Md. Ilias Hossain and others Vs. The State, 2 LNJ (2013) 7

Case No: Criminal Appeal No. 2254 of 2003

Judge: M. Enayeture Rahim,

Court: High Court Division,,

Advocate: Nurul Huq,Mr. Kazi Ebadat Hossain,Mr. Zahirul Islam,,

Citation: 2 LNJ (2013) 7

Case Year: 2013

Appellant: Md. Ilias Hossain and others

Respondent: The State

Subject: Confessional Statement, Law of Evidence,

Delivery Date: 2011-02-24

HIGH COURT DIVISION
(CRIMINAL APPELLATE JURISDICTION)
 
Md. Abu Tariq, J.
And
M. Enayetur Rahim, J.

Judgment
24.02.2011
  Md. Ilias Hossain and others.
...Petitioners
Vs.
 The State
...Respondent
 

Code of Criminal Procedure (V of 1898)
Section 164
Evidence Act (I of 1872)
Section 8
The pws. 13 and 14 proved the seizer list by which various apparels of the victim and other goods were seized and such evidence also corroborated the confessional statements of the convict persons that acid was thrown on the persons of the victims...(32)

Code of Criminal Procedure (V of 1898)
Sections 35A and 164
Nari-o-Shishu Nirjaton Daman Ain (VIII of 2000)
Sections 4(1), 4(2)(kha)
From the confessional statement of convict Md. Shamsuzzaman alias Bipu it appears that he admitted with the aid of the present convict-appellants, he threw acid on the persons of the victims but he did not mention with an intention to kill victim Rehana. The prosecution failed to bring any other evidence proving that in order to kill Rehana, convict Md. Shamsuzzaman threw acid on her person. To convict an accused under section 4 (1) of the said Ain of 2000 the prosecution has to prove that with an intention to kill, acid or other corrosive substance was thrown on the person of victim or the victim succumbed to injuries caused by acid or other corrosive substance. Thus the offence, committed by convict, appellants, does not come within the mischief of section 4(1) of the said Ain but it attracts section 4(2) (kha) of the Ain of 2000. Accordingly, the conviction and sentence was modified and the appellants were convicted under section 4(2) (kha)/30 of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain, 2000 and sentenced for rigorous imprisonment for 10 years with a fine of Tk. 20,000.00 in default to suffer imprisonment for one year more. The appellants will get benefit of section 35A, Cr. P.C.…(42, 43 & 52)
 
Mr. Zahirul Islam, Advocate
---For the petitioner

Mr. Md. Nurul Haque, AAG with
Mr. Kazi Ebadot Hossain, AAG
---For the respondent

Criminal Appeal No. 2254 of 2003
 
Judgment
M. Enayetur Rahim, J:
 
This appeal is directed against the judgment and order of conviction and sentence dated 20.05.2003 passed by the learned Judge, Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Tribunal, Chandpur in Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Case No.43 of 2000 convicting the appellants under Section 4(1)/30 of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain,2000 and sentencing them to suffer imprisonment for life with a fine of Tk.1,00,000/- in default to suffer rigorous imprisonment for 3 (three) years more.
 
The prosecution case, in short, is that P.W-3, victim-Rehana Akhter alias Bina is the daughter of P.W-1, Md. A. Hai Bhuiyan and Rehana Akhter was a student of Class XII of Galluk Adarsha College at the relevant time; some unknown persons used to send letters to Rehana Akhter offering love and taking account of that situation P.W-1 decided to give marriage to Rehana Akhter with one Imam Hossain; hearing about the settlement of the said marriage Imam Hossain was also threatened by some young men, who asked him not to marry Rehana Akhter; on 11.08.2000 at the evening P.W-3 Rehana Akhtar and her younger daughter P.W-4 Sultana Rajia while had been studying, at their room, P.W-5 Shahadat Hossain alias Roni, younger brother of them, came to that room and asked them to have their dinner; at that time at about 10.15 P.M a youngman threw acid through the eastern side window of the room aiming them and thereafter fled away. As a result, P.W-3 Rehana Akhter, P.W-4 Sultana Rajia and P.W-5 Shahadat Hossain received serious burn injuries on the different parts of their persons. Hearing the alarm of them the informant and P.W-2 Most. Shahanaz Begum, the wife of the informant, came to the place of occurrence and then the victims were taken to Chandpur Sadar Hospital; after getting primary treatment at Chandpur Sadar Hospital they were admitted in burn unit of Dhaka Medical Collage Hospital. When the said victims were under treatment, the P.W-1 on 13.08.2000 lodged a First Information Report with the police station.
 
On the basis of the First Information Report lodged by the P.W-1, the police started a case and its investigation. Police arrested the present convict-appellant and three others namely, Md. Ilias Hossain, Md. Monir Hossain and Md. Mamun Mirza. All the above four accused persons eventually made statement under Section 164 of the Code of Criminal Procedure before P.W-10 A. B. M Abdul Fattah, Magistrate 1st Class, confessing their guilt. The investigating officer on completion of the investigation submitted charge sheet against the said accused persons under Section 4(1) of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain,2000.
 
The case being ready for trial all the charge sheeted accused persons put on trial before the learned Judge, Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Tribunal, Chandpur. The learned Tribunal framed charges against the all charge sheeted accused persons under Section 4(1) of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain, to which they pleaded not guilty and claimed to be tried.
 
At the time of the trial the prosecution in all examined 21 (twenty one) witnesses to prove its case. The defence cross-examined all the prosecution witnesses but did not adduce any defence witness.
 
The case of the defence, in short, is that the accused persons were implicated in the case falsely and out of torture of the police and getting fear, they had compelled to make the statement under Section 164 of the Code of Criminal Procedure before the Magistrate.
 
On conclusion of the trial the learned Judge of the Tribunal by the judgment and order dated 20.05.2003 found the present appellants guilty under Section 4(1)/30 of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain,2000 and sentenced them to suffer imprisonment for life with a fine of Taka 1,00,000/-, in default to suffer rigorous imprisonment for 3(three) years and convicted Shamsuzzaman Bipu under Section 4(1) of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain,2000 and sentencing him to suffer imprisonment for life and also with a fine of Tk.1,00,000/- in default to suffer imprisonment for 3(three) years more and other 3(three)accused persons were convicted under Section 4(1)/30 of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain,2000 and sentenced them for imprisonment for life with a fine of Taka 1,00,000/-, in default to suffer rigorous imprisonment for 3(three) years and convicted the Shamsuzzaman Bipu. 
 
Being aggrieved by and dissatisfied with the said judgment and order of conviction and sentence, the present convict-appellants are thus before us by preferring this appeal.
 
Md. Zahirul Islam, the learned Advocate appears on behalf of the appellant and placed the impugned judgment and order of conviction and sentence and other material evidence on record before us. Mr. Islam submits that the learned Tribunal acted illegally in convicting the appellant, though the prosecution failed to prove the case beyond reasonable doubt against him. He further submits that the confessional statements under Section 164 of the Code of Criminal Procedure of the convict appellants were obtained by torture and those were not true and voluntary.
 
On the other hand Mr. Kazi Ebadot Hossain, the learned Assistant Attorney General appearing for the State submits that the learned Tribunal did not commit any error or illegality in convicting the appellants. The appellants them self admitted their guilt by making confessional statement under Section 164 of the Code of Criminal Procedure before the Magistrate, 1st class and as such he prays for dismissal of the appeal.
 
Heard the learned Advocate of the respective parties, perused the impugned judgment and order of conviction and sentence and material evidence available on the record.
It appears from the impugned judgment and order of conviction and sentence that the Tribunal itself observed to the effect:
"আলোচ্য মামলায় ভিকটিমত্রয়কে এসিড নিক্ষেপ করার ঘটনার কোন প্রত্যক্ষদর্শি সাক্ষী নাই''
 
But the Tribunal despite that finding, relying on the confessional statements under Section 164 of the Code of Criminal Procedure of the found them guilty and awarded the conviction and sentence.
 
We have also examined the evidence of P.W-1, the informant Md. A. Hai Bhuiyan, P.W-2 Most. Shahnaj Begum mother of the victim, P.W-3 Rehana Akhter alias Bina, the main victim, P.W-4 Sultana Rajia, another victim, P.W-5, Shahadat Hossain alias Roni, the other victim, P.W-6 Shah Alam Bhuiyan, the cousin of the informant, P.W-8 Md. Amir Hossain Bhuiyan, younger brother of the informant, P.W-9 Md. Jitu Mia, P.W-12 Md. Abu Taleb Bhuiyan, P.W-14 Md. Ali alias Mohammad Hossain, P.W-15 Haji Mojammal Haque Bhuiyan nephew of the informant. In their respective deposition and cross-examination they categorically stated that they did not see the occurrence of throwing acid by the accused persons. But the said witnesses deposed that after the occurrence they came to know that all the four accused persons have committed the offence.
 
In view of the above facts and circumstances, we are of the view that it is not at all necessary to discuss elaborately the evidence of the above witnesses.
 
In the instant case the conviction was based mainly, relying on the confessional statement under Section 164 of the Code of Criminal Procedure of the convict persons.
 
Now let us consider, whether the confessional statements of the present appellants and three other convicts are true and voluntarily and whether the conviction can be awarded relying on the same. 
 
The confessional statement under Section 164 of convict-Md. Shamsuzzaman alias Bipu is as follows:

“আমি ইলিয়াছ, বীনা একই স্কুলে লেখাপড়া করতাম। ঐ সময়ে আমার বীনার সাথে প্রেম ছিল। ৯৯ সনে আমরা তিনজন এস, এস, সি, পরীক্ষা দেই। আমারা ফেল করি। বীনা কলেজে ভর্তি হ|য়। আমরা আবার পরীক্ষা দেই। আমরা আবার ফেল করি। পরীক্ষা শেষে আমি ঢাকায় গিয়ে চাকুরী করি। সাড়ে তিনমাস পর বাড়ীতে আসি। বাড়ীতে আসার ২/৩ দিন পর ইলিয়াছ ও মামুনের সাথে দেখা হয়। আমি ইলিয়াছের কাছে বীনার খবর জানতে চাই। ইলিয়াছ বলে যে, বীনার বিয়ে ঠিক হচ্ছে। আমি ইলিয়াছকে বলি যে, কি করা যায়।
তখন ইলিয়াছ বলে যে, এসিড মার। তাহলে আর বিয়ে হবে না। মামুনের কছে এসিড চাইলে সে রাজি  হয়। তবে কাউকে বলতে নিষেধ করে। এরপর আমি বাড়ীতে চলে আসি। বিকালে আমি মামুনের কাছ থেকে এসিড এনে ইলিয়াছের বাড়ীতে এসিড রেখে আসি।
পরদিন সন্ধ্য বেলা মামুন দোকানে যাওয়ার সময় রাস্তায় আমার সাথে দেখা হয়। মামুনকে নিয়ে আমি ইলিয়াছের বাড়ীতে আসি। ইলিয়াছের বাড়ীতে ইলিয়াছের মা আমাদের চা-মুড়ি দেয়। ইলিয়াছ, মনির ও মোবারককে মাছ ধরার কথা বলে নিয়ে আসে। ইলিয়াছের ঘর থেকে স্টীলের একটি গ্লাস নেই। বোতল ভর্তি এসিড নিয়ে আমরা বাড়ীর উত্তর পাশে গিয়া গ্লাসে পানি নিয়া এসিড টেষ্ট করি। মামুন বলে যে, এসিড ভালো না। তখন মামুন তার দোকান থেকে আবার এসিড আনতে বলে। আমি ইলিয়াছ মনির মামুন গল্লাক যাই এসিড আনার জন্য। ব্রীজের কাছে আমাদের রেখে মামুন বোতল নিয়া দোকান থেকে এসিড নিয়ে আসে। আমাকে এসিডের বোতল দিয়ে মামুন দোকানে চলে যায়।
আমরা তিনজন ভুইয়া বাড়ীর কাছে আসি। ইলিয়াছ মনিরকে বীনা কি করে দেখে আসতে বলে। মনির দেখে এসে বলে বীনা লেখাপড়া করছে। ইলিয়াছ বলে যে, এই-ই সময়। আমি বোতল থেকে এসিড নিয়া বাড়ীর ভিতরে যাই। ইলিয়াছ মনির বাড়ীর বাইরে থাকে। আমি বীনাদের ঘরের পূর্ব পাশের জানালা দিয়া বীনার গায়ে এসিড মারি। এসিড মেরে দৌড়ে বাড়ীর বাইরে এসে দৌড় পূর্ব দিকে যাই।
যাওয়ার পথে একটি খড়ের পারায় গ্লাসটি লুকিয়ে রেখে ইলিয়াছের বাড়ীতে গিয়ে ইলিয়াছের খাটে শুয়ে পড়ি। সকালে ইলিয়াসকে ঘুমে রেখে আমি চলে আসি। ঐদিন আমার বাড়ীতে থেকে পরদিন আমি ঢাকায় চলে যাই। লোকমুখে শুনেছি যে, বীনা, উষা ও রনির গায়ে এসিড পড়েছে। এই আমার জবানবন্দি।
 
The confessional statements under Section 164 of the Code of Criminal Procedure of convict Md. Monir Hossain is as follows: 
“আমি ঢাকায় কারখানায় শ্রমিকের কাজ করি। প্রায় একমাস আগে আমি আমাদের বাড়ীতে আসি। ১১/৮/২০০০ইং তারিখ বাড়ীতে ছিলাম। রাতে বাড়ীতে ভাত খেতে আসলে আমার জেঠাতো ভাই ইলিয়াছ এবং মামাতো ভাই সামছুজ্জামান বিপু আমাকে ডাকে। আদের সাথে সামছুল আলমের ছেলে মামুন ছিল।
তাদের সাথে ইলিয়াছের ঘরে গেলে ইলিয়াছের মা আমাদের চা-মুড়ি খেতে দেয়। রাত ০৯.০০ টার কিছু পরে আমরা চারজন ঐ ঘর থেকে বের হয়ে বাড়ীর এক কোনে পুকুরপাড়ে যাই। তখন বিপুকে একটি গ্লাস ও একটি বোতল বের করতে দেখি। গ্লাসে করে পুকুর থেকে পানি নেয় এবং বোতল থেকে লালচে ধরনের পানির মতো জিনিস বের করে গ্লাসের পানির সাথে মিশায়। এরপর বলে যে, এই এসিড নষ্ট হয়ে গেছে। একথা বলে সেটা সে পুকুরে ফেলে দেয়।
এরপর আমি রাস্তার ধারে আসি। সেখানে মামুন আমাদের বসতে বলে বাড়ীতে খেতে যায়। আমার ভাই মোবারক তখন আমাদের সাথে ছিল। মোবারক পরে বাড়ীতে চলে যায়। মামুনসহ আমরা ৪জন বাজারে যাই। মামুন তাদের দোকান থেকে বোতলে করে এসিড নিয়ে আসে এবং বিপুকে দেয়। মামুন বাজারে থেকে যায়। আমরা ৩ জন ভূইয়া বাড়ীতে আসি। সেখানে বিপু আমাকে বলে বীনা কি করে তা দেখে আসতে। আমি গিয়া দেখে এসে বলি যে, বীনা পড়ার টেবিলে আছে। তখন বিপু এসিড গ্লাসে ঢালে। বিপু বাড়ীতে ঢুকে। আমি ও ইলিয়াছ রাস্তার ধারে চলে আসি।
 
The confessional statement under Section 164 of the Code of Criminal Procedure of convict Md. Ilias Hossain is as follows:
“আমি, বিপু ও বীনা একই স্কুলে পড়তাম। ১৯৯৯ সনে বীনা এস, এস, সি, পাশ করে কলেজে ভর্তি হয়। আমি আর বিপু ফেল করি। বিপু বীনার সাথে প্রে|ম করতো। ২০০০ সালে আমরা আবার পরীক্ষা দেই এরপর বিপু ঢাকা চলে যায়।
সাড়ে তিন মাস পর সে বাড়ীতে আসে। আমার সাথে ও মামুনের সাথে তার দেখা হয়। বিপু আমাদের বীনার কথা জিজ্ঞেস করে। আমি জানাই যে, বীনার বিয়ে ঠিক হয়ে যাচ্ছে। তখন বিপু জিজ্ঞেস করে যে, কি করা উচিত। আমি বললাম যে তুই বীনাকে এসিড মার। মামুন বললো যে, সে এসিড দেবে। তবে তার কথা কাউকে যেন বলা না হয়। বৃহস্পতিবার বিকালে বিপু মামুনের দোকানে গিয়ে এসিড আনে। এসিড আমাদের ঘরে রাখে।
পরদিন শুত্র্রবার ১১/৮/২০০০ইং সন্ধ্যায় বিপু মামুন আমাদের বাড়ীতে যায়। আমি মনির ও মোবারককে ডেকে আনি। আমার মা আমাদেরকে চা-মুড়ি দেয়। খেয়ে আমি এসিডের বোতল নেই। বিপু আমাদের ঘর থেকেই একটি স্টীলের গ্লাস নেয়। নিয়ে আমাদের বাড়ীর উত্তর পাশে আসি। বিপু পুকুর থেকে গ্লাসে পানি নেয়। নিয়ে আমাদের বাড়ীর উত্তর পাশে আসি। বিপু পুকুর থেকে গ্লাসে পানি নেয়। মামুনসহ গ্লাসে এসিড টেষ্ট করি।
মামুন বললো যে, এই এসিড ভালো নয়। তখন আমি, মামুন, বিপু, মনির আবার গল্লাক বাজারের দিকে রওয়ানা দেই। ব্রীজের গোড়ায় আমি, মনির, বিপু দাড়িয়ে ছিলাম। মামুন দোকান থেকে এসিড এনে বিপুর হাতে দেয়। সে আবার দোকানে চলে যায়। আমি, বিপু, মনির এসিড নিয়ে ভুইয়া বাড়ীর কাছাকাছি আসি। আমি মনিরকে বলি, বীনা কি করে দেখে আসার জন্য।
মনির দেখে এসে বলে বীনা পড়ার টেবিলে আছে। আমি বিপুকে বলি যে, এই-ই সময়, তুই গ্লাসে এসিড ঢাল। তখন বিপু গ্লাসে এসিড ঢেলে আমার হাতে বোতল দেয়। বিপু আমাদের বলে তোরা দাড়া, কেউ আসে কিনা দেখ। গ্লাসে এসিড নিয়ে বিপু ভিতরে যায়। আমি খালি বোতলটি কচুরীপানার উপর ফেলে দিয়ে মনিরসহ মসজিদের ঘাটলায় চলে যাই। সেখানে মজিব, আইউব, তাজুল, আমি, মনির একত্রে ছিলাম। এদের সাথে কথা বলতে থাকি। ২/৩ মিনিট পর ভুইয়া বাড়ী থেকে চিৎকার শুনি। চিৎকার শুনে আমরা ঐ বাড়ীতে যাই। বিপু দৌড়ে আমাদের সামনে দিয়ে পূর্ব দিকে চলে যায়।
আমরা সবাই বাড়ীতে ঢুকে বীনা আর রনিকে কান্নারত অবস্থায় দেখি। তখন আমি আর মনির বাড়ীর দিকে যাই। বাড়ীতে গিয়ে দেখি বিপু আমার খাটে শুয়ে আছে। আমিও একই সাথে শুয়ে থাকি। বিপু সকালে উঠে আমাকে না জানিয়ে চলে যায়। আমি এরপর বাড়ীতেই ছিলাম।“
 
The confessional statement under Section 164 of the Code of Criminal Procedure of convict-Md Mamun Mirza is as follows: 
“ইলিয়াছ ও বিপু আমার সাথে ২০০০ সালে এস, এস, সি পরীক্ষা দেয়। আমাদের বন্ধুত্ব হয়। বিপুর সাথে বীনার প্রেমের কথা আমি শুনেছিলাম। বৃহস্পতিবার বিপু ও ইলিয়াছের সাথে আমার সন্ধ্যা বেলায় দেখা হয়। আমার সামনে বিপু ইলিয়াছকে বীনার খবর জিজ্ঞসা করে। ইলিয়াছ বলে যে, বীনার বিয়ে ঠিক হচ্ছে।
তখন বিপু কি করা যায় বললে ইলিয়াছ বলে যে, তুই এসিড মার। আমাদের ব্যাটারীর দোকান থেকে এসিড দিতে পারবো কিনা বলে ইলিয়াছ জিজ্ঞেস করলে আমি বলি যে, এসিড দিতে পারবো তবে আমার কথা কাউকে বলতে নিষেধ করি। বিপু বিকালে আমার দোকান থেকে ৫০০/- টাকা দিয়ে একটি বোতলে করে এসিড আনে। এসিডের পরিমান এক পোয়ার কম হবে। শুত্র্রবারে সন্ধ্যা বেলা বিপুর সাথে আমার পথে দেখা হয়। বিপু আমাকে ইলিয়াছের বাড়িতে যেতে বলে। আমরা ইলিয়াছের ঘরে গেলে ইলিয়াছের মা চা-মুড়ি দেয়।
ইলিয়াছ মাছ ধরার কথা বলে মনির, মোবারককে ডেকে আনে। চা-মুড়ি খেয়ে আমরা পাঁচজন ঘরের বাইরে যাই। ইলিয়াছ এসিডের বোতল ও একটি গ্লাস নেয়।  আমরা ইলিয়াছের বাড়ীর উত্তর পাশে পুকুরের পাড়ে যাই। তারপর বিপু গ্লাসে পানি নেয়। আমি গ্লাসে এসিড ঢালি। আমি বলি যে, এই এসিড ভালো নয়। তখন বিপু আর ইলিয়াছ বলে যে, তাদের ভালো এসিড দিতে হবে। আমি, বিপু, ইলিয়াছ ও মনির বাজারের দিকে রওয়ানা হই। মোবারক তার বাড়ীতে চলে গিয়েছিলো।
গল্লাক বাজারে গয়ে ব্রীজের নিকট দাড় করিয়ে আমি দোকানে যাই। বিপুর নিকট থেকে বোতলটি নিয়ে আমি দোকান-এ গিয়ে এসিড নিয়ে এসে বিপুকে দেই। আমি তাদের সাথে আর যাইনি। দোকানে ছিলাম। ঘন্টা/দেড় ঘন্টা পরে বাজারে লোকমুখে শুনি যে, আবদুল হাই ভুইয়ার এক  ছেলে, দুই মেয়েকে কিছু দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে। এই আমার জবানবন্দি।”
 
On scanning of the above confessional statement of the 4(four) convict, it appears to us that those confessional statements are inculpatory in nature. The pertinent statement of convict Shamsuzzaman Bipu is that;
""আমি বীনাদের ঘরের পূর্ব পাশের জানালা দিয়ে বীনার গায়ে এসিড মারি। এসিড মেরে দৌড়ে বাড়ীর বাইরে এসে দৌড়ে পূর্ব দিকে যাই।''
 
From the statement of convict-Ilias Hossain, it appears that he had advised convict Md. Shamsuzzaman alias Bipu to throw acid on the person of victim Bina and he helped Bipu in collecting acid. From the statement of convict -Monir Hossain it appears that before committing the offence all the accused persons met in his house and they all went to the bazar namely, Gallak Market to collect acid. Convict-Mamun Mirja admitted in his statement that he supplied the acid from their shop of battery.
 
P.W-10 A.B.M Abdul Fattah, Magistrate 1st Class, who recorded the confessional statement of the convict appellants, in his deposition categorically stated that while he was serving at Chandpur as a Magistrate 1st Class he recorded the statement of accused-Monir on 17.08.2000 and on 20.08.2000 recorded the statement of accused-Md. Shamsuzzaman alias Bipu, Ilias Hossain and Md. Mamun Mirza respectively. He identified those statements as exhibits-4, 5, 6, 7, 8 and his signature on those as exhibits-4/1 4/6, 5/1 5/6, 6/1 6/6, 7/1 7/6, 8/1 8/6 respective. This witness also deposed that he after observing all the legal formalities and complying the provision of law recorded the statement of the accused persons under Section 164 of the Code of Criminal Procedure.
 
In cross-examination he denied the defence suggestion that he recorded the statement in not complying the mandatory provision of law and the accused persons were sick and he also stated to the effect:
"আসামী আমার নিকট এই মর্মে অভিযোগ করে নাই যে, পুলিশ তাহাদিগকে নির্যাতন করিয়াছিল''
 
P.W-21, Sub-Inspector Swapan Kumar Majumder, the investigating officer, in his cross-examination denied the defence suggestion that he managed to record the statement of the accused persons upon torturing on them.
 
At the time of the examination of the convict appellant under Section 342 of the Code of Criminal Procedure, the learned Judge of the Tribunal had drawn attention to them with regard to their confessional statement under Section 164 of the Code of Criminal Procedure before the Magistrate. But the convict persons did not say anything at the time of said examination about the alleged torture of the police, which prompted them to make such statements.
 
Having discussed as above, we have no hesitation to hold that the confessional statements under Section 164 of the Code of Criminal Procedure of all the four convict are true and voluntarily and those are free from doubt.
 
P.W-7 Md. Mobarak Hossain, a seizer list witness, who is the cousin of convict-Monir, in his deposition stated that on the day of occurrence at 8.00 P.M he saw that on the bank of the pond Shamsuzzaman alias Bipu had been dropping some liquid in a still glass. Thereafter, he threw the glass.
 
P.W-9 Md. Jitu Mia, another seizer list witnesses, in his deposition stated that;
“গত ১৮/৮/২০০০ইং তারিখে দারোগা সাহেব আসামী সামছুজ্জামান ওরফে বিপু ও মোঃ মামুন মির্জাকে নিয়v আমাদের এলাকায় আসার পর তাহাদেরকে এজাহারকারীর বাড়ীর সামনে আনার পর  আমরা সেখানে যাই। তখন উও্র দুইজন আসামী আমাদের সম্মুখে জানায় যে,  তাহারা যে প্লাষ্টিকের বোতলে করিয়া জখমীদের এসিড মারিয়াছিল তাহা রাস্তার দক্ষিন পাশে কচুরিপানায় ফেলিয়া দিয়াছিল।”
 
P.W-11 Md. Abdul Goni Patwary alias Babul, another seizer list witnesses corroborated the above assertion of P.W-9 and he also identified his signature on it as exhibit-3/2 and the plastic bottle, material exhibit-II.
 
P.W-13, Sayed Shafiqul Hider alias Shahin, P.W-14 Md. Ali alias Mohammad Hossain proved the seizer list as exhibit-9 and their signature on it as exhibits-9/1 and 9/2 respectively, by which various apparels of the victims and other goods were seized. This evidence also corroborated the confessional statements of the convict persons that acid was thrown on the persons of the victims.
 
P.W-20 Dr. K.A Tajam in his deposition stated that on 18.08.2000, he examined victim Rehana Akhter alias Bina and found the following injuries:
(1) One burn spot on right frontal region of size 11/2” X 11/2” (Permanent disfiguration of face).
(2) Multiple small burn area on the right cheek causing permanent disfiguration of face.
(3) One burn area in the right scapular region of size 2” X 1”.
(4) Multiple small burn area on the right knee joint.

He identified the medical certificate Exhibit-10 and his signature and on it Exhibit-10/1. On very that day he also examined victim Sultana Rajia alias Usa and found the following injuries:
  1. One small burn spot on the left cheek of size ¼” X ¼”.
  2. Multiple small burn area on the left and right arm and fore arm.
  3. Multiple small burn area on the right thigh. 
He also examined victim Shahadat Hossain and found the following injuries:
  1. Multiple small burn spots on both thigh, abdomen and back.
  2. One small burn area on right cheek. 
He also identified the respective medical certificate and his signature on those as exhibits-11, 11/1 and 12, 12/1 respectively.
 
From exhibit-10 it appears that the P.W-10 mentioned that the injury No.1 and 2 caused permanent disfiguration of the face of victim Rehana Akhter.
 
P.W-3 Rehana Akhter alias Bina in his deposition stated that:
"এসিডে আমার ডান পাশের কপাল, গাল ও গলা পর্যন্ত ঝলসাইয়া যায় এবং এই সাক্ষী উক্ত এসিডে ঝলসানো দাগ অত্র আদালতকে দেখান।
উক্ত এসিডে আমার ডান পাশের পিঠ হইতে কোমর পর্যন্তও ঝলসাইয়া যায়। উক্ত এসিডে আমার ডান পায়ের হাটুর উপরে ও নিচে এবং ডান হাতের বাহু কনুই পর্যন্ত ঝলসাইয়া যায় এবং এই সাক্ষী উক্ত এসিডে ঝলসানো দাগও অত্র আদালতে দেখান। ……….এসিডে আমার ডান পাশের পিঠ হইতে কোমড় পর্যন্ত ঝলসানো দাগ আদালত দেখিতে চাইলে আমি তাহা দেখাই।''
 
From material exhibit-XIII, the photograph of the victim Rehana Akhter immediately after the occurrence; it appears that on the left side of the cheek, there is a black injury mark, but that injury can not be treated as the permanent disfiguration of the face. So far the other victims are concerned the Doctor did not opine that their injuries were caused permanent disfiguration, of any part of their respective body. The learned Tribunal itself saw the victim while victim Rehana Akhter deposed before it but the learned Tribunal did not observed in the impugned judgment that the face of victim Rehana Akhter has disfigured.
 
In view of the said facts and circumstances we are of the view that the prosecution proved that convict-Md. Shamsuzzaman alias Bipu with the help of convict-Ilias, Monir and Monsur Mirza, threw acid on the person of victims and caused several burn injuries on their respective persons but considering the material exhibit-XIII, the photograph, and the injuries shown before the learned Tribunal there is a reasonable doubt whether the face of the victim Rrhana Akhtar has disfigured.
 
The learned Tribunal convicted Md. Shamsuzzaman alias Bipu under Section 4(1) and convicted the present appellants under Section 4(1)/30 of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain. Section 4 of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain, 2000 is as follows:
৪। দহনকারী, ইত্যাদি পদার্থ দ্বারা সংঘটিত অপরাধের শাস্তি - (১) যদি কোন ব্যও্রি দহনকারী, ক্ষয়কারী অথবা বিষাক্ত পদার্থ দ্বারা কোন শিশু বা নারীর মৃত্যু ঘটান বা মৃত্যু ঘটানোর চেষ্টা করেন, তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তি মৃত্যুদন্ডে বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডনীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিও্র অনূর্ধব এক লক্ষ টাকা অর্থদন্ডেও দন্ডনীয় হইবেন;
(২) যদি কোন ব্যও্রি কোন দহনকারী, ক্ষয়কারী বা বিষাও্র পদার্থ দ্বারা কোন শিশু বা নারীকে এমনভাবে আহত করেন যাহার ফলে উও্র শিশু বা নারীর দৃষ্টিশস্তি বা শ্রবণশক্তি নষ্ট হয় বা শরীরের কোন অঙ্গ বা অংশ বিকৃত বা নষ্ট হয় বা তাহার শরীরের অন্য কোন স্থান আহত হয়, তাহা হইলে উও্র শিশুর বা নারীর-
(ক) দৃষ্টিশও্রি বা শ্রবণশও্রি নষ্ট বা মুখমন্ডল, স্তন বা যৌনাংগ বিকৃত বা নষ্ট হওয়ার ক্ষেত্রে উও্র ব্যও্রি মৃত্যুদন্ডে বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডনীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিও্র অনূর্ধব এক লক্ষ টাকার অর্থদন্ডেও দন্ডনীয় হইবেন;
(খ) শরীরের অন্য কোন অংগ, বা অন্য কোন অংশ বিকৃত বা নষ্ট হওয়ার বা শরীরের কোন স্থানে আঘাত পাওয়ার ক্ষেত্রে, উক্ত ব্যক্তি অনধিক চৌদ্দ বৎসর কিন্তু অন্যূন সাত বৎসরের সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডনীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিও্র অনূর্ধব পঞ্চাশ হাজার টাকার অর্থদন্ডেও দন্ডনীয় হইবেন;
 
From the confessional statement under Section 164 of the Code of Criminal Procedure it appears that convict-Md. Shamsuzzaman alias Bipu admitted with the aid of the present convict-appellants, he threw acid on the persons of the victims. But in his statement he did not mention to the effect that with an intention to kill victim-Rehana, he threw acid on her person. Save and except the statement of convict-Md. Shamsuzzaman alias Bipu and the present appellant, who admitted that they aided convict-Md. Shamsuzzaman in committing the offence, the prosecution failed to bring any other evidence that in order to kill victim-Rehana Akhter alias Bina, convict-Md. Shamsuzzaman threw acid on her person. To convict an accused under Section 4(1) of the Nari-O-Shishu Nirjatan Ain,2000, the prosecution must have proved that with an intention to kill, acid or other corrosive substance was thrown on the person of victim or the victim succumbed to injuries caused by acid or other corrosive substance. Thus, the offence, which has proved, does not come within the mischief of Section 4(1) of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain,2002.
 
Section 4(2)(ka) of the Nari-O-Shishu Nirjatan Ain,2000 provides punishment, for causing "বিকৃত বা নষ্ট' of eye sight or hearing power, face, breast and private parts of the body by throwing acid or other corrosive substance. To convict a person under Section 4(2)(ka) of the Nari-O-Shishu Nirjatan Ain, 2000, the prosecution has to prove that by sustaining injury/injuries by acid or other corrosive substance, the victim has lost her eye sight, hearing power, or disfigured (বিকৃত বা নষ্ট) face, breast and private parts of the body.
 
In the instant case in the medical report, exhibit-10, the injury No.1 and 2 have been mentioned as permanent disfiguration but material exhibit-XIII the photograph contradicts the said medical certificate and victim Rehana Aktar on her deposition did not claim such disfiguration (বিকৃত বা নষ্ট). The learned Judge of the Tribunal also did not give any clear finding to the effect that the face of victim Rehana Akhter alias Bina has disfigured (বিকৃত), receiving burn injuries by acid.
 
In "ব্যবহারিক বাংলা অভিধান' published by Bangla Academy the meaning of word "বিকৃত' has given as follows: "বিকৃত- অস্বাভাবিক র্রপ, বিভৎস (বিকৃত মূর্তি)'
 
The meaning of word ‘disfigure’ given in ‘Oxford Dictionary’ is as follows:

Disfigure-Spoil the beauty of; deform; deface.
Deform means-put out of shape; make ugly.
Deface means-spoil the appearance of;
 
If we consider material Exhibit XIII, the photograph of victim Rehana Akhtar and her evidence, it is very difficult for us to hold that her face has become ‘বিকৃত’ as per its true meaning that face has turned in to ‘অস্বাভাবিক রুপ’ or ‘বিভৎস (বিকৃত মূর্তি)’ or the face has defaced or deformed spoiling its appearance of.
 
Thus, we are of the view that the conviction under Section 4(2)(ka) of the Nari-O-Shishu Nirjatan Ain,2000 will not also be proper, rather the offence as has been proved, would come within the mischief of Section 4(2)(kha) of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain,2001, where punishment provides for causing any other injury /injuries(Md. Sakkhor Zaman, son of Md. Moniruzzaman Ocrl.A.1450 of 2006.doc) on the persons by acid or other corrosive substance .
 
Having discussed as above we are of the view that convict-Md. Shamsuzzaman alias Bipu has committed offence under Section 4(2)(kha)of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain,2000 instead of 4(1) of the said Ain with the aid of the present appellants and thus we are inclined to convict the present appellants under Section 4(2)(Kha)/30 of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain,2000.
 
In the result, the appeal is dismissed with the modification of the order of conviction and sentence. The appellants are hereby convicted under Section 4(2)(kha)/30 of the Nari-O-Shishu Nirjatan Daman Ain,2000 and sentenced for rigorous imprisonment for 10(ten) years with a fine of Tk. 20,000/-, in default to suffer rigorous imprisonment for 1(one)year more.
 
The appellants are entitled to get the benefit of Section 35A of the Code of Criminal Procedure.
 
Send down the lower Court record at once.
 
Ed.