Md. Harun-Ur-Rashid Vs. Bangladesh and others, 3 LNJ (2014) 142

Case No: Writ Petition No. 926 of 2013

Judge: Md. Badruzzaman,

Court: High Court Division,,

Advocate: Samarendra Nath Biswas,Purabi Rani Sharma,Mr. A.K.M Jaglul Haider,,

Citation: 3 LNJ (2014) 142

Case Year: 2014

Appellant: Md. Harun-Ur-Rashid

Respondent: Bangladesh and others

Subject: Writ Petition,

Delivery Date: 2014-01-09


HIGH COURT DIVISION
(SPECIAL ORIGINAL JURISDICTION)

 
Present:
M. Moazzam Husain, J.
Md. Badruzzaman, J
 
Judgment
09th January, 2014
 
Md. Harun-Ur-Rashid ... Petitioner
-Versus-
Bangladesh and others ... Respondents
 
Constitution of Bangladesh, 1972
Article 102
মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভার্নিং বডি ও ম্যানেজিং কমিটি প্রবিধান মালা, ২০০৯
প্রবিধান ৮(৩) এবং ৩৬(২)
The participation of Head Master in the election of chairman or any other person as chairman is invalid. The casting vote of head master in the election of chairman is no vote in the eye of law and is contrary to probidhan 8(3).
Headmaster of the school has no authority to participate in the election process for the purpose of election of chairman and vote for any person as chairman in view of the provision of probidhan 8.
So the vote cast by the Headmaster was invalid on the face of it and no vote in the eye of law and is clearly hit by probidhan 8(3). . . . (23)
The decision of the Headmaster in casting vote for the petitioner being void ab inito and ineffective in view of the provision of probi-dhan 36(2), we are of the view that question of violation of natural justice does not arise. . . . (24)
 
Mr. A.K.M Jaglul Haider Afric, Advocate.
. . . For the Petitioner.

Mr. Shohrowardi, Advocate
. . . For Added Respondent No.4

Mr. Samarendra Nath Biswas with
Mr. Purabi Rani Sharma, A.A.Gs. 
. . . For Respondent No.1.

Writ Petition No. 926 of 2013
 
JUDGMENT
Md. Badruzzaman, J.
 
On an application under Article 102 of the Constitution of the People’s Republic of Bangladesh, this rule nisi was issued calling upon the respondents to show cause as to why the impugned order vide Memo No. অ/৯৮।নরসিংদী/১৫৪৬ dated 13.1.2013 issued under the signature of the respondent No.3, granting approval of the Managing Committee of the Shibpur Pilot Girls’ High School, Shibpur, Narshingdi so far as it relates to the post of Chairman thereof shall not be declared to have been issued without lawful authority and is of no legal effect and as to why the respondents shall not be directed to grant approval to the newly elected Managing Committee of the Shibpur Pilot Girls’ High School, Shibpur, Narshingdi under the Chairmanship of the petitioner sent to the respondent No.3 in the prescribed form on 29.11.2012 (Annexure-D) and to publish the same in the official Gazette.
 
At the time of issuance of rule on 21.1.2013 operation of the impugned Memo (Annexure-E) so far it relates to the post of Chairman of the Managing Committee has been stayed and the UNO, Shibpur Upazilla was directed to operate the Bank account(s) of the school jointly with the Headmaster and jointly sign salary sheets, cheques, vouchers, etc. connected with the salary and privileges of the teachers and employees and other expenses of the school. The said direction was modified at the instance of the petitioner by order dated 19.6.2013  allowing the petitioner to operate the Bank Account of the school, and sign the salary sheet of the staff as usually jointly with the Headmaster. However, in C.M.P No. 602 of 2013 filed by added respondent No.4, the learned chamber Judge of the Appellate Division by order dated 20.6.2013 modified the said direction dated 19.6.2013 allowing one Mr. Dewan Mustafa Muznu  to sign the salary sheets and cheques of the teachers and employees of the school in question.
 
Facts, for the purpose of disposal of the Rule, in short, are that Upazilla Nirbahi Officer, Shibpur, Narshingdi appointed Mr. Mohammad Ashraful Alam Siddique, the Upazilla Academic Supervisor, Shibpur, Narshingdi as the presiding officer for holding election of the managing committee of Shibpur Pilot Girls’ High School, Narshingdi. Said presiding officer declared election schedule on 4.11.2012 fixing 22.11.2012 for holding election. In the said election 9 (nine) persons were elected as members of the managing committee in different categories.  The elected members of the committee held a meeting on 28.11.2012 for election of the Chairman of the managing committee and in the said meeting the name of the petitioner and  added respondent No.4 were proposed as the chairman and they secured 5:5 votes and as per provision of Probidhan 35(6) of “মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা (মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক সতরের বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডি ও ম্যানেজিং কমিটি) প্রবিধানমালা, ২০০৯” (hereinafter referred to as “Probidhanmala, 2009”) the petitioner got casting vote and was elected as chairman of the managing committee defeating the added respondent No.4 by a margin of 1 (one) vote and accordingly a resolution (Annexure-C) was written to that effect.
 
The full committee of the school was forwarded on 29.11.2012 by the Headmaster to the Education Board in prescribed form for approval. The respondent Board accorded approval of the committee on 13.1.2013 as contained in Annexure-E to the writ petition but in the approval letter it transpired that the committee was approved by the Board with the added respondent No.4 as chairman in place of the elected chairman i.e the petitioner.
 
Challenging the legality and propriety of the said letter dated 13.1.2013 issued under the signature of respondent No. 3, the   petitioner has invoked our jurisdiction under Article 102 of the Constitution and obtained the present Rule.
 
Mr. A.K.M Jaglul Haider Afric, learned Advocate appearing on behalf of the petitioner submits that the respondents violated the principle of natural justice in excluding the name of the petitioner by adding the name of added respondent No.4 as chairman in his place at the time of approval of the  managing committee by the impugned order though petitioner was legally elected as chairman as per probidhan 8 read with probidhan 35(6) of Probidhanmala, 2009 by the newly elected members of the proposed managing committee and as such the same is illegal, malafide and colourable exercise of power and liable to be declared to have been passed and issued without lawful authority and is of no legal effect.
 
Mr. Md. Shohrowardi, learned Advocate appearing on behalf of added respondent No. 4 submits that  process of election of chairman of the proposed managing committee was ex-facie illegal in view of the  provision laid down in probidhan 8 of Probidhanmala, 2009 inasmuch as though the Headmaster of school is authorised only to arrange meeting of the newly elected members of the proposed committee for the purpose of election of Chairman by their majority support and in doing so the Headmaster of the institution acts as the Head of the educational institution and not as the member-secretary of the proposed managing committee and though he/she has no  right to cast vote for election of chairman of the proposed committee but in the instant case the Headmaster illegally cast vote infavar of the petitioner, which is no vote in the eye of law and as such question of casting vote by the president of the meeting does not arise at all. To elaborate his contention, learned Advocate further submits that  added respondent No.4 got 5(five) votes out of 9(nine) votes of the newly elected members and the petitioner got 4 (four) votes and accordingly  the added respondent No.4 was elected as the chairman of the managing committee but the Headmaster in collusion with the petitioner sent the proposal of the managing committee to the Board by including the name of the petitioner as the Chairman showing that the petitioner obtained 6 (six) votes mentioning in the resolution dated 28.11.2012 to the effect that the Headmaster cast 1(one) vote for the petitioner and being the position 5:5 the president of the meeting applying provision of probidhan 35(6) cast second vote (casting vote) in favour of the petitioner and declared him as chairman, violating the provision of probidhan 8 of Probidhanmala, 2009. Learned Advocate further submits that aforesaid act of illegality was taken to the notice of the Board by  the  five elected members of the committee, who were present in the meeting by application dated 2.12.2012 and 5.12.2012 as contained in Annexure-2 and 3 to affidavit-in-opposition and the Board considering all the relevant papers and the above illegality rightly approved the managing committee  by the impugned memo with the added respondent No.4 Md. Asaduzzaman as chairman in place of the petitioner and as such  no interference is called for by this Court. Consequently the rule should be discharged with cost.
 
We have heard the learned Advocates and perused the record. It appears that after election of nine members of the proposed managing committee a meeting was held on 28.11.2012 for the purpose of election of chairman of the managing committee and a resolution of the meeting was farwarded to the Board to that effect showing that the petitioner was elected as chairman getting 6 votes who defeated the added respondent No. 4, who got 5 votes. Content of the resolution is quoted below for convenience of appreciation:
 
মাধ্যমিক ও উচচ মাধ্যমিক স্তরের বেসরকারি
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভর্ণিং বডি ও ম্যানেজিং
কমিটি প্রবিধানমালা, ২০০৯
শিবপুর পাইলট বালিকা উচচ বিদ্যালয়
শিবপুর, নরসিংদী। ২৮/১১/২০১২ খ্রী:
 
নব নির্বাচিত উপস্থিত সদস্যগনের নাম ও স্বাক্ষরঃ
১। জনাব দেওয়ান মোস্তফা মজনু সাধারন অভিভাবক সদস্য    
২। জনাব শাহীন মিয়া সাধারন অভিভাবক সদস্য             
৩। ঝব্বয ভখরন ভূইয়া সাধারন অভিভাবক সদস্য         
৪। জনাব আঃ কাদির খান সাধারন অভিভাবক সদস
৫। জনাবা সামসুন নাহার বেগম সংরক্ষিত মহিলা সদস্য
৬। জনাব মোফাজ্জল হোসেন খান সেজু দাতা শ্রেনী সদস্য
৭। জনাব মোঃ এমদাদুল হক সাধারন শিক্ষক
৮। জনাব মাইন উদ্দিন সাধারন শিক্ষক
৯। জনাবা সেতারা বেগম সাধারন শিক্ষক
১০। জনাব মোঃ সাজ্জাত হোসেন ভূঞা প্রধান শিক্ষক ও সদস্য সচিব
 
অদ্য ২৮/১১/২০১২ খ্রী: তারিখ রোজ বুধবার বিকাল ২.৩০ ঘটিকায় শিবপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নব নির্বাচিত ম্যানেজিং কমিটির সদস্যগনের প্রথম সভা বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করার জন্য অভিভাবক সদস্য জনাব দেওয়ান মোস্তফা (মজনু) দাতা সদস্য জনাব মোফাজ্জল হোসেন খান সেজুর নাম প্রস্তাব করেন। উক্ত প্রস্তাব উপস্থিত সকল সদস্যগনের সমর্থনে গৃহিত হয়। অতপর উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভার কাজ আরম্ভ করেন।
 
১ নং আলোচ্য সূচী মোতাবেক নবগঠিত ম্যানেজিং কমিটি গঠন কল্পে অভিভাবক সদস্য জনাব আব্দুল কাদির খান শিবপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির জন্য জনাব হারুনুর রশীদ খানের নাম প্রস্তাব করেন। উক্ত প্রস্তাব অভিভাবক সদস্য জনাব দেওয়ান মোস্তফা মজনু, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য জনাবা সামসুন নাহার, দাতা সদস্য জনাব মোফাজ্জল হোসেন খান সেজু ও বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব সাজ্জাত হোসেন ভূঞা উক্ত প্রস্তাব সমর্থন করেন।
 
উক্ত আলোচ্য সূচীতে নব গঠিত ম্যানেজিং কমিটি গঠন কল্পে সাধারন শিক্ষক প্রতিনিধি জনাব মোঃ এমদাদুল হক শিবপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির জন্য জনাব আসাদুজ্জামান (আসাদ) এর নাম প্রস্তাব করেন উক্ত প্রস্তাব অভিভাবক সদস্য জনাব কিরন ভুইয়া, অভিভাবক সদস্য জনাব শাহীন মিয়া, সাধারন শিক্ষক প্রতিনিধি জনাব মাইন উদ্দিন ও সংরক্ষিত মহিলা শিক্ষক প্রতিনিধি জনাবা সেতেরা বেগম উক্ত প্রস্তাব সমর্থন করেন। ফলে জনাব হারুনুর রশীদ খান ০৫ (পাচ) ও আসাদুজ্জামান আসাদ ০৫ (পাচ) সমান সংখ্যক ভোট পান।
 
এমতাবস্থায়, মাধ্যমিক ও উচচ মাধ্যমিক বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভার্নিং বডি ও ম্যানেজিং কমিটি প্রবিধান মালা ২০০৯ এর ৩৫(৬) মোতাবেক ভোটের সমতার কারণে সভায় সভাপতিত্বকারী ব্যক্তি জনাব মোফাজ্জল হোসেন খান সেজু সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও শিক্ষানুরাগী জনাব হারুনুর রশীদ খান সাহেবকে দ্বিতীয় বা নির্নায়ক ভোট প্রদান করে নব গঠিত ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নির্বাচিত করেন।
 
২ নং আলোচ্য সূচী মোতাবেক অভিভাবক সদস্য জনাব কিরন ভূইয়া শিবপুর পাইলট বালিকা উচচ বিদ্যালয়ের নব গঠিত ম্যানেজিং কমিটির  কো-অপ্ট সদস্য হিসাবে জনাব মোঃ আওলাদ হোসেন সরকারের নাম প্রস্তাব করেন। উক্ত প্রস্তাব অভিভাবক সদস্য জনাব শাহীন মিয়া, সাধারন শিক্ষক প্রতিনিধি মোঃ এমদাদুল হক, সাধারন শিক্ষক প্রতিনিধি জনাব মাইন উদ্দিন এবং সংরক্ষিত মহিলা শিক্ষক প্রতিনিধি জনাবা সেতেরা বেগম সমর্থন করেন।
 
উক্ত আলোচ্য সূচী মোতাবেক অভিভাবক সদস্য জনাব দেওয়ান মোস্তফা মজনু শিবপুর পাইলট বালিকা উচচ বিদ্যালয়ের নব গঠিত ম্যানেজিং কমিটির কো-অপ্ট সদস্য হিসাবে জনাব মোঃ শফিকুল ইসলাম মৃধার নাম প্রস্তাব করেন। উক্ত প্রস্তাব অভিভাবক সদস্য জনাব কাদির খান, সংরক্ষিত মহিলা  সদস্য জনাবা সামসুন নাহার বেগম, দাতা সদস্য জনাব মোফাজ্জল হোসেন খান সেজু ও প্রধান শিক্ষক জনাব মোঃ সাজ্জাত হোসেন ভূঞা সমর্থন করেন। ফলে জনাব আওলাদ হোসেন সরকার ০৫ (পাচ) ও জনাব মোঃ শফিকুল ইসলাম মৃধা ০৫ (পাচ) সমান সংখ্যক ভোট পান।
 
এমতাবস্থায়, মাধ্যমিক ও উচচ মাধ্যমিক বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভার্নিং বডি ও ম্যানেজিং কমিটি প্রবিধান মালা ২০০৯ এর ৩৫ (৬) মোতাবেক ভোটের সমতার কারণে সভায় সভাপতিত্বকারী ব্যক্তি জনাব মোফাজ্জল হোসেন খান সেজু জনাব মোঃ শফিকুল ইসলাম মৃধা সাহেবকে দ্বিতীয় বা নির্নায়ক ভোট প্রদান করে নব গঠিত ম্যানেজিং কমিটির কো-অপ্ট সদস্য  নির্বাচিত করেন।
অতপর আর কোন আলোচনা না থাকায় সভাপতি সাহেব উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ দিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষনা করেন।
 
২৮/১১/১২
মোফাজ্জল হোসেন খান
সভার সভাপতি।
 
On perusal of Annexure E, resolution of the meeting dated 28.11.2012 prepared by the president of the meeting it appears that 9 (nine) elected members were present in the meeting, the name of petitioner and added respondent No.4 were proposed as the chairman of the managing committee, the petitioner got 4 votes and the added respondent No.4 got 5 votes.  It also appears that Headmaster of the school was present in the meeting claiming as member-secretary of proposed managing committee, singed the attendance register and actively participated in the election process and voted for the writ petitioner to elect him chairman. In this way petitioner got total 5 votes and the margin of vote between the petitioner and added respondent No. 4 stood at 5:5, the president of the meeting gave a casting vote in favour of the petitioner invoking his right under probidhan 35 (6) of Probidhanmala, 2009.
Now question arises as to whether Headmaster of a non-government school is authorized under law to cast vote for any of the chairman candidate and whether the president of the meeting authorized to cast a second vote or casting vote in favavour of any of candidates in view of the provision laid down in probidhan 8 readwith  probidhan 35(6) of Probidhanmala, 2009.

To consider the submissions of the contending parties as well as to answer the above questions we are to look into the relevant provisions relating to forming managing committee of a non-government high school contained in Probidhanmala, 2009. Organo-gram and procedure of formation of managing committee of a non-government High School has been prescribed in probidhan 7 of Probidh-anmala, 2009 which is quoted below:
 
“৭। ম্যানেজিং কমিটির গঠন।-(১) নিম্ন বর্ণিত সদস্য সমন্বয়ে ম্যানেজিং কমিটি গঠিত হইবে, যথা:
(ক) প্রবিধান ৮ অনুসারে নির্বাচিত একজন সভাপতি; (emphasis added)
(খ) সকল শিক্ষকের মধ্যে হইতে তাহাদের ভোটে নির্বাচিত দুইজন সাধারণ শিক্ষক সদস্য
****************
(গ)  মহিলা শিক্ষকগণের মধ্যে হইতে তাহাদের ভোটে নির্বাচিত একজন সংরক্ষিত মহিলা শিক্ষক সদস্য
****************
(ঘ) নবম শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের অভিভাবকগণের মধ্যে হইতে মাধ্যমিক    স্তরের সকল অভিভাবকগণের ভোটে নির্বাচিত চারজন সাধারণ অভিভাবক সদস্য;
*********************
(ঙ) নবম শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের মহিলা অভিভাবকগণের মধ্যে হইতে মাধ্যমিক স্তরের সকল অভিভাবকগণের ভোটে নির্বাচিত একজন সংরক্ষিত মহিলা অভিভাবক সদস্য:
******************
(চ)   সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা, যিনি একজন প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হইবেন, তবে একাধিক প্রতিষ্ঠাতা থাকিলে তাহাদের মধ্যে হইতে তাহাদের দ্বারা নির্বাচিত একজন সদস্য;
(ছ) দাতাগণের মধ্যে হইতে তাহাদের দ্বারা নির্বাচিত একজন সদস্য;
(জ) শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান, যিনি উহার সদস্য-সচিবও হইবেন; (emphasis added)
(ঝ) একজন কো-অপ্ট সদস্য যিনি স্থানীয় একজন বিদ্যোৎসাহী ব্যক্তি এবং ম্যানেজিং কমিটির প্রথম সভায় উপস্থিত সদস্যগণের সংখ্যাগরিষ্ঠের সমর্থনে যাহাকে কো-অপ্ট করা হইয়াছে।
(২) কোন শিক্ষক কিংবা শিক্ষক শ্রেণীর সদস্য ম্যানিজিং কমিটির সভাপতি পদে নির্বাচিত হইবেন না।”
***********************
 
After election of members of the proposed managing committee in different categories as envisages in probidhan 7(1)(Ka) to 7(1)(Cha) as above, the chairman of the managing committee will be elected as per provision of probidhan 8. Probidhan 8 runs as follows:
 
৮। ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নির্বাচন।-(১) মাধ্যমিক স্তরের প্রত্যেক বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অন্যান্য সদস্য নির্বাচন সম্পন্ন হইবার অনধিক সাত দিনের মধ্যে প্রতিষ্ঠান প্রধান উক্ত প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নির্বাচনের উদ্দেশ্যে ম্যানেজিং কমিটির উক্তরুপ নির্বাচিত সদস্যগণের একটি সভা আহবান করিবেন। (emphasis added)
(২) উপ-প্রবিধান (১) এর অধীন আহুত সভায় উপস্থিত সদস্যগণের মধ্যে হইতে তাহাদের দ্বারা মনোনীত, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি পদে প্রতিযোগী নহেন এমন, একজন সদস্য সভায় সভাপতিত্ব করিবেন।
(৩) উক্ত সভায় উপস্থিত সদস্যগণের সংখ্যাগরিষ্ঠের সমর্থনে কমিটির সদস্যগণের মধ্যে হইতে অথবা স্থানীয় শিক্ষানুরাগী ব্যক্তি, খ্যাতিমান সমাজসেবক, জনপ্রতিনিধি বা অবসরপ্রাপ্ত প্রথম শ্রেণীর সরকারি কর্মকর্তাগণের মধ্যে হইতে ম্যানেজিং কমিটির একজন সভাপতি নির্বাচিত হইবেন; (emphasis added)”
*************************
 
It appears from the law quoted above that Probidhan 8 of Probidhanmala, 2009 provides the procedure for election of Chairman of the new managing committee.  “প্রতিষ্ঠান প্রধান” as contained in probidhan 8(1) indicates ‘Head of the Educational Institution’ not ‘member-secretary of managing committee of the Institution’ and ‘উত্তুরতপ নির্বাচিত সদস্য গনের একটি সভা ’ indicates ‘meeting of members elected in different category as per probidhan 7’. Provision of probidhan 8 is very much clear and unambiguous which provides that after election of member in different categories in view of the provision of probidhan 7, the ‘head of the institution’ would arrange a meeting of the said elected members for the purpose of election of chairman of new managing committee and the elected members, present in meeting, will elect chairman of managing committee by majority votes.
 
A combined reading of sub-probidhan (1) and (3) of probidhan 8 it appears that when the ‘Headmaster’ of the institution arranges such meeting for election of chairman he/she acts as the ‘head of the institution’ not as the ‘member-secretary’ of the proposed managing committee, even his/her presence in the meeting is not necessary in view of the provision of probidhan 8. (Emphasis supplied).
 
Now another question arises as to when the ‘Headmaster’ will act as the ‘member-secretary’ of the managing committee. In this connection provisions of probidhan 9, 29 and 33 are relevant, which are quoted below:
 
“ ৯।      গভর্ণিং বডি ও ম্যানিজিং কমিটির মেয়াদ।-প্রবিধান ৩৮ এর বিধান অনুসারে পূর্বে বাতিল করা না হইলে গভর্ণিং বডি বা, ক্ষেত্রমত, ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ হইবে উহার প্রথম সভা অনুষ্ঠানর তারিখ হইতে পরবর্তী দুই বৎসর:
তবে শর্ত থাকে যে, কোন গভর্ণিং বডি বা ক্ষেত্রমতে, ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়া সত্ত্বেও উহার উত্তরাধিকার গভর্ণিং বডি বা ক্ষেত্রমত ম্যানেজিং কমিটির প্রথম সভা অনুষ্ঠিত না হওয়া পর্যন্ত উক্ত প্রথম গভর্ণিং বডি বা ক্ষেত্রমত ম্যানেজিং কমিটি উহার দায়িত্ব পালন অব্যাহত রাখিবে।
**********
২৯। বোর্ডকে অবহিতকরণ, প্রজ্ঞাপন জারি, ইত্যাদি।-
(১) ********************************
(২) ********************************
(৩) ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ও সভাপতি নির্বাচন সম্পন্ন হইবার অনধিক তিন দিনের মধ্যে প্রতিষ্ঠান প্রধান নির্বাচিত ব্যক্তিগণের পূর্ণ নাম ও ঠিকানা এবং সদস্য নির্বাচনের জন্য অনুষ্ঠিত সভার কার্যবিবরণীর সত্যায়িত অনুলিপিসহ কমিটি অনুমোদনের জন্য বোর্ডে প্রেরণ করিবেন এবং বোর্ড কমিটি অনুমোদনপূর্বক উহা প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করিবে। (emphasis supplied)
***********
৩৩। সাধারণ সভা আহবান।-
(১) বোর্ড কর্তৃক প্রবিধান ২৯ এর অধীন প্রজ্ঞাপন জারির পরবর্তী ত্রিশ দিনের মধ্যে গভর্ণিং বডি বা, ক্ষেত্রমত, ম্যানেজিং কমিটির প্রথম সভা অনুষ্ঠান করিতে হইবে।
(২)   ********************
(৩)  **********************
(৪)   **********************
(৫)   **********************
(৬)   ************************”
 
Probidhan 29(3) as qusted above provides that after election of chairman and members of new managing committee the Headmaster as Head of the institution, not as member-secretary, would send the attested copy of result of members published by the presiding officer and resolution of the meeting held for the purpose of electing Chairman, to the Board for approval and the Board would publish notification after approval of such committee. Once a managing committee is approved and notification is issued it obtains legal character accruing rights and duties of the committee as provided in probidhanmala, 2009. Unless such approval is given by the Board and notification is issued, no member including member-secretary of the committee can exercise his/her power. On the other hand, probidhan 9 provides tenure of managing committee which is two years effective from its first meeting held within one month from the date of publishing notification issued by the Board as provided in probidhan 33(1). Proviso to probidhan 9 also provides that the outgoing managing committee will function, though its tenure expires, till the 1st meeting of the new managing committee is held. A combined reading of probidhans 9, 29(3) and 33(1) it is clear that a new managing committee obtains legal character as and when it is approved and a notification is published to that effect by the Board and tenure of the committee starts from it’s first meeting within 30 (thirty) days from the date of publication of such notification by the Board. (emphasis added)
 
As per probidhan 7(জ) Headmaster of a non-government high school acts as member-secretary of managing committee as a ‘head of the institution’ and his function as member-secretary of new managing committee starts from the date of first meeting of the committee in view of the provisions laid down in probidhan 9, 29(3) and 33(1). The headmaster is not authorized to act as the member-secretary of the proposed managing committee before holding it’s first meeting . So before holding first meeting of new managing committee and during the ongoing process of forming new managing committee, the Headmaster acts as the ‘Head of the Institution’ as well as member-secretary of previous managing committee. (Emphasis added) 
 
Next question whether provision of probidhan 35(6) can be applied at the time of election of chairman of managing committee as per probidhan 8. It would be profitable to quote probidhan 35:
 
“৩৫। সভা পরিচালনা পদ্ধতি।-(১) সকল সভা সংশ্লিষ্ট বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনুষ্ঠিত হইবে।
(২) গভর্ণিং বডির বা, ক্ষেত্রমত, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সকল সভায় সভাপতিত্ব করিবেন এবং তাহার অনুপস্থিতিতে সংশ্লিষ্ট সদস্য-সচিব ও শিক্ষক সদস্যগণ ব্যতীত উপস্থিত অন্য সদস্যগণের মধ্যে হইতে উপস্থিত সদস্যগণের সংখ্যাগরিষ্ঠের সমর্থনে কোন সদস্যের সভাপতিত্বে সভা অনুষ্ঠিত হইবে।
(৩) মোট সদস্য সংখ্যার অর্ধেক সদস্যের উপস্থিতিতে সভার কোরাম গঠিত হইবে, তবে অর্ধেক সংখ্যা গণনায় কোন ভগ্নাংশ দেখা দিলে পরবর্তী পূর্ণ সংখ্যা কোরামের জন্য বিবেচনায় আনিতে হইবে।
(৪) যদি কোন সভায় কোরাম পূর্ণ না হয় তাহা হইলে সভা পরবর্তী কার্যদিবস পর্যন্ত মূলতবী থাকিবে এবং উক্ত কার্যদিবসে পূর্ব দিনের নির্ধারিত স্থান ও সময়ে উক্ত মূলতবী সভা অনুষ্ঠিত হইবে।
(৫) মূলতবী সভায় কোরাম প্রয়োজন হইবে না এবং উপস্থিত সদস্যগণের দ্বারা সভার কার্য পরিচালনা করা যাইবে।
(৬) সভায় উপস্থিত সদস্যগণের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যগণের সম্মতিতে সিদ্ধান্ত গৃহীত হইবে এবং ভোটের সমতার ক্ষেত্রে সভায় সভাপতিত্বকারী ব্যক্তির দ্বিতীয় বা নির্ণায়ক ভোট থাকিবে।”
 
Learned Advocate of the petitioner argued that procedure laid down in probidhan 35 would apply in taking decision in the meeting for election of chairman as per probidhan 8 inasmuch as in case of equal vote in deciding the election of chairman, decision have to be taken as per sub-probidhan (6) of probidhan 35 by a casting vote or second vote by the president of the meeting. It appears that language of probidhan 35 or 35(6) is very clear which indicates that those are applicable for conducting meeting of regular managing committee approved by the Board. According to probidhan 8(3) chairman is to be elected by ‘সভায় উপসিহত সদস্যদের সংখ্যা গরিষ্ঠের সমর্থনে’ i.e, by support of the majority members present in meeting which is a pre-condition in electing chairman. There is no express provision in probidhaman 8 for conducting meeting and taking decision, in case of ‘equal vote or support, as the case may be. So we are unable to accept the contention, as raised by the learned Advocate for the petitioner.
 
It also appears that 9 (nine) elected members were present in the said meeting out of them 5 (five) voted for the added respondent No.4 and the rest 4 (four) including the president of said meeting voted for the petitioner. In view of majority support of the elected members the added respondent No.4 was elected as the chairman of the proposed managing committee according to probidhan 8(3). It is the contention of added-respondent No.4 that when the headmaster of the school ignoring the result of election proposed the name of the petitioner as the chairman forwarded the full committee to the Board as per probidhan 29(3) showing that the petitioner obtained 6 votes including one vote of headmaster and casting vote of the president of the meeting, the said five members, who voted for added respondent No. 4, raised objection before the Board by application dated 2.12.2013 and 5.12.2013 as contained in Annexure-2 and 3 of affidavit-in-opposition. The Board considering such objection approved the managing committee on 13.1.2013 with the added respondent No.4 as chairman excluding the name of the petitioner.
 
Now question arises whether the respondents violated the principle of natural justice in passing the impugned order. In this regard we may refer probidhan 36 of Probidhanmala, 2009. Probidhan 36 prescribes legal consequence for adopting decision, by the managing committee or any of it’s member, which is inconsistent with the probidhanmala and other rules and regulations issued by Government and Board. Probidhan 36 runs as follows:
 
“৩৬। সিদ্ধান্ত গ্রহণ সংক্রান্ত অনুসরণীয় বিধান।-(১) গভর্ণিং বডি বা, ক্ষেত্রমত, ম্যানেজিং কমিটি এই প্রবিধানমালা বিংবা বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত সময় সময় সরকার কর্তৃক প্রদত্ত কোন আদেশ, সিদ্ধান্ত এবং বোর্ড কর্তৃক জারিকৃত কোন আদেশের সহিত সংগতিপূর্ণ নহে এইরুপে কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করিবে না।
(২) এই প্রবিধানমালার সহিত সংগতিপূর্ণ নহে এইরুপ কোন সিদ্ধান্ত গৃহীত হইলে, উক্তরুপে গৃহীত সকল সিদ্ধান্ত বাতিল ও অকার্যকর বলিয়া গণ্য হইবে এবং উক্তরুপ সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য গভর্ণিং বডি বা, ক্ষেত্রমত, ম্যানেজিং কমিটির সদস্যগণ একক ও যৌথভাবে দায়ী হইবেন।”
 
Above provision of probidhan 36 expressly says that any decision of managing committee, which is inconsistent with this probidhanmala shall be void and ineffective as well as members of the managing committee shall be held liable jointly and severally for such decision. 
 
We have already held that Headmaster of the school has no authority to participate in the election process for the purpose of election of chairman and vote for any person as chairman in view of the provision of probidhan 8. So the vote cast by the Headmaster was invalid on the face of it and no vote in the eye of law and is clearly hit by probidhan 8(3).
 
Thus decision of the Headmaster in casting vote for the petitioner being void ab inito and ineffective in view of the provision of probidhan 36(2), we are of the view that question of violation of natural justice does not arise. Furthermore, the petitioner by virtue of the forwarding of the Headmaster did not accrue any legal right as chairman as no notification was issued by the Board after approval of the managing committee in view of probidhan 29(3). We, therefore, find no subst-ance in the submission that the respondents violated principle of natural justice. 
 
Given the facts and circumstances of the case and discussion made above we find no illegality in passing the impugned order dated 13.01.2003, approving the added respondent No. 4 Md. Asaduzzaman as chairman in place of the petitioner and no interference is called for by us.
 
This rule merits no consideration, which is liable to discharged.
 
In the result, the Rule is discharged, however, without any order as to costs.
 
The order of stay and direction, which was modified later are recalled and vacated.
 
Ed.