনজীবীর উপ‡রাত্তু বত্তু‡ব্যর জবা‡ব নি‡বদন ক‡রন যে, জামা‡ত ইসলামী'র গঠনত‡মএ মাওলানা মওদুদী এবং তাঁর মতবাদ সম্প‡র্ক কোন কিছু উ‡ল্লখ নেই; বরং বাংলা‡দ‡শর সংবিধা‡নর আ‡লা‡কই দলটির গঠনতমএ প্রণয়ন করা হ‡য়‡ছ; সুতরাং রীট আ‡বদনকারীগ‡ণর বিজ্ঞ আইনজীবীর উপ‡রাত্তু বত্তু‡ব্যর কোন ভিত্তি নেই।
 
উভয় প‡ক্ষর বিজ্ঞ আইনজীবীগ‡ণর উপ‡রাত্তু বত্তুব্য সমূ‡হর আ‡লা‡ক জামা‡ত ইসলামী দলটির সৃষ্টি, মাওলানা মওদু`£র মতবাদ ও ধ্যান-ধারণা ও তাঁর জামাত সম্প‡র্ক এ‡দ‡শর আ‡লম সমাজ, ওলামা‡য়-কিরাম ও ইসলামী wPšÍvবিদগ‡ণর মূল্যায়ন সম্প‡র্ক প্রাসঙ্গিক কিছু আ‡লাচনা করা প্র‡য়াজন।
 
বতর্মান বাংলা‡দশ জামা‡ত ইসলামী নামক রাজনৈতিক দলটির "জে‡নসিস' হল জামায়াত-B-ইসলামী হিন্দ, যা ১৯৪১ সা‡ল প্রতিষ্ঠিত ক‡রন সৈয়দ আবুল আলা মওদু`£, যিনি মাওলানা মওদুদী হি‡স‡ব সুপরিচিত।
 
প্রাসঙ্গিকভা‡ব উ‡ল্লখ করা যে‡ত পা‡র যে, জামায়া‡ত ইসলামী হিন্দ প্রতিষ্ঠার বহু পূ‡র্ব অর্থাৎ হাজার বছ‡ররও অধিক পূ‡র্ব এই উপ-মহা‡দ‡শ ইসলাম ধ‡র্মর প্রচার ও প্রসার শুরত হয়। প্রাচীনকাল থে‡কই আরব ও পারসিক ব্যবসায়ীরা এই উপ-মহা‡দ‡শর উপকূjবর্তী অঞ্চ‡লর স‡ঙ্গ ব্যবসা-বাণি‡জ্য লিপ্ত ছিল। ব্যবসা-বাণি‡জ্যর সুe¡‡দ ধর্মীয় স্বাধীনতা নি‡য় মুসলমানরা ধী‡র ধী‡র সহvয়ীভা‡ব বসবাস শুরত ক‡র। এমনকি কিছু কিছু আরব-মুসলিম বাণিজ্য উপল‡ক্ষ বাংলা‡দ‡শর সমুদ্র উপকূj£য় অঞ্চ‡ল, বি‡শষ ক‡র চট্রগ্রাম ও নোয়াখালী‡ত বসতি সহvপন ক‡রছি‡লন।
 
খ্রিষ্টীয় এগা‡রা শত‡কর প্রথম থে‡কই ইসলা‡মর প্রচার‡করা এ উপ-মহা‡দ‡শ দ‡ল দ‡ল আস‡ত শুরত ক‡রন এবং তাঁ‡দর অক্লামত প্র‡চষ্টায় ইসলাম ধর্ম বিসতার লাভ কর‡ত থা‡ক। মুসলিম সুd£, দর‡বশ, পীর ও আউলিয়াগণ তাঁ‡দর চারি¢Îক মাধুhÑ, জ্ঞান ও সত্যনিষ্ঠার মাধ্য‡ম এবং মূলতঃ সুwফবা‡দর আধ্যাত্মিক তত্তব তথা খোদা ‡প্রম-ভ্রাতৃত্ব সা‡ম্যর মধুর বাণী চমৎকারভা‡ব সাধারণ মানুষর কা‡ছ তু‡ল ধ‡র মানুষ‡ক ইসলাম ধ‡র্ম আকৃষ্ট ও দীক্ষিত কর‡ত সক্ষম হ‡য়ছি‡লন।
 
ইসলাম প্রচা‡র তাঁরা মৌলিক বিষয়সমূহ তথা মহান আল্লাহর একত্ববাদ ও তাঁর প্রতি পূর্ণ আসহv, মুহাম্মদ (সাঃ) সর্ব‡শষ রাসলূ ও পূর্বeর্তী সকল নবী ও রাসূলগ‡নর এবং কুiআন সহ সকল আসমানী কিতাবসমূ‡হর প্রতি বিশ্বvস, কা‡লমা, নামাজ, রোজা, হজ্জ, যাকাত, বে‡হশত্-দোযখ, কেয়ামত, পুনরতথুান, হাশর, বিচার, পাপ-পূণ্য, হালাল-হারাম, ব্যত্তিু, পারিবারিক ও সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীব‡ন ইসলা‡মর অনুশাসন সমূn পালন স‡র্বাপরি ইসলা‡মর উদার ও মানবিক দিকসমূহ সাধারণ মানু‡ষর কা‡ছ তু‡ল ধ‡র ইসলাম ধ‡র্ম দীক্ষিত হ‡ত উদ্বুদ্ধ ক‡রছি‡লন; সেখা‡ন ছিল না কোন শত্তিু প্র‡য়াগ বা জবরদসিত।
 
উপমহা‡দ‡শ ইসলাম প্রচারক‡দর ম‡ধ্য অন্যতম ছি‡লন শেখ ইসমাইল (১০০৫ খ্রিঃ), আবদ- আল্লাহ (১০৭৬ খ্রিঃ), নুরতদ্দীন, যিনি নুর সওদাগর না‡ম পরিচিত ছি‡লন (খ্রি্রষ্টীয় বা‡রা শতক), সৈয়দ Rvjvjyদ্দিন (১২৪৪ খ্রিঃ), জালালু সৈয়দ আহমদ কবির যিনি "মখদুস-ই-জাহানিয়া' না‡ম পরিচিতি লাভ ক‡রন (১২৪৪ খ্রিঃ); কিমও এ‡দর ম‡ধ্য অধিক সুখ্যাতি ও জনপ্রিয়তা লাভ ক‡রন খাজা মইনুদ্দিন চিশতী (রঃ)। খাজা মইনুদ্দিন চিশতীর অভূতপূর্ব আধ্যাত্মিক ক্ষমতা এবং সে সম‡য় হিন্দু সমা‡জর অব‡হলিত শ্রেণী ইসলাম ধর্ম গ্রহণ ক‡র সামাজিক অত্যাচার থে‡ক মুত্তিুর পথ ‡প‡য়ছি‡লা। স‡র্বাপরি তে‡রা শত‡ক ইখতিয়ার উদ্দিন মুn¡ম্মদ-বিন-বখতিয়ার খিলজীর বাংলা-বিহার জ‡য়র ম‡ধ্য দি‡য় এ অঞ্চ‡ল মুসলিম শাস‡নর ‡গাড়াপত্তন ঘ‡ট এবং ইসলাম ধর্ম ব্যাপক প্রচার ও প্রসার লাভ ক‡র। বতর্মান বাংলা‡দশ-এর বিভিন্ন অঞ্চ‡ল ইসলাম ধর্ম প্রচার ও প্রসা‡র যাঁরা অগ্রনী ভূমিকা রা‡খন তাঁ‡দর অন্যতম হ‡লনঃ চট্রগ্রাম অঞ্চ‡ল হযরত বা‡য়জিদ বোসতvমী (রঃ) (নবম শতাব্দীর শেষ ভা‡গ), হযরত শেখ ফরিদ (রঃ) (বা‡রা শত‡কর প্রথম ভা‡গ), হযরত বদর আউলিয়া (তের শত‡কর শেষ ভা‡গ), সি‡লট অঞ্চ‡ল হযরত শাহ জালাল (রঃ) (১৩০৩) এবং তারঁ সঙ্গীয় ৩৬০ জন অনুসারী যাঁরা পরবর্তী‡ত দে‡শর বিভিন্ন অঞ্চ‡ল ছড়ি‡য় প‡ড়ন; রাজশাহী অঞ্চ‡ল হযরত শাহ্ মখদুম (রঃ) (বা‡রা শত‡কর শেষ ভা‡গ), হযরত মৌলানা শাহ মোয়াজ্জম দৌলা (‡চ±দ্দশ শত‡কর শেষ ভা‡গ), শাহ্ নেয়ামাত উল্লাহ (রঃ) (‡ষাল শত‡কর প্রথম ভা‡গ); খুjনা অঞ্চ‡ল হযরত খান জাহান আলী (রঃ) (চৌদ্দ শত‡কর ‡শষা‡র্দ্ধ) এবং ঢাকা অঞ্চ‡ল হযরত শাহ্ খাজা শরফুদ্দীন চিশতী (রঃ) (১৩০৬)। চট্রগ্রা‡মর কদম মোবারক মসজিদ (১৩৩৬) এবং রাজশাহী অঞ্চ‡ল বাঘা মসজিদ, কুসু¤^v মসজিদ, দারস বাড়ী মসজিদ এবং ছোট সোনা মসজিদ, বা‡গরহা‡টর ষাট  গম্বুজ মসজিদ (তের শতক ও চৌদ্দ শত‡ক নির্মিত) সহ দে‡শর বিভিন্ন সহা‡নর অতি প্রাচীন দরগা- মসজিদসমূহ প্রমাণ ক‡র "এ দে‡শর ইসলাম ধ‡র্মর আগমন, প্রচার ও প্রসা‡রর' উজ্জবল স্বাক্ষর। বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ জাতীয় অধ্যাপক সালাহ্উদ্দীন আহমদ-এর ম‡ত, "এই উপ-মহা‡দ‡শ ইসলা‡মর আবির্ভাব একটি অত্যমত গুরতত্বপূর্ণ ঘটনা। জন্ম, ধর্মামত করণ ও বহিরাগমন এ ¢Îমুখী প্র¢µয়ার ফ‡ল মুসলিম জনসংখ্যা দ্রতত গতি‡ত বৃদ্ধি পায়।'
 
পরবর্তি‡ত ষোল শত‡ক মোঘলরা সাম্রাজ্য সহাপন ক‡র। সম্রাট আকবর ধর্মীয় ব্যাপা‡র আ‡পাস ও উদার নীতি গ্রহণ কর‡লও পরবর্তী সম্রাট আওরঙ্গ‡জব রক্ষনশীল মুসলমান‡দর ব্যাপক সমথর্ন লাভ ক‡রন। কিমও তাঁর মৃZ¤Éর পর মুসলিম কেন্দ্রীয় রাজশত্তিু ভে‡ঙ্গ প‡ড় এবং একাধিক হিন্দু ও মুmলিম রা‡জ্যর উদ্ভব হয়। আঠা‡রা শত‡কর শেষ দি‡ক ঐ সকল রাজ্য ইং‡রজ‡দর অধী‡ন চ‡ল যায়। ১৯০৬ সা‡ল মুসলমান‡দর প্রথম সর্বভারতীয় রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান "মুসলিম লীগ'-এর জন্ম হয়। মুসলমানরা পৃথক নির্বাচ‡নর দাবী উথুাপন ক‡র এবং ঐ দাবী ১৯০৯ সা‡ল ভারতীয় শাসনতামিএক আই‡ন গৃn£ত হয়। ভারতীয় রাজনৈতিক জীব‡ন মুসলমান‡দর পৃথক অসিতত্ব এভা‡বই প্রকাশ পায়।
 
উপ‡রাত্তু, আ‡লাচনা হ‡ত এটা প্রমাণিত যে, বাংলা‡দশ সহ এই উপ-মহা‡দ‡শর মানুষ ইসলাম ধর্ম গ্রহ‡নর জন্য কোন বি‡শষ রাজনৈতিক দ‡লর জন্ম বা সৃষ্টি'র অ‡পক্ষায় ছিল না; নিজ প্র‡য়াজ‡ন ও তাগি‡দ এ অঞ্চ‡লর gvbyl Bmjvg a‡g© DØy× I `xwÿZ n‡qwQj জামাত-ই-ইসলামী হিন্দ নামক রাজনৈতিক দলটি সৃষ্টির হাজা‡রা বছর পূ‡র্ব।
 
মাওলানা মওদুদী জামাত-ই-ইসলামী হিন্দ না‡ম রাজনৈতিক দলটির জন্ম দেন ঠিক সেই মুহু‡র্ত যখন প্রায় দু'শত বছর ধ‡র ব্রিটিশ ঔপনি‡বশিক শাসন-শোষ‡ন পিষ্ট উপমহা‡দ‡শর সাধারণ মানুষ ব্রিটিশ বি‡রাধী আ‡ন্দালন-সংগ্রাম‡ক স্বাধীনতার চুড়ামত পর্যা‡য় নি‡য় গি‡য়ছিল এবং এই উপমহা‡দ‡শর মুসলমানগণ বি‡শষতঃ বাঙালী মুসলমানগণ "ঐতিহাসিক লা‡হার প্রসতv‡বর' ভিত্তি‡ত মুmলমান‡দর জন্য একাধিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম পরিচালিত করছিল। মাওলানা মওদুদী মুmলমান‡দর জন্য পৃথক রা‡ষ্ট্রর বি‡রাধীতা ক‡রন এই বত্তুব্য উথুাপন ক‡র যে, ""পাকিসতvন নামক মুসলমান রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য যাঁরা নেতৃZ¡ প্রদান কর‡ছন তারা ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করার যোগ্যতা রা‡খন না এবং মুসলমান‡দর জন্য পৃথক রা‡ষ্ট্রর অর্থ এই নয় যে, তা ইসলামী রাষ্ট্র হ‡ব।'' ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার দাবী উথুাপন ক‡র মূলতঃ মাওলানা মওদুদী ও তাঁর দল জামাত-ই-ইসলামী হিন্দ মুসলমান‡দর স্বার্থ রক্ষার জন্য পৃথক রাষ্ট্র সৃষ্টির বি‡রাধীতা ক‡রন । তাঁর এ বি‡রাধীতা মূলতঃ ভারতব‡র্ষ ব্রিটিশ শাস‡নর প‡ক্ষই যায় এবং উপমহা‡দ‡শর সাধারন মানু‡ষর ব্রিটিশ বি‡রাধী আ‡ন্দালন‡ক বাধাগ্রসহ ক‡র।
 
১৯৪৭ সা‡ল দেশ বিভা‡গর পর বাসতবতা মে‡ন নি‡য় মাওলানা মওদুদী পাকিসতা‡নর লা‡হা‡র সহvয়ীভা‡ব বসবাস শুরত ক‡রন, যদিও বা তিনি পাকিসতvন আ‡ন্দালন‡ক "হারাম আ‡ন্দালন' এবং পাকিসতা‡নর জন্য যারা জীবন বিসর্জন দি‡য়‡ছন তাঁ‡দর মৃত্যু‡ক "হারাম মউত' ব‡ল ফ‡তায়া দি‡য়ছি‡লন। (সূÎx মুত্তিুযু× ও ‡গালাম আযম, হালিম দাদ খান, পৃষ্ঠা-১১)
 
পাকিসতv‡ন আগম‡নর পর জনাব মওদুদী জামা‡ত ইসলামী পাকিসতvন না‡ম দলটির আমীর হিসা‡ব এর কার্যµম নতুb পর্যা‡য় শুরত ক‡রন। মাওলানা মওদুদী ও তাঁর দল জামা‡ত ইসলামী পাকিসতvন মুসলিমলী‡গর তৎকালীন নেতা‡দর বিরত‡দ্ধ অবসহvন গ্রহন ক‡রন। পাকিসতvন‡ক ইসলামী রাষ্ট্র হিসা‡ব প্রতিষ্ঠা করার পাশাপাশি মাওলানা মওদু`£র চরম ও সাম্প্রদায়িক মতবাদ ও চিমতা চেতনা বি‡শষতঃ আহ‡মদিয়া সম্প্রদা‡য়র বিরত‡দ্ধ প্রচারণা ও অবসহvন এক পর্যা‡য় সহিংসতা ও দাঙ্গায় রদপ নেয় এবং ১৯৫৩ সা‡ল লা‡হা‡র সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় বহু সংখ্যক ঐ সম্প্রদা‡য়র মানুষ কে হত্যা করা হয়। ঐ সময় দাবী উথুাপন করা হ‡য়ছিল যে, "পাকিসতvন সরকার ও প্রশাস‡নর শীর্ষ প‡দ আহ‡মদিয়া সম্প্রদা‡য়র যে সব ব্যত্তিু অধিষ্ঠিত ছি‡লন তা‡দর বহিষ্কার কর‡ত হ‡ব।'ঐ সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ও আহ‡মদিয়া সম্প্রদা‡য়র মানুl‡ক হত্যায় উস্কানী দেয়ার অভি‡যা‡গ মাওলানা মওদুদী লা‡হা‡রর একটি সামরিক  আদাল‡ত বিচা‡রর সম্মুখীন হন এবং ঐ বিচা‡র তাঁ‡ক মৃZz¨ `Û cÖ`vন করা হয়। মাওলানা মওদু`£ তাঁর বিরত‡দ্ধ প্রদত্ত মৃত্যুদন্ডা‡দ‡শর বিরত‡দ্ধ কোন আইনগত ব্যবসহা গ্রহণ না কর‡লও সত্য এটাই যে, মূলতঃ ক‡য়কটি প্রভাবশালী রা‡ষ্ট্রর প্রভা‡ব ও চা‡প ঐ শাসিত বাতিল করা হয়। মাওলানা মওদুদী ১৯৭২ সাল পর্যšÍ অর্থাৎ বাংলা‡দশ সৃষ্টির প‡রও জামা‡ত ইসলামী পাকিসতv‡নর আমীর-এর দায়িত্ব পালন ক‡রন। পাকিসতান সৃষ্টির পর হ‡ত পশ্চিমা শাসক‡গাষ্ঠির বিভিন্ন অগণতামিএক পদ‡ক্ষপ, বাংলা ভাষার বিরত‡দ্ধ AবসÛvন, ৫৪-এর নির্বাচ‡ন বিজয়ী সর্ব জনাব শে‡র বাংলা এ. কে. ফজলুল হক, মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাষানী এবং হো‡সন শহীদ সোহরাওয়ার্দীi নেতৃত্বাধীন যু³ফ্রন্ট সরকার‡ক পরিচালিত না হ‡ত দি‡য় অগ্রহন‡যাগ্য ব্যবসহা গ্রহণ, পরবর্তী‡ত সামরিক শাসন ঘোষনাসহ বিভিন্ন অগণতামিএক ব্যবসÛvর বিরত‡দ্ধ মাওলানা মওদু`£ ও জামা‡ত ইসলামীর কোন উ‡ল্লখ‡যাগ্য ভূমিকা দৃkÉমান নয়। বরং মাওলানা মওদু`£ গণতামিএক রাষ্ট্র ব্যবসহার বিরত‡দ্ধ অবসহান গ্রহণ ক‡র জনগ‡ণর সার্ব‡ভ±মত্ব‡ক অস্বীকার করার প্রয়াস পে‡য়‡ছন এই বত্তুব্য উপসহvপন ক‡র যে,
 
“জনগ‡নর সরকার, জনগ‡নর দ্বারা, জনগ‡নর জন্য-মুসলমান হিসা‡ব আমি এই নীতির সমর্থক নই।” (মাওলানা আবুল আলা মওদু`£, সিয়াসী কাশমকাশ, ৩য় খন্ড, পৃষ্ঠা-৯৪)
 
জামায়া‡তর প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা মওদুদী ও তাঁর জামায়াত-এর "আক্বীদাগত কিছু বিষ‡য়' এই উপমহা‡দশ ও বাংলা‡দ‡শর হা°vbx আ‡লমগন অগ্রহন‡যাগ্য এবং ঈমান ও ইসলাম পরিপমহী হিসা‡ব অভিহিত ক‡র মওদুদীর ভ্রামত মতবাদ ও তাঁর সৃষ্ট জামাতকে প্রত্যাখান ও বর্জb করার আহবান জানি‡য় এ‡স‡ছন।
 
জামা‡ত ইসলামীর গঠনত‡মএর মৌলিক আক্বীদা শি‡রানা‡ম ৬ (৬) নং দফায় যে কয়টি অপরিহার্য আক্বীদা উ‡ল্লখ করা আ‡ছ তার ম‡ধ্য ‘‘আল্লাহর রাসূল ব্যতীত কাউক সত্যর মাপ কাঠি মন না করা, কাউক সমালাচনার উর্দ্ধ মন না করা, কারা মানসিক গালামীত লিপ্ত না হওয়া’’  উ‡ল্লখ‡যাগ্য।
 
উপ-মহা‡দ‡শর প্রখ্যাত আ‡লম, হযরত মওলানা সায়্যিদ হুসাইন আহমদ মাদানী (রঃ) সহ বাংলা‡দশ ও উপমহা‡দ‡শর উ‡ল্লখ‡যাগ্য সংখ্যক আ‡লমগ‡ণর সুচিমিতZ অভিমত যে, উত্তু আক্বীদা কোরআন ও হাদী‡সর সম্পূর্ণ পরিপমহx । তাঁ‡দর ম‡ত জামায়া‡তর ঐ আক্বীদা গ্রহ‡ণর অর্থ হ‡লা অন্যান্য সকল নবী ও সাহাবা‡য় কিরা‡মর ওপর থে‡ক অতি গোপ‡ন-সমতর্প‡ণ বিশ্বvস উঠি‡য় দেয়া।
 
জামা‡তর গঠনত‡মএর উত্তু আক্বীদা সম্প‡র্ক ""দারতছ ছুন্নাহ শাশির্না আলিয়া মাদ্রাসার ফ‡তায়া হ‡”Qx
 
‡h‡nZz gI`y`x Rvgv‡Zi গঠনতমএ আহল সুন্নাত ওয়াল জামায়াতর বিপরীত এফরাতী মতাদর্শর (চরমপমহx) ভিত্তিত রচিত হছ; যথা-উত্তু গঠতমএর ""মূল বিশ্বvস'' (আকিদা) অধ্যায় লিখিত আছ-
""খাদার রাসূল (সাঃ)-কে ছাড়া অন্য কোন মানুষকই সত্যর মাপকাঠি হিসাব মানব না। কাউকও সমালাচনার ঊর্দ্ধ মন করব না। কারও মানসিক অন্ধ গোলামীত আবদ্ধ হব না।''
 
মওদু`£ সা‡হ‡বর উপরবর্ণিত ধারার পরিস্কার অর্থ এই যে-
 
১। হযরত রাসূ‡ল করীম সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম ব্যতীত অন্য কেউ, চাই তিনি নবী হোন অথবা সাহাবী হোন (মি"আ‡রহক) বা স‡ত্যর মাপকাঠি হ‡ত পা‡রনা।
২। রাসূ‡ল খোদা ব্যতীত অন্য কাউ‡কও সমা‡লাচনার ঊ‡র্দ্ধ ব‡ল স্বীকার করা যা‡ব না।
         ৩। রাসূ‡ল খোদা ব্যতীত অন্য কারও জে‡হনী গোলামী অর্থাৎ তাকলীদ করা যা‡ব না। মওদু`£ দসত‡র বর্ণিত উপ‡রাত্তু আকিদাসমূহ আহ‡ল সুন্নাত ওয়াল জামা‡তর সম্পূর্ণ বিপরীত। যে‡হতু দসত‡রর (গঠনত‡মএর) ভিত্তি‡ত জামাত প্রতিষ্ঠিত ও পরিচালিত হ‡য় থা‡ক, এ জন্যই মওদুদী জামা‡তর গঠনত‡মএর ""সদস্য হওয়ার শর্ত'' অধ্যায় লিখিত আ‡ছ|
 
প্রথম শর্ত: জামাতর মূল বিশ্বvস (এতকাদ) কে উল্লিখিত ব্যাখ্যা অনুর বুঝ নেয়ার পর একই তার আকিদা ও বিশ্বvস বল ঘোষণা করত হব।সচতন ভাব ইহা নতুন কর পাঠ করত ও সাক্ষ্য দিত হব।
এবং উত্তু গঠনতমএর ""সদস্যদর শপথ'' অধ্যায় ২ নং ধারায় লিখিত আছ-
দ্বিতীয়শর্ত: জামায়াতর গঠনতমএ এবং মজলিস শুরার নিয়মপ্রণালী সবসময় মেন চলত বাধ্য থাকব।
 
কা‡জই মওদু`£ জামা‡তর গঠনত‡মএ সন্নি‡বশিত আহ‡ল সুন্নাত ওয়াল জামা‡তর বিপরীত আক্বীদাসমূহ নি‡জর আক্বীদা হিসা‡ব গ্রহণ করা ব্যতীত কা‡রাও প‡ক্ষ মওদু`£ জামা‡তর সদস্য হওয়া আ‡দ± সম্ভবপর নয়। এমতাবসহvয়, কোন সুbœ£, হানাফী মুসলমা‡নর কোনম‡তই মওদু`£ জামাত তথা জামা‡ত ইসলামীর সদস্য হওয়া জা‡য়য নয়।'' [সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡ ৯৬-৯৭]
 
রাসলূ (সাঃ)-এর "অনুm¡রী' অর্থাৎ আসহাব (রাঃ) গণ যে স‡ত্যর মাপকাঠি ও সকল মুmলমান‡দর জন্য আদর্শ সে বিষ‡য় মহান আল্লাহ রাব্বুল আল-আমীন পবিÎ কুরআন শরী‡ফ ইরশাদ ক‡রন,
 
“সেইদিন (কিয়াম‡তর দিন) আল্লাহ লজ্জা দি‡বন না নবী {হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)} এবং তার মু'মীন আসহাব (রাঃ) গন‡ক (সঙ্গীদিগ‡ক) ও তা‡দর নূর (জ্যোতি) তা‡দর সম্মু‡খ ও ডানদি‡ক (অর্থাৎ চতুর্দি‡ক ধাবমান) বা বিকীর্ণ থাক‡ব।”
[কারআন-৬৬ (সূরা তাহ্রীম)ঃ আয়াত ৮]
“কাহারও নিকট সৎপথ প্রকাশিত হওয়ার পর সে যদি হযরত রাসূল্লাহ্ (সাঃ) এর বিরতদ্ধাচারণ ক‡র এবং মু'মিন‡দর (আসহাবগ‡নর) অনুসৃZ প‡থর বিপরীত চ‡ল আমি তা‡ক ঐ দি‡ক চলি‡ত দিব, যে দি‡ক সে চলি‡ত চায়। কিমও অব‡শ‡ষ আমি তা‡ক জাহান্না‡ম দগ্ধ করিব এবং জাহান্নাম অতি নিকৃষ্টতর আবাসই ব‡ট।” [‡কারআন-৪ (সূi¡-নিসা)ঃ আয়াত ১১৫]
 
পবিÎ ‡কারআ‡নর উপ‡রাত্তু আয়াত দুইটি অকাট্যভা‡ব প্রমাণ ক‡র যে, হযরত রাসূল্লাহ্ (সাঃ) ও তাঁর আসহাব (সঙ্গীগন) (রাঃ) গণই স‡ত্যর মাপকাঠি এবং অনুmরনীয়; সুতরাং জামা‡তর গঠণত‡মএর ৬(৬) ধারায় রাসূল (সাঃ) ব্যতীত কাউ‡ক স‡ত্যর মাপকাঠি ম‡ন না করা এবং কাউ‡ক সমা‡লাচনার উ‡র্দ্ধ ম‡ন না করা পবিÎ কোরআন উ‡ল্লখিত মহান আল্লাহর বাণীর পরিপমহx ।
 
হযরতনগর আলীয়া মাদ্রাসার প্রধান মুn¡দ্দিস জনাব মাওলানা আমীনুল হক-এর ম‡তt ""পাকিসতান জামাত ইসলামীর গঠনতমএi ১৪ পৃষ্ঠায় ৬ষ্ঠ দফায় (বর্তমান গঠণতমএও একই বিষয় উল্লখ আছ) এক আপত্তিকর ইবারত আছ যাহা ইসলামী উছুলক চরমভাব আঘাত হানিয়াছ। উত্তু দফা দ্বারা প্রমাণিত হইয়াছ যে, অন্যান্য নবীগণও সত্যর মাপকাঠি নহন। এবং তাহাঁদর সমালাচনা করা যাইত পার। সাহাবায় কিরাম, যাহারা ধর্মর সতম্ভ স্বরদপ তাহাদর সমালাচনা করিত মওদু সাহব কোন প্রকার Îæটি করন নাই।আমি আমার সবর্সাধারণ মুmলমান ভাইদিগক বিশষতঃ স্কুj, কলজ ও মাদ্রাসার ছাÎদিগক মওদুদী ফেৎনায় আµvমত না হওয়ার জন্য অনুরাধ জানাইতছি।'' (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃষ্ঠা-১১৮)
 
মাওলানা মওদুদী তাঁর রচিত বিভিন্ন গ্র‡মহ বিভিন্ন নবী-রাসূল, সাহাবা ও আসহাবগণ সস্প‡র্ক নেতিবাচক মমতeÉ ও সমা‡লাচনা ক‡র‡ছন এমনকি ইসলাম ধর্ম অনুসার সর্বশষ ও সর্ব ‡kÖô রাসূল gynv¤§v`yi ivmyjøvjøvû (সাঃ) সম্পর্কও বিরদপ মমতব্য করত কুণ্ঠাবাধ করননি।
 
মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর উ‡দ্দ‡শ্য জনাব মওদুদী তাফহীমুj ‡কারআন (বাংলা) ১৯তম খন্ড, (ওরি‡য়ন্টাল প্রেস কর্তৃক প্রকাশিত,পৃôv ২৮০ এবং খায়রতন প্রকাশনা কর্তৃক প্রকাশিত, পৃষ্ঠা ২৮৬)-এ মমতব্য ক‡র‡ছন, ‡h, ""আল্লাহ তায়ালার নিকট কাতর কণ্ঠ এই আবদন করতন, যে কাজর দায়িত্ব আপনাক দেওয়া হয়ছিল তা সম্পন্ন করার ব্যাপার আপনার দ্বারা যে ভুলÎæটি হছ কিংবা তাত যে অসম্পূর্ণতা রয় গেছ তা যেন তিনি ক্ষমা কর দেন।''
 
তরজমানুল ‡কারআন, ৮৫তম সংখ্যা, পৃôv 230 ও তরজমানুস সুন্নাহ, ৩য় খন্ড, পৃষ্ঠা ৩০৫-এ মমতব্য ক‡র‡ছন, "মহানবী (সাঃ) মানবিক দূবর্লতা থে‡ক মুত্তু ছি‡লন না। অর্থাৎ তিনি মানবিক দুবর্লতায় বশীভূত হ‡য় গুনাহ ক‡রছি‡লন।'
 
তাফহীমুল ‡কারআন, সুiv‡য় নসর-এর তফসীর, এখা‡ন মমতব্য ক‡র‡ছন যে, ""হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) রিসালা‡তর দায়িত্ব পাল‡ন Îæটি ক‡র‡ছন, তাঁ‡ক ক্ষমা চাই‡ত হ‡ব।'' অথচ; রাসূল (সাঃ) সম্প‡র্ক পবিÎ কুiআন শরী‡ফ মহান আল্লাহ্র বাণী হ‡”Qx
  
""‡য রাসু‡লর অানুগত্য ক‡র সে তো আল্লাহ্রই আনুগত্য কর‡লা।'' (সূরা নিসা-৪ঃ আয়াত ৮৪)
   এবং
   ""‡হ মু'মিনগণ! তোমরা আল্লাহ্র আনুগত্য কর এবং রাসূ‡লর আনুগত্য কর এবং তোমা‡দর কর্ম ব্যর্থ ক‡রা না।'' (সূi¡ মুহাম্মদ-৪৭ঃ আয়াত ৩৩)
   এবং
   ""‡হ নবী আমি তো তোমা‡ক পাঠি‡য়ছি সাক্ষীরদ‡প এবং সুসংবাদ দাতা ও সতর্কK¡রীরদ‡প; আল্লাহ্র অনুমতিµ‡ম তাঁর দি‡ক আহ্বানকারীরদ‡প এব উজ্জবল প্রদীপরদ‡প।'' (সূi¡ আযহাব-৩৩ঃ আয়াত ৪৫-৪৬)
 
তরজমানুল কুiআন রবিউল আওয়াল সংখ্যা, ১৩৬৫ হিজরী-এ মমতব্য ক‡র‡ছন, মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নি‡জ মনগড়া কথা ব‡ল‡ছন এবং নি‡জর কথায় নি‡জই স‡ন্দহ পোষণ ক‡র‡ছন। মহানবী (সাঃ)-এর হাদীস সম্প‡র্ক রাসা‡য়ল ও মাসা‡য়ল, পৃষ্ঠাঃ ৬৭-এ মমতeÉ ক‡র‡ছন, হাদীস কিছু লোক থে‡ক কিছু লোক পযর্মত অর্থাৎ মানু‡ষর মু‡খ মু‡খ বণির্ত হ‡য় আস‡ছ। এসব বড়‡জার সঠিক ব‡ল ধারণা করা যায়, কিমও দৃঢ়ভা‡ব বিশ্বাস করা যায় না। আর একথা স্পষ্ট যে, আল্লাহর দী‡নর যে সকল বিষয় এ‡তা গুরতত্বপূর্ণ যে, এগু‡লার যেগু‡লার দ্বারা ঈমান ও কা‡ফ‡রর মা‡ঝ পার্থক্য নিণীর্ত হয়, সেগু‡লা ক‡য়কজন লো‡কর বর্ণনার উপর নির্ভর ক‡র মানুষ‡ক বিপদাপন্ন করা আল্লাহ তা'আলার কখ‡না পছন্দ কর‡ত পা‡রন না। ঐ গ্র‡মহর পৃô¡ ২৪৮-এ লি‡খ‡ছন যে, "হুযুর পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর আদত, আখলাক‡ক সুন্নত বলা এবং তা অনুসর‡ণ ‡জার দেয়া আমার ম‡ত সাংঘাতিক ধর‡ণর বিদয়াত ও মারাত্মক ধর্ম বিকিরণ।' (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃôvx ১৯১-১৯৩)
 
মাওলানা মওদুদী তাঁর তাফহীমুল কোরআন (উর্দু)ঃ ৩য় খন্ড, পৃষ্ঠা ১২৩-এ হযরত আদম (আঃ), তাফহীমুল কুরআনঃ ২য় খন্ড, পৃষ্ঠা ৩৪৪-এ হযরত নূহ (আঃ), তাফহীমুল ‡কারআন ১ম খন্ড, পৃô¡ ৫৫৮-এ হযরত ইব্রাহীম (আঃ), রাসা‡য়ল ও মাসা‡য়ল ১ম খন্ড, পৃষ্ঠা ৩১-এ হযরত মূসা (আঃ), তাফহীমাতঃ ২য় খন্ড, ২য় সংস্করণ, পৃষ্ঠা ৪২-এ হযরত দাউদ (আঃ), তাফহীমাতঃ ২য় খন্ড, ৫ম সংস্করণ, পৃô¡ ১২২-এ হযরত ইউসুফ (আঃ), তাফহীমুj কুরআন, ১ম খন্ড (সূরা নিসা), পৃô¡ ৮২১-এ হযরত ঈসা (আঃ) সম্প‡র্ক বিরদপ ও নেতিবাচক মমতeÉ ক‡র‡ছন। তিনি তাফহিমাত, চতুর্থ সংস্করন, পৃষ্ঠা ২৯৪-এ উ‡ল্লখ ক‡রন যে, অ‡নক সময় সাহাবা‡য় কিরাম‡কও বিভিন্ন মানসিক দুবর্লতা আ”Qbœ ক‡র ফেলত। সাহাবা‡য় কিরাম সম্প‡র্ক মওলানা মওদু`£র এই ম‡নাভাব ও বত্তুব্য ঈমান ও আক্বীদার পরিপমহী। মাওলানা মওদুদী তাঁর "খেলাফত ওয়া মুলকিয়াত' গ্র‡মহ রসূলyjø¡হ (সাঃ) এর বিশিষ্ট আসহাব হযরত আবু বকর সিদ্দিক (রাঃ), হযরত ওমর (রাঃ), হযরত ওসমান (রাঃ), হযরত আলী (রাঃ), হযরত মোয়াবিয়া, হযরত খা‡লদ ইব‡ন ওলীদ, হযরত আনাস, হযরত আব্দুল্লাহ ইব‡ন জোবা‡য়র, হযরত তালহা, হযরত মুগীরা ইব‡ন মোবা, উম্মুল মুজ্ঞজ্ঞ‡মনীন, হযরত আ‡য়শা সিদ্দিকা ও হযরত হাফসা গ‡নর ‡দাষ-Îæটি সম্প‡র্ক বিরদপ ও নেতিবাচক মমতব্য ক‡র‡ছন। (সূÎx ইসলাম ও বিদ্য়াতঃ সুd£ হাবিবুর রহমান এবং ভুল সং‡শাধনঃ হযরত মাওলানা শামছলু হক ফরিদপুরী (রঃ), ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত)
 
পবিÎ কোরআ‡নর মূল্যায়ন প্রস‡ঙ্গ জনাব মওদুদী তাফহিমাত, প্রথম খন্ড, পৃষ্ঠা ৩১২-এ মমতব্য ক‡র‡ছন, ""কুiআন করিম হেদা‡য়‡তর জন্য য‡থষ্ট; কিমও নাজাত বা মুwত্তুর জন্য নয়।'' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপ সঙ্কলন ও সম্পাদনাঃ আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃষ্ঠা-১৮)
 
নবী-রাসূল‡দর পরই সাহাবা‡দর মর্যাদা। তাঁ‡দর সম্প‡র্ক রাসূj (সাঃ) ব‡ল‡ছন, ""আমার সাহাবারা নক্ষ‡Îর মত। তাঁ‡দর ম‡ধ্য যা‡ক তোমরা অনুসরণ কর‡ব, সঠিক পথ লাভ কর‡ব।'' কিমও মাওলানা মওদু`x তরজমানুল কুরআন ৩৫শ সংখ্যা, পৃô¡ ৩২৭-এ লি‡খ‡ছন ‡ht
 
""সাহাবায় কেরাম সমালাচনার বাহির নন। তাদর দোষ বর্ণ করা যায়। সাহাবাদর সম্মান করার জন্য যদি ইহা জরতরী মন করা হয় যে, কোন ভাবই তাদর দোষ বর্ণনা করা যাব না তব আমার (মওদুদী) দৃষ্টিত ইহা সম্মান নয় বরং মূwর্ত পূজা। যার মূলাৎপাটন এর লক্ষ্যই জামাত ইসলামীর জন্ম।'' (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃK প্রকাশিত, পৃôvx ১৯২)
 
মাওলানা মওদু সাহাবাগণ সম্পর্ক তরজমানুj কারআন, ৩৫তম সংখ্যা, পৃষ্ঠা ৩২৭-এ আরা বছন, ""সাহাবায় কিরামর অক মনগড়া হাদীস বণর্না কছন এবং অনক সময় সাহাবাদর মধ্যও মানবিক দুলতা প্রাধান্য লাভ করতা।'' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপ সঙ্কলন ও সম্পাদনাঃ আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-১৯)
 
তিনি তাফহিমাত, ২য় খন্ড, পৃষ্ঠা-১৫৫-এ লি‡খ‡ছন, ""সাহাবাদর মধ্য জাহিলিয়াতর বদস্বভাবর পুbরাবৃত্তি ঘট।'' (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপ সঙ্কলন ও সম্পাদনাঃ আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃôv-১৯)
 
মাওলানা মওদুদী তাঁর বিভিন্ন লেখনীর মাধ্য‡ম হাদিসবীদগ‡ণরও ক‡ঠার সমা‡লাচনা ক‡র‡ছন। c„ষ্ঠা ২৮৬-২৯২-এ লি‡খ‡ছন, ""wতনি তাফহিমাত, প্র‡ত্যক‡ক হাদি‡সর ইমাম‡দর অন্ধ অনুকরণ কর‡ত হ‡ব, কিংবা তাঁ‡দর‡ক ভুলÎæটিমু³ ম‡ন কর‡ত হ‡ব, এ ধারণা কখ‡না আমি সমর্থন করিনি। এমনকি আমি কখ‡না এই দাবি করিনি যে, প্র‡ত্যক কিতা‡ব যে বর্ণনা "রাসূলুjø¡হ ব‡ল‡ছন' দ্বারা শুরত হ‡য়‡ছ, চোখ বু‡ঝ তা রাসূ‡লর হাদীস হি‡স‡ব মে‡ন নি‡ত হ‡ব। .... মাহাদ্দিস‡দর উপর ভরসা করা কতটা ঠিক হ‡ব? কারণ তাঁরাও তো মানুষই ছি‡লন। মানু‡ষর জ্ঞা‡নর যে সীমানা আল্লাহ প্রকৃতিগতভা‡ব নির্ধারণ ক‡র রে‡খ‡ছন, তাঁরা তা অতিµম কর‡ত পা‡রননি। মানু‡ষর কা‡জ স্বভাবজাত যেসব ভুলÎæটি থে‡ক যায় তা‡দর কাজও তা থে‡ক নিরাপদ ছি‡লা না '' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-২১)
 
হযরত ইমাম গাযযালীর (রঃ)-এর সমা‡লাচনা ক‡র মাওলানা মওদু`£ তাজদীদ ও এহইয়া‡য় দ্বীন, পৃô¡ ৪৫-এ লি‡খ‡ছন, ""ইমাম গাযযালীর সংস্কারমূলক কা‡জ জ্ঞানগত ও চিমতvগত দিক থে‡ক ক‡য়কটি Îæটিও ছি‡লা। এগু‡লা তিনটি শি‡রানা‡ম বিভত্তু করা যে‡ত পা‡র। প্রথমত, ইল‡ম হাদী‡স দুeÑলতার দরতন তাঁর গ‡বষণায় কতকগু‡লা Îæটি দেখা ‡দয়। দ্বিতীয়ত, তাঁর ম‡ধ্য দর্শ‡নর প্রাধান্য থাকায় কতকগু‡লা গ‡বষনায় Îæটিবিচ্যুতি দেখা দেয়। তৃZ£য়ত, তাসাউফ বা অধ্যাত্মবা‡দর প্রতি তাঁর প্র‡য়াজনাতিরিত্তু আকর্ষণ থাকার দরতন সৃষ্ট Îæটিবিচ্যুতি।'' (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃষ্ঠা-২২)
 
মাওলানা মওদু`£'র ইসলা‡মর না‡ম এ ধর‡নর ইসলাম বি‡রাধী মমতব্য ব্যাখ্যা ক‡র মুসলিম বি‡শ্বর অন্যতম মনীষী তাবলীগ জামা‡তর প্রতিষ্ঠাতা হযরত মওলানা যাকারিয়া (রঃ) লি‡খ‡ছন, ""আমার ম‡ত মওদুদী সাহি‡ত্যর সব‡চ‡য় মারাত্মক ও ভয়ংকর দিক হ‡লা পবিÎ কুরআ‡নর মনগড়া ব্যাখ্যা। মওদু`£ সা‡হব নি‡জ স্বীকার ক‡র‡ছন, "নি‡জর তফসীর লেখার সময় তিনি মনকুলাত বা হাদীস ও পুi‡না তাফসীর গ্রমহরাজির প্রতি দৃষ্টিপাত করা প্র‡য়াজন ম‡ন ক‡রননি।' তাঁর তফসী‡রর শুরত‡ত তিনি লি‡খ‡ছন, ""কুiআন প‡ড় আমি যা বু‡ঝছি, আমার ম‡ন যে প্রভাব প‡ড়‡ছ হুবহু তাই আমি নি‡জর ভাষায় প্রকাশ করার চেষ্টা ক‡রছি।'' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-২৩)
 
বাংলা‡দ‡শর বিশিষ্ট আ‡লম জনাব মাওলানা আবদুল আউয়াল রাসুj ও নবীগণ এবং সাহাবাগণ সম্প‡র্ক বিভিন্ন ধর‡নর সমা‡লাচনা ও বিরদপ মমতeÉ করায় তিনি মাওলানা মওদুদী সম্প‡র্ক লি‡খ‡ছন যে, ""অবশ্য জীবিত রতশদীর চে‡য় মৃত মওদুদী উপমহা‡দ‡শর মুসলমান‡দর জন্য বেশি ক্ষতিকর। কারণ ইতিম‡ধ্য মওদুদীর অনুসারীরা তা‡ক মুmলিম বি‡শ্বi শ্রেষ্ঠ মুজাদ্দিদ ব‡ল স্লোগান দি‡ত শুরত ক‡র‡ছন। অমতZ বাংলা‡দ‡শ মৃত মওদুদীর রচনাবলি নিষিদ্ধ ঘোষনা করাই হ‡ব তার কৃZ ক‡র্মর সঠিক বিচার। এজন্য দে‡শর স‡চতন নাগরিক, বি‡শষ ক‡র আ‡লম সমাজ‡ক অগ্রণী ভূwমকা পালন কর‡ত হ‡ব। আর এU¡ Kiv Avwjg mgv‡RiB ag©xq I ˆbwZK `vwqZ¡|Ó (m~Ît gI`y`x RvgvZ †drbvi ¯^iƒct সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-২৭)
 
মওদু`£ ও তাঁর জামাত সম্প‡র্ক দারতল-উলূম দেওবন্দ থে‡ক বিভিন্ন সম‡য় একাধিক ফ‡তায়া প্রকাশিত হ‡য়‡ছ। সেখানকার শীর্ষ¯’vনীয় আ‡লমগণ ব্যত্তিুগতভা‡বও তাঁ‡দর অভিমত প্রকাশ ক‡র‡ছন। একটি ফ‡তায়ায় উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ যে, "মওদুদী আ‡ন্দালন হ‡লা ধ্বংসসাধনকারী ও জীবন সংহারক বিষ। মওদুদীর অনুm¡রীরা পথভ্রষ্ট। তা‡দর পিছ‡ন নামায পড়‡ব না।' (m~Ît gI`y`x RvgvZ †drbvi ¯^iƒct সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৫৬)
 
অপর একটি ফ‡তায়ায় মওদুদীর বই পুসতK ও তাঁর সংগঠন জামাত সম্প‡র্ক বলা হ‡য়‡ছ, "মওদুদী জামাত ও এই দ‡লর বই পুসত‡কর দ্বারা সাধারণ মানু‡ষর ম‡ধ্য ইমাম‡দর অনুmর‡ণর প্রতি অনীহা ও সম্পর্কহীনতার সৃwষ্ট হয়। আর এটা সাধারণ মানু‡ষর ধ্বংস ও পথভ্রষ্টতা ডে‡ক আ‡ন।' এই ফ‡তায়ায় স্বাক্ষর ক‡র‡ছন উপমহা‡দ‡শর বিশিষ্ট আ‡লম সর্বজনাব মওলানা মুফতি কেফা‡য়ত উল্লাহ, মাওলানা হোসাইন আহমদ মাদানী, মোহাম্মদ তৈয়ব, মুহতামিম (পরিচালক) দারতল উলূম দেওবন্দ, মাওলানা আব্দলু লতিফ, মুহ্তামিম (পরিচালক), উলুম সাহারানপুর প্রমুখ। (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৫৭)
 
দারতল উলূম দেওব‡ন্দর প্রধান মুফতি হযরত মাওলানা সৈয়দ মাহদী হাসান অপর একটি ফ‡তায়ায় মওদুদী জামাত সম্প‡র্ক ব‡ল‡ছন, ""এই আ‡ন্দাল‡ন মুসলমান‡দর শরীক হওয়া কখ‡না উচিত হ‡ব না। এটা তা‡দর জন্য জীবন সংহারক বিষ। মানুষ‡ক এই আ‡ন্দাল‡ন শরীক হওয়া থে‡ক বিরত রাখ‡ত হ‡ব। নতুবা তারা গোমরাহ হ‡য় যা‡ব। এটা তা‡দর জন্য কল্যা‡ণর পরিব‡র্ত ক্ষতিকর। শরিয়‡তর দৃষ্টি‡কাণ থে‡ক এই আ‡ন্দাল‡ন অংশগ্রহণ মো‡টও জা‡য়য নয়। যে ব্যত্তিু এই জামা‡তর লক্ষ্য ও উ‡দ্দশ্য প্রচার-প্রসার ক‡র সে কল্যা‡ণর পরিব‡র্ত পাপ কাজ ক‡র। সে এ ক্ষতিকর প্রভাব থে‡ক নি‡জ‡ক নিরাপদ রাখ‡ত পা‡র না এবং মানুl‡ক পা‡পর দি‡ক আহবান জানি‡য় থা‡ক। যদি কোন মসজি‡দর ইমাম মওদুদী সা‡হ‡বর সমমনা হয়, তাহ‡ল তার পিছ‡ন নামায পড়া মাকরদহ।'' (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৫৭) জামাqvত সম্প‡র্ক শায়খুল ইসলাম হযরত মাওলানা হোm¡ইন আহ‡মদ এর ফ‡তায়া হ‡লাঃ
 
""দ্বী‡নর ব্যাপা‡র এই জামাqv‡তর সা‡থ ওলামা‡য় কিরা‡মর এখ‡তলাফ। ইহা একটি বদ-দ্বীন জমা‡য়ত। অর্থাৎ মু‡খাশধারী ধ‡র্মর ক্ষতিকারক জামাত।''
তিনি আ‡রা ব‡ল‡ছন,
""জামা‡ত ইসলামী তথা মওদুদী জামাত একটি গোমরাহ জামাত।তার আকা‡য়দ আহ‡ল সুbœ¡ত অল জামায়াত এবং কুরআন ও হাদী‡সর খেলাফ।'' (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃK প্রকাশিত, পৃô¡-৯৪)
 
আহ‡ল হাদীস জামা‡তর নেতা ও বিশিষ্ট আ‡লম হযরত মওলানা আবদুল মজিদ ব‡ল‡ছন, "আমি যতদূi পর্যমত মাওলানা মওদু`£র বই পুসতক প‡ড়ছি এবং তার ধ্যান-ধারণার অনুসন্ধান ক‡রছি, তা‡ত তা‡ক পথভ্রষ্ট পে‡য়ছি। আমি দোয়া করি আল্লাহ তায়ালা তা‡ক তার ধ্যান-ধারণা পরিত্যাগ ও তওবা করার সামর্থ্য দান করতন।' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৫৮)
 
তাবলীগ জামা‡তর প্রতিষ্ঠাতা হযরত মাওলানা ইলিয়াস সা‡হ‡বর উত্তরসূi£ তাঁর পুÎ হযরত মাওলানা মোঃ ইউসুফ সা‡হব মওদু`£ জামা‡তর ক‡য়কজন সদ‡স্যর সা‡থ আ‡লাচনা প্রস‡ঙ্গ ব‡ল‡ছন, "মওদুদী জামাত একটি রাজনৈতিক ও ক্ষমতা‡লাভী দল। তারা এমন জিনি‡সর প্রত্যাশী যা শরিয়‡তর দৃষ্টি‡ত পরিত্যাজ্য।' (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৫৮)
 
বে‡রলবীর বিশিষ্ট আ‡লম হযরত মাওলানা ‡মাসতফা খান সা‡হব বে‡রলবী ও মাওলানা সাই‡য়দ আফজাল হোসাইন, মুফতি, দারতল উলুম মানজারতল ইসলাম বে‡রলবী মওদুদী জামাত ও তাঁর ধ্যানধারণা সম্প‡র্ক একটি ফ‡তায়া প্রদান ক‡রন। তা‡ত তাঁরা ব‡লন, "কিছুwদন আ‡গ এক ব্যত্তিু মওদুদীর ভাষ‡ণর প্রথম খন্ডটি আমা‡দর নিকট নি‡য় আ‡স। আমরা তা গভীরভা‡ব দেখি। তা‡ত আমরা এই সিদ্ধা‡মত ‡পঁ±ছি যে, তিনি ইসলা‡মর প্রচার-প্রসার ও উন্নতি বিধা‡নর দাবি ক‡র থা‡কন। কিমও মূলতt তার আ‡ন্দালন ইসলা‡ম ছিদ্র্র-অ‡নষ্বণ, মুmলমান‡দর ম‡ধ্য বি‡ভদ সৃষ্টি ও কুফরী ও কা‡ফরী ছাড়া কিছু নয়। তিনি ইসলা‡মর ভিন্ন অর্থ ক‡র থা‡কন। সাধারণ মুসলমান‡দর তিনি মুসলমান ম‡ন ক‡রন না। তিনি জন্মগত মুসলিম সমতান-সমততি‡ক বয়ঃপ্রাপ্ত না হওয়া পর্যমত মুসলমান স্বীকার ক‡রন না । তিনি ব‡লন, ইসলাম প্রকৃতিগত ধর্ম নয়। অজ্ঞ মুসলমা‡নরা তাঁর ম‡ত মুসলমান নয়। শুধু তাই নয়, তিনি ব‡লন, অজ্ঞ‡দর মুসলমান হওয়া অসম্ভব ব্যাপার। ....... মোট কথা, মওদু`£ সা‡হ‡বর আ‡ন্দালন মুসলমান‡দর জন্য অত্যমত বিপজ্জনক। তাঁর এই আ‡ন্দালন কোন নতুb আ‡ন্দালন নয়। পুর‡না খা‡রজী ধ্যান-ধারণাই নতুন রদপ ধারণ ক‡র‡ছ।' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৫৮-৫৯)
 
ভার‡তর বে‡রলবীর অপর একজন বিশিষ্ট আ‡লম মাওলানা সাই‡য়দ মোঃ রেজওয়ান মওদুদী সম্প‡র্ক ব‡ল‡ছন, ""মৌল¢f মওদুদী সা‡হ‡বর বিভিন্ন উদ্ধৃতি পাঠ ক‡র আমি এই সিদ্ধা‡মত পৌঁ‡ছছি যে, Zvui gw¯Í¯‹ me©Rbgvb¨ gbxlxe„›` I আম্বিয়া কিরা‡মর প্রতি বেআদবী ও ধৃóতায় পরিপূর্ণ। বিশ্ব মুmলিম‡দর প্রতি আমার অনু‡রাধ তার বিশ্বাস ও ধ্যান-ধারণা থে‡ক সতর্ক থাকুন। তা‡ক গোলাম আহমদ কাদিয়ানী ও গোলাম আহমদ পার‡ভজ‡দর মত ইসলা‡মর চরম শÎæ গণ্য করতন। কেউ তাঁর প্রতারণার শিকার হ‡বন না।'' (m~Ît মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৫৯)
 
উপমহা‡দ‡শর বিশিষ্ট মুn¡দ্দিস মাওলানা সাই‡য়দ আহমদ কা‡জমী মওদুদী সা‡হ‡বর সা‡থ দীর্ঘ আলাপ-আ‡লাচনা ক‡রন। এই আ‡লাচনা পুসতK¡কা‡র প্রাকাশিত হয়। জনাব কা‡জমী মওদুদী ধ্যান-ধারণা সম্প‡র্ক ব‡ল‡ছন, ""মওদুদী সা‡হব নি‡জ‡ক একজন পূর্ণাঙ্গ মুজাদ্দিদ ও মাহদী ম‡ন ক‡রন। কিমও কৌশলগত কার‡ণ তা প্রকাশ কর‡ছন না । সময়মত তা প্রকাশ পা‡ব। তা‡ত ক‡র মুসলমান‡দর সাম‡ন আর একটা ফেৎনার দ্বার খোলা হ‡ব। সুতরাং এই আ‡ন্দাল‡ন যোগদান বা সাহায্য করা নি‡জর ধর্ম বিশ্বাস‡ক বিপ‡দ ঠে‡ল দেয়ার নামামতi ।'' (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৫৯)
 
অল-ইন্ডিয়া আহ‡ল হাদিস কনফা‡র‡ন্সর সভাপতি বিশিষ্ট মুn¡দ্দিস মাওলানা আব্দুল ওহাব ব‡ল‡ছন, ""আমি আহ‡ল হাদীস ভাই‡দর অনু‡রাধ করছি তারা যেন নি‡জ‡দর‡ক এই সংµvমক ব্যাধি থে‡ক রক্ষা ক‡র। নতুবা এই ব্যাধি শুধু তা‡দর‡ক নয় পু‡রা আহ‡ল হাদীস জামাত‡ক ধ্বংস ক‡র দি‡ব। শুধু জো‡র "আমিন' বলা "রা‡ফ ইয়াদইন' করাই আহ‡ল হাদী‡সর কাজ নয়, যতক্ষণ পর্যমত নি‡জ‡দর আকা‡য়দ বা বিশ্বাস সং‡শাধন না কর‡ব এবং পূর্ববর্তী মনীষী ও বুh¤র্গ‡দর দ্বী‡নর পথ আক‡ড় না ধর‡ব ততক্ষন দ্বীন ও নাজাত লাভ করা কঠিন হ‡ব। সুZরাং বীর‡ত্বর সা‡থ জামা‡ত ইসলামীর মোকাবিলা কর‡ত হ‡ব এবং তার শত্তিু নিশ্চিহু ক‡র দি‡ত হ‡ব।'' (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৫৯)
 
চট্রগ্রাম হাটহাজারী দারতল উলূম মাদ্রাসার মুফতি হযরত মওলানা ফয়জুল্লাহ, যিনি বাংলা‡দ‡শর মুdতী‡য় আজম হি‡স‡ব পরিচিত, তিনি মওদুদী জামায়াত সম্প‡র্ক একটি ফ‡তায়া প্রদান ক‡রন। তা‡ত তিনি ব‡ল‡ছন, ""মাওলানা মওদুদী আহ‡ল সুন্নাত ওয়াল জামা‡তর নীতি ও মতবাদ বি‡রাধী বিভ্রামিতKর ও Îæটিপূর্ণ ধ্যান-ধারণা পোষণকারী। তাঁর অধিকাংশ লেখায় বিগত মনীষী, সাহাবা-কিরাম, তা‡বয়ীন, ইমাম, মুজতাহিদ ও আওলিয়া কিরা‡মর প্রতি বেআদবী প্রকাশ পে‡য়‡ছ। তাঁর ধৃóতামূলক আµমন থে‡ক মহান নবী-রাসূলগণও রেহাই পাননি। সুZরাং এই দ‡লর সা‡থ ওঠা-বসা, সংশ্রব রাখা মুmলমান‡দর জন্য কোন অবসহায় জা‡য়জ নয়।'' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৬০)
 
তিনি আ‡রা ব‡ল‡ছন,
ÒRvgvqv‡Z Bmjvgx‡Z শরীক হওয়া জীবন ধ্বংসকারী বিষপান তুল্য'' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃK প্রকাশিত, পৃô¡-১২১)
 
বিশিষ্ট মুহাদ্দিস হযরত যাকারিয়া (রঃ) মওদুদী জামাত সম্প‡র্ক "ফিতনা‡য় মওদুদীয়াত' শীর্ষক বই‡য় মওদুদী'র জামাত সম্প‡র্ক মমতeÉ ক‡র‡ছন, "আমি এই ভ্রামত দ‡ল যোগদান করা হারাম ম‡ন করি। তাঁ‡দর বই-পুসতK পাঠ করা অত্যমত ক্ষতিকর।'(সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক dvউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৬০)
 
‡খলাফত আ‡ন্দাল‡নর প্রতিষ্ঠাতা হযরত মাওলানা মোহাম্মদ উল্লাহ হা‡ফজ্জী হুজুর মওদুদী'র জামাত সম্প‡র্ক মমতeÉ ক‡র‡ছন যে, "মওদুদী ফেৎনা একটি জটিল ফেৎনা এবং মওদু`£ সা‡হ‡বর ""জামাqv‡ত ইসলামী'' প্রকৃZ প‡ক্ষ ইসলা‡মর মূলৎপাটন প্রয়াসী একটি দল। তিনি মুসলমান‡দর‡ক ইসলা‡মর মু‡খাশধারী এই দল থে‡ক দূ‡র থাকাi আহবান জানান। তিনি জামায়াত সম্প‡র্ক "সতর্ক বাণী' শি‡রানা‡ম একটি পুসতK লি‡খন। তাঁর লিখিত এই পুসত‡ক বাংলা‡দ‡শর শীর্ষসহানীয় ৪৫২ জন আ‡লম অভিন্ন মত প্রকাশ ক‡র স্বাক্ষর ক‡রন।(সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡- ৬১ ও ১২৪)
 
ঢাকা আলীয়া মাদ্রাসার প্রাত্তুন হেড মাওলানা ও জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম-এর খতিব মওলানা উবায়দুল হক মওদু`£ জামাত সম্প‡র্ক অভিমত দান প্রস‡ঙ্গ ব‡ল‡ছন, "একথা সত্য যে, কোন ব্যত্তিু বা তার কাজ‡ক সমা‡লাচনার বিষয়বসতু‡ত পরিণত করা ঠিক নয়। তথাপি তার ভ্রামিতপূর্ণ পুসতK¡দির দ্বারা সাধারণ নব্য শিক্ষিত লোক‡দর ম‡ধ্য গোমরাহী বিসতার লাভ ক‡র‡ছ, এমন মুহু‡র্ত হক কথা না ব‡ল নীরব দর্শ‡কর ভূমিকা পালন করা আমার নি‡জর ব্যাপা‡র এক মারাত্মক অপরাধ ব‡ল ম‡ন করি।' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃষ্ঠা-৬২)
 
তিনি আ‡রা ব‡ল‡ছন, "জামাত বসুতZ প‡ক্ষ একটি রাজনৈতিক দল। ইসলামী ছাÎ শিবির উত্তু রাজনৈতিক দ‡লর অঙ্গ সংগঠন যারা জামা‡তর মতাদর্শ প্রচা‡রর জন্য কাজ ক‡র। প্রত্যক্ষভা‡ব রাজনীতির স‡ঙ্গ জড়িত না থাকার কার‡ণ তা‡দর রাজনৈতিক দর্শন সম্প‡র্ক আমার কিছু বলা ঠিক হ‡ব না। ত‡ব এখা‡ন স্মরণ করা যে‡ত পা‡র জামা‡ত ইসলামীর চিমতv ধারা আকিদা এবং কর্মসূচী সম্প‡র্ক বিভিন্ন সম‡য় মাওলানা হো‡সন আহ‡মদ মাদানী, মুফতি মোঃ শফি, মাওলানা মোঃ ইউসুফ বিন নূরী, মাওলানা আবুj হাসান আলী সাফায়ী প্রমুখ বিজ্ঞ ওলামা‡য় কিরামগণ সমা‡লাচনা ক‡র এ‡স‡ছন এবং বিভিন্ন বই-পুসত‡কর মাধ্য‡ম জামা‡তর মতাদর্শগত আকিদাগত ভুল-Îæটি চিহিুত ক‡র‡ছন। কিমও অত্যমত `yt‡Li welq Rvgv‡Z Bmjv‡gi ‡bZ…e„›` এবং কর্মীরা এসকল বিখ্যাত ওলামা‡য় কিরাম‡দর প্রতিবাদ স‡ত্তবও নিজ মত ও প‡থর কোন পরিবর্তন কর‡ত কখনও রাজি হয়নি। বিভিন্ন ব্যাপা‡র ভ্রামত ধারণার ওপর অবিচল থাকার ম‡নাভাব এবং বি‡শষ ক‡র ইসলা‡মর মতাদর্শগত ব্যাপা‡র দলীয় একগু‡য়মীর কার‡ণ জামা‡ত ইসলাম‡ক সমর্থন করা প্রথিতযশা ওলামা‡য় কিরাম‡দর প‡ক্ষ সম্ভব হ‡য় উঠ‡ছ না। এসব ভ্রামত ধারণার ব্যাপা‡র আমি কোন নতুন মমতeÉ করার প্র‡য়াজন‡বাধ করি না। বরং উপমহা‡দ‡শর ব‡রণ্য ওলামা‡য় কিরামগণ যারা ইসলাম সম্পর্কিত জামা‡ত ইসলা‡মর ভ্রামত ধারণা ভুj ব্যাখ্যার সমা‡লাচনা প্রতিবাদ ক‡র আস‡ছন, তা‡দর স‡ঙ্গ একাত্মতা প্রকাশ করছি। '(সূÎx মওদদুী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৬৭-৬৮)
 
ইসলাম সম্প‡র্ক মাওলানা মওদু`£'র ব্যাখ্যা সম্প‡র্ক মালিবাগ মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মওলানা কাজি মুšÍ¡সিম বিল্লাহ ব‡লন, "ইসলাম কি তা বুঝ‡লই মওদুদীবাদ কতটুকু ইসলামবি‡রাধী তা বোঝা যা‡ব। কুরআন হাদী‡সর আ‡লা‡ক ইসলাম বল‡ত এক আল্লাহ্ রাব্বুj আলামী‡নর রবুwবয়াত বা প্রভুত্ব স্বীকার ক‡র নেয়া এবং হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) নি‡র্দwশত প‡থ আল্লাহর ইবাদত ব‡ন্দগী করা ‡ক ‡বাঝায়। অথচ মওদুদীর কা‡ছ ইবাদত ব‡ন্দগী বা নামায রোযা মূখ্য নয়, তার কা‡ছ ইসলা‡মর মূল লক্ষ্যই ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা। সে ম‡ন করত ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা হ‡য় গে‡লই ক্ষমতার জো‡র শত্তিুর জো‡র ইসলাম‡ক প্রতিষ্ঠা করা যা‡ব।' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৬৩)
 
তিনি আরও মমতeÉ ক‡রন, "ইসলা‡মর বিকৃZ ব্যাখ্যা প্রদান ক‡র মওদুদী এবং তার অনুসারী জামাত মানু‡ষর মন‡ক বিষি‡য় দি‡য়‡ছ। সমএা‡সর জো‡র ইসলাম প্রতিষ্ঠা কর‡ত গি‡য় তারা ইসলাম সম্প‡র্ক মানু‡ষর ম‡ন অশ্রদ্ধার সৃwষ্ট ক‡র‡ছ। আ‡লম সমাজ ম‡ন ক‡র এ দে‡শ ইসলা‡মর গ্রহণ‡যাগ্যতা এবং ব্যত্তিুজীব‡ন ইসলা‡মর মাধুর্য প্রতিষ্ঠার বিরত‡দ্ধ মওদুদী এবং জামা‡তর ফ্যাসিস্ট রাজনীতি বড় বাধা। আল্লাহ্ রাসূ‡লর ইসলাম থে‡ক স‡র তারা এমনভা‡ব ইসলাম‡ক উপসহাপন কর‡ছ যা‡ত ম‡ন হয় ইসলা‡ম ক্ষমতা দখলই মূখ্য ব্যাপার, মানবতা প্রতিষ্ঠা বা গরীব শোষিত মানু‡ষর মুত্তিুর ব্যাপা‡র ইসলাম উদাসীন। এভা‡ব জামাত নি‡জর যেমন প্রগতিশীল মুত্তুমনা‡দর শÎæ‡ত পরিণত হ‡য়‡ছ তেমনি ইসলাম সম্প‡র্কও তা‡দর ম‡ন বিরদপ ধারণার সৃষ্টি ক‡র‡ছ। এ কার‡ণ আমি ম‡ন করি মওদুদীবাদী এবং জামাত রাজনীতি‡ত এ‡দ‡শ ইসলা‡মর জন্য বিরাট বিষ‡ফাঁড়া হ‡য় আ‡ছ।'' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৬৫)
 
মাওলানা মওদুদী'র জামায়াত সম্প‡র্ক দেশ ব‡রণ্য আ‡লম শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হক মমতeÉ ক‡র‡ছন, ""স্বার্থা‡ন্ধর প‡ক্ষ সব কিছু করাই সম্ভব। শুধুমাÎ দুwনয়ার ক্ষমতা কুwÿগত করার  হীন মান‡স তারা ইসলা‡মর মূল ভিত্তি‡ক কুঠারাঘাত ক‡র নড়ব‡ড় ক‡র দি‡য়‡ছ দ্বী‡নর সৌধ‡ক। পরিতাপ এই জন্য যে, এ‡ক্ষ‡Î ব্যবহার ক‡র‡ছ তারা ইসলাম‡কই। নিঃস‡ন্দ‡হ তারা সীমালঙ্ঘনকারী, তারা বাতিল। শুধ‡র নেবার যোগ্যতা তারা হারি‡য় ফে‡ল‡ছ। মিথ্যার বেসাতী কর‡ত গি‡য় তারা সম্পূর্ণই অস‡ত্যর উপর অবসহvন নি‡য়‡ছ। বাতি‡লর উপর জঘন্য দৃঢ়তা। মাওলানা মওদু`£ এবং তাহার পদ‡লহীরা দলিল প্রমাণ, সমা‡লাচনা, অনু‡রাধ কোনটিরও মূল্য দেয় না'' (শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হক; বোখারী শরীফ, পরিশিষ্ট, পৃôvx২৪২)
 
‡দ‡শর বিশিষ্ট আ‡লম ও ইসলামী চিমতvবিদ মাওলানা ফজলুল হক আমিনী ব‡ল‡ছন যে, "য মওদুবাদর উপর ভিত্তি কর জামাqvতর রাজনীতি প্রতিষ্ঠিত সেই মওদু আকিদাক আমাদর বুযুর্গানদীন অলি আল্লাহ&র ভ্রামত মতবাদ বল মত প্রকাশ কছন। ইসলাম যেহতু পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবসহv তাই তাত রাজনৈতিক অবকাশ আছ। কিমও এ ক্ষে‡Î জামাতর ব্যাখ্যা ইসলাম সম্মত নয়। জামাতর রাজনীতি অনুয়ী দীন হ‡”Q রাজনীতির আওতাধীন। এটা ঠিক নয়। প্রকৃZক্ষ রাজনীতিই দীনর আওতাধীন, ইসলামী রাজনীতির সঠিক নাম খেলাফত-অর্থাৎ একামত দীনর জন্য এমন নেতৃ সৃষ্টি করা যা বিশ্বনবীর প্রতিনিধি হিব কাজ করব।
 
তিনি ব‡ল‡ছন, "ইসলামর নাম সমএাস করা মোটও জায়য নয়। এতে ইসলামর ভূj ব্যাখ্যা হয়। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষর আµণর সময় "মরল শহীদ বাঁচল গাজী' এধরণর শ্লেvগান জামাত রাজনীতিত রছ বল অভিযাগ শোনা যায়। এখন প্রশণ হ‡”Q সেই মৃZ¤Éদ± ইসলামর জন্য কি, নাকি রাজনীতির জন্য? (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-৬৬-৬৭).
 
‡দ‡শর অপর বিশিষ্ট আ‡লম জমিয়াতুল মোদার‡রসি‡নর সা‡বক সভাপতি মাওলানা আবদুল্লাহ্ বিন সাঈদ জালালাবাদী ব‡ল‡ছন, ""মওদু`£র এসব ধ্যান-ধারণার ফসল জামা‡ত ইসলামীর রাজনীতি পর্যা‡লাচনা কর‡লও দেখা যায় রাজনৈতিক স্বাথ©সিদ্ধির জন্য তারা ইসলা‡মর সুবিধাবাদী ব্যাখ্যা দি‡য় এ‡স‡ছ। এক সম‡য় তারা বলত বর্তমান সি‡স্ট‡ম ভোট প্রার্থী হওয়া জা‡য়য নয়, বিচার ব্যবসহার প্রচলিত কাঠা‡মাও অনৈসলামিক। পরবর্তী‡ত এসব প্র¢µয়া‡তই তারা একীভূত হ‡য়‡ছ, এস‡বর সমর্থb ক‡র‡ছ। নারী নেতৃ‡ত্বর বি‡রাধীতা ক‡র প‡র ফা‡তমা জিন্নাহর প‡ক্ষ সারা পাকিসতv‡ন ক্যানভাস ক‡র‡ছ, জিন্নাহর ছবি নো‡ট ছাপা‡না‡ত আপত্তি ক‡র প‡র নির্বাচনী প্রচা‡রর সময় ভাউচা‡র জিন্নাহর ছবিই ব্যবহার ক‡র‡ছ।.........। ১৯৪৮ স‡নর দি‡ক কাশ্মীর যু‡দ্ধর সময় উপজাতীয়‡দর প‡ক্ষ যখন মুসলামনরা যুদ্ধ করছিল তখন অল-ইন্ডিয়া ‡রডিও থে‡ক মওদুদীর ফ‡তায়া প্রচারিত হয়- যারা কাশ্মীর যু‡দ্ধ মারা যা‡ব তারা কুকু‡রর মৃZ¤¨বরণ কর‡ব। এ সম্প‡র্ক মওদুদীর ব্যাখ্যা ছিল, পাকিসতান যুদ্ধ ‡Nvlbvi Av‡M †mLv‡b gymjgvbiv hy×K‡i বেআইনি কাজ কর‡ছ, তাই তা‡দর মৃতু¨ কুকু‡রর মৃতু¨ হ‡ব। ...........। উপমহা‡দ‡শ প্রায় পৌ‡ন দু'শ কিতাব গ্রমিহZ র‡য়‡ছ জামা‡তর আদর্শিক ভিত্তি মওদু`£বা‡দর বিরত‡দ্ধ। উপমহা‡দ‡শর সমসত আ‡লম উলামা‡দর ম‡ত-আকিদা, ইবাদত, আখলাক, মোয়া‡মলাত, মোয়া‡শরাত ইসলা‡মর এই পাঁচটি মৌলিক বিষ‡য়র ম‡ধ্য আকিদা এবং ইবাদত বিষ‡য় মওদু`£র ব্যাখ্যা ইসলা‡মর স‡ঙ্গ সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়।'' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃK প্রকাশিত, পৃô¡x ৬৮-৬৯)
 
চট্রগ্রাম দারতল উলুম মঈনুj ইসলাম, হাটহাজারী মাদ্রাসার এক ফ‡তায়া‡Z উ‡ল্লখ করা হয়, ""সুZরাং (মওদুদী ও তার অনুসারী) এই দ‡লর স‡ঙ্গ চল-মিল, উঠা-বসা সর্বপ্রকার সংশ্রব মুসলমান‡দর জন্য কিছু‡তই জা‡য়য হ‡ব না।.......। এই জামাqv‡তর সদস্য হওয়াও জা‡য়য নয়।'' ৫ যিলকদ ১৩৮৬ হিজরী এই ফ‡তায়ার সমর্থ‡ন ১৭ জন বিশিষ্ট আ‡লম ও ইসলামী চিমতvবিদ স্বাক্ষর ক‡রন, তাঁ‡দর অন্যতম হ‡লন বতর্মান হেফাজ‡তi ইসলাম এর আমীর হযরত মাওলানা আহমদ শফী। (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃষ্ঠাঃ ১০৯-১১০)
 
মাওলানা শামছুল হক ফরিদপুরী, যিনি জামাqv‡তর রাজনীতির স‡ঙ্গ প্রায় ১৮(আঠা‡রা) বছর সম্পৃ³ ছি‡লন, তিনি তাঁর "ভুল সং‡শাধন' নামক গ্র‡মহ মাওলানা মওদুদী তাঁর মতবাদ প্রচা‡রর ‡ক্ষÎ প্রসতুত করার জন্য আম্বিয়া‡য় কিরাম আলাইহিমুসসালাম, রাসূj করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লা‡মর মহান সাহাবা‡য় কিরাম রাজিয়াল্লাহু আনহুম এবং তা‡দর সু‡যাগ্য পরম নিষ্ঠাবান, সত্যসাধক, অনুসারী- তা‡বয়ীন, তা‡বতা‡বয়ীন, আইম্মা‡য় মুজতাহিদীন ও বুযুর্গা‡নদীন প্রভৃতি, উম্ম‡তর পরম হিতৈষী শ্রদ্ধাভাজন ব্যত্তিুব‡র্গর সম্প‡র্ক যে সব মমতeÉ ক‡র‡ছন তার ক‡ঠার সমা‡লাচনা ক‡র মমতeÉ ক‡র‡ছন যে, "যাবত পর্যমত জামাqv‡ত ইসলামী জামাqv‡তর মুলনীতি‡ত এই ঘোষণা দিয়া না দি‡বন যে, "আমরা মওদু`£ সা‡হ‡বর ঐ ভুলসমূn সম্পূর্ণ বর্জন করিয়াছি' তাবত পর্যমত জামাqv‡ত ইসলামী‡ত যোগদান করা, কাজ করা কোন মুসলমা‡নর জন্য জা‡য়য হই‡ব না। যাহারা সাহাবা‡য় কেরাম‡দর দোষ চর্চায় লিপ্ত তাহারা যে ‡কহই হোননা কেন, তাহাদিগ‡ক ইমাম বানাইয়া পিছ‡ন নামাজ পড়া কিছু‡তই জা‡য়য হই‡ব না।' (সূÎx ভুল সং‡শাধনঃ হযরত মাওলানা শামছুল হক ফরিদপুরী (রঃ), পৃô¡-১২৪)
 
শায়খুল হাদীস আল্লামা মুফতী রশিদ আহমদ সা‡হব-এর অভিমত হ‡লাঃ (১) জামায়া‡ত ইসলামী আহ‡ল সুbœ¡ত থে‡ক বহির্ভূত এবং স্বীয় বিশ্বাস আকা‡য়‡দর কার‡ণ সাধারণ মুসলমান‡দর থে‡ক আলাদা একটি দল; (২) তা‡দর স‡ঙ্গ কো‡না প্রকার সহ‡যাগিতা বৈধ নয়; (৩) তা‡দর স‡ঙ্গ আত্মীয়তার সম্পর্ক করা বৈধ নয় যদিও বি‡য় বিশুদ্ধ হ‡য় যা‡ব; (৪) এরদপ ব্যত্তিু‡ক ইমাম বানা‡না জা‡য়য নয়; যদি কো‡না মসজি‡দ এই আকিদার ইমাম হয় তাহ‡ল প্রভাবশালী ব্যত্তিু‡দর ওপর ফরজ হ‡লা তা‡দর‡ক wew”Qbœ Kivi †Póv Kiv| hw` gmwR‡`i e¨e¯’vcKiv Bgvg ব্যবসহাপকরা ইমাম পরিবর্ত‡ন প্রসতুZ না হন, তাহ‡ল মহল্লাবাসী‡দর কর্তব্য এরদপ ব্যবসহাপক‡দর অপসারণ ক‡র অন্য বিশুদ্ধ আকিদাপমীহ ব্যবসহvপক নির্বাচন করা। (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃK প্রকাশিত, পৃô¡x ১৮৭)
 
সি‡লট গাছবাড়ী, জা‡মউল উলুম মাদ্রাসা-ই আলিয়ার সদরত মুদা‡র্রছীন জনাব মাওলানা শফীকুj হক সা‡হব জামায়াত সম্প‡র্ক অভিমত ব্যত্তু ক‡র‡ছন যে, ""আমি মুসলিম সমা‡জর অবগতির উ‡দ্দশ্য বলছি যে, আমি জামা‡ত ইসলামীর আমীর মাওলানা মওদু`£ সা‡হব ও তার জামা‡তর অন্যান্য কর্মকর্তাগণ কৃত প্রায় সকল গ্রমহ ও পুসতK গভীর মন‡যাগ সহকা‡র অধ্যয়ন ক‡রছি। ওই সকল গ্রমহ ও পুসতK পুসিতK¡ দ্ব্যর্থ বোধক রঙ্গীন বণর্নাসমূহ দ্বারা সু‡শাভিত কিমও তা‡ত আধ্যাতিকতা আ‡দ± নাই। বাহ্যিক দৃষ্টি‡ত ঐগুলি জ্ঞান বিদ্যায় পরিপূর্ণ ব‡ল ম‡ন হ‡লও প্রকৃZ প্রসতা‡ব উহা অজ্ঞতা ও মূর্খতার এ'‡তকাদ নষ্ট করার অতি উত্তম হাতিয়ার স্বরদপ। আমী‡র আলা কৃত ""তাফহীমুল কুরআন'' অ‡নক আয়া‡ত ব্যাখ্যার ক্ষে‡Î "তাহরীফুj কুiআন' বৈ আর কিছুই নয়। এই জামা‡তর ক‡তক কর্মী‡দর প্রকা‡শ্য আ‡লম আকা‡র দেখা যায় এবং তা‡দর কতিপয় কথাবার্তাও গঠনমূjক ব‡ল ম‡ন হয় কিমও তা‡দর কতিপয় আকা‡য়দ মো'তা‡জলা ও খা‡রজী সম্প্রদা‡য়র আকা‡য়‡দর চে‡য়ও নিকৃó । যার সঠিক ও বিশদ বিবরণ দেশব‡রণ্য বিজ্ঞ ওলামা‡য় কিরা‡মর লিখিত বহু কিতা‡ব বিদ্যমান রহিয়া‡ছ। এই জামা‡তর কর্মKর্তা‡দর অমত‡র সরকার পরিবর্তন ও গদী দখ‡লর অভিলাষ বিদ্যমান র‡য়‡ছ, যা জ্ঞানসম্পন্ন ব্যত্তিুব‡র্গর নিকট অবিদিত নয়। অতএব এই জামাত‡ক নবী‡য় করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লা‡মর নিমণ বণির্ত হাদী‡সর নমুb¡ বল‡ল অত্যুত্তিু হ‡ব না।
         অর্থঃ ""শেষ জামানায় এমন এক ক্ষীণ জ্ঞান সম্পন্ন যুবক সম্প্রদায় আবির্ভূত হই‡ব যাহারা (স্বীয় উ‡দ্দশ্য সাধ‡নর নিমিত্ত) আল্লাহ্ তা'য়ালা ও তদীয় রাসূj সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লা‡মর কতিপয় বাণী প্রচার ক‡র বেড়া‡ব ধ‡র্মর সহিত তা‡দর সম্পর্ক অতি নগণ্যই থাক‡ব।'' (সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃôvx ১১৬-১১৭)|
 
দে‡শর অপর বিশিষ্ট আ‡লম হযরত মাওলানা হা‡ফজ ‡মাহাম্মদ কামাল উদ্দীন সা‡হ‡বর অভিমত- ""আজ মাওলানা মওদুদী সা‡হ‡বর রচনাবলী দেখি‡ল দিবা‡লা‡কর ন্যায় পরিস্কার ধারনা জ‡ন্ম যে মাওলানা মওদুদী সা‡হব নি‡জর রায় ও খা‡য়স অনুসা‡র পবিÎ কুiআন মজিদ ও হাদিস শরী‡ফর ব্যাখ্যা ক‡রন। আম্বিয়া‡য় কিরাম ও আউলিয়া‡য় কিরাম সম্প‡র্ক অত্যমত বেয়াদবিপূর্ণ শব্দ ব্যবহার ক‡রন এবং আহ‡ল সুন্নাত আল জামা‡তর সমসত বিশিষ্টি ওলামা‡য় হা°vbxi Bকা‡য়দ, পথ মত ও আম‡লর বি‡রাধীতা ক‡রন। দ্বীন, ঈমান ও ইছলা‡মর হেফাজ‡তর জন্য তামাম মুসলমান‡দর খেদম‡ত আমার AviR Avcbvw`M‡K Ges Avcbv‡`i cyÎ-mšÍvbw`M‡K gI`y`x †drbv nB‡Z `~‡i ivLyb| G ch©šÍ gI`y`x Rvgv‡Zi weiæ‡× hZ d‡Zvqv cÖKvk Kiv nBqv‡Q আমি উহার সা‡থ সম্পূর্ণ একমত। বি‡শষ করিয়া সম্প্রতি ছারছীনা হই‡ত যে ফ‡তায়া প্রকাশ করা হইয়া‡ছ আমি উহার সমর্থ‡ন দসতখত করিয়াছি। ‡খাদা এই বা‡তল ভ্রামত জামা‡তর ফেৎনা হই‡ত দ্বীন ইসলাম‡ক রক্ষা করতন। আমীন। (সূÎx মওদুদী জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃষ্ঠা-১১৯)
 
এটা ঐতিহাসিকভা‡ব সত্য যে, বাংলা‡দশ সহ এই উপমহা‡দ‡শ মূলতঃ সুফিবাদ অর্থাৎ "তাসওউফ'-এর মাধ্য‡ম ইসলাম ধ‡র্মi পরিচিতি ও বিকাশ লাভ ঘ‡ট‡ছ। কিমও, মাওলানা মওদুদী তাসাওউফ বা আধ্যাত্মিকতা সম্প‡র্কও বিরদপ মমতeÉ ক‡র ব‡ল‡ছন যে;
 
""(ক) তাসাওউফ জা‡হলিয়া‡তর যোগ সাধনা। উহা ওলামা-মাশা‡য়খ, দর‡বশপর‡হযগার সক‡লর উপর হামলা ক‡র‡ছ। ফ‡ল তা‡দর ম‡ধ্য বিভিন্ন দোষ-Îæটি বিসতvর লাভ ক‡র‡ছ। (তাজদীদ ও এহইয়া‡য় দ্বীন, ১১৮ পৃ.)
(খ) বর্তমান মুজাদ্দিদ যে হ‡ব তার জন্য তাসাওউফ পমহী‡দর বা সূফী‡দর পোশাক পরি”Qদ, চাল-চলন এবং পীর মুi£দী ও তরীকত‡ক স্মরণ করি‡য় দেয় এমন সব কাজ হ‡ত মুসলমান‡দর‡ক বিরত রাখ‡ত হ‡ব- যেমন ডায়া‡বটি‡সর রোগী‡ক মিষ্টি থে‡ক দূ‡র রাখা হয়। (ঐ-১৩৪ পৃ.)
(সূÎx মওদু`£ জামাত ফেৎনার স্বরদপঃ সঙ্কলন ও সম্পাদনা আ‡নায়ার কবির; ইসলামিক ফাউ‡ন্ডশন কর্তৃক প্রকাশিত, পৃô¡-১৮০-১৮১)
 
২৬৯মাওলানা মওদুদী তাঁর রচিত "কুরআ‡নর চারটি মৌলিক পরিভাষা গ্র‡মহ' "দ্বীন'-কে ষ্টেট (state) এর সা‡থ তুলনা ক‡র‡ছন। তাঁর ম‡তঃ
 
""সম্ভবত দুনিয়ার কোন ভাষায় এত ব্যাপক শব্দ নেই, যা এর সম্পূর্ণ অর্থ জ্ঞাপন কর‡ত পা‡র। আধুwনক কা‡লর "ষ্টেট' (State) শব্দটি অ‡নকটা এর কাছাকাছি পৌ‡ছ‡ছ। (পৃষ্ঠা-১১৫, আধুwনক প্রকাশনী)
কিমও কুরআন ও হাদী‡সর আ‡লা‡ক "দ্বীন'-কে বলা হয়- ঈমান, ইসলাম ও এহছান‡ক।''
 
জামাqv‡ত ইসলামী এবং এর প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা মওদুদী সম্প‡র্ক বাংলা‡দশ সহ উপমহা‡দ‡শর বিশিষ্ট আ‡ল‡ম দ্বীন, ওলা‡ম কিরাম ও ইসলামী গ‡বষক ও চিমতvবীদ গ‡ণর উপ‡রাত্তু মূল্যায়ন সমূn বি‡বচনা কর‡ল রীট আ‡বদনকারীগ‡ণর বিজ্ঞ আইনজীবীর বত্তু‡ব্যর য‡থষ্ট সমর্থন পাওয়া যায় যে, মাওলানা মওদুদী ও তাঁর সৃষ্ট জামা‡ত ইসলামীর গঠনতমএ এবং ধ্যাণ-ধারণা ও কর্মকান্ড অ‡নক ক্ষে‡Î ইসলাম, ঈমান ও আক্বীদার পরিপমহx ।
 
এখা‡ন প্রাসঙ্গিকভা‡ব উ‡ল্লখ করা সঙ্গত হ‡ব যে, ইসলাম ধর্ম ও রাসূল (সাঃ)-এর সুন্নাতসমূহ পাল‡নর ক্ষে‡Î বাংলা‡দশ সহ এই উপমহা‡দ‡শ "দেওবন্দ', "আহ্‡ল হাদীস', "তাবলীগ জামাত', "হানাফী মযহাব' সহ বিভিন্ন মযহা‡বর নিজস্ব কিছু দৃষ্টি ভঙ্গি, রীতি নীতি এবং চর্যাপদ্ধতি বিদ্যমান। কিমও, তারা সক‡লই মাওলানা মওদু`£ ও তাঁর জামাত সম্প‡র্ক এর এক ও অভিন্ন মত প্রকাশ ক‡র‡ছন।
 
কিমও গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দশ-এর ৯০বি ও ৯০সি-এ একটি রাজনৈতিক দ‡লর নিবন্ধ‡নর জন্য যে সকল শর্তসমূn উ‡ল্লখ করা হ‡য়‡ছ সেখা‡ন এমন কোন শর্ত সুনিদির্ষ্ট ভা‡ব উ‡ল্লখ নেই যে, কোন রাজনৈতিক দল ধ‡র্মর অপ-ব্যবহার কিংবা অপ-ব্যাখ্যা কর‡ল ঐ দলটি‡ক নিবন্ধন দেয়া যা‡ব না। বর্তমান গণপ্রতিনিধিত্ব আ‡দ‡শর অনy‡”Qদ ৯০ সি-‡ত যে সকল শর্তসমহূ উ‡ল্লখ আ‡ছ, তার আ‡লা‡ক ধ‡র্মর অপ-ব্যাখ্যা কিংবা অপব্যবহার-এর কার‡ণ কোন রাজনৈতিক দ‡লর নিবন্ধন উ‡পক্ষা করার সু‡যাগ নেই। যদিওবা সংবিধা‡নর অনু‡”Qদ ১২(গ)-এ রাষ্ট্র পরিচালনার একটি উ‡ল্লখ‡যাগ্য মূলনীতি হ‡লা- "রাজনৈতিক উ‡দ্দ‡শ্য ধর্মীয় অপব্যবহার' বি‡লাপ করা-ধর্ম নির‡পক্ষতার নীতি বা¯Íe¡য়‡নর জন্য। আদালত রাষ্ট্রপরিচালনার মূলনীতি সমূহ বলবৎ কর‡ত পা‡র না। রাষ্ট্র‡কই ঐ মলূ নীতি সমূ‡হর আ‡লা‡ক কার্য সম্পন্ন কর‡ত হয় এবং হ‡ব। সে কার‡ন বিদ্যমান আই‡নর দূর্বjতা দূর করার দায়িত্ব রা‡ষ্ট্রর তথা আইন সভা- ‘জাতীয় সংসদ’-এর।
(বিচারপতি এম. ইনায়তুi রহিম)
 

Quazi Reza-Ul Hoque, J.
 
I have had the advantage of reading in draft the judgment proposed to be delivered by my learned brother Mr. M. Moazzam Husain, J. I regret, I could not find myself in agreement with him and with great respect to his lordships view, I would like to pass my own opinion as hereunder.
 
The facts necessary for disposal of the Rule, as has been stated by the petitioners, in brief, is that the Election Commission (hereinafter referred to as the EC) with a view to hold General Election for constitution of the 9th Parliament and also to bring the political parties of Bangladesh within certain frame-work amended some provisions of the Representation of the Peoples Order, 1972 (hereinafter referred to as the RPO) and required the political parties to be registered prior to contesting the General Election complying the provisions of the RPO and in a follow through the political parties submitted applications along with their constitutions. A section of people desirous of being registered as a political party under the name and style Bangladesh Jamate Islami submitted its application with its constitution, which was not found compliant to the mandatory requirement yet the EC accorded it with registration under the name and style Bangladesh Jamate Islami (hereinafter referred to as the BJI).
 
The petitioners have therefore decided to challenge the EC, because they want to ensure that all the constitutional functionaries and office bearers of the Republic, including the EC, without fail, observe the rule of law and the Constitution and seek to hold them accountable, so that the constitutional office bearers of the Republic are not persuaded or influenced by any external exigency or political expediency or any other superfluous interests. Because the petitioner demand the observance of the rule of law and adherence to the constitutional norms from the constitutional functionaries of the Republic. Firstly, because the impugned registration (having the force of law) of BJI as a political party and its objectives as laid down in its party constitution are ex-facie violation of the basic structure of the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh (hereinafter referred to as the Constitution) and therefore automatically void ab initio by operation of Article 7 (2) and 26 (2) of the Constitution. Such impugned registration therefore cannot be deemed to be a legal instrument having the force of law. Secondly, because the impugned registration of the party constitution of BJI, and the objects as laid down therein, renders it not competent, eligible or qualified to get itself registered and enjoy the status of a legitimate political party as per Article 90B(1)(b)(ii) and Article 90(C)(1) of RPO. Therefore, the registration of BJI as a political party by the Election Commission on 4.11.2008, bearing a party registration No. 014 is void ab initio, being ultra vires to the relevant law and the Constitution.
 
In furtherance of that objective they are also active to prevent any one, particularly a communal association known as Bangladesh Jamate Islam (BJI), from using religion as a means of exploitation as well as using religion as a political tool and in the process misguiding the people and purporting to subvert the Constitution of the Republic. The petitioners are deeply concerned about upholding public interest and security of the people and the Republic, which has been exposed to severe danger by BJI’s activities based on its express objectives as laid down in its party constitution, which in fact purports to subvert and overthrow the Constitution of the Republic.
 
BJI on the contrary, not only opposed the birth and creation of the State of Bangladesh founded on the basis of secular and democratic principles, but it is an organization, which systematically sided and aided with the enemy, which imposed such as unjust war and genocide upon the unarmed civilian people of Bangladesh, simply because the people successfully exercised their adult franchise and gave mandate to their elected representation to form a Government; thereby exercised their right of self determination. Members belonging to BJI actually sat in the War Cabinet of the enemy, soiled their hands in the blood of the innocent unarmed civilians, committed genocide, war crimes, crimes against humanity, murder ethnic cleansing and mass rape, arson, identified and eliminated the intellectuals and professionals who were capable of giving leadership fledgling nation and capable of creating ‘the human infrastructure’ of a nation at every sphere of life and perpetuated other gruesome acts, atrocities and unleashed a systematic reign of terror, through the training of Al-Shams, Al-Badr, Rajakars, Peace Committee and other auxiliary forces and guided the occupational Pakistani Army and its auxiliary forces to commit holocaust in the name of Islam.
 
The Election Commission before registering BJI as a political party, caused a public notice to be published in the Daily Inquilab, inviting to hear anyone who may have objection as to its registration as a political party. Similar public notices were also published by the EC before the registration of other political parties. Some of the petitioners pursuant to the said notice put their written objections to the EC that they want to formally express their objections. Accordingly the Election Commission held a public enquiry as to why BJI ought not to be registered as a political party and some of the petitioners, individually and collectively and through their respective organizations appeared before the EC and made representations, some with written documents with cogent grounds as to why BJI is ineligible for registration as a political party legally, morally and ethically. They publicly opposed the registration of such an association known as Bangladesh Jamate Islam since it was involved in the atrocities committed in 1971, and which overtly and expressly opposed the birth of Bangladesh. These petitioners are of the view that any registration granted by the Election Commission to BJI as a political party would tantamount to giving this association a ‘certificate’ and a kind of legitimacy by the Republic, under the laws of the Republic, when this association does not even recognize the Republic and its Constitution, nor accept the premise upon which this Republic was born, and even today pose a threat and openly challenges the sovereign Constitution of the People’s Republic of Bangladesh, which proclaims that sovereignty belong to the people under the Article 7 of the Constitution. Article 7 has been declared in the landmark Eighth Amendment Judgment as “immutable” like the ‘pole star’ of the Constitution, which can never be changed, encroached or compromised in any manner, howsoever.
 
Some of the petitioners were invited by the EC and they made submission as to why BJI ought not to be registered as a political party. Some of them even gave written submission also, chronicling the series of war crimes, crimes against humanity, murder, rape, arson etc. and its continuous activities to date to inflict injury and provocations both by words and deeds to the spirit of the War of Liberation of 1971 and insults targeted freedom fighters many of whom are still living and purport damage, undermine and tarnish the image, and the sacred memory of the Martys of 1971 and those who were freedom fighters and millions of patriotic citizens of Bangladesh. Their such written petitions also contained inter alia that:
 
জামাতের সংশোধিত গঠনতন্ত্র তাদের মজলিশে শুরায় অনুমোদন হয়নি বিধায় নিবন্ধন করার এখতিয়ার নির্বাচন কমিশনের নেই।
জামাতের নেতা গোলাম আজম, মতিউর রহমান নিজামী, আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদ, মোহাম্মদ কামরুজ্জামানসহ গুরুত্বপূর্ণ কতিপয় নেতা ১৯৭১ সালের পাকিস্তানীদের আনুগত্য স্বীকার করে পাকবাহিনীর অীঁরষরধৎু ঋড়ৎপব রাজাকার ও আলবদর বাহিনীর সদস্য হিসাবে ৯ ধরনের যুদ্ধাপরাধ, মানবতাবিরোধী অপরাধ ও গণহত্যাকান্ডে সম্পৃক্ত ছিলেন এবং তৎকালীন সময়ে বিভিন্ন স্থানে সভা-সমাবেশ উস্কানিমূলক বক্তব্য রেখেছেন এবং বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদেরকে পাকিসত্মানের শত্রম্ন হিসেবে আখ্যায়িত করেছিলেন। দলীয় নেতা কিংবা সদস্য হিসেবে তাদের উপস্থিতিতে জামাতে ইসলামী স্বাধীন সার্বভৌল বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধন পেতে পারে না।
 
Alas! EC did not pay any heed to the petitioners or the relevant law nor the Constitution and in disregard and gross violation of all the above, registered BJI a political party (annexure- F and E-1 series). The petitioners are therefore, genuinely aggrieved and the petitioner’s concern are legitimate and bona fide.
 
The respondent No. 1 by submitting an application prayed for discharging the Rule, wherein it stated that since the General Election was very close, the EC decided to register the political parties with provisional constitutions and allowed them to contest the ensuing elections for the sake of returning to the representative governance, which is one of the basic structures of the Constitution, and with a view to upholding the principles of constitutionalism, democracy and rule of law in the country. The EC, keeping in mind the necessity of the time, the spirit of democracy and articles of faith vis-à-vis the constitutionalism, went for liberal interpretation of the constitutions of almost all the political parties: secular, nationalist and Islamic and allowed them to contest the then ensuing parliamentary elections. A proviso was appended to Article 90D of the RPO vide the Representation of the People (Second Amendment) Ordinance, 2008 to empower the EC to register political parties provisionally. The proviso runs as follows:
 
“Provided that the Commission may allow any political party to apply for registration which has a provisional constitution containing provisions as specified under sub-clause (b)(i), (b)(ii), b(iii) and b(iv) of clause (1) of Article 90B as well as complying with the provisions under Article 90C along with a resolution of the highest policy making body of the party, by whatever name it may be called to the effect that the party shall submit ratified constitution within six months from the date of first sitting of the ninth parliament.”
 
The amendments brought to the RPO by the Ordinances during the tenure of the last caretaker Government/ emergency period were ratified by Parliament vide the Representation of the People Order (Amendment) Act, 2009.
 
The petitioner annexed to the writ petition a copy of the constitution of BJI (October, 2008 edition, reprinted in November, 2008), which was submitted to the EC as a provisional constitution of the party as per mandate of the said provision of the RPO. The said provisional constitution contains an appendix at its page No. 64 which states, amongst the other things that the party amended its constitution (13th amendment) complying with the new provisions of the RPO. The petitioner annexed a copy of the constitution that has experienced significant amendments throughout the period till 2nd December, 2012. Although the impugned constitution is in no way ultra vires to the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh, the BJI has brought several amendments to the same at the directions of the EC, as it is always willing to assist the democratic and constitutional intuitions of the country. BJI submitted copies of the amended constitutions to the EC on 22nd July, 2009, 1st  August, 2010 and finally on 2nd December, 2012.
 
The BJI’s legal team is in full co-operation with the EC, making rigorous efforts to assist the later and to keep the constitution of the BJI fully compliant with the provisions of the RPO. There have been regular talks, correspondences and meetings between the two in furtherance of achieving the goal of the EC and the scheme of the RPO. The EC received the latest constitution of the BJI in December, 2012, and 4(four) months have elapsed since then and the EC has not taken any final decision with regard to the amendments brought to the BJI constitution during the period between 04.11.2008 and 02.12.2012. The entire matter is in the seisin of the EC. The EC being a constitutional body must not be obstructed by the petitioners in discharging their functions independently. And the Rule dated 27.01.2009 cannot be disposed of at this stage, as doing so would be an act of overriding the discretionary powers of a constitutional/ statutory body of the Republic.
 
The petitioner impugned the registration dated 4th November, 2008 of the BJI as a political party that was done on the basis of the provisional constitution that has undergone several significant amendments in course of time. The impugned provisions of the impugned constitution have been amended further. No question of examining the validity of the registration of the BJI at this stage arises at all; examination of the legality of the registration would be a futile exercise and an impediment in the way of exercising discretionary powers by the EC under the said statute i.e. the RPO, 1972 (President’s Order No. 155 of 1972).
 
The respondent Nos. 1 and 2 by submitting affidavit-in-opposition contested the Rule. They at the very beginning reiterated to their previous stand on maintainability and stated that the present writ petition is not maintainable in the facts and circumstances of the case. The registration by the EC to BJI is not a final decision. It is a provisional/ interim decision which is subject to change/ alteration by the EC when the final decision for regist-ration is made before the next Parliamentary Elections. It is open to the EC not to grant a final registration, if the BJI does not comply with requirements of the RPO. The registration of the BJI as a political party is an on going process. Members of BJI are in correspo-ndence with and meet regularly with the EC for the purpose of obtaining final registration. Unless, there is a final registration, the present writ petition is not maintainable. A writ petition is not maintainable against an interim or provisional decision.
 
The petitioners have made misrepres-entations of Islam, Islamic history and Islamic jurisprudence for the purpose of advancement of their argument that Islam is `inherently secular’. Such allegations are wholly irrelevant for the purposes of this writ petition. The interpretations of Islam made by the petitioners have no nexus with the legality of the registration of BJI as a political party. Moreover, the present writ petition has been filed as a result of the private vendetta of the petitioners against the BJI. The aforementioned petitioners attempted on various occasions to prevent registration being granted to the BJI. Having failed to lawfully prevent registration of the BJI as a political party, they have filed the present mala fide writ petition.
 
Further the present writ petition has been filed on the basis of the un amended constitution of BJI published in November, 2008. The current BJI constitution was amended 4 (four) times thereafter. The current constitution of BJI was published in January, 2011. According to Article 90C (1) (a) of the RPO only the objectives of BJI constitution are required to be consistent with the Constitution of Bangladesh.
 
Under Article 90C(1)(b) of the RPO any alleged discrimination in relation to religion, race, caste, language or sex in the constitution of a political party is required to be `apparent’, however, in the facts and circumstances of the case, there is no discrimination apparent or otherwise. The petitioners by their attempts at interpretation of Islam, have incorporated western concepts and ideals. As such they have undermined Islam, Their interpretation of Islam have been much criticised in recent times as an orientalist interpretation.
 
Democracy is a basic feature of the Constitution, as such, the Constitution of Bangladesh permits the BJI to stand for elections as a political party. The citizens of Bangladesh are the ultimate arbiters as to whether BJI shall form a Government. Interference by the Court in cancelling registration of a political party will tantamount to tampering with democracy, which is a basic feature of the Bangladesh Constitution.
 
Moreover, the BJI has been established and is run by its members in accordance with the fundamental right of freedom of expression as enshrined in Article 39 of the Constitution; as such this writ petition has been filed to deprive the members of the BJI from exercising their fundamental rights.
 
BJI was formed and is run by its members is exercise of the fundamental right to practice and propagate one’s religion as enshrined under Article 41 of the Constitution. Hence, the present writ petition has been filed for the unlawful purpose of preventing the respondent Nos. 1 to 3 from exercising their fundamental rights.
 
The objectives of BJI as enumerated in clause 3 of its constitution are not contrary to the Constitution of Bangladesh. The objectives of BJI as laid down in clause 3 are as follows:
 
Establishment of world peace;
Welfare of Mankind;
Pleasure of God; and
Success in the afterlife.
 
None of the above objectives are contrary to the provisions of the Constitution of Bangladesh.
 
BJI by incorporating clause 69 into its constitution included a provision for reserving 33% of all committee positions for women in the Central Committee by the year 2020, which is in compliance to Article 90B(1)(b)(ii) of the RPO. Further, as stated above, the objectives of the BJI constitution are not contrary to the Constitution of Bangladesh.
 
The BJI is not a communal organization. Clause 11 of the constitution of BJI permits non-muslims to join the BJI. It does not use religion as a political tool or means of exploitation; it has never misguided or attempted to misguide people. The party constitution of the BJI is consistent with the Constitution of Bangladesh. The allegations of subversion and destabilization are politically motivated allegations without any factual basis.
 
The petitioners have misconstrued the Charter of Medina. The Charter of Medina does not provide any sanction for secularism. The concept of sovereignty has been misconstrued by misinterpreting the Charter of Medina. Although the Charter of Medina recognized that political sovereignty lies with the people, in fact legal sovereignty lies with God. As such the Charter of Medina was neither republican, nor secular as alleged. The Charter of medina was not born out of nationalism. It was an agreement between Mohajeruns (Emigrants mainly from Mecca), Ansars (Helpers of Medina), Jewish, and Christian tribes in order to ensure a peaceful co-existence.
 
With regard to the allegations of involvement of the BJI in the Liberation War of 1971, as made in the writ petition, it is categorically stated that neither the BJI, nor its members committed war crimes, crimes against humanity or violated the human rights of any person. BJI has consistently upheld the human rights of citizens of this country. The statements made in relation to BJIs involvement in the Liberation War are motivated, concocted and irrelevant for the purpose of disposal of this writ petition.
 
BJI recognizes the political sovereignty of the people, which is consistent with Article 7 of the Constitution. Moreover, the objectives of the BJI constitution are not inconsistent with the Constitution of Bangladesh as stated in the writ petition, as such, the EC lawfully registered the BJI as a political party under the RPO.
 
BJI secured sufficient number of votes in the 9th Parliamentary Elections in order to be registered as a political party. Article 90B(1)(ii) of the RPO states that a party shall be eligible for registration in the event that it:
 
“Secured five percent of total votes cast in constituencies in which its candidates took part in any of the aforesaid parliamentary elections’’
 
BJI participated in elections from 35 (thirty-five) constituencies and obtained a total of 32,88,782 votes, as such the percentage of votes secured in the constituencies in which BJI participated is quite significant.
 
Moreover, the BJI also qualifies for registration in accordance with Articles 90B (1)(i) and (ii) of the RPO. BJI won 18, 3, 17 and 2 seats in the last 4 (four) Parliamentary Elections with its present election symbol- “weighing scales’’. BJI has a central office with a central committee and has more than the requisite number of district offices and voters as required in Article 90B (1) (iii) of the RPO.
 
The constitution of the BJI complies with the requirements of Article 90B and 90C of the RPO. BJI is neither a bank, financial institution, trade/business organization, NGO, charity, nor did BJI ever sought registration as any of the aforesaid institutions. Further, the BJI has not sponsored any bank, financial institution or other trade organizations as alleged. Holding of shares by members of a political party in business entities is not a bar for registration. The Election Commission upon consideration of the true functions and objectives of the BJI provisionally registered it as a political party. The allegations made by the petitioner Nos. 12 and 19 in the letter issued to the EC are without any legal basis.
 
The constitution of the BJI is consistent with the notion of sovereignty in Article 7(1) of the Constitution of Bangladesh. The concept of sovereignty in Article 7(1) refers to ‘political sovereignty’ as opposed to ‘legal sovereignty’. The doctrine of political sovereignty states that the people are holders of power and are sovereign. This doctrine of political sovereignty has been encapsulated in Article 7(1) of the Constitution. The BJI recognizes the political sovereignty of the people. The constitution of BJI merely states in Clause 3 that legal sovereignty lies with God. Legal sovereignty of God is recognition of an All-Powerful, All-Knowing God and the ultimate authority of God to do justice. This is not inconsistent with the political sovereignty of the people. The Constitution of Bangladesh does not refer to ‘legal sovereignty’. Legal sovereignty is an evolving concept. Different interpretations of legal sovereignty have appeared over time. Political sovereignty, on the other hand is a recognized concept as enshrined it Article 7 of the Constitution.
 
Further the petitioners have relied upon an obsolete text of the BJI Constitution. They have relied on the edition issued in November, 2008. The current text of clause 2 (5) of the BJI Constitution states God has no equal. There is no conflict with the above clause with the concept of political sovereignty and Article 7 (1) of the Constitution.
 
The contention that Clause 2(2) of the BJI constitution denies the legitimacy of the judiciary is misconceived and false. Clause 2(2) merely states that all consequences, good or bad flow from God. This is a strict reflection of the verses relating to the oneness of God. The State enforces the personal law of its citizens, which is of divine source.
 
Clause 4(3) the BJI constitution states that it shall act constitutionally and within the legal and democratic framework in order to achieve its desired changes and reform in the society. The allegations of `brainwashing’ is frivolous made without any factual basis. Clauses 5(1) and 5(2) of the BJI constitution only provide for the propagation of Islam. This right is guaranteed under Article 41 of the Constitution. The BJI constitution has neither explicitly, nor implicitly provided for slavery to the party as alleged. This is a frivolous allegation arising out religious prejudice.
 
With reference to Verse 56 of Surah 25 cited by the petitioner it is stated that the BJI constitution does not recognize the propagation of religion through coercive means. The BJI constitution in clauses 4(2) and 4(3) clearly states that no action shall be taken by BJI unless the same is constitutional and within the legal and democratic framework.
 
The clauses 6(1), 6(2) and 6(3) of the BJI constitution are consistent with fundamental right to propagate ones religion as enshrined in Article 41 of the Constitution. Further, with regard to the allegations made that clause 6(4) of the BJI constitution provides for the subversion of State machinery, it is stated that the said clause expressly provided that the Government shall be changed within the legal frame-work. BJI’s sole reliance on legal and democratic means has also been provided in clauses 4(2) and 4(3) of the BJI constitution. BJI fully endorses fundamental rights enshrined in Part III of the Constitution.
 
Further the BJI constitution is also consistent with Parts V and VI of the Bangladesh Constitution. No violations of the Penal Code or the Special Powers Act, 1974 have been committed by any member of BJI.
 
Under clause 11 of the BJI constitution non muslims are also eligible to become members of BJI. There is also no bar to a non muslim being appointed as the head of the party. The Central Majlish-e-Shura comprises of male and female members. Currently, it has 25% female members. By the year 2020 this shall increase to 33% in accordance with clause 69 of the BJI constitution. There is no discrimination on the ground of sex. Women regularly attend and vote in all meetings of the central Majlish-e-Shura and are an integral part of the decision-making programmes of BJI. There is also no bar to a woman being elected as the head of the party. The Central Women’s Department is a separate organ of the BJI, which looks into women’s affairs. This organ provides further representation to women over and above the presence of 25% women in the Central Majlish-e-Shura.
 
BJI does not subscribe to radical Islam or support militancy. It does not support communal politics as stated in clause 3(3) of the BJI constitution. BJI pursues a peaceful and democratic process as stated in clauses 4(2), 4(3) and 6(4) of its constitution. Further, there is no reference in the BJI constitution to Maulana Maududi or his ideologies. The BJI constitution has been framed in consistency with the Bangladesh Constitution. BJI does has never and does not issue any fatwas.
 
The respondent No. 4, by submitting an affidavit-in-opposition stated the Election Commission for Bangladesh (EC) is establi-shed under Article 118 of the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh empow-ered with the powers and functions enumerated in Article 119 of the Constitution. The Representation of the People Order, 1972 (P.O. No. 155 of 1972) was promulgated on 26th December, 1972 providing for conduct of elections to Parliament and for matters connected therewith and incidental thereto; and the same was amended from time to time by the Acts of Parliament and Ordinances promulgated by the President.
 
The Representation of the People (Amendment) Ordinance, 2008 (2008 m‡bi 42 bs Aa¨v‡`k), was promulgated on 19.08.2008 during the then Caretaker Government in 2008 bringing various amendments to the Representation of the People Order, 1972; and by section 26 of the said amending Ordinance, a new chapter namely, Chapter VIA was inserted in the said Order which provided, inter alia, for the registration of political parties in Bangladesh requiring that a political party willing to participate in election under this Order shall be registered with the Election Commission subject to conditions laid down in article 90B of the Order.
 
The newly inserted Chapter VIA in the RPO, 1972 provided for the requirements, conditions, qualifications of a political party for registration as such; and the chapter further provided for the procedure of registration, entitlement of a political party upon such registration and cancellation of registration of a political party and for the purpose of the above said Chapter VI of the RPO, 1972, the Election Commission framed রাজনৈতিক দল নিবন্ধন বিধিমালা, ২০০৮, which was published in the official Gazette under S.R.O. No. dated 26.08.2008. And further amendments were brought to the RPO, by the Representation of the People (Amendment) Ordinance, 2008 (২০০৮ সনের ৪৫ নং অধ্যাদেশ) and Representation of the People (Amendment) Ordinance, 2008 (২০০৮ সনের ৫২ নং অধ্যাদেশ). Thereafter, the Parliament enacted the Representation of the People Order (Amendment) Act, 2009 (Act No. 13 of 2009) in consonance with the above-said Ordinances of 2008.
 
The respondent No. 1 applied to the EC on 20.10.2008 through their Secretary General for registration of their party with the EC under the relevant provisions of the RPO, 1972; and with the said application the respondent No. 1 submitted- (i) provisional party constitution; (ii) party’s election manifesto, 2007; (iii) decision of the executive committee of the party for registration as such; (iv) a list of names of the Executive Committee of the party; (v) treasury ‘challan’ showing payment of registration fees; (vi) list of bank accounts of the party; (vii) description of income source of the party; (viii) authorization letter; and (ix) a gazette showing a person elected as Member of Parliament under the party symbol (Annexure- 2).
 
The EC formed a committee for scrutiny of documents submitted by the political parties for registration; and the committee, after scrutinizing the above said application of the respondent No. 1, found some provisions of the BJI constitution to be in conflict with the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh including the Preamble, Articles 8, 9, 10 and 11 of the Constitution; and when the concern of the scrutiny committee was made known to the respondent No. 1, Md. Jashim Uddin Sarker, the then legal affairs secretary and member of the central working of BJI came and deleted some provisions under his land in section 5 of the their party constitution and promised the committee that they would drop those provisions from the party constitution in their next party council; and till now no amended copy of the constitution as deleted has been submitted to the Commission and thus the respondent No. 1 failed to comply with the legal requirement.
 
The Election Commission issued Notification on 23.10.2008 under rule 7(2) of the ivR‰bwZK `j wbeÜb wewagvjv, 2008, which was published in various national dailies of the country inviting objections, if any, in respect of registration of the BJI as a political party. As many as 9 (nine) organizations filed separate objections against registration of BJI as a political party with the EC. After hearing the objection on 01.11.2008 and weighing the political situation at the relevant time EC granted provisional registration in favour of the BJI as a political party of Bangladesh and a registration certificate was issued in favour of BJI accordingly (Annexure- 3).
 
The registration of a political party in not unconditional and unqualified; and such a registration may be cancelled by the EC under Article 90H of the RPO under any of the conditions enumerated therein and more so if any provision of the concerned party constitu-tion is found to offend any provisions of the Constitution of the Republic.
 
The respondent No. 4, through supplementary-affidavits-in-opposition further stated that the respondent No.1, the BJI, through their authorized person, has submitted an attested copy of the constitution of respondent No. 1 on 02.12.2012 in the Election Commission (Annexure- 4).
 
The Election Commission issued Notification on 23.10.2008 under rule 7(2) of the ivR‰bwZK `j wbeÜb wewagvjv, 2008 which was published in various national dailies of the country inviting objections, if any, in respect of registration of the BJI as a political party (Annexure- 5). As many as 9 (nine) organizations filed separate objections with the EC against registration of BJI as a political party in Bangladesh; the objectors were আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান; একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি; আইন ও সালিশ কেন্দ্র; সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম; সভাপতি, সুপ্রীম কোর্ট বার এসোসিয়েশন; বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সন্তান; বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট; এবং ওয়ার μাইমস ফ্যাক্টস ফাইন্ডিং কমিটি। (annexure- 6). Hearing of those objections took place on 01.11.2008; and in the said hearing, representatives of the objectors as well as other interested person were present (annexure- 7). In the said hearing on 01.11.2008, one participant and objector, namely, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি submitted documents in support of their objections; and another participant and objector, namely, War Crimes Facts Finding Committee submitted documents in support of their objections; and another participant and objector, namely, Avgiv gyw³‡hv×vi mš—vb, submitted written objection (annexure- 8, 9 and 10).
 
The EC formed a committee for scrutiny of documents submitted by political parties for registration; and the said scrutiny committee, after scrutinizing the application of the respondent No. 1, the EC was of the opinion that some provisions of the BJI constitution were in conflict with the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh including the Preamble, Articles 8, 9, 10 and 11 of the Constitution i.e. in conflict with Article 90(C) of the RPO; and when the concern of the scrutiny committee was made known to the respondent No. 1. Md. Jashim Uddin Sarker, the then legal affairs secretary and member of the central working of BJI came and deleted some provisions in section 5 of their party constitution by hand and promised the committee that they would drop those provisions from the part constitution in the next party council as also have been stated before. The respondent No. 1 has submitted a constitution of BJI vide their letter dated 22.07.2009, and the constitution appeared to have been published in July, 2009 (annexure- 11).
 
The said constitution of the BJI was considered by the EC in their meeting No. 270/2010; and in the said meeting EC observed, inter alia, that (i) the BJI has not ratified their constitution as promised by them earlier; (ii) the object stated in section 3 of the BJI constitution is not in conformity with the Preamble of the Constitution of the Republic; (iii) the provisions of section 5(3) and 6(4) of the BJI constitution are not in conformity with the Fundamental Principles of the State Policy of the Constitution of the Republic; (iv) the provisions of sub-section (i) –(vi) of section 7 and provisions of section 11(2) of the BJI constitution in respect of membership of non-Muslims in the party and the ‘oath’ relevant therewith, are not realistic and conflicting with the objectives of the BJI; and and (v) the provisions in section 18(4) (cha) are contrary to Article 90B(1)(b)(i) of the RPO (annexure- 12).
 
In the said meeting the EC also decided to send letter to the BJI to notify those issues of the BJI constitution as has been pointed out by the Commission; and in the follow through sent letter No. wbKm/cª-3/iv`/5 (44-/2008/35) dated 24.01.2012 to the then secretary-general of the BJI informing him about the concerns of the EC and requested him to take necessary steps to bring the constitution of the BJI in conformity with the relevant laws of the country (annexure- 13).
 
Some reports published in the newspapers on 16.02.2010, 24.02.2010 and 27.02.2010, from which it appeared to the EC that one student organization, namely, Bmjvgx QvÎwkwei, is a student wing of the BJI; and since such a direct affiliation of a political party with a student organization is in violation of the terms and conditions of the RPO, the Commission sent letter No. wbKm/cª-3/iv`/5 (44)/2008 dated 09.03.2010 asking BJI to explain their position in this regard (annexure- 14). However, the EC did not receive any reply from BJI of the above said letter. Thereafter, EC sent another letter being No. wbKm/cª-3/iv`/5 (44)/2008/112 dated 18.03.2010 again asking BJI again to explain their position in that matter (annexure- 15). BJI vide their letter dated 28.04.2010 replied to the above said letter of the EC dated 18.03.2010 denying any affiliation of the BJI with the Bmjvgx QvÎwkwei (annexure- 16).
 
The EC following its earlier letter dated 24.01.2010, sent another letter being No.  wbKm/cª-3/iv`/5 (44)/2008/151 dated 29.04.2010 to the BJI requesting them to submit amended constitution of the BJI within 10.06.2010 (annexure- 17). The language of the letter dated 28.04.2010 of the BJI, which they sent to the EC in reply to the EC’s letter dated 18.03.2010 was not acceptable to the EC, so it decided in its meeting No. 298/2010 to send a reply to the BJI (annexure- 18).
 
BJI submitted an amended constitution in July, 2010 which appeared to have been published in July, 2010 and on preliminary scrutiny it was observed that the amended constitution of July, 2010 brought some changes, which was only to section 2(5) of their constitution (annexure- 22). The scrutiny committee for scrutinizing the constitution of the political parties was reconstituted on 14.12.2011 vide EC’s letter No. নিকস/প্র-৩/রাদনি/০৪/২০০৮/৮১৪, the Joint Secretary (Law) of the Commission being the convener of the Committee (annexure- 23).
 
EC sent a letter being No. 17.00.0000. 025.50.058.08.119 dated 04.11.2010 to the BJI to bring the necessary changes in the BJI constitution as has been requested to them through its letter dated 24.01.2010 and 29.04.2010 and submit the amended constitution to the EC within 05.12.2012 (annexure- 24). In reply to the said letter of the respondent, the BJI sent a letter on 20.11.2010 to the EC and sought time from the EC till 05.02.2013, to submit the amended constitution of the BJI (annexure- 25).
 
The constitution of BJI submitted on 02.12.2012 was scrutinized by the ‘scrutiny committee’ of the EC vis-à-vis the earlier versions of the BJI, submitted in 2008, 2009 and 2010 in light of the objections that were raised by the scrutiny committee of the EC in the its letter dated 24.01.2012 and 04.11.2012; and the committee noted its observations in a note-sheet prepared after scrutiny; the content of the said note sheet is self contained and self explanatory (annexure- 27). BJI did not take any further step thereafter with regard to the said scrutiny report, since the instant Rule is still pending.
 
Ms. Tania Amir, the learned Senior Advocate appearing for the petitioners submitted that this writ petition is in the form of public interest litigation and the petitioners have the necessary locus standi to move the writ Bench of the High Court Division under Article 102 (1) and (2) read together with Article 44 of the Constitution.
 
She again submitted that the entire constitution of BJI in its essence and at its core is repugnant to the fundamental basic structure of the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh, therefore the registration of BJI as a political party is void ab initio by operation of Article 7(2) and Article 26(2) of the Constitution of the Republic. The impugned registration of BJI as a political party being a legal instrument having the force of law, based on the objectives as laid down in its party constitution is repugnant to the fundamental basic structure of the Constitution of the Republic as well as violative of the relevant law, i.e., Article 90B and 90C of the RPO.
 
The constitution of BJI is in irreconcilable conflict and is in denial of ‘sovereignty’ belonging to the people of the country, i.e. Article 7 of the Constitution. Section 2 is utterly repugnant to the Constitution of the Republic and does not recognize Article 7 of the Constitution of the Republic, i.e. that sovereignty belongs to the people of Bangladesh. BJI has intentionally misguided itself to create confusion between temporal power and spiritual power so as to manipulate the mind of the people, so that the people are disempowered from exercising their free sovereign will, which is supreme and thereby the right of self determination, whereby the people have gifted themselves the Constitution in 1972, which is republican in nature, based on secularism, democracy, non-discrimination on the ground of gender, colour or religion, nationalism based on language and culture (not religion) and socialism so as to ‘prosper in freedom’ (Preamble to the Constitution). Section 2(5) of the BJI’s constitution purports to deny the supremacy of the Constitution of the Republic as well as inconsistent with the concept of sovereignty as enshrined in the Preamble and Article 7 of the Constitution.
 
Section 2 (2) of the impugned registered BJI constitution denies the entire system of judiciary of the Republic and purports to annihilate Part VI of the Constitution. It denies the legitimacy of the Judiciary of the Republic to hear petitions or cases or adjudicate upon disputes and challenges the authority of the judges to pronounce judgments and laws for the Republic.
 
The BJI’s constitution in its section 2(5) also fails to recognize the Parliament and its legitimate ability to enact laws for the Republic, and therefore violative of Article 65(1) of the Constitution of the Republic. In other words, it fails to recognize and/or acknowledge the legitimate authority of Parliament to enact any laws for the Republic. BJI acknowledges only ‘divine law’ and that only it (Jamate Islam) can dictate to the people and the nation as to what those ‘divine laws’ are, if they have the monopoly or enjoy the ‘sole agency’ for Islam. In the beginning of ‘statehood’ divine law was a necessary pre-requisite for establishing kingdoms and granting legitimacy to any monarchy, theocracy or any other form of un democratic regime or dictatorship. Thus in the guise of divine law, BJI is purporting to establish an un democratic and un constitutional regime, which is anti-thethis of the ‘free-will’ of the people of Bangladesh, which is supreme as per Article 7 and thereby subverts the very root and basis of the Constitution of the Republic. It is however, unclear from BJI’s party constitution and the objectives laid down therein as to when, where, how and if at all, it derived its source of authority or any ‘power of attorney’ from almighty to indulge in enforcing their own interpretation of Islam and thus inflict the same upon the rest of the sovereign citizens of Bangladesh, both muslims and non-muslims doing so is purports to disempowering the people by denying them to exercise their ‘sovereign will’ through an elected Parliament. A republic can only enforce laws that are temporal in nature, enacted in the Parliament, comprising of elected representatives of the people.
 
She also submitted that Section 6(1), 6(2) and 6(3) of the impugned constitution of the BJI, in fact encourages for training to militant groups, by resorting to ‘radical dogmas’ and hiding behind the guise of Islamic divine law, defined by the party rather than based on any real values of Islam. The petitioners believe that the real values of Islam on the other hand, are inherently secular, tolerant and peaceful. Furthermore, section 6(4) propagates to subvert State machinery and the system of constitutional governance of the Republic in the light of BJI’s own interpretation of Islam, which the petitioners reject and BJI’s version of Islam as evidenced from its constitution is a clear and blatant violation of Preamble, Article 7, 11, 65, Part III, Part V and Part VI of the Constitution. They are openly seeking to establish an illegitimate extra-constitutional regime, which is not only seriously offensive to the petitioners, but also constitutes serious offences under the Bangladesh Penal Code, 1860; and the Special Powers Act, 1972.
 
Ms. Amir, further submitted that Section 7 of the impugned registration of BJI’s constitution prescribed the criteria for membership of BJI. A plain reading of the constitution of the impugned registered association reveals that no non-muslim can ever become a co-equal member as a muslim (male) member. Non-Muslim members constitute a separate category of membership who are not eligible to become members of the Executive Committee or the head of the party. Thus discrimination is created on the ground of religion in violation of Article 27 and 28 of the Constitution. Even muslims who do not agree with BJI’s so called understanding and interpretation of Islam cannot be a member, which is ex-facie communal, discriminatory and violative to the fundamental rights guaranteed under the Constitution. Thus, the party constitution falls short of the mandatory requirement for registration as legitimate political party as per section 90C (1) RPO.
 
She further submitted that insertion of Article 90B(1)(b)(ii) and Article 90C(1)(b) are not ad hoc or arbitrary insertions, rather those are culmination of a long journey whereby the Republic is committed to affirmative action’s, which are guaranteed as fundamental rights under Article 28(4) of the Constitution. Bangladesh has become a State party to the Convention on Elimination of all forms of Discrimination Against Women (CEDAW) and the Beijing Declaration and its ‘platform action'. It is thereafter obligation and duty of the Republic to implement, both under international instruments and the national Constitution to relevant electoral laws to cause, inter alia, political participation of women in all spheres of national and local governments as elected representatives. Participation of a handful of women is not sufficient; the aim is to achieve a ‘critical mass’. As per internati-onally accepted notion and standard 30% or one-third is universally acknowledged and recognized to be minimum percentage or number necessary for reaching towards the ‘critical mass’. Consequently the Government pursuant to its obligation under the Constitution and international instruments caused the ‘National Development Women’s Policy, 2008’, which identifies the target of reaching at least one-third (1/3) seats in the Parliament through directly elected women members. The abovementioned amendments were introduced in the electoral laws to reach that goal by 2020, in line with achieving Millennium Development Goal (MDG) also.
 
Ms. Amir, again submitted that as per Article 90C(1)(a) of the RPO [as amended by Representation of the People (Amendment) Ordinance, 2008] a political party shall not be qualified for registration if the objectives laid down in its constitution are contrary to the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh. It is abundantly clear from the plain reading of the impugned constitution of the BJI, that it is contrary and repugnant to the basic structure of Constitution, in as much as, it is inconsistent with the concept of sovereignty (Article 7), representative government and democracy (Article 11), as well as law making power of the Parliament (Article 65), freedom of thought and conscience (Article 39) and discriminatory on the ground of religion and gender (Article 27, 28 and 41), denies the legitimate judicial system of the Republic by purporting to traverse Part VI of the Constitution and violative of the overall basic fundamental structure of the Constitution. The impugned registration of the constitution of BJI by the EC shall therefore be deemed to be void ab initio, non-est and ineffective from the date of its registration.
 
Ms. Amir, further reiterated on the points submitted in the petition and on point of locus standi of the petitioners, by referring to the observations made in Ashutosh Chakma and Ors vs. Rajdhani Unnayan Katripakhya (RAJUK) and others, 60 DLR 273 at page 282- 28, which contained inter alia that:
 
   “. . . The Government through the concerned Ministry lays down the policy guidelines but a statutory body must act as per its discretion and power vested by the Statute for implementing the policies directions of the Government. Even the aforesaid statutory provision clearly provides that the Government may give directions to RAJUK as may be necessary from time to time but such direction must be for ensuring that RAJUK’s activities conform to the activities of the Act.”
Similarly, a constitutional body must also act within the parameters of the statute and that statutory body can not deviate from that given mandate.
 
She again submitted that in the instant writ petition’s cause title it is stated that it is a PIL. The petitioner Nos. 1, 2, 3 and 14, although have political identity but in the instant writ petition they have come as citizens of the country, not under the veil of a political identity. A PIL is moved only when public functionaries are failing to perform their duties assigned to them under certain statute, as is done in the instant case, as such, the wrong done by the EC in the instant case is challenged through PIL. The EC is supposed to act within the realm of the authority vested in it through RPO. EC does not have authority to bypass it. In such a situation the petitioners have legitimate expectation as citizens to see that the EC has acted in accordance with the RPO.
 
She again submitted that BJI has other branches and subsidiaries outside the territory of Bangladesh and the petitioners assert that it is a transactional association, having other foreign branches and offices, global resources and policy makers who represent the interest of other agencies outside the territory of Bangladesh. Thus, the petitioners assert that BJI acts in consort with foreign aliens and acts as their agents with foreign branches which are prejudicial to the interest of sovereign independent Bangladesh. BJI earlier filed a writ, being writ petition No. 6792 of 2008, in which it challenged inter alia, some provisions of the RPO, including Article 90C(1), that have been inserted and introduced criterions for eligibility and qualification to get a political party registered under the provisions of the RPO. BJI knew very well that it will be disqualified for registration as a political party under the said amendment to the RPO by filing a writ petition. In the said writ petition it was admitted by BJI that it has affiliation and offices outside the territory of Bangladesh and admits that it was born in India, which is its motherland.
 
She further submitted that BJI filed the above mentioned writ petition challenging Article 90B(1)(b)(ii), 90C (1) (b) of the RPO, because they knew that their party constitution falls short of the mandatory eligibility and qualification required to get itself registered as a political party. Thus it is an admission in favour of this current writ petitions and the grounds of challenge taken by the petitioners. During the pendency of the Rule of the said writ petition, being sought and obtained registration from the EC, in gross violation of the RPO. The petitioners during the representation made before the EC also pointed out that the same. Whereby BJI challenged the provisions of the same law under which it was then seeking registration as a political party, while the case was still sub-judice before the High Court Division of the Supreme Court. The Election Commission was also reminded that some of the petitioners have become added respondents to strengthen its hands in support of the amendments and in support of the reforms introduced to the RPO by insertion of Article 90 B(1)(b)(ii) and 90C (1). Despite that peculiar contradiction, EC nonetheless went ahead and registered BJI as a political party. Only after securing such registration, BJI withdrew the said writ petition through non-prosecution. While, at all material time BJI knows very well that its challenge to the RPO will not succeed, but merely used it as a coercive tactics to obtain its party registration from the EC.
 
Ms. Amir, further continued her submission that yet any voice of internal dissent or external criticism to the party be treated with such contempt as if it is a criticism against God as an act of blasphemy. Thus the petitioners are outraged that Islam is being used as a ‘shield’ against any criticism of BJI and anyone who opposes them are declared to be “Murtads” (non-believers) by way of issuance of illegal fatwas, which has no place under our law or the Constitution. On the contrary such illegal fatwas are an offence under section 508 of the Bangladesh Penal Code, 1860, which states as follows:
“Section 508.- Act caused by inducing person to believe that he will be rendered an object of the Divine displeasure.”
 
Whoever voluntarily causes or attempts to cause any person to do anything which he is legally entitled to do by inducing or attempting to induce that person to believe that he or any person in whom he is interested will become or will be rendered by some act of the offender an object of divine displeasure if he does not do the thing which it is the object of the offender to cause him to omit, shall be punished with imprisonment of either description for a term which may extend to one year or with fine, or with both.”
 
And according to Article 90C(1)(a) of the RPO, a political party shall not be qualified for registration if the objectives laid down in its party constitution are contrary to the basic structure of the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh. The impugned constitution of the BJI is opposed to Preamble, Proclamation of Independence, Part-V, Part-VI, Part-III, Articles 7, 10, 11, 14, 19, 25, 26, 27, 28, 29, 33, 39, 41, 65, 94, 101-112 and 114-117 of the Constitution of People’s Republic of Bangladesh.
 
According to Article 90C(1)(b) of the RPO [As amended by Representation of the People (Amendment) Ordinance, 2008] a political party shall not be qualified for registration if its constitution is in any way discriminatory on the ground of religion or gender and the constitution of BJI discriminates against membership to all non-muslims, as well as, and many practicing muslims, and women which is violative of fundamental tenets of the Constitution (i.e. Article 27, 28).
 
She further submitted that according to Article 90C(1)(c) of the RPO, a political party shall not be qualified for registration, if, by name, flag, symbol or any other activity it threatens to destroy communal harmony purporting to divide the country and also to distort the constitutional and religious values.
  1. She ended her submission by submitting that on 4.11.2008, when the registration was given to BJI by the EC, it was non-compliant to Article 90C of the RPO, which is a mandatory provision of the law and no provision of the RPO allows the EC to accord such registration to any political party, as such, the registration of BJI as a political party is void ab initio, i.e. done without lawful authority and is of no legal authority.
 
Mr. Abdur Razzak, Senior Advocate with Mr. Farid Uddin Khan, Mr. Belayet Hussain, the learned Advocates appearing for the respondent No. 1 and 2 submitted that since EC, is in the seisin of the entire matter and it is the EC that will decide whether the registration given on the basis of the provisional constitution of the BJI in 2008 would be cancelled or not.
 
He again submitted that in the instant writ petition the petitioners have no locus standi to bring the petition as a PIL since the petition is politically motivated and vexatious. The petition, as a PIL does not come within the tenets of PIL as set out by our apex Court in several decisions. Apart from that there are three political parties with similar religious agenda encrypted in their constitution, which were registered by the EC, however, not challenged by the petitioners, which they cannot do in a PIL. In a PIL, petitioners must not pick and choose taking side of someone whom the petitioners’ contention also attracts for the same non-compliance. And he further submitted that those who come within the ambit of PIL, must come in clean hand with clean mind and clean heart. A person coming under the purview of PIL must not come to vindicate his personal gain, political interest, or personal vendetta, as is found in the instant case and in this regard he referred to the observations made in Dr. Mohiuddin Farooque vs. Bangladesh, represented by the Secretary, Ministry of Irrigation, Water Resources and Flood Control and others, 49 DLR(AD) 1, wherein it was observed inter alia that:
 
“. . . it is often argued that such an interpretation will allow a person to espouse the cause of another person and the court will be required to decide the issues without the presence of the proper party. If the affected party is not coming forward for no visible reason, the court may refuse to entertain the application. It has been clearly pointed out that the liberalized rule of standing will be of no avail to busybodies or persons seeking intervention of the court with oblique motive.”
 
It further observed that,
 
“. . . a person approaching the court for redress of a public or a public injury has sufficient interest (not personal interest) in the proceeding and is acting bona fide and not for his personal gain or private profits, without any political motivation or other oblique consideration has locus standi to move High Court Division under Article 102 of the Constitution of Bangladesh.”
 
Similarly, in Md. Shahjahan Shanta vs. Government of People’s Republic of Bangladesh and others, 17 BLC 844, it was observed amongst others that,
 
“. . . A person for personal gain or private profit or political motive or any oblique consideration cannot be said to be a person having sufficient interest in a proceeding of PIL. Similarly, a vexatious petition under the colour of PIL brought before the court for vindicating any personal grievance deserves rejection at the threshold.”
 
He also referred to the persuasive decisions made in SCC (1994) 620 and AIR 1982(SC) 149.
 
He further submitted that the Rule has been issued with regard to certain required rectification and during pendency of the instant Rule, the rectifications has been done, as such, the Rule has become infructuous, and in this regard he referred to the observations made in Anwar Hossain vs. Mainul Hossain and others, 10 MLR(AD) 319. And on the same point he further referred to the persuasive decision made in (1981) 4 SCC 148; and (1981) 4 SCC 148.
 
He again submitted by referring to the persuasive decision passed in Smt. Indira Nehru Gandhi vs Shri Raj Narain and anr, AIR 1975 SC 2299, wherein it was observed inter alia that ‘Free and fair elections are part of democratic structure and an election which has been held to be invalid for violation of the principles of free and fair elections and by commission of corrupt practices is validated. The basic structure of equality is violated by providing that those who hold office of Prime Minister and Speaker are above law although election laws were there. He again referred to the observations made in Anwar Hossain Chowdhury vs. Bangladesh, BLD 1989, spl. Issue, at para 377, inter alia that:
 
“Main objection to the doctrine of basic structure is that it is uncertain in nature and is based on unfounded fear. But in reality basic structure of a Constitution are clearly identifiable. Sovereignty belongs to the people and it is a basic structure of the Constitution . . .”
 
By referring to Articles 7, 11 and 38 of the Constitution, he submitted that RPO is a subordinate legislation, so it should not be contradictory to the Constitution as Articles 90B and 90C are. However, he stepped back from that point since JBI through Writ Petition No. 6792 of 2008, challenged the legality of the said provisions of the RPO and obtained Rule on 17.11.2008, and on 20.08.2008, it non-prosecuted the Rule, i.e. the Rule was discharged for non-prosecution.
 
He further submitted that since JBI is a political party with a substantial number of supporters, who voted it for decades, so their right is involved in its political agenda, therefore their right cannot be taken away. On the same proposition, he also referred to the observations made in Managing Director, Rupali Bank Ltd vs. The Chairman, First Labour Court, Dhaka, 45 DLR 397, which contained inter alia the observations that:
 
“. . . The provision of Article 102(2) of the Constitution cannot be taken recourse to frustrate the course of justice to deprive a citizen of legal right or to create impediment to get such right and as such we refuse to exercise our discretionary power conferred under Article 102(2) of the Constitution . . .”
 
In support of his submissions, he further referred to the decisions made in United Steel Workers of America vs. National Labour Relations Board, 339 US 382-453.
 
He again took us through the persuasive decision made in Communist Party of Indiana vs. Whitcomb, 414 US 441, 38L Ed 2nd, 94 S Ct 656, wherein the basic issue was at stake are appellants’ First and Fourth Amendment rights to associate with others for common advancement of political beliefs and ideas. “The right to associate with the political party of one’s choice is an integral part of this constitutional freedom.” (Kusper v Pontikes, 414 US, at 57, 38L Ed 2nd at 266). In its observations the Court clearly reflected inter alia that:
 
“As we understand appellees, this is an argument that, at least for purposes of determining whether to grant a place on the ballot, any group that advocates violent overthrow as abstract doctrine must be regarded as necessarily advoca-ting unlawful action. We reject that proposition. Its acceptance would only return the law to the “thoroughly discred-ited regime of Whitney v California, 274 US 357, 71 L Ed 1095, 47 S Ct 641 (1927), unanimously overruled by the Court in Brandenbourg v Ohio, 395 US, at 447, 449, 23 L Ed 2nd  430.”
 
Mr. Razzak, again submitted that since BJI contested the preceding national elections (9th parliament) on the basis of the provisional constitution, and since the registration was acted upon long ago, and since the amended constitutions of the BJI have been submitted to the EC, the necessity of examining the legality of the registration given on the basis of the provisional constitution has lost its efficacy.
 
He again submitted that the Rule dated 27.1.2009 issued in the instant writ petition cannot be disposed of now inasmuch as the impugned constitution of the BJI has been amended significantly pursuant to the promises made at the end of the impugned constitution, and the amendments have been brought to the notice of the EC in December 2012 and no final decision has yet been taken by them, so the matter is premature.
 
He further submitted that the registration given to BJI was a provisional registration; the BJI submitted its amended constitutions to the EC within the six months of the first session of the 9th Parliament and later on different dates. Provisional registration was given to many other secular and Islamic organizations on the basis of provisional constitutions at the relevant time. Such action was taken by the EC to ensure continuation of the democratic process in the country.
 
He further submitted by submitting an affidavit-in-opposition annexing constitutions of Bangladesh Khelafat Andolon and Bangladesh Tarikat Declaration that those two plitical parties were also registered with similar provisions in their constitutions, which were not challenged by these petitioners. Since this is a Public Interest Litigation, as such, pick and choose by the petitioners reflect to their mala fide intent against the present respondent Nos. 1-3, and therefore the Rule is not maintainable.
 
He again submitted that at the time when the provisional registration was given to BJI, the General Election was very close, so the EC decided to register the political parties with provisional constitutions and allowed them to contest the ensuing General Election. A proviso was appended to Article 90D of the RPO vide the Representation of the People (Second Amendment) Ordinance, 2008 to empower the EC to register political parties provisionally.
 
He further submitted that the amendments brought to the RPO by the Ordinances during the tenure of the last caretaker Government were ratified by the next Parliament vide the Representation of the People Order (Amendment) Act, 2009, and that came into force on 19th August, 2009.
 
Mr. Razzak, again submitted that the constitution of BJI that the petitioners annexed to the writ petition dates back to its October, 2008 edition, which was reprinted in November, 2008, however, EC provided BJI registration on the same with a little amendment done by hand by its law secretary. It was a provisional constitution, which is still amendable even after a few amendments as asked by the EC.
 
He further reiterated that the BJI const-itution by this time has experienced significant amendments throughout the period till 2nd December, 2012. Although the impugned constitution is in no way ultra vires the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh or the RPO, the BJI has brought several amendments to the same at the directions of the EC as it is always willing to make further amendments, if required and submitted copies of the amended constitutions to the EC on 22nd July, 2009, 1st August, 2010 and finally on 2nd December, 2012.
 
He again submitted that BJI’s legal team is in full co-operation with the EC and have taken all suggestions into book to keep the constitution of the BJI fully compliant with the Constitution of Bangladesh and the provisions of the RPO. There have been regular talks, correspondences and meetings between the BJI and the EC. EC received the latest amended version of BJI is Constitution in December, 2012, and since then the EC has not taken any final decision with regard to the amendments brought to the BJI constitution since the instant Rule is seisin of this Court. The entire matter is in the seisin of the EC. The EC being a constitutional body must not be obstructed by the petitioners in discha-rging their functions independently. And the Rule dated 27.01.2009 cannot be disposed of at this stage, as doing so would be an act of overriding the discretionary powers of a constitutional/ statutory body of the Republic.
 
He pointed out that the petitioner impu-gned the registration dated 4th November, 2008 of the BJI as a political party that was done on the basis of the provisional constitution that has undergone several significant amendments in course of time. The impugned provisions of the impugned constitution have been amended further. No question of examining the validity of the registration of the BJI at this stage arises at all; examination of the legality of the registration would be a futile exercise and an impediment in the way of exercising discretionary powers by the EC under the said statute i.e. the RPO, 1972.
 
He again submitted that the registration accorded to BJI by the EC is not a final decision. It is a provisional/ interim decision, which is subject to change/ alteration by the EC when the final decision for registration is made before the next Parliamentary Elections. It is open to the EC not to grant a final registration, if the BJI does not comply with requirements of the RPO. The registration of the BJI as a political party is an on going process, as such; the present writ petition is not maintainable.
 
Mr. Razzak, further reiterated that the present writ petition has been filed on the basis of the un amended constitution of BJI published in November 2008. The current BJI constitution was amended 4 (four) times thereafter. The current constitution of BJI was published in January, 2011, which are in consonance to Article 90C(1)(a) of the RPO and the Constitution of Bangladesh. Under Article 90C(1)(b) of the RPO any alleged discrimination in relation to religion, race caste, language or sex in the constitution of a political party is required to be apparent, however, in the facts and circumstances of the case, there is no discrimination apparent or otherwise in the BJI’s constitution.
 
He further submitted that democracy is a basic feature of the Constitution, as such; the Constitution of Bangladesh permits BJI to stand for elections as a political party. The citizens of Bangladesh are the ultimate arbiters as to whether; the BJI shall form a Government. Interference by the Courts in cancelling registration of political parties tantamount to tampering with democracy, which is a basic feature of the Bangladesh Constitution. Moreover, the BJI has been established and is run by its members in accordance with the fundamental right of freedom of expression as enshrined in Article 39 of the Constitution. This writ petition has been filed to deprive the members of the BJI from exercising their fundamental rights. BJI was formed and is run by its members is exercise of the fundamental rights to practice and propagate one’s religion as enshrined under Article 41 of the Constitution. Hence, the present writ petition has been filed with an ulterior purpose of preventing the respondent Nos. 1 to 3 from exercising their fundamental rights. The objectives of BJI as enumerated in clause 3 of its constitution are not contrary to the Constitution of Bangladesh.
 
He further submitted that BJI by incorporating clause 69 into its constitution included a provision for reserving 33% of all committee positions for women in the Central Committee by the year 2020, which is in compliance to Article 90B(1)(b)(ii) of the RPO, as such, the objectives of the BJI constitution are not contrary to the Constitution of Bangladesh. Controverting the submission of the learned Advocate for the petitioners, he submitted that BJI is not a communal organization. Clause 11 of the constitution of BJI permits non muslims to join BJI. It does not use religion as a political tool or means of exploitation; it has never misguided or attempted to misguide people. The party constitution of the BJI is consistent with the Constitution of Bangladesh. The allegations of subversion and destabilization are politically motivated allegations without and factual basis. BJI recognizes the political sovereignty of the people which is consistent with Article 7 of the Constitution. Moreover, the objectives of the BJI constitution are not inconsistent with the Constitution of Bangladesh as stated in the writ petition, as such; the EC lawfully registered the BJI as a political party under the RPO.
 
Mr. Razzak, again submitted that the petitioner has misconstrued the Charter of Medina. The Charter of Medina does not provide any sanction for secularism. The concept of sovereignty has been misconstrued by misinterpreting the Charter of Medina. Although the Charter of Medina recognized that political sovereignty lies with the people, however, legal sovereignty lies with God. As such the Charter of Medina was neither republican, nor secular as alleged. The Charter of medina was not born out of nationalism, it was an agreement between Mohajeruns (emigrants mainly from Mecca), Ansars (helpers of Medina) and Jewish, and the Christian tribes in order to ensure a peaceful co-existence.
 
He further expressed that with regard to the allegations of involvement of BJI in the Liberation War of 1971, as made in the writ petition, it is categorically stated that neither the BJI, nor its members committed war crimes, crimes against humanity or violated the human rights of any person. BJI has consistently upheld the human rights of the citizens of this country. The statements made in relation to BJIs involvement in the Liberation War are motivated, concocted and irrelevant for the purpose of disposal of this writ petition. BJI secured sufficient number of votes in the 9th Parliamentary Elections in order to be registered as a political party. Article 90B (1) (ii) of the RPO states that a party shall be eligible for registration in the event that it has “secured five percent of total votes cast in constituencies in which its candidates took part in any of the aforesaid parliamentary elections’’
 
He further reiterated that BJI participated in elections from 35 (thirty-five) constituencies and obtained a total of 32,88,782 votes, as such the percentage of votes secured in the constituencies in which BJI participated is quite significant. Moreover, BJI also qualifies for registration in accordance with Articles 90B (1)(i) and (ii) of the RPO. BJI won 18, 3, 17 and 2 seats in the last 4 (four) Parliamentary Elections. BJI has a central office with a central committee and has more than the requisite number of district offices and voters as required in Article 90B (1) (iii) of the RPO.
 
Mr. Razzak, again submitted that the constitution of BJI complies with the require-ments of Article 90B and 90C of the RPO. The Election Commission upon consideration of the true functions and objectives of the BJI provisionally registered it as a political party. The allegations made by the petitioner Nos. 12 and 19 in the letter written to the EC are without any legal basis. The constitution of the BJI is consistent with the notion of sovereignty in Article 7(1) of the Constitution of Bangladesh. The concept of sovereignty in Article 7(1) refers to ‘political sovereignty’ as opposed of ‘legal sovereignty’. The doctrine of political sovereignty states that the people are holders of power and are sovereign. This doctrine of political sovereignty has been encapsulated in Article 7(1) of the Constitution. The BJI recognizes the political sovereignty of the people. The constitution of BJI merely states in Clause 3 that legal sovereignty lies with God. Legal sovereignty of God is recognition of an All-Powerful, All-Knowing God and the ultimate authority of God to do justice. This is not inconsistent with the political sovereignty of the people. The Constitution of Bangladesh does not refer to ‘legal sovereignty’. Legal sovereignty is an evolving concept. Different interpretations of legal sovereignty have appeared over time. Political sovereignty, on the other hand is a recognized concept as enshrined it Article 7 of the Constitution.
 
Mr. Razzak, again submitted that the petitioners have relied upon an obsolete text of the BJI constitution. They have relied on the edition, which was published in November, 2008. The current text of clause 2(5) of the BJI constitution states that “God has no equal”. There is no conflict with the above clause with the concept of political sovereignty and Article 7(1) of the Constitution. The contention that clause 2(2) of the BJI constitution denies the legitimacy of the judiciary is misconceived and false. Clause 2(2) merely states that all consequences, good or bad flow from God. This is a strict reflection of the verses of the Holy Quraan relating to the oneness of God. The State enforces the personal law of its citizens, which is of divine source. And Clause 4(3) the BJI constitution states that it shall act constitutionally and within the legal and democratic framework in order to achieve its desired changes and reforms in the society. The allegations of `brainwashing’ is frivolous and are made without any factual basis. Clauses 5(1) and 5(2) of the BJI constitution only provide for the propagation of Islam. This right is guaranteed under Article 41 of the Constitution. The BJI constitution has neither explicitly, nor implicitly provided for slavery to the party as alleged. This is a frivolous allegation arising out of religious prejudice.
 
The BJI constitution in clauses 4(2) and 4(3) clearly states that no action shall be taken by BJI unless the same is constitutional and within the legal and democratic framework of the Constitution.
        
He again submitted that Clauses 6(1), 6(2) and 6(3) of the BJI constitution are consistent with fundamental right to propagate ones religion as enshrined in Article 41 of the Constitution of Bangladesh. The allegations made that clause 6(4) of the BJI constitution provides for the subversion of State machinery, which is incorrect. The said clause expressly provided that the Government shall be changed within the legal frame work. BJI’s sole reliance on legal and democratic means has also been provided in clauses 4(2) and 4(3) of the BJI constitution. BJI fully endorses fundamental rights enshrined in Part III of the Constitution.
 
Further the BJI constitution is also consistent with Parts V and VI of the Bangladesh Constitution. No violations of the Penal Code or the Special Powers Act, 1974 have been committed by any member of the BJI.
 
He further submitted that under clause 11 of the BJI constitution non muslims are also eligible to become members of BJI. There is also no bar to a non muslim being appointed the head of the party. The central Majlish-e-Shura comprises of male and female members. Currently, it has 25% female members. By the year 2020 this shall increase to 33% in accordance with clause 69 of the BJI constitution. There is no discrimination on the ground of sex. Women regularly attend and vote in all meetings of the central Majlish-e-Shura and are an integral part of the decision-making process of the BJI. There is also no bar to a woman being elected as the head of the party. The Central Women’s Department is a separate organ of the BJI, which looks into women’s affairs. This organ provides further representation to women over and above the presence of 25% women in the central Majlish-e-Shura.
 
Mr. Razzak, further submitted that BJI does not subscribe to radical Islam or support militancy or it does not support communal politics and referred to as stated in clause 3(3) of the BJI constitution. The BJI pursues peaceful and democratic process as stated in clauses 4(2), 4(3) and 6(4) of its constitution. Further, there is no reference in the BJI constitution to Maulana Maududi or his ideologies. BJI constitution has been framed in consistency with the Bangladesh Constitution.
 
At the end Mr. Razzak submitted that it would be futile attempt to put a bar upon the politics of JBI, as it is already established in Bangladesh with a large number of voters those who will be deprived of their fundamental right to franchise of their choice.
 
Mr. Mohsen Rashid with Mr. Tawhidul Islam, appearing for the respondent No. 4, i.e. the EC, has began his submission by saying that the EC is a constitutional authority and the matter of registration of JBI as a political party is an ensuing process, as such, the Rule is premature and therefore it is liable to be discharged.
 
He further submitted that the job of EC is not to regulate the affairs of a political party; it provides registration to political parties and conducts elections as per mandate of the RPO. The registration to JBI was given on provisional basis since it did not comply with Articles 90B and 90C of the RPO and reiterated what this respondent submitted in its affidavit-in-opposition, specifically submitting that JBI did not comply with Article 90B and 90C of the RPO and time and again it was asked to amend its constitution to be compliant to Article 90C, which is yet to be done, and that is in the process.
 
On perusal of the submissions of the learned Advocates of both the parties and available documents submitted with the petition and affidavit-in-opposition and supplementary affidavits, the issues crystallizes to the points- (i) as to whether the present Rule is maintainable on the point of locus standi of the petitioners; (ii) as to whether the petitioners within the realm of PIL, as a citizen can invoke the doctrine of legitimate expectation; (iii) as to whether this Court has the jurisdiction to look into the facts and laws involved, as claimed, that the issue of compliance to Article 90C of the RPO is still in the process and/or have been complied with by the JBI; and (iv) as to whether at the time of according registration to JBI, its constitution was non-compliant to Article 90C.
 
Now, let us see as to whether the petitioners had the locus standi to move the instant writ petition. The petitioners include individuals and organizations. The respondents Nos. 1 and 2 have contended that petitioner Nos. 1, 2, 3 and 14 are political rivals of the respondent Nos. 1-3 and have come with political vendetta and mala fide intention against there respondents. However, the respondents have replied to the said contention that although those petitioners have political identity but in the instant writ petition they are mere citizens of the county and they have come in clean hands without any political agenda in mind.
 
The petitioners have argued that the respondent No. 1 organization is the organiza-tion that has participated in the liberation against the people of this country in total alliance with the transgressor Pakistan Military Forces. Its members were in the war time cabinet and its allied organizations, such as, Islami Chatra Sangha, organized voluntary forces in aid of the Pakistan Armed Forces and were largely responsible for killing, rape, arson etc. If, we look into the statements and submissions of both the sides, it is quite apparent to note that the respondent No. 1, was born in British India followed by its existence in Pakistan and now in Bangladesh and that has been argued by the learned Advocate for the respondent Nos. 1-3. However, the respondent Nos. 1-3, denied to have had any of its members in the war time cabinet of the East Pakistan or Pakistan Government is not true. JBI is a different name but its name Jamat-e-Islam, originates from British India followed by its existence in Pakistan and it is the same old product bottled in a new bottle under a new emblem almost with the same persons those who were in the fore front against the independence of Bangladesh and fought against the liberation forces of Bangladesh. The respondent No. 1, under a different name with almost the same persons created auxiliary forces by name Razaker, Al-Badar, Al-Shams, Peace-Committee (Sahanti Committee), etc and under its direct patronage and supervision took out atrocities like killing, rape, arson etc. It was the respondent No. 1, who had the knowledge of every locality of the country, not the Pakistan Army, and they took the army to households and killed many innocent people and also freedom fighters, raped more than a million girls/women and destroyed thousands and thousands of houses by fire and force. It is very notable that according the Government and international statistics 3 million innocent Bangladeshis were killed, one million girls/women were raped and more than 10 million people were driven out of Bangladesh, who took refuse in the neighbouring country, India. All those happed by the Pakistan Military Forces in aid with the respondent No. 1, its members.
 
Every Bangladeshi was affected by such atrocity of the Pakistan Armed Forces and their allies i.e. Razakers, Al-Badars, Al-Shams, Peace Committee etc, except those who were against the independence of Bangladesh. The basic concept of PIL is ‘bleeding heart’, which means whose ‘heart bleeds’ for the cause of the others. In reference to this concept the landmark decision is Dr. Mohiuddin Farooque vs. Bangladesh and others, 49 DLR(AD) 1, wherein it was observed inter alia that:
 
“In this backdrop the meaning of the expression “person aggrieved” occurring in the aforesaid clause (1) and (2)(a) of Article 102 is to be understood and not in an isolated manner. It cannot be conceived that its interpretation should be purged of the spirit of the Constitution as clearly indicated in the Preamble and other provisions of Constitution, as discussed above. It is unthinkable that the framers of the Constitution had in their mind that the grievances of millions of our people should go unredressed, merely because they are unable to reach the doors of the court owing to abject poverty, illiteracy, ignorance and disadvantaged condition. It could never have been the intention of the framers of the Constitution to outclass them. In such harrowing conditions of our people in general socially conscious and public-spirited persons are not allowed to approach the court on behalf of the public or a section thereof for enforcement of their rights the very scheme of the Constitution will be frustrated. The inescapable conclusion, therefore, is that the expression “person aggrieved” means not only the person who is personally aggrieved but also one whose heart bleeds for his less fortunate fellow beings for a wrong done by the Government or a local authority in not fulfilling its constitutional or statutory obligations. It does not, however, extend to a person who is an interloper and interferes with things which do not concern him. This approach is in keeping with the constitutional principles that are being evolved in the recent times in different countries.”
 
The above observation is more suitable for the present petition than the one in which it was made.
 
The above principle has been followed by the Supreme Court of Bangladesh on many other occasions, such as, in BRAC and others vs. Professor Mozaffor Ahmed and others, 54 DLR (AD) 36.
 
Jamat-e-Islami, is an organization which during 1971 overtly acted against the indepen-dence and some of its members were members of the war time cabinet of the Pakistan Government and its allied forces, i.e. Razaker, Al-Badar, Al-Shams, Peach-Committee etc. who directly took part against the independence by killing, raping, burning etc along with the Pakistan Army. So, I feel that the “heart” of every Bangladeshi, who by heart feels for the independence of Bangladesh “bleeds”, and therefore all the petitioners have the locus standi to move the instant writ petition.
 
The Election Commission by publishing Notification on 23.10.2008 under rule 7(2) of the ivR‰bwZK `j wbeÜb wewagvjv, 2008, in various national dailies invited objections, if any, in respect of registration of any political party and 9(nine) organizations filed individual objections to the EC against registration of the BJI. The objectors were Avgiv gyw³‡hv×vi mš—vb, GKvˇii NvZK `vjvj wbg~©j KwgwU, AvBb I mvwjk †K›`ª, †m±i KgvÛvim †dvivg, mfvcwZ, mycªxg †KvU© evi G‡mvwm‡qkb, evsjv‡`k gyw³‡hv×v mš—vb, e½eÜz mvs¯‹„wZK †RvU Ges Iqvi μvBgm d¨v±m dvBwÛs KwgwU| EC heard the objections on 01.11.2008 and after considering the objections and political situation, however, granted registration to the BJI as a political party of Bangladesh.
 
The petitioners though in the cause title have stated that the petition is a PIL but the petition also shows that before registering JBI as a political party, the respondent No. 4 i.e. the EC, invited objections, against its registration, if there was any, and some of the instant petitioners were the objectors, however they felt that their grievance were not heard in accordance with law, as such, they also have locus standi to vindicate their grievance through this petition. It is their legitimate expectation that the EC being a constitutional body, i.e. a public authority, would act in accordance with law, which to them was not acted upon, and therefore the doctrine of legitimate expectation would also apply in the instant case, as was decided in many occasions.
 
The contention as has been forwarded by the respondent Nos. 1 and 3 that a few other political parties were registered with similar provisions in their constitution as of the JBI, were challenged in the present Rule, nor their registrations were challenged before the EC, which tantamounts to double standard by the petitioners. In this regard, I am of the view that the background of the present petitioner and those political parties are not the same for which their registration was not challenged before registration with the EC. However, when the present petitioners challenged registration of the respondent No. 1, and obtained the present Rule, it has to be noticed that although petitioners have stated in their cause title that it is a PIL, in fact, their grievance is mingled with non consideration of their objections by the EC at the time when the registration was given to the respondent No. 1, as such, those political parties and the respondent No. 1, do not stand on the same altar. So, I am not inclined to accept such submission of the respondent Nos. 1- 3, on the point of pick and choose should defray the petitioners’ claim.
 
The respondents have unequivocally submitted that the matter is yet in seisin before the respondent No. 4, i.e. the EC, and the same is also a constitutional body, so its jurisdiction cannot be ousted.
 
The respondent Nos. 1-3, have time again stated and submitted that from the beginning its constitution is compliant to the RPO, however, the EC has asked them to make amendments to its constitution, which they did, which is still an on going process, and the Constitution of the JBI is fully compliant to the RPO, i.e. also to the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh.
 
On the other hand respondent No. 4, i.e. the EC, from the beginning has reiterated its stand on the points that at the time of submission of the Constitution of the JBI, it was non compliant, as such, its secretary, legal affairs, made some changes by hand and that has also been challenged by the petitioners that amending any provision of the constitution or its bye laws must come through the Majlish-e-Shura, i.e. the Central Executive Committee. The secretary, legal affairs, did not have the authority to make such correction. The EC, thereafter made several recommendation to the JBI to amend its constitution which were non-compliant to the PRO.
 
The communications by the EC to the JBI, clearly reflects that the constitution of the BJI was never, or even now is not compliant to the RPO. Apart from that the EC also has tried to put its stand on the point that the matter is yet in seisin before it, therefore the writ petition is pre mature, i.e. the Rule. EC’s such arguments are not tenable, as firstly it said that the JBI’s constitution since its submission with the EC in 2008 was not compliant to RPO; again it said that it is an on going process; and further it said that EC is a constitutional body, as such, another constitutional body like Supreme Court should not interfere into its affairs.
 
We reminded the learned Advocate of the EC that Supreme Court is called the guardian of the Constitution and on several occasion it has declared Acts of Parliament as being ultra vires of the Constitution assuming its authority of “judicial review”. So, such submission has no legs to stand upon.
 
The petitioners also have raised the point of legitimate expectation. Let us see, what the definition of legitimate expectation is and when it is applicable. The doctrine of legitimate expectation has been judicially recognized by the apex courts of the different comparable Commonwealth jurisdictions and that has paved the way for the development of a broader and more flexible doctrine of fairness.
 
In the Common law jurisdiction the doctrine had been traced to an obiter dictum of Lord Denning M. R in Sehmidt v. Secretary of Home Affairs, (1969) 1 All E.R. 904, wherein Lord Denning observed inter alia that:
 
“The speeches in Ridge v Baldwin show that an administrative body may, in a proper case, be bound to give a person who is affected by their decision an opportunity of making representations. It all depends on whether he has some right or interest or I would add, some legitimate expectation, of which it would not be fair to deprive him without hearing what he has to say....”
 
And its model elucidation came from the observation of Lord Fraser in Council of Civil Service Unions vs. Minister for the Civil Services (“GCHQ”), 3 All. E.R. 935, wherein it was held inter alia that:
 
“Legitimate, or reasonable, expectation may arise either from an express promise given on behalf of a public authority or from the existence of a regular practice which the claimant can reasonably expect to continue”.
The governing principles was laid down by the Court of Appeal in R v North and East Devon Health Authority exp Coughlan [2001] QB 213, at paragraph 57, wherein three categories of case were identified:
 
  1. Those where the public authority was only required to bear in mind its previous policy giving weight, but no more, if it thinks right to the promise before deciding to change course.
  2. Those where the promise is of consultation before a particular course is adopted.
  3. Those where the promise has induced a legitimate expectation of a benefit which is substantive.
 
In the first category of case the Court of Appeal held that it could only intervene on traditional Wednesbury [1948] 1KB 223, sense. In the second category of case the consultation has to be given unless there is an overriding reason to resile from the promise. Here the Court judges the requirement of fairness. In the third category of case the Court will require the promise to be performed, if it frustrates the promise, which is so unfair as to amount to an abuse of power. The Court will weigh upon the requirement of fairness against any overriding interest relied upon for the change of policy.
 
In R (on the application of Nadarajah) and Abdi v Secretary of State for the Home Department, [2005] EWCA Civ 2363, the Court of Appeal after reviewing the authorities suggested that the applicable test was as follows:
 
“The principle that good administration requires public authorities to be held to their promises would be undermined if the law did not insist that any failure or refusal to comply is objectively justified as a proportionate measure in the circumstances.”
The Court of Appeal went on to state, at paragraph 69 that:
“Proportionality will be judged, as it is generally to be judged, by the respective force of the competing interests arising in this case. Thus where the representation relied on amounts to an unambiguous promise; where there is detrimental reliance, where the promise is made to an individual or a specific group; these are instances where denial of the expectation is likely to be harder to justify as a proportionate factor”.
 
There is a recent and significant decision of the Court of Appeal in R (Bhatt Murphy) and Others v Secretary for the Home Department, [2008] EWCA Civ 755, wherein it was held that:
 
“The power of public authorities to change policy is constrained by the legal duty to be fair (and other constraints which the law imposes). A change of policy which would otherwise be legally unexceptionable may be held unfair by reason of prior action, or inaction, by the authority”.
 
In Navjyoti Coop. Group Housing Society vs. Union of India, (1992) 4 SCC 477, the Supreme Court of India recognized that by reason of application of the said doctrine, an aggrieved party would be entitled to seek judicial review, wherein it was observed inter alia that:
 
“if he could show that a decision of the public authority affected him of some benefit or advantage which in the past he had been permitted to enjoy and which he legitimately expected to be permitted to continue to enjoy either until he was given reasons for withdrawal and the opportunity to comment such reasons . . .
“However, a total stranger unconnected with the authority or a person who had no previous dealings with the authority and who has not entered into any transaction or negotiations with the authority, cannot invoke the doctrine of legitimate expectation, merely on the ground that the authority has a general obligation to act fairly.”
 
In the instant case although the above principles are not directly relevant, however, it is to be borne in mind that the petitioners are representing the majority, almost all, the citizens of the country those who have lost their near and dear ones during the liberation war; 1 million violated women who lost their virginity at the hand of Pakistani Army and their allies, i.e. the respondent No. 1 members; those who lost their homestead and business during the Liberation War; and 10 million people those who were forced to take refuge in neighbouring India for 9 months and more; and overall all the peace loving people of this country who in many ways suffered at the hand of the members of the respond No. 1 and also at the instance of respondent Nos. 2 and 3. So, their legitimate expectation prevails over a general principle of accruing any benefit, as they would never expect such perpetrators to transgress rights again in the same soil.
 
The Supreme Court of India referred to its earlier decision in Union of India vs. Hindustan Development Corporation, (1993) 3 SCC 499, wherein the Court observed amongst others that:
 
“It is generally agreed that legitimate expectation gives the applicant sufficient locus standi for judicial review and that the doctrine of legitimate expectation is to be confined mostly to right of a fair hearing before a decision which results in negativing a promise or withdrawing an undertaking is taken”.
 
In a very recent case, Sethi Auto Service Station vs. Delhi Development Authority, (2009) 1 SCC 180, it has been reiterated inter alia that:
 
“. . . that the golden thread running through all these decisions is that a case for applicability of the doctrine of legitimate expression, now accepted in the subjective sense as part of our legal jurisprudence, arises when an administr-ative body by reason of a representation or by past practice or conduct aroused an expectation which it would be within its powers to fulfill unless some overriding public interest comes in the way”.
 
In the case of Golam Mostafa v. Bangladesh Supreme Court, Bangladesh, 2007 (XV) BLT (HCD)128, the High Court Division explained the concept of legitimate expecta-tion. The crux of the decision is that a judicial review may be allowed on the plea of frustration of legitimate expectation in the following situations:
  1. If there is a promise by the authority expressed either by their representa-tions or by conducts.
  2. The decision of the authority was arbitrary or unreasonable within the Wednesbury principle.
  3. There was a failure on the part of the concerned authority to act fairly in taking the decision.
  4. The expectation to be crystallized into a legitimate one, it must be based on clear facts and circumstances leading to a definite expectation and not a mere anticipation or a wish or hope and also must be reasonable in the circumstances.
  5. Judicial review may allow such a legitimate expectation and quash the impugned decision even in the absence of a strict legal right unless there is an overriding public interest to defeat such an expectation.
 
Let us revisit the realm of Wednesbury Principle [Associated Provincial Picture Houses Ltd. v Wednesbury Corporation (1948) 1 KB 223)]. This principle is a concept used by the courts when a judicial review case is taken to it and states that public bodies should be reasonable in its decision making process, i.e. that a public body was not reasonable in its decision making process. This principle came about in the Wednesbury Corporation’s case in 1948. The only exception in history was in the case of Council of Civil Service Unions v Minister for the Civil Service, 1985 (GCHQ Case). However, this English law case has set down the standard of unreasonableness of public body decisions which render them liable to be quashed on judicial review. So, the courts will not intervene to correct a bad administrative decision on grounds of unreasonableness, unless such decision is, as was articulated in Council of Civil Service Unions Vs. Minister of State for Civil Service (1984) 3 All ER 935 the (GCHQ Case) Lord Diplock, observed inter alia that:
 
"So outrageous in its defiance of logic or accepted moral standards that no sensible person who had applied his mind to the question to be decided could have arrived at it."
 
The House of Lords rationalized the grounds of judicial review and ruled that the basis of judicial review could be highlighted under three principal heads, namely- illegality, procedural impropriety and irrationality. Illegality as a ground of judicial review means that the decision maker must understand correctly the law that regulates his decision making powers and must give effect to it. Grounds such as acting ultra vires, errors of law and/or fact, onerous conditions, improper purpose, relevant and irrelevant factors, acting in bad faith, fettering discretion, unauthorized delegation, failure to act etc., fall under the heading “illegality”. Procedural impropriety may be due to the failure to comply with the mandatory procedures, such as breach of natural justice, such as audi alteram partem, absence of bias, the duty to act fairly, legitimate expectations, failure to give reasons etc.
 
In A.K.M. Kawser Ahmed and others vs. Bangladesh, 65 DLR(2013) 277, wherein it was observed inter alia that:
 
“. . . The potentially important point is that change of policy should not violate the substantive legislative expectation and if does so it must be as the change of policy which is necessary and such a change is not irrational or perverse”.
 
In the recent case of Chairman, All India Railway Rec. Board vs. K. Shyam Kumar, 2010, the Indian Supreme Court has applied the principle of Wednesbury unreasonableness as well as the doctrine of proportionality. The case involved appointment of some railway employees, where investigation done by the CBI (Central Bureau of Investigation) found mass irregularities including cheating, impersonification etc. The findings of the High Court came before the Supreme Court. The court very pertinently observed the view of some English author’s view that Wednesbury “unreasonableness” principle is at its terminal point having been replaced by the principle of “rationality,” as not just. And in that regard observed inter alia that:
 
“26. Sheo Shanker Lal Srivastava case was later followed in Indian Airlines Ltd. v. Prabha D. Kanan (2006) 11 SCC 67. Following the above mentioned two judgments in Jitendra Kumar And Others v. State of Haryana and Another (2008) 2 SCC 161, the Bench has referred to a passage in HWR Wade and CF Forsyth on Administrative Law, 9th Edition. (2004), pages 371- 372 with the caption” “Goodbye to Wednesbury”; and quoted from the book which reads as follows:
“The Wednesbury doctrine is now in terminal decline but the coup de grace has not yet fallen, despite calls for it from very high authorities”; and opined that in some jurisdictions the doctrine of unreasonableness is giving way to doctrine of proportionality.”
27. Indian Airlines Ltd.'s case and Sheo Shanker Lal Srivastava's case (supra) were again followed in State of Madhya Pradesh and Others v. Hazarilal, (2008) 3 SCC 273 and the Bench opined as follows:
“Furthermore the legal parameters of judicial review have undergone a change. Wednesbury principle of unreasonab-leness has been replaced by the doctrine of proportionality.”
28. With due respect, we are unable to subscribe to that view, which is an overstatement of the English Adminis-trative Law.
29. Wednesbury principle of unreasonab-leness as such has not been replaced by the doctrine of proportionality though that test is being applied more and more when violation of human rights is alleged. H.W.R. Wade & C.F. Forsyth in the 10th Edition of Adminis-trative Law (2009), has omitted the passage quoted by this court in Jitender Kumar case and stated as follows:
“Notwithstanding the apparent persuasiv-eness of these views the coup de grace has not yet fallen on Wednesbury unreasonableness. Where a matter falls outside the ambit of 1998 Act, the doctrine is regularly relied upon by the courts. Reports of its imminent demise are perhaps exaggerated”.
 
K. S. Radhakrishnan, J, went a bit further and explained the principles in the following manner:
 
“30. Wednesbury and Proportionality - Wednesbury applies to a decision which is so reprehensible in its defiance of logic or of accepted moral or ethical standards that no sensible person who had applied his mind to the issue to be decided could have arrived at it. Proportionality as a legal test is capable of being more precise and fastidious than a reasonableness test as well as requiring a more intrusive review of a decision made by a public authority which requires the courts to `assess the balance or equation' struck by the decision maker. Proportionality test in some jurisdictions is also described as the “least injurious means”; or “minimal impairment”; test so as to safeguard fundamental rights of citizens and to ensure a fair balance between individual rights and public interest. Suffice to say that there has been an overlapping of all these tests in its content and structure, it is difficult to compartmentalize or lay down a straight jacket formula and to say that Wednesbury has met with its death knell is too tall a statement. Let us, however, recognize the fact that the current trend seems to favour proporti-onality test but Wednesbury has not met with its judicial burial and a state burial, with full honours is surely not to happen in the near future.
31. Proportionality, requires the Court to judge whether action taken was really needed as well as whether it was within the range of courses of action which could reasonably be followed. Proportio-nality is more concerned with the aims and intention of the decision maker and whether the decision maker has achieved more or less the correct balance or equilibrium. Courts entrusted with the task of judicial review has to examine whether decision taken by the authority is proportionate, i.e. well balanced and harmonious, to this extent court may indulge in a merit review and if the court finds that the decision is proportionate, it seldom interferes with the decision taken and if it finds that the decision is disproportionate i.e. if the court feels that it is not well balanced or harmonious and does not stand to reason it may tend to interfere.”
 
From the above persuasive observation, we can safely draw the line that a public and/or constitutional authority must act reasonably required to do within the ambit of the concerned law. The reasonableness and rationality can be read together in the instant case, wherein the EC was given the responsibility to act fairly, diligently and reasonably in applying the law. It never had the authority to override the metes and bounds of law, which it did. So, a legitimate expectation cannot be defeated by a public/ constitutional body, which is set by law to be followed by a public functionary. In this regard our Court have set its own standard in the light of decisions made in other jurisdictions and of our own, such as, in Bangladesh Soya-Protein Project Ltd. V. Secretary, Ministry of Disaster Management and Relief 22 BLD (2000)HCD 378; The Chairman, Bangladesh Textile Mills Corporation V. Nasir Ahmed Chowdhury 22 BLD (AD) (2002) 199; Dhaka WASA V. Superior Buildings and Engineers Ltd. 51 DLR AD 1999.
 
The duty cast upon a public authority that tantamounts to a promise, denial of which gives rise to legitimate expectation of a citizen, if his personal or social right as a whole is infringed, which may be summarised as follows:
 
  1. a person may legitimately expect from the concerned authority that it would act fairly;
  2. a person has an expectation, which is reasonable in the circumstances, however, it is beyond enforceable legal rights, that would render it legitimate;
  3. a public authority is bound to follow a certain procedure, which culminates into a promise or undertaking because of its express or implied consistent practice, unless of course it does not contravene any statutory duty;
  4. if the practice is well established that it would be unfair on the part of the Government to depart from the said practice, legitimate expectation may arise that the incumbent can reasonably expect the said practice to continue to his benefit even though he may not have strict legal right to the said benefit;
  5. if some benefit or advantage, which a class of persons had in the past been allowed by the Government, which they can legitimately expect to continue, unless there is some rational grounds for the authority to withdraw it;
  6. not a mere anticipation or a wish or a hope it must be a definite expectation which is reasonable and clear facts and consistent practice so that a person or a class of persons may feel that there is no reason to discontinue the practice to his or their disadvantage, then the said expectation would be crystallized into a legitimate one and in such a case the power of judicial review would be available to protect the said legitimate expectation unless there is overwhe-lming public interest against it; and
  7. when some certain terms of contract is varied to the detriment of the incumbent that usually are not supposed to be or are not usually done in other case(s), in such circumstance his legitimate expectation would arise.
 
So, it is quite reasonable on part of certain number of citizens to expect from a constitutional body of the State to act ‘reasonably’ and ‘rationally’ on certain issue(s), which involves a national issue for which they sought their interference through applications, i.e. by making objections against providing registration to the JBI. Although, the petitioners in the instant petition have invoked jurisdiction of this Court on ‘public interest’, however, their claims are overlapping and both deserves audience.
 
In response to the respondents’ arguments that EC is a constitutional body, as such, another constitutional body, i.e. this Court would not intervene into its affairs, seems to be absolutely unreasonable, since on many occasions this Court and the Appellate Division have declared many Acts of the Parliament as ultra vires. This Court has every authority to review every decision of the State under its authority of ‘judicial review’. It began with the fourth Supreme Court Chief justice of the United States of America, (1803) John Marshall, who created a legacy that has endured more than two hundred years. While writing the majority opinion for the Supreme Court case of Marbury v. Madison in 1803, he single handedly changed the course of judicial system. He did this by granting the judicial branch the power to determine a law unconstitutional, otherwise known as ‘judicial review’. The question at hand, then, was to explore how one ruling on a seemingly insignificant case became a worthy landmark on the timeline of United States history, as well as, landmark for the world’s legal history. Just as any decision, at any specific point of time, Marshall did not intentionally choose to eradicate the norm and clear a new path for the future. He was neither attempting to establish judicial supremacy, nor wanted to rewrite the law. Nevertheless, this seemingly ingenious decision was clearly groundbreaking in that it was the first instance on which the Supreme Court officially established its power over legislation, and has since been viewed as the basis for judicial authority.
 
In our jurisdiction, Anwar Hossain Chowdhury vs. Bangladesh, BLD 1989, spl. Issue= 41 DLR (AD) 44, the famous 8th Amendment case, is a glaring example of declaring an Act of Parliament and/or certain provisions within it as being ultra vires by the Supreme Court. And on many other occasions, such as, M. Shamsul Haque and others vs. Bangladesh and others, 15 BLC 236, this Court declared either an Act of the Parliament and/ or some of its provisions ultra vires to the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh, as such, no constitutional body’s decision is beyond the jurisdiction of ‘judicial review’ of this Court.
 
JBI applied to the EC on 20.10.2008 through its secretary general for registration of their party with the EC under the provisions of the RPO, and with the said application the respondent No. 1 submitted (i) provisional party constitution; (ii) party’s election manifesto, 2007; (iii) decision of the executive committee of the party for registration as such; (iv) a list of names of the Executive Committee of the party; (v) treasury ‘challan’ showing payment of registration fees; (vi) list of bank accounts of the party; (vii) description of income source of the party; (viii) authorization letter and (ix) a gazette showing a person elected as Member of Parliament under the party symbol.
 
The EC formed a committee for scrutiny of documents submitted by political parties for registration; and the committee, after scrutiny-izing the JBI’s application and its constitution, found some provisions of the BJI constitution to be in conflict with the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh including the Preamble, Articles 8, 9, 10 and 11 of the Constitution; and after informing the same to the respondent No. 1, i.e. JBI, it’s the then legal affairs secretary went to the EC and deleted some provisions under his hand in section 5 of the their party constitution and promised the committee that they would drop those provisions from its constitution in their next party council. BJI submitted an amended version of its constitution vide their letter dated 22.07.2009 to the EC; and again another version with further amendments on 02.12.2012 during the pendency of the instant Rule.
 
After receiving the amended version of the constitution of BJI 22.07.2009, it was considered by the EC in their meeting No. 270/2010. The Committee of the EC observed, inter alia, that (i) the BJI has not ratified their constitution as promised by them earlier; (ii) the object stated in section 3 of the BJI constitution is not in conformity with the Preamble of the Constitution of the Republic; (iii) the provisions of section 5(3) and 6(4) of the BJI constitution are not in conformity with the Fundamental Principles of the State Policy of the Constitution of the Republic; (iv) the provisions of sub-section (i) –(vi) of section 7 and provisions of section 11(2) of the BJI constitution in respect of membership of non-muslims in the party and the ‘oath’ relevant therewith, are not realistic and conflicting with the objectives of the BJI; and (v) the provisions in section 18(4)(cha) are contrary to article 90B(1(b)(i) of the RPO. Informing the same, EC sent letter No. wbKm/cª-3/iv`/5 (44-/2008/35) dated 24.01.2010 to the then secretary-general of the BJI informing him about the concerns of the Commission to bring the constitution of the BJI in conformity with the relevant laws of the country.
 
EC following its earlier letter dated 24.01.2010, sent another letter being No. wbKm/cª-3/iv`/5 (44)/2008/151 dated 29.04.2010 to the BJI and requested them to submit amended constitution of the BJI by 10.06.2010. BJI’s reply dated 28.04.2010 to the EC in reply to the EC’s letter dated 18.03.2010 was not acceptable to the EC, so the EC decided in its meeting No. 298/2010 to send a reply to the BJI.
 
BJI submitted another version of its amended constitution in July, 2010, which appeared to have been published in July, 2010 and on preliminary scrutiny it was observed that the amended constitution of July, 2010 brought some changes only in section 2(5) of their constitution. The EC vide its letter নিকস/প্র-৩/রাদনি/০৪/২০০৮/৮১৪ dated 14.12.2011, reconstituted its Scrutiny Committee for scrutinizing the constitution of the political parties with its the then Joint Secretary (Law) as its convener.
 
EC sent another letter vide No. 17.00. 0000.025.50.058.08.119 dated 04.11.2010 to the BJI to bring the necessary changes in the BJI constitution as has been requested to them through its letter dated 24.01.2010 and 29.04.2010 and submit the amended consti-tution to the Commission within 05.12.2012, and in reply to the said letter, BJI sent a letter on 20.11.2010 to the EC and sought time from the Commission till 05.02.2013 to submit its amended constitution.
 
The EC’s scrutiny committee scrutinised the constitution of the JBI of 02.12.2012 along with its earlier versions, i.e. of 2008, 2009 and 2010, in the light of the objections raised by the EC having its self-explanatory observations in a note-sheet prepared after scrutiny (annexure- 27), however, BJI did not take any further step thereafter with regard to the said scrutiny report, since the instant Rule remained pending. The note-sheet and earlier letters, as stated above, very clearly shows that every time EC found the constitution of the BJI is non-compliant to Article 90C (1)(a) and (1)(b) of the RPO and yet according to EC that is non-compliant to the said provisions as stated by the EC and BJI never said or replied to the EC that its constitution is compliant to the RPO, which they have argued here in its submissions, as such, it succumbs to its own injuries.
 
Now let us examine the relevant provisions of the RPO, which read as follows-
 
90C. (1) A political party shall not be qualified for registration under this Chapter, if-
  1. the objectives laid down in its constitution are contrary to the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh; or
  2. any discrimination regarding religion, race, caste, language or sex apparent in its constitution; or
  3. by name, flag, symbol or any other activity it threatens to destroy communal harmony or leads the country to territorial disintegration; or
  4. there is any provision in its constitution for the establishment or operation of any office, branch or committee outside the territory of Bangladesh.
90D. Any political party complying with the conditions laid down in Article 90A, 90B and not disqualified under Article 90C may apply for registration in the prescribed manner under the signature of its Chairman and General-Secretary or any other person holding equivalent rank:
Provided that the Commission may allow any political party to apply for registration which has a provisional constitution containing provisions as specified under sub-clause (b)(i), (b)(ii) and (b)(iv) of clause (1) of Article 90B as well as complying with the provisions under Article 90C along with a resolution of the highest policy-making body of the party, by whatever name it may be called, to the effect that the party shall submit a ratified constitution within six months from the date of first sitting of ninth parliament.
[In the provisio to the Article 90D, the time limit of “six months” was substituted by the words “within twelve months” by section 3 of the Representation of the People Order (Amendment) Act, 2009 (Act. No. LXIV of 2009) (with effect from 25th July, 2009).]
 
90E. (1) The Commission shall, after taking a decision to register a political party, issue a registration certificate in the prescribed form and shall publish it in the Official Gazette.
(2) If the application for registration of a political party is rejected, the Commi-ssion shall, within seven working days, inform the concerned party of its decision in writing.
(3) The decision on registration by the Commission shall be final.
 
The above discussion clearly reflects that at the time of submitting application for registration of JBI, its constitution was non-compliant to Article 90C of the RPO as has clearly been stated by the EC. The time frame for submission of amended version was until six months of the next Parliament, i.e. the 9th  Parliament. The limit was later extended for another six months. Now, we have to see what Article 90D embraces. It clearly stipulates that,
 
90D. Any political party complying with the conditions laid down in Article 90A, 90B and not disqualified under Article 90C may apply for registration in the prescribed manner...
And further provided that
Provided that the Commission may allow any political party to apply for registr-ation which has a provisional constitu-tion containing provisions as specified under sub-clause (b)(i), (b)(ii) and (b)(iv) of clause (1) of Article 90B as well as complying with the provisions under Article 90C along with a resolution of the highest policy-making body of the party, by whatever name it may be called, to the effect that the party shall submit a ratified constitution within six months (twelve months) from the date of first sitting of ninth parliament.
 
So, the at the very outset the intending political party was required to be compliant to Article 90C, which the JBI was not, and even not yet. The proviso further made it clear that an intending political party may apply with a “provisional constitution containing provisions as specified under sub-clause (b)(i), (b)(ii) and (b)(iv) of clause (1) of Article 90B as well as complying with the provisions under Article 90C”. So, in every aspect JBI defaulted in complying with the provisions of Article 90C and 90D of the RPO. The EC never had the authority to accord registration to JBI with a non-compliant constitution.
 
JBI and EC time and again argued that the registration was provisional but we could not find any provision in the RPO to accord provisional registration and on the other hand in the ‘registration certificate’ itself there is no such stipulation that it is a provisional certificate. The stipulation was that complying the mandatory requirements, i.e. Article 90C, with a provisional constitution a political party may be registered subject to making it compliant within six months (later the time limit was extended to twelve months by an Amending Act of the Parliament).
 
The relevant provision very clearly stipulated that EC neither had the authority to register JBI with such a non-compliant constitution, nor it ever had the authority to request JBI to amend its constitution to make it compliant since its registration from its incep-tion was done without any lawful authority.
 
So, from the discussions made hereinabove we are of the view that Rule deserves merit and therefore it should be made absolute.
 
In the result, the Rule is made absolute. It is hereby declared that the registration of Jamat-e-Islam Bangladesh given to it by the Election Commission on 4.11.2008, was done without lawful authority and is of no effect.
(Quazi Reza-Ul Hoque, J)
 
Order of the Court
By majority view this Rule is made absolute. The impugned registration given to the Respondent No.1 by the Respondent No. 4, as a political party is hereby declared to have been given without lawful authority and is of no legal effect.
(Mr. Justice M. Moazzam Husain)
(Mr. Justice M. Enayetur Rahim)
(Mr. Justice Quazi Reza-Ul Hoque)
 
Certificate
 
Learned Advocates appearing for Respondents No.1 prayed for certificate as contemplated under Article 103 of the Constitution on the assertion that this case involves substantial question of law involving interpretation of the Constitution in that there is scope of interpretation of Article 90C of the RPO in the light the provisions of Articles 2A, 8, 11 and 38 and the preamble of the Constitution as those stood at the time of registration and the interpretation has direct bearing on the merit of this case.
 
Upon hearing we find substance in the submission and accordingly allow certificate for examination of the following question:
 
“Whether the provision of Article 90C of the Representation of the People Order, 1972, should be interpreted in the light of the provisions of Articles 2A, 8, 11, and 38 and the Preamble of the Constitution prevailing at the time of the impugned registration.”
 
(Mr. Justice M. Moazzam Husain)
(Mr. Justice M. Enayetur Rahim)
(Mr. Justice Quazi Reza-Ul Hoque)